সৈয়দ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
ওসমানীয়া খেলাফত যুগে নবী মোহাম্মদের বংশধরগণ সবুজ পাগড়ী ব্যবহারের মাধ্যমে এক স্বকীয় পরিচয়ের স্বাক্ষর বহন করতেন

সৈয়দ বা স্যৈয়দ বা সাইয়্যেদ বা সায়্যিদ (ইংরেজি: Sayed also spelled Sayyid, Seyd, Syed, Saiyid, Seyed and Seyyed) (আরবি: سيد‎‎; meaning Mister) (plural Sadah আরবি: سادة‎‎, Sādah) হল এমন একটি সম্মানসূচক উপাধি যদ্বারা নবী নন্দিনী ফাতেমা ও তার স্বামী আলী ইবন আবী তালিবের সন্তান হাসান ও হোসাইনের বংশধারার নবী মোহাম্মদের বংশধরগণকে[১] চিহ্নিত করা হয়ে থাকে। লেখ্যরুপের ক্ষেত্রে আরবী হরফ ছিন (আরবি: س‎‎) দ্বারা এ উপাধিটি লিখা হয় তাই এর বানান ছ- অক্ষর দিয়ে লেখা হয়ে থাকে। অন্যপক্ষ্যে, যদিও সীন (আরবি: ش‎‎) মূল আরবী বানানে লেখা হয়না তথাপি স- অক্ষর যোগেও এ উপাধিটির ব্যাপক ব্যবহার লক্ষ্য করা যায়।

সৈয়দ হতে হলে পিতৃগোত্রজ হতে হবে এমন কোন ধরাবাঁধা নিয়ম নেই। মাতৃগোত্রজ ব্যক্তির ক্ষেত্রেও এ উপাধি ব্যবহুত হয়ে থাকে। উদাহরণ স্বরুপ বলা যায়, ১৬৩২ সালে ওসমানী খেলাফত যুগে রাষ্ট্রীয় আদালত (ইংরেজি: Ottoman court) এক ব্যক্তিকে সৈয়দ উপাধিধারীদের ব্যবহার্য্য সবুজ পাগড়ী ব্যবহার করা বিষয়ে অভিযুক্ত করেন। ঐ ব্যক্তি প্রমাণ করতে সফল হন যে, তিনি মাতৃগোত্রজ সূত্রে ছৈয়দ এবং এ যুক্তিটি ছিল স্বীকৃত।[২]

সৈয়দ বংশীয় নারীদের উপাধি হয়ে থাকে যথাক্রমে সৈয়দা বা আলাউইয়্যা বা শরীফা।

ইসলামের প্রাথমিক যুগে হাসান ও হোসাইন উভয়ের বংশলতিকায় নবীর বংশধর বুঝাতে সৈয়দ এবং শরীফ উপাধিদ্বয় ব্যবহার করা হত। অন্যদিকে, পরবর্তী কালে হাসানি বংশ বুঝাতে পুরুষদের শরীফ ও নারীদের শরীফা এবং হোসাইনি বংশীয় বুঝাতে যথাক্রমে ছৈয়দ ও ছৈয়দা উপাধিতে ভূষিত করার রেওয়াজ লক্ষ্য করা যায়[৩]

সৈয়দ যাদের পদবি[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Ho, Engseng. 2006. Graves of Tarim. University of California Press. Berkeley. p. 149
  2. Sayyids and Sharifs in Muslim Societies: The Living Links to the Prophet, (আইএসবিএন ৯৭৮-০-৪১৫৫-১৯১৭-৫ সংস্করণ)। pub. Routledge,। ২০১২। পৃ: ed. Kazuo Morimoto,। 
  3. Encyclopaedic Ethnography of Middle-East and Central Asia: A-I, Volume 1 edited by R. Khanam