ইরাকের জনপরিসংখ্যান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
ইরাকের জনপরিসংখ্যান
Iraq-demography.png
ইরাকের জনসংখ্যা, ১৯৬১-২০১০
জনসংখ্যা: ৩৪,৩৫৬,১০৬ (২০১৬ প্রাককলন) (৩৭তম)
বৃদ্ধিহার: বৃদ্ধি ২.৯০% (২০১৬)
জন্মহার: ২২.২২ জন্ম/১,০০০ জনে (২০০৯ প্রাককলন)
মৃত্যুহার: ৬.৪ মৃত্যু/১,০০০ জনে (২০০৯ প্রাককলন)
গড় আয়ু: ৬৯.৪০ বছর (২০১৬ প্রাককলন)
–পুরুষ: ৬৭.২৩ বছর (২০১৬ প্রাককলন)
–মহিলা: ৭১.৬৮ বছর (২০১৬ প্রাককলন)
গর্ভহার: ৪.৬ শিশুজন্ম/নারী (২০১৬ প্রাককলন) (৩২তম)
শিশুমৃত্যু হার: ৩৮.৮৬ মৃত্যু/১,০০০ জন্মে (২০১০ প্রাককলন)
বয়স গঠন:
০-১৪ বছর: ৩৮% (পুরুষ ৭,১৬৬,০৭৩/মহিলা ৬,৯১৭,৫৮৮) (২০১৬ প্রাককলন)
১৫-৬৪ বছর: ৫৮.৯% (পুরুষ ১১,০৫৭,০৩১ /মহিলা ১০,৭৫২,২৫৭) (২০১৬ প্রাককলন)
৬৫-তদুর্ধ্ব: ৩.১% (পুরুষ ৫৩১,০৪০/মহিলা ৬০৮,০৬৬) (২০১৬ প্রাককলন)
লিঙ্গানুপাত:
জাতীয়তা:
প্রধান জাতিগোষ্ঠী: আরব জাতি এবং কুর্দি জাতি
ভাষা:
সরকারি: আরবিকুর্দি

ইরাকের জনপরিসংখ্যানে ইরাকের জনসংখ্যা, জনসংখ্যার ঘনত্ব, জন্ম বৃদ্ধি, জাতিসত্ত্বা, জাতিগত, শিক্ষার স্তর, জনগণের স্বাস্থ্য, অর্থনৈতিক অবস্থা, ধর্মীয় বিশ্বাস ও জনসংখ্যার সাথে সম্পৃক্ত অন্যান্য বিষয়াদি তুলে ধরা হয়েছে।

ইরাক হল মধ্যপ্রাচ্যের একটি রাষ্ট্র। ইরাকের মোট আয়তন ৪,৩৮,৩১৭ বর্গ কিলোমিটার। ২০১৬ সালের উপাত্ত অনুযায়ী এর জনসংখ্যা ৩৪,৩৫৬,১০৬[১]। জাতিগতভাবে ইরাকের অধিকাংশই হচ্ছে আরবদের (৭৫-৮০%), কুর্দিদের (১৫-২০%) এবং বাকি (৫%) অন্য জাতি দ্বারা অনুসৃত।[২] ৯৯% মুসলিম, ০.৮% খ্রিস্টান এবং বাকি অন্যান্য সংখ্যালঘুদের অন্তর্গত। জনসংখ্যার দিক থেকে এটি বিশ্বের ৩৭ম বৃহত্তম দেশ। বিশ্বের সামগ্রিক জনসংখ্যার ০.৪৯% ইরাকের অধিবাসী। এখানে জনসংখ্যার ঘনত্ব প্রতি বর্গ কিলোমিটারে প্রায় ৮৭ জন। এখানে জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ৩.৩০% (২০০৫ সালের হিসাব)। ইরাকে নারীপুরুষের অনুপাত ১০০:১০১। এখানকার পুরুষ ও মহিলাদের গড় আয়ু ৬৯.৪০ বছর।

পরিচ্ছেদসমূহ

পটভূমি[সম্পাদনা]

ইরাক অঞ্চলটি মুসলিম বিশ্বের বহির্ভাগ মেসোপটেমিয়া নামে পরিচিত।[৩] ১৯২০ সালের উপাত্ত অনুযায়ী এর জনসংখ্যা ৩০ লাখ ছিল। উর ব্যাবিলনের এবং অন্যান্য প্রাচীন শহরের ধ্বংসাবশেষ ইরাকে অবস্থিত, যেমন ইডেন উদ্যানের কিংবদন্তি স্থান। ইরাকের জনসংখ্যার প্রায় ৭৫% সমতল ভূমিতে বসবাস করে, পাললিক সমভূমি পারস্য উপসাগর থেকে তিকরিত শহরের নিকটে দক্ষিণ-পূর্বে বিস্তৃত। দজলাফোরাত নদী প্রতি বছর প্রায় ৭ কোটি ঘনমিটার পলি বদ্বীপে বয়ে নিয়ে আসে।

দেশটির উত্তরাঞ্চল পর্বতময়, সর্বোচ্চ পর্বতের নাম চিকাহ দার, যার উচ্চতা ৩,৬১১ মিটার। পারস্য উপসাগরে ইরাকের ক্ষুদ্র একটি তটরেখা আছে। সমুদ্র উপকূলের কাছের অঞ্চলগুলি জলাভূমি ছিল, তবে ১৯৯০-এর দশকে এগুলির পানি নিষ্কাশন করা হয়। ইরাকের জলবায়ু মূলত ঊষর। শীতকাল শুষ্ক ও ঠাণ্ডা; গ্রীষ্মকাল শুষ্ক, গরম, ও মেঘহীন। উত্তরের পার্বত্য অঞ্চলে শীতকালে ভারী বরফ পড়ে এবং এতে মাঝে মাঝে বন্যার সৃষ্টি হয়।

জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

২০০৩ থেকে ইরাকের ইথনো ধর্মীয় মানচিত্র, সিআইএ দ্বারা নির্মিত।
৩৪,৩৫৬,১০৬ (২০১৬ এর অনুমান),[৪][৫][৬] আলোচ্য থেকে ৩১,২৩৪,০০০ (এপ্রিল ২০০৯ আইএমএফ অনুমান)[৭][৮]
অঞ্চল দ্বারা ইরাকের গর্ভধারন হার (২০০৬)[৯]
  ৫ - ৬
  ৪ - ৫
  ৩ - ৪
  ২ - ৩

অত্যাবশ্যক পরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

জাতিসংঘের অনুমান[১০][সম্পাদনা]

সময়কাল প্রতি বছরে জীবিত জন্ম প্রতি বছরে মৃত্যু প্রতি বছরে প্রাকৃতিক পরিবর্তন সিবিআর সিডিআর এনসি টিএফআর আইএমআর
১৯৫০-১৯৫৫ ৩২৭ ০০০ ১৫৮ ০০০ ১৬৯ ০০০ ৫৩.২ ২৫.৮ ২৭.৫ ৭.৩০ ১৯৭.৬
১৯৫৫-১৯৬০ ২৯৭ ০০০ ১৩৩ ০০০ ১৬৪ ০০০ ৪২.৬ ১৯.১ ২৩.৫ ৬.২০ ১৫২.৯
১৯৬০-১৯৬৫ ৩৪৩ ০০০ ১২২ ০০০ ২২১ ০০০ ৪৩.৩ ১৫.৪ ২৭.৯ ৬.৬০ ১২০.৭
১৯৬৫-১৯৭০ ৪৩০ ০০০ ১২১ ০০০ ৩০৯ ০০০ ৪৬.৫ ১৩.১ ৩৩.৪ ৭.৪০ ৯৬.০
১৯৭০-১৯৭৫ ৪৭৫ ০০০ ১২১ ০০০ ৩৫৪ ০০০ ৪৬.৬ ১১.১ ৩২.৫ ৭.১৫ ৭৬.৪
১৯৭০-১৯৮০ ৫২৬ ০০০ ১২৪ ০০০ ৪০২ ০০০ ৪১.২ ৯.৮ ৩১.৫ ৬.৮০ ৬০.৪
১৯৮০-১৯৮৫ ৫৭১ ০০০ ১৮৫ ০০০ ৩৮৭ ০০০ ৩৯.১ ১২.৬ ২৬.৫ ৬.৩৫ ৪৮.৯
১৯৮৫-১৯৯০ ৬৩৮ ০০০ ১৩২ ০০০ ৫০৫ ০০০ ৩৮.৮ ৮.০ ৩০.৮ ৬.১৫ ৪১.৮
১৯৯০-১৯৯৫ ৭১৯ ০০০ ১০৫ ০০০ ৬১৪ ০০০ ৩৮.২ ৫.৬ ৩২.৬ ৫.৮০ ৪৩.৪
১৯৯৫-২০০০ ৮৩৬ ০০০ ১১৯ ০০০ ৭১৭ ০০০ ৩৭.৯ ৫.৪ ৩২.৫ ৫.৪০ ৩৮.১
২০০০-২০০৫ ৯৬০ ০০০ ১৪৪ ০০০ ৮১৬ ০০০ ৩৭.৫ ৫.৬ ৩১.৯ ৫.১২ ৩৫.৯
২০০৫-২০১০ ১০৭৯ ০০০ ১৮৭ ০০০ ৮৯২ ০০০ ৩৬.৬ ৬.৩ ৩০.২ ৪.৮৬ ৩৪.৬
1 সিবিআর = অশোধিত জন্ম হার (প্রতি ১০০০); সিডিআর = অশোধিত মৃত্যুর হার (প্রতি ১০০০); এনসি = প্রাকৃতিক পরিবর্তন (প্রতি ১০০০); টিএফআর = মোট উদ্ভাবনশীলতার হার (প্রতি নারীর শিশুর সংখ্যা); আইএমআর = ১০০০ এ জন্ম প্রতি শিশুমৃত্যুর হার

জন্ম ও মৃত্যু[সম্পাদনা]

বছর জনসংখ্যা (x১০০০) জীবিত জন্ম মৃত্যু প্রাকৃতিক বৃদ্ধি অশোধিত জন্ম হার অশোধিত মৃত্যুর হার প্রাকৃতিক বৃদ্ধির হার টিএফআর
২০১৩ ১০,৭৭,৬৪৫ ১,৮৯,১১৮ ৮,৮৮,৫২৭
২০১৪ ৩,৬০,০৪,৫৫২[১১]

গর্ভধারন বয়সের গড় ১৯৯৭-২০০৬[সম্পাদনা]

বয়সের সীমা ১৯৯৭[১২] ২০০৬[১৩]
১৫-১৯ ৫৬.২ ৬৮
২০-২৪ ২১০ ১৮৭
২৫-২৯ ২৭৬.২ ২২১
৩০-৩৪ ২৫৭.৯ ১৮৮
৩৫-৩৯ ১৯৬.৫ ১৩৬
৪০-৪৪ ১০১.৪ ৫৬
৪৫-৪৯ ৩১
মোট ১১২৮.২ ৮৬৫
টিএফআর ৪.৩

জনসংখ্যার কাঠামো[সম্পাদনা]

জনসংখ্যার কাঠামো (০১.০৭.২০১৩)[১১] (আনুমানিক) :

বয়সের সীমা পুরুষ মহিলা মোট %
মোট ১৭,৭১০,৭৫০ ১৭,০৮৬,৪৪৪ ৩৪,৭৯৪,১৯৪ ১০০
০-৪ ২,৪৯৫,১৩১ ২,৪০৫,৮৬২ ৪,৯০০,৯৯৩ ১৪.০৯
৫-৯ ২,৩৭৪,৯০৮ ২,১৯১,৮০৭ ৪,৫৬৬,৭১৪ ১৩.১২
১০-১৪ ২,২৩২,৭১২ ২,০৪৮,৮৯১ ৪,২৮১,৬০৩ ১২.৩১
১৫-১৯ ১,৯৩৭,৭১৪ ১,৮২৫,৯৬৩ ৩,৭৬৩,৬৭৭ ১০.৮২
২০-২৪ ১,৭০১,৮৮৪ ১,৫৯৩,৬৭৯ ৩,২৯৫,৫৬৩ ৯.৪৭
২৫-২৯ ১,৪২৪,৭৩৯ ১,৩১৬,৪৬২ ২,৭৪১,২০১ ৭.৮৮
৩০-৩৪ ১,১৭৬,৪৩৩ ১,১৩৪,৮৮২ ২,৩১১,৩১৬ ৬.৬৪
৩৫-৩৯ ৯৮৩,৫৭০ ১,০৪৪,৩২৫ ২,০২৭,৮৯৫ ৫.৮৩
৪০-৪৪ ৯৩৩,৭৮৫ ৮৯৭,৯৩৬ ১,৮৩১,৭২২ ৫.২৬
৪৫-৪৯ ৭৪৬,৮৮৪ ৭৬৩,৩১১ ১,৫১০,১৯৫ ৪.৩৪
৫০-৫৪ ৫০৮,৪৯৮ ৫৬২,২৭৪ ১,০৭০,৭৭২ ৩.০৮
৫৫-৫৯ ৩৫৬,৫৮১ ৩৯৩,৫১১ ৭৫০,০৯৩ ২.১৬
৬০-৬৪ ৩৪৫,৮৩০ ৩৭৮,৪৫৬ ৭২৪,২৮৫ ২.০৮
৬৫-৬৯ ১৮৭,৬২৬ ২১৮,৯৯১ ৪০৬,৬১৭ ১.১৭
৭০-৭৪ ১৩৩,২৭৭ ১৩৮,৩৭৫ ২৭১,৬৫১ ০.৭৮
৭৫-৭৯ ৮১,৭৪২ ৯০,৬৩০ ১৭২,৩৭৩ ০.৫০
৮০+ ৮৯,৪৩৬ ৭৮,০৮৭ ১৬৭,৫২৩ ০.৪৮
বয়সের সীমা পুরুষ মহিলা মোট শতাংশ
০-১৪ ৭,১০২,৭৫১ ৬,৬৪৬,৫৬০ ১৩,৭৪৯,৩১১ ৩৯.৫২
১৫-৬৪ ১০,১১৫,৩১৮ ৯,৯১০,৮০১ ২০,০২৬,১১৯ ৫৭.৫৬
৬৫+ ৪৯২,০৮১ ৫২৬,০৮৩ ১,০১৮,১৬৪ ২.৯৩

জাতিগত ও ধর্মীয় সমষ্টি[সম্পাদনা]

ইরাকে জাতিগত এবং ধর্মীয় সমষ্টি
  শিয়া আরব
  সুন্নি আরব
  কুর্দি
  আসিরিয়া
  ইরাকি তুর্কমেনীয়
  ইয়াযিদ

ইরাকের প্রভাবশালী জাতিগোষ্ঠির মধ্যে ইরাকি বা মেসোপটেমিয়ার আরবরা রয়েছে, এই জাতি ইরাকের মোট জনসংখ্যার প্রায় তিন-চতুর্থাংশ। তারা প্রাচীন মেসোপটেমীয় আরব, ইরান, এবং অন্যান্য জনগোষ্ঠীর অন্তর্ভুক্ত, যারা বর্তমানে মেসোপটেমীয় আরবি ভাযায় কথা বলে।

ইরাকি আরবদের (ফিলিস্তিনিদের সহ, মার্শ আরব বেদুইন ও অন্যান্য আরব উপগোষ্ঠী): ৭২-৭৫%, কুর্দিদের (ফেলিছ , ইয়াজিদিছ, শাহ্‌বাকছ এবং কাকা'ইজ সহ): ২০-২২%, তুর্কমেনী: ২%, আসিরিয়ার: ২%, অন্যান্য: ১% (আর্মেনীয়দের, কার্কাসিয়ান, পারস্য, মানদিয়ানছ / সাবেয়ী, বাহাই এবং আফ্রো-ইরাকী এবং দোমস)।

ভাষাসমূহ[সম্পাদনা]

আরবিকুর্দি হল ইরাকের দুটি রাষ্ট্রভাষা। আরবি ইরাকের সংখ্যাগরিষ্ঠ ভাষা, সাধারণত ইরাকি জনগণের প্রায় ৭৯ শতাংশ কথা বলা হয়ে থাকে আরবি ভাষায় বা প্রায় সমস্ত ইরাকের জনসংখ্যাই এই ভাষা বোঝে। কুর্দি হল ইরাকের বৃহত্তম দ্বিতীয় ভাষা এবং কুর্দিস্তানে এটি আঞ্চলিক ভাষায় প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। কুর্দি দুটি প্রধান স্থানীয় ভাষা কুর্দি ইরাকী দ্বারা কথিত হয় প্রধান কুর্দিশ হিসেবে (আর্বিল এবং সুলায়মানিয়াহ রাজ্যপালের উচ্চারিত)।[১৪] মোট জনসংখ্যার প্রায় ১৫-২০% কুর্দি[১৫] এবং বাকি ৫% তুর্কমেনীয়, নিও-আরামিক ভাষায় মানুষ কথা বলে থাকে।[১৬] অন্যান্য ছোট সংখ্যালঘু ভাষা মানদাইছ, শাবাকি, আর্মেনিয়ান, ফেলি লুরিশ ও ফারসি অন্তর্ভুক্ত।

উপরন্তু, ইরাকের কোনো অঞ্চলে বা প্রদেশের অন্যান্য ভাষাগুলি রাষ্ট্রভাষায় ঘোষণা করা হতে পারে যদি উক্ত শহরে জনসংখ্যার সংখ্যাগরিষ্ঠ একটি সাধারণ গণভোটে অনুমোদন পায়।[১৭]

ধর্মীয় জনপরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

ইরাকে প্রধান ধর্ম ইসলাম, ইরাকীদের প্রায় ৯৭% দ্বারা ইসলাম অনুসৃত হয়। অন্যান্য ৩% খ্রিস্টান এবং অন্যান্য ধর্মের নিম্নলিখিত ব্যক্তিদের সমন্বয়ে গঠিত। সমস্ত ইরাক জুড়ে অনেক শহরে উভয় শিয়াসুন্নি মুসলিমদের নাজাফ, কারবালা, বাগদাদসামারায় সহ ঐতিহাসিক প্রাধান্য এলাকা রয়েছে।

ইসলাম[সম্পাদনা]

ইরাকে ইসলামের অংশগুলো [১৮]
ধর্ম শতাংশ
শিয়া ইসলাম
  
৬৫%
সুন্নি ইসলাম
  
৩২%
ফাল্লুজার একটি মসজিদ

ইরাকের দুটি স্বতন্ত্র ঐতিহ্যে ৯৭% মুসলমানরা ইসলাম অনুসরণ করেন, যাদের মধ্যে ৬৫% শিয়া (আরব, ফেয়লি কুর্দ, তুর্কমেনী) এবং ৩২% সুন্নি (আরব ও কুর্দি) রয়েছে।[১৯] ২০১১ সালের একটি পিউ রিসার্চ সেন্টারের জরিপে দেখা যায়, ইরাকের মুসলমানদের ৫১% শিয়া, ৪২% সুন্নি, এবং বাকি ৫% "শুধু একজন মুসলিম" হিসেবে নিজেদের বর্ণনা দেয় এমন।[২০][২১] আরবি ভাষী শিয়া ইরাকীইউনুস হিসাবে পরিচিত এবং আরবি ভাষী সুন্নি জাজিরা আরবদের নামে পরিচিত। ইসলামের ছোট অংশগুলো ইরাকে বিদ্যমান, যেমন শিয়ার একটি ছোট অংশ শায়খধর্ম (الشيخية) সম্প্রদায় বসরা ও কারবালায় কেন্দ্রীভূত।[২২]

ইরাক বহুধর্মীয় উভয় শিয়া ও সুন্নি মুসলমানদের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ শহর। বাগদাদে শতাব্দী ধরে ইসলামী শিক্ষাবৃত্তির একটি চক্রকেন্দ্র ছিল এবং আব্বাসীয় খিলাফতের রাজধানী হিসেবে দায়িত্ব পালন করে। ১০ অক্টোবর ৬৮০ খ্রিস্টাব্দে কারবালার যুদ্ধের ফলে আধুনিক শহরের প্রতিদ্বন্দিতাপূর্ণ স্থান কারবালায় শিয়া ইসলামের সারগর্ভ প্রাধান্য পেয়েছে। একইভাবে, ইরাকের নাজাফ শহরে আলী ইবনে আবু তালিবের (এছাড়াও "আলী" নামে পরিচিত) সমাধি স্থান হিসাবে খ্যাত, যাকে শিয়ার ধার্মিক খলিফা এবং ইসলামের প্রথম ইমাম বলা হয়। শহরটি এখন শিয়া ইসলামী বিশ্বের সর্বত্র থেকে হজ্বের একটি মহান কেন্দ্র এবং এটা অনুমান করা হয় যে শুধুমাত্র মক্কামদিনা আরো মুসলিম তীর্থযাত্রীদের গ্রহণ করে।

ইরাকের কুফা শহরে ফিকহশাস্ত্রের একজন প্রখ্যাত বিশেষজ্ঞ এবং গুরুত্বপূর্ণ ইসলামী ব্যক্তিত্ব আবু হানীফার বাসস্থান ছিল, যার চিন্তার পাঠশালা সারা বিশ্ব জুড়ে সুন্নি মুসলমানদের একটি বৃহদাকার সংখ্যা দ্বারা অনুসরণ করা হয়। অনুরূপভাবে, সামারা শহর হল আল-আসকারী মসজিদের আবাস স্থল, যথাক্রমে দশম ও একাদশ শিয়া ইমাম আলী আল-হাদীহাসান আল আসকারী এর সমাধি স্থল, সেইসাথে মুহাম্মদ আল-মাহদী মাজারে তাঁরা "লুকানো ইমাম" নামে এবং জাফর (Ja'farī) মাযহাবের শিয়া দ্বাদশ এবং চূড়ান্ত ইমাম হিসেবে পরিচিত। এই স্থানটি জাফর শিয়া মুসলমানদের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ তীর্থকেন্দ্র তৈরি হয়েছে। উপরন্তু, নবী মুহাম্মাদের কিছু নারী আত্মীয়দের ইরাকের সামারা শহরে দাফন করা হয়, শহরটি শিয়া মুসলমানদের জন্য ভক্তি ও সুন্নি মুসলমানদের জন্য শ্রদ্ধাজ্ঞাপনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটি স্থানে পরিণত হয়।

খ্রীষ্টধর্ম[সম্পাদনা]

খ্রিস্টধর্মের দূত টমাস, আদ্দাই (থদ্দেয়) এবং তার শিষ্যগণ আগগাগি এবং মারি দ্বারা প্রথম শতাব্দীতে ইরাকে সর্বপ্রথম খ্রিস্টধর্ম আনা হয়েছিল।

ইহুদি ধর্ম[সম্পাদনা]

জরথুস্ট্রপন্থা[সম্পাদনা]

অন্যান্য[সম্পাদনা]

জনমিতি পরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

নিম্নলিখিত জনতাত্ত্বিক পরিসংখ্যান সিআইএ ওয়ার্ল্ড ফ্যাক্টবুকইউনেস্কো ইন্সটিটিউট দ্বারা প্রকাশিত সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী দেওয়া হয়েছে, যদি অন্যথায় নির্দেশিত না থাকে।[২৩]

বয়স কাঠামো[সম্পাদনা]

০-১৪ বছর: ৩৬.৭% (পুরুষ ৬,০৯৩,০৬৯ / মহিলা ৫,৮৭৮,৫৯০)
১৫-২৪ বছর: ১৯.৬% (পুরুষ ৩,২৩৭,২১২ / মহিলা ৩,১৪২,২০২)
২৫-৫৪ বছর: ৩৬.৩% (পুরুষ ৬,০৩২,৩৭৯ / মহিলা ৫,৭৮৫,৯৬৭)
৫৫-৬৪ বছর: ৩.২% (পুরুষ ৬৫২,৯৭৩ / মহিলা ৭১৩,৬৬২)
৬৫ বছর এবং তাঁর চেয়ে বেশি: ৩.২% (পুরুষ ৪৮৭,৮৪১ / মহিলা ৫৬১,৭৯৭) (২০১৪ প্রাককলন)[২৪]

জাতিগত সমষ্টি[সম্পাদনা]

আরব জাতি ৭৫%-৮০%
কুর্দি জাতি ১৫%-২০%
তুর্কীজাতি, আসিরিয়ান এবং অন্যান্য ৫%

ধর্মসমূহ[সম্পাদনা]

ইসলাম ৯৯% (৩২,২৫৯,৮৩৫ সম্প্রদায়) (শিয়া ৬০%-৬৫%, সুন্নি ৩২%-৩৭%)[২৫]
খ্রিষ্টান ০.৮% (২৬০,৬৮৬ সম্প্রদায়)
হিন্দু <০.১ (৩২,৫৮৬ সম্প্রদায়)
বৌদ্ধ <০.১
ইহুদি <০.১
লোকজ ধর্ম <০.১
অননুমোদিত <০.১
অন্যান্য <০.১ (২০১৬ প্রাককলন)[২৬]

ভাষাসমূহ[সম্পাদনা]

আরবি (সরকারী)
কুর্দি (সরকারী)
তুর্কমেনীয় (একটি তুর্কি উপভাষা) (অধিকাংশ এলাকার ক্ষেত্রে সরকারী)
আসিরিয়ান (নিও-আরামিক) (অধিকাংশ এলাকার ক্ষেত্রে সরকারী)
আর্মেনীয়

মধ্যমা বয়স[সম্পাদনা]

মোট: ২১.৩ বছর
পুরুষ: ২১.২ বছর
মহিলা: ২১.৪ বছর (২০১৩ প্রাককলন)

জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার[সম্পাদনা]

৩.৩০% (২০১৫ প্রাককলন)

অশোধিত জন্ম হার[সম্পাদনা]

২৭.৫১ জন্ম/১,০০০ জনসংখ্যা (২০১৩ প্রাককলন)

অশোধিত মৃত্যুর হার[সম্পাদনা]

৪.৬৫ মৃত্যু/১,০০০ জনসংখ্যা (২০১৩ প্রাককলন)

মোট গর্ভহার[সম্পাদনা]

৪.৬ শিশুজন্ম/নারী (২০১৬ প্রাককলন)

পরিপক্ব অভিপ্রয়াণ হার[সম্পাদনা]

০ অভিবাসী/১,০০০ জনসংখ্যা (২০১৩ প্রাককলন)

নগরায়ন[সম্পাদনা]

শহরের জনসংখ্যা: মোট জনসংখ্যার ৬৬.৫% (২০১১ প্রাককলন)
নগরায়ণের হার: পরিবর্তনের বার্ষিক হার ৩.০৫% (২০১০-১৫)

লিঙ্গ অনুপাত[সম্পাদনা]

জন্মের সময়: ১.০৫ পুরুষ/মহিলা ০-১৪ বছর: ১.০৪ পুরুষ/মহিলা
১৫-২৪ বছর: ১.০৩ পুরুষ/মহিলা
২৫-৫৪ বছর: ১.০৪ পুরুষ/মহিলা
৫৫-৬৪ বছর: ১.০৩ পুরুষ/মহিলা
৬৫ বছর এবং তাঁর চেয়ে বেশি: ০.৮৭ পুরুষ/মহিলা
মোট জনসংখ্যা: ১.০৩ পুরুষ/মহিলা (২০১৪ প্রাককলন)[২৭]

মাতৃমৃত্যুর হার[সম্পাদনা]

৬৩ মৃত্যু/১,০০,০০০ জীবন্ত জন্ম (২০১০ প্রাককলন)

শিশু মৃত্যুর হার[সম্পাদনা]

৩৮.৮৬ মৃত্যু/১,০০০ জীবন্ত জন্ম (২০১০ প্রাককলন)

জন্ম থেকে সম্ভাব্য আয়ুষ্কাল[সম্পাদনা]

মোট জনসংখ্যা: ৬৯.৪০ বছর
পুরুষ: ৬৭.২৩ বছর
মহিলা: ৭১.৬৮ বছর (২০১৬ প্রাককলন)

গর্ভনিরোধক প্রাদুর্ভাব হার[সম্পাদনা]

৫১.২% (২০১১)

স্বাস্থ্য অর্থব্যয়[সম্পাদনা]

৮.৪% জিডিপির (২০১১ প্রাককলন)

চিকিৎসকের ঘনত্ব[সম্পাদনা]

০.৬৯ চিকিৎসক/১,০০০ জনসংখ্যা (২০০৯ প্রাককলন)

হাসপাতালের বিছানা ঘনত্ব[সম্পাদনা]

১.৩ বিছানা/১,০০০ জনসংখ্যা (২০১২ প্রাককলন)[২৮][২৯]

স্থূলতা - প্রাপ্তবয়স্ক প্রাদুর্ভাব হার[সম্পাদনা]

২১.২% (২০১৪ প্রাককলন)[৩০]

৫ বছরের কম বয়সী ওজনের শিশু[সম্পাদনা]

৭.১% (২০০৬ প্রাককলন)

জাতীয়তা[সম্পাদনা]

বিশেষ্য: ইরাকবাসী
বিশেষণ: ইরাকী

সাক্ষরতা[সম্পাদনা]

আরও দেখুন: সাক্ষরতার হার অনুযায়ী রাষ্ট্রসমূহের তালিকা
ইরাকে ১৮,৩০১,৫০১ জন ব্যক্তি বা প্রাপ্তবয়স্ক জনসংখ্যার ৭৯.৭৫% (১৫ বছরের ঊর্ধ্বে) পড়তে ও লিখতে পারবেন। তদনুসারে প্রায় ৪,৬৪৬,৮৯৩ জন প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তি অশিক্ষিত। (১৩ মার্চ, ২০১৬)
  • প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষ জনসংখ্যার জন্য স্বাক্ষরতার হার হল ৮৫.৬৬% (৯,৯২৫,৭৬২ জন) এবং ১,৬৬২,৩০৯ জন অশিক্ষিত।
  • প্রাপ্তবয়স্ক নারী জনসংখ্যার জন্য স্বাক্ষরতার হার হল ৭৩.৭৩% (৮,৩৭৫,৭৩৯ জন) এবং ২,৯৮৪,৫৮৪ জন অশিক্ষিত।
যুব সাক্ষরতার হার ৮২.৪২% এবং নারী ও পুরুষের তদনুসারে ৮০.৬১% । সামগ্রিকভাবে যুব সাক্ষরতার হার হল ৮১.৫৪% । যুব সাক্ষরতার হার নির্ধারণ করা হয়েছে ১৫ থেকে ২৪ বছর বয়সের মধ্যে জনসংখ্যার জুড়ে।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Population of Iraq (2016)"livepopulation.com 
  2. "Women in Iraq"। info4migrants.com। সংগৃহীত নভেম্বর ১, ২০১৬ 
  3. "IRAQ: LEGAL HISTORY AND TRADITIONS"লাইব্রেরি অব কংগ্রেস। loc.gov। সংগৃহীত ১৯ মার্চ, ২০১৫ 
  4. "Iraq Population (LIVE)"ওয়াল্ড মিটারস (ইংরেজি ভাষায়)। worldometers.info। সংগৃহীত ১৩ নভেম্বর, ২০১৬ 
  5. TIME For Kids Almanac 2017। Time Inc.। ২০১৬। পৃ: ২৮৮। আইএসবিএন 1618935453 
  6. "Iraq"ম্যাসেজ পাসিং ইন্টারফেস। migrationpolicy.org। সংগৃহীত ২৩ মার্চ, ২০১৬ 
  7. "Iraq"imf.orgআন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল। সংগৃহীত ২০০৯-০৪-২৭ 
  8. "Country Profile of Iraq"। ibcr.org। 
  9. "Multiple Indicator Cluster Survey 2006 - unicef statistics"। Unicef। সংগৃহীত ২০১৬-০৩-২০ 
  10. World Population Prospects: The 2010 Revision
  11. http://unstats.un.org/unsd/demographic/products/dyb/dyb2.htm
  12. http://cosit.gov.iq/en/population-manpower-staatistics/life
  13. "SURVEYS"। unicef.org। 
  14. "The Kurdish language"KRG। সংগৃহীত ২০১০-১২-১২ 
  15. Constitution of Iraq.
  16. "Iraq, CIA World Factbook"। CIA। ৩১ জুলাই ২০১২। সংগৃহীত আগস্ট ৮, ২০১২ 
  17. ইরাকের সংবিধান, ধারা ৪ (৫ম)
  18. "Middle East :: IRAQ"cia.gov (ইংরেজি ভাষায়)। CIA The World Factbook। 
  19. "The World Factbook" 
  20. "Chapter 1: Religious Affiliation"পিউ রিসার্চ সেন্টার (ইংরেজি ভাষায়)। pewforum.org। আগস্ট ৯, ২০১২। সংগৃহীত অক্টোবর ১৬, ২০১৫ 
  21. "Religious Identity Among Muslims - Pew Research Center"পিউ রিসার্চ সেন্টারের ধর্ম ও পাবলিক লাইফ প্রজেক্ট (ইংরেজি ভাষায়)। ৯ আগস্ট ২০১২। 
  22. John Esposito, ইসলাম অক্সফোর্ড অভিধান, অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় প্রেস ২০০৩
  23. "Middle East :: IRAQ"। CIA The World Factbook। 
  24. "Iraq: People & Society"Global Geography। global-geography.org। জুলাই ২০১৪। সংগৃহীত জুন ৩০, ২০১৫ 
  25. "Sunni and Shia: The Worlds of Islam"পাবলিক ব্রডকাস্টিং সার্ভিস। pbs.org। মার্চ ২৬, ২০০৭। সংগৃহীত এপ্রিল ১৯, ২০১৫ 
  26. "Iraq Population by Religions"। livepopulation.com। সংগৃহীত ১৩ নভেম্বর, ২০১৬ 
  27. "Iraq PEOPLE 2013"Geographic (ইংরেজি ভাষায়)। geographic.org। ফেব্রুয়ারি ১২, ২০১৩। সংগৃহীত ফেব্রুয়ারি ১২, ২০১৩ 
  28. "HOSPITAL BED DENSITY (BEDS/1,000 POPULATION)"সেন্ট্রাল ইন্টেলিজেন্স এজেন্সি (ইংরেজি ভাষায়)। cia.gov। সংগৃহীত ২ নভেম্বর, ২০১৬ 
  29. "Iraq Hospital bed density"ইনডেক্স মুন্ডি। indexmundi.com। অক্টোবর ৮, ২০১৬। সংগৃহীত অক্টোবর ৮, ২০১৬ 
  30. "OBESITY - ADULT PREVALENCE RATE(%)"সেন্ট্রাল ইন্টেলিজেন্স এজেন্সি (ইংরেজি ভাষায়)। cia.gov। সংগৃহীত ১৩ নভেম্বর ২০১৬ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]