লিবিয়া জাতীয় ফুটবল দল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
লিবিয়া
দলের লোগো
ডাকনামমেডিটেরেনিয়ান ঘোড়া
অ্যাসোসিয়েশনলিবীয় ফুটবল ফেডারেশন
কনফেডারেশনক্যাফ (আফ্রিকা)
প্রধান কোচজোরান ফিলিপোভিচ
অধিনায়কমুহাম্মদ নাশনুশ
সর্বাধিক ম্যাচআহমেদ সাদ ওসমান (১০৮)
শীর্ষ গোলদাতাআলি আল-বিস্কি (৪৮)
মাঠত্রিপোলি স্টেডিয়াম
ফিফা কোডLBY
ওয়েবসাইটwww.lff.org.ly
প্রথম জার্সি
দ্বিতীয় জার্সি
ফিফা র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ১১৯ হ্রাস(৭ এপ্রিল ২০২১)[১]
সর্বোচ্চ৩৬ (সেপ্টেম্বর ২০১২)
সর্বনিম্ন১৮৭ (জুলাই ১৯৯৭)
এলো র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ১১৯ হ্রাস ৩১ (২৪ এপ্রিল ২০২১)[২]
সর্বোচ্চ৪৬ (আগস্ট ১৯৮৫)
সর্বনিম্ন১২৪ (জুন ২০০৩)
প্রথম আন্তর্জাতিক খেলা
 মিশর ১০–২ লিবিয়া 
(মিশর; ২৯ জুলাই ১৯৫৩)
বৃহত্তম জয়
 লিবিয়া ২১–০ মাস্কট ও ওমান Flag of Muscat.svg
(ইরাক; ৬ এপ্রিল ১৯৬৬)
বৃহত্তম পরাজয়
 মিশর ১০–২ লিবিয়া 
(মিশর; ২৯ জুলাই ১৯৫৩)
আফ্রিকা কাপ অফ নেশন্স
অংশগ্রহণ৩ (১৯৮২-এ প্রথম)
সেরা সাফল্যরানার-আপ (১৯৮২)

লিবিয়া জাতীয় ফুটবল দল (ইংরেজি: Libya national football team) হচ্ছে আন্তর্জাতিক ফুটবলে লিবিয়ার প্রতিনিধিত্বকারী পুরুষদের জাতীয় দল, যার সকল কার্যক্রম লিবিয়ার ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা লিবীয় ফুটবল ফেডারেশন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। এই দলটি ১৯৬৪ সাল হতে ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা ফিফার এবং ১৯৬৫ সাল হতে তাদের আঞ্চলিক সংস্থা আফ্রিকান ফুটবল কনফেডারেশনের সদস্য হিসেবে রয়েছে। ১৯৫৩ সালের ২৯শে জুলাই তারিখে, লিবিয়া প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক খেলায় অংশগ্রহণ করেছে; মিশরে অনুষ্ঠিত উক্ত ম্যাচে লিবিয়া মিশরের কাছে ১০–২ গোলের ব্যবধানে পরাজিত হয়েছে।

৬৫,০০০ ধারণক্ষমতাবিশিষ্ট ত্রিপোলি স্টেডিয়ামে মেডিটেরেনিয়ান ঘোড়া নামে পরিচিত এই দলটি তাদের সকল হোম ম্যাচ আয়োজন করে থাকে। এই দলের প্রধান কার্যালয় লিবিয়ার রাজধানী ত্রিপোলিতে অবস্থিত। বর্তমানে এই দলের ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করছেন জোরান ফিলিপোভিচ এবং অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করছেন আল আহলির গোলরক্ষক মুহাম্মদ নাশনুশ

লিবিয়া এপর্যন্ত একবারও ফিফা বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করেনি। অন্যদিকে, আফ্রিকা কাপ অফ নেশন্সে লিবিয়া এপর্যন্ত ৩ বার অংশগ্রহণ করেছে, যার মধ্যে সেরা সাফল্য হচ্ছে ১৯৮২ আফ্রিকান কাপ অফ নেশন্সের ফাইনালে পৌঁছানো, যেখানে তারা ঘানার সাথে ১–১ গোলে ড্র করার পর পেনাল্টি শুট-আউটে ৭–৬ গোলের ব্যবধানে পরাজিত হয়েছে।

তারিক আল তাইব, মুহাম্মদ নাশনুশ, আলি সালামা, আহমেদ সাদ ওসমান এবং আলি আল-বিস্কির মতো খেলোয়াড়গণ লিবিয়ার জার্সি গায়ে মাঠ কাঁপিয়েছেন।

র‌্যাঙ্কিং[সম্পাদনা]

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে, ২০১২ সালের সেপ্টেম্বর মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে লিবিয়া তাদের ইতিহাসে সর্বোচ্চ অবস্থান (৩৬তম) অর্জন করে এবং ১৯৯৭ সালের জুলাই মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে তারা ১৮৭তম স্থান অধিকার করে, যা তাদের ইতিহাসে সর্বনিম্ন। অন্যদিকে, বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে লিবিয়ার সর্বোচ্চ অবস্থান হচ্ছে ৪৬তম (যা তারা ১৯৮৫ সালে অর্জন করেছিল) এবং সর্বনিম্ন অবস্থান হচ্ছে ১২৪। নিম্নে বর্তমানে ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং এবং বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে অবস্থান উল্লেখ করা হলো:

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং
৭ এপ্রিল ২০২১ অনুযায়ী ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং[১]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
১১৭ হ্রাস ১১  মোজাম্বিক ১১৬১.৫৫
১১৮ হ্রাস  মধ্য আফ্রিকান প্রজাতন্ত্র ১১৫৭.৬৪
১১৯ হ্রাস  লিবিয়া ১১৫৬.২৬
১২০ হ্রাস  কসোভো ১১৫১.৭৩
১২১ হ্রাস  তাজিকিস্তান ১১৫১.১
বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং
২৪ এপ্রিল ২০২১ অনুযায়ী বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং[২]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
১১৭ হ্রাস  কঙ্গো ১৩৬০
১১৮ বৃদ্ধি ১০  লিথুয়ানিয়া ১৩৫৯
১১৯ হ্রাস ৩১  লিবিয়া ১৩৫৮
১১৯ হ্রাস  থাইল্যান্ড ১৩৫৮
১২১ বৃদ্ধি ১৫  গিনি-বিসাউ ১৩৫৫
১২১ বৃদ্ধি ১১  বিষুবীয় গিনি ১৩৫৫

প্রতিযোগিতামূলক তথ্য[সম্পাদনা]

ফিফা বিশ্বকাপ[সম্পাদনা]

ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
সাল পর্ব অবস্থান ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো
উরুগুয়ে ১৯৩০ ইতালির অংশ ছিল ইতালির অংশ ছিল
ইতালি ১৯৩৪
ফ্রান্স ১৯৩৮
ব্রাজিল ১৯৫০ অংশগ্রহণ করেনি অংশগ্রহণ করেনি
সুইজারল্যান্ড ১৯৫৪
সুইডেন ১৯৫৮
চিলি ১৯৬২
ইংল্যান্ড ১৯৬৬ প্রত্যাহার প্রত্যাহার
মেক্সিকো ১৯৭০ উত্তীর্ণ হয়নি
পশ্চিম জার্মানি ১৯৭৪ অংশগ্রহণ করেনি অংশগ্রহণ করেনি
আর্জেন্টিনা ১৯৭৮ উত্তীর্ণ হয়নি
স্পেন ১৯৮২ প্রত্যাহার
মেক্সিকো ১৯৮৬ উত্তীর্ণ হয়নি
ইতালি ১৯৯০ প্রত্যাহার প্রত্যাহার
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৯৯৪ জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞার কারণে অযোগ্য জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞার কারণে অযোগ্য
ফ্রান্স ১৯৯৮ অংশগ্রহণ করেনি অংশগ্রহণ করেনি
দক্ষিণ কোরিয়া জাপান ২০০২ উত্তীর্ণ হয়নি ১০ ১১ ২২
জার্মানি ২০০৬ ১২ ১৭ ১০
দক্ষিণ আফ্রিকা ২০১০
ব্রাজিল ২০১৪
রাশিয়া ২০১৮ ১১
কাতার ২০২২ অনির্ধারিত অনির্ধারিত
মোট ০/২১ ৫৪ ১৯ ১৪ ২১ ৬০ ৬২

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "ফিফা/কোকা-কোলা বিশ্ব র‍্যাঙ্কিং"ফিফা। ৭ এপ্রিল ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ৭ এপ্রিল ২০২১ 
  2. গত এক বছরে এলো রেটিং পরিবর্তন "বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং"eloratings.net। ২৪ এপ্রিল ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ২৪ এপ্রিল ২০২১ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]