রাষ্ট্রীয় যুদ্ধ স্মৃতিসৌধ (ভারত)

স্থানাঙ্ক: ২৮°৩৬′৪৬″ উত্তর ৭৭°১৩′৫৯″ পূর্ব / ২৮.৬১২৭৭২° উত্তর ৭৭.২৩৩০৫৩° পূর্ব / 28.612772; 77.233053
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
রাষ্ট্রীয় যুদ্ধ স্মৃতিসৌধ
 ভারত
National War Memorial on the 21st anniversary of Kargil Vijay Diwas, 2020.jpg
National War Memorial, Tyag Chakra, Circle of Sacrifice, Ajay Ahuja.jpg
National War Memorial India, Param Vir Chakra section, Major Somnath Sharma.jpg
উপরে থেকে ঘড়ির কাঁটার দিকে: স্তম্ভে (ওবেলিস্ক) অমর শিখা রয়েছে, ত্যাগ চক্রের একটি অংশ, পরম বীর চক্রের একটি আবক্ষ মূর্তির দৃশ্য
সকল যুদ্ধে নিহত ভারতীয় সামরিক বাহিনীর সৈন্য-এর স্মরণে
প্রতিষ্ঠিতজানুয়ারি, ২০১৯
উদ্বোধন২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯
অবস্থান২৮°৩৬′৪৬″ উত্তর ৭৭°১৩′৫৯″ পূর্ব / ২৮.৬১২৭৭২° উত্তর ৭৭.২৩৩০৫৩° পূর্ব / 28.612772; 77.233053
সি-ষড়ভুজ, ইন্ডিয়া গেট বৃত্ত, নতুন দিল্লি, ভারত
নকশাকারযোগেশ চন্দ্রহাসন, ওয়েব ডিজাইন ল্যাব, চেন্নাই[১]
শিলালিপি
National war memorial text at bottom of pillar (cropped).jpg
अमर जवान
शहीदों की चिताओं पर जुड़ेंगे हर बरस मेले
वतन पर मिटने वालों का यही बाकी निशाँ होगा
অমর সৈনিক
শহীদের চিতায় প্রতিবছর মেলা হবে, এটি তাদের চিহ্ন হবে যারা মাতৃভূমিতে শহীদ হয়েছেন[২][৩]
পরিসংখ্যান সূত্র: সরকারি দাপ্তরিক ওয়েবসাইট

ভারতের রাষ্ট্রীয় যুদ্ধ স্মৃতিসৌধ (হিন্দি: राष्ट्रीय समर स्मारक, আইএএসটি: রাষ্ট্রীয় সমর স্মারক) হল স্বাধীন ভারতে সশস্ত্র সংঘাতে লড়াই করা ভারতীয় সামরিক বাহিনীর সৈন্যদের সম্মান ও স্মরণ করার জন্য নির্মিত একটি রাষ্ট্রীয় স্মৃতিস্তম্ভ। পাকিস্তান ও চীনের সাথে সশস্ত্র সংঘর্ষের পাশাপাশি গোয়ায় ১৯৬১ খ্রিষ্টাব্দের যুদ্ধ, অপারেশন পবনঅপারেশন রক্ষকের মতো অন্যান্য অভিযানের সময় নিহত সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের নাম স্বর্ণাক্ষরে স্মৃতিসৌধের দেয়ালে খোদাই করা আছে।[৪]

এই স্মৃতিস্তম্ভটি ৪০ একর জমি জুড়ে বিস্তৃত এবং ভারত সরকার নতুন দিল্লির ইন্ডিয়া গেটের কাছে বিদ্যমান ছত্রির চারপাশে তৈরি করেছিল।[৫] স্মৃতিসৌধের প্রাচীরটি মাটির সাথে এবং বিদ্যমান নান্দনিকতার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ। এটি ২০১৯ সালের জানুয়ারি মাসে সম্পন্ন হয়েছিল এবং স্মৃতিস্তম্ভটি ২০১৯ সালের ২৫শে ফেব্রুয়ারি আয়োজিত একটি উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উন্মোচন করা হয়েছিল, যেখানে ভারতের চিফ অব ডিফেন্স স্টাফ (সিডিএস) ও ভারতের সশস্ত্র বাহিনীর তিন চিফ অব স্টাফের উপস্থিতিতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী স্মৃতিস্তম্ভের মূল ওবেলিস্কের নীচে অমর চক্রতে অমর জওয়ান জ্যোতির (শাশ্বত সৈনিকদের শিখা) শাশ্বত শিখা প্রজ্বলিত করেছিলেন।[৬]

ইন্ডিয়া গেটে অবস্থিত পুরানো অমর জওয়ান জ্যোতি, পূর্বে রাষ্ট্রীয় যুদ্ধ স্মারক হিসাবে কাজ করেছিল। এটি প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর ইচ্ছা অনুযায়ী ১৯৭১ সালের ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধের পরে স্বল্প সময়ের মধ্যে নির্মিত হয়েছিল, যাতে এটি যুদ্ধের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধার চিহ্ন হিসাবে ১৯৭২ সালের ২৬শে জানুয়ারি উদ্বোধন করা যেতে পারে।[৭] এখানকার শিখাটি ইন্টিগ্রেটেড ডিফেন্স স্টাফ প্রধান এয়ার মার্শাল বলভদ্র রাধা কৃষ্ণ কর্তৃক ২০২২ সালের ২১শে জানুয়ারি নতুন রাষ্ট্রীয় যুদ্ধ স্মৃতিসৌধে শিখার সঙ্গে একত্রিত হয়েছিল।[৮]

স্থাপত্য ও নকশা[সম্পাদনা]

রাষ্ট্রীয় যুদ্ধ স্মৃতিসৌধ[সম্পাদনা]

রাষ্ট্রীয় যুদ্ধ স্মৃতিসৌধ (এনডব্লিউএম) চত্বর এবং সি-হেক্সাগনের মধ্যে ইন্ডিয়া গেট, অমর জওয়ান জ্যোতি ও নেতাজি মূর্তি সহ। এনডব্লিউএম-এর বলয়গুলি একটি চক্রব্যূহ গঠন করে।

একটি বিশ্বব্যাপী নকশা প্রতিযোগিতা পরিচালিত হয়েছিল এবং ফলাফল ২০১৭ সালের এপ্রিল মাসের প্রথম দিকে ঘোষণা করা হয়েছিল। চেন্নাই -ভিত্তিক একটি স্থাপত্য সংস্থা, উইবি ডিজাইন ল্যাবের প্রস্তাবকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়েছিল এবং সেই অনুযায়ী স্থাপত্য নকশার ধারণার জন্য ও প্রকল্পের নির্মাণের সমন্বয়ের জন্য বেছে নেওয়া হয়েছিল।[৯][১] ওয়েব ডিজাইন ল্যাবের প্রধান স্থপতি, যোগেশ চন্দ্রহাসন, শোক করার জায়গার তুলনায় ত্যাগ উদযাপন ও সম্মান করার জন্য একটি স্মৃতিসৌধ তৈরি করার চিন্তা থেকে অনুপ্রাণিত হয়েছিলেন।[১০]

ন্যাশনাল ওয়ার মেমোরিয়াল অ্যান্ড মিউজিয়ামকে একটি বিশেষ প্রকল্প হিসেবে মনোনীত করা হয়েছিল, এবং এর "সময়মত সম্পাদন" করার কাজটি প্রধান প্রশাসনিক কর্মকর্তা (প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়) ও সামরিক প্রকৌশলী পরিষেবার অধীনে একটি বিশেষ প্রকল্প বিভাগে বরাদ্দ করা হয়েছিল।[১১]

ধারণা[সম্পাদনা]

স্মৃতিসৌধে চারটি কেন্দ্রীভূত বৃত্ত ও একটি কেন্দ্রীয় ওবেলিস্ক রয়েছে, যার নীচে একটি 'অনন্ত শিখা' জ্বলছে যা অমর সৈনিকদের (অমর জওয়ান) প্রতিনিধিত্ব করে।[৫][১২] কেন্দ্রীভূত বৃত্তগুলি একটি প্রাচীন ভারতীয় যুদ্ধ গঠন চক্রব্যূহ হিসাবে নকশা করা হয়েছে।[১৩] তাদের নিম্নরূপ বলা হয় (অন্তস্থ থেকে বাইরের দিকে) :

  • অমর চক্র (অমরত্বের বৃত্ত) : স্মৃতিসৌধের এই কাঠামোর নাম চিরন্তন শিখা (অমর জওয়ান জ্যোতি) থেকে এসেছে, যা স্মৃতিস্তম্ভের কেন্দ্রে প্রধান ওবেলিস্কের নীচে ক্রমাগত জ্বলছে। শিখাটি শহীদ সৈন্যদের আত্মার অমরত্বের প্রতীক এবং প্রতিশ্রুতি দেয় যে জাতি তাদের আত্মত্যাগের কথা ভুলে যাবে না।[১৪]
  • বীরতা চক্র (সাহসীর বৃত্ত) : দ্বিতীয় বৃত্তটি একটি আচ্ছাদিত গ্যালারির আকারে ভারতীয় বাহিনীর বীরত্বকে চিত্রিত করে যা ভারতীয় সশস্ত্র বাহিনীর বীরত্বপূর্ণ যুদ্ধের ক্রিয়াকলাপকে চিত্রিত করে ব্রোঞ্জে নির্মিত ছয়টি ম্যুরাল প্রদর্শন করে। এখানে প্রদর্শিত যুদ্ধগুলি হল গঙ্গাসাগরের যুদ্ধ, লঙ্গেওয়ালা, তিথওয়াল, রিজাংলা, অপারেশন মেঘদূতঅপারেশন ট্রাইডেন্ট[১৪]
  • ত্যাগ চক্র (বলিদানের বৃত্ত) : সম্মানের বৃত্তাকার কেন্দ্রীভূত দেয়াল, যা প্রাচীন যুদ্ধ গঠন 'চক্রব্যূহ'-এর প্রতীক। দেয়ালগুলি গ্রানাইট ট্যাবলেট দ্বারা আবৃত, যেখানে একটি স্বাধীন গ্রানাইট ট্যাবলেট প্রতিটি সৈনিককে উৎসর্গ করা হয় যারা যুদ্ধক্ষেত্রে সর্বোচ্চ আত্মত্যাগ করেছেন, যেখানে তার পদমর্যাদার বিবরণ সহ নাম স্বর্ণাক্ষরে খোদাই করা হয়েছে।[১৪]
  • রক্ষক চক্র (সংরক্ষণের বৃত্ত) : রক্ষক চক্র গাছের সারি দিয়ে তৈরি সবচেয়ে বাইরের বৃত্তটি দেশের নাগরিকদের যে কোনও হুমকির বিরুদ্ধে তাদের সুরক্ষা সম্পর্কে একটি আশ্বাস দেয়, প্রতিটি গাছ সৈন্যদের প্রতিনিধিত্ব করে যারা দেশের আঞ্চলিক অখণ্ডতা নিশ্চিত করে, চব্বিশ ঘন্টা।[১৪]

পরম যোধা স্থলে ভারতের সর্বোচ্চ সামরিক সম্মান পরম বীর চক্রের ২১ জন প্রাপকের আবক্ষ মূর্তি রয়েছে।[৫]  

পরম যোধা স্থলে (পরম বীর চক্র বিভাগ) আবক্ষ মূর্তি।
(উপরে থেকে ঘড়ির কাঁটার বিপরীত দিকে) ক্যাপ্টেন জিএস সালারিয়া, ল্যান্স নায়েক করম সিং, মেজর ধন সিং থাপা, নায়েব সুবেদার বানা সিং, মেজর সোমনাথ শর্মা

রাষ্ট্রীয় যুদ্ধ জাদুঘর[সম্পাদনা]

পার্শ্ববর্তী প্রিন্সেস পার্ক এলাকায় একটি রাষ্ট্রীয় যুদ্ধ জাদুঘর নির্মাণ করা হবে এবং একটি ভূগর্ভস্থ সুড়ঙ্গের মাধ্যমে স্মৃতিসৌধের সঙ্গে সংযুক্ত করা হবে। প্রিন্সেস পার্কটি ইন্ডিয়া গেটের উত্তরে একটি ১৪-একরের বিশাল এলাকা, যেখানে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় ব্যারাকের মতো থাকার ব্যবস্থা তৈরি করা হয়েছিল। এটি নতুন দিল্লিতে ১৯৪৭ খ্রিস্টাব্দ থেকে সার্ভিস হেডকোয়ার্টারে পোস্ট করা মধ্য-স্তরের সশস্ত্র বাহিনী অফিসারদের জন্য পারিবারিক বাসস্থান হিসেবে কাজ করেছে।[১৫] প্রস্তাবিত রাষ্ট্রীয় যুদ্ধ জাদুঘর মেট্রো দ্বারা সংযুক্ত করা হবে। যুদ্ধ স্মৃতিসৌধ ও জাদুঘর নির্মাণে ₹৫০০ কোটি (ইউএস$৭০ মিলিয়ন) খরচ হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

কেন্দ্রীয় গণপূর্ত বিভাগ ২০২০ খ্রিস্টাব্দের জুলাই মাসে প্রায় ১০ একর এলাকায় জাতীয় যুদ্ধ জাদুঘরের জন্য একজন পরামর্শদাতা নির্বাচনের জন্য দরপত্র খোলে। দুটি সংস্থাকে সংক্ষিপ্ত তালিকা ভুক্ত করা হয়েছে, সংস্থা দুটি হল সিপি কুকরেজা আর্কিটেক্টস ও সুরেশ গোয়েল অ্যান্ড অ্যাসোসিয়েটস[১৬]

তাৎপর্য ও উদযাপন[সম্পাদনা]

একটি নতুন রীতির সূচনা[সম্পাদনা]

১৯৭২ সাল থেকে প্রতি বছর প্রজাতন্ত্র দিবসে প্রজাতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজের আগে প্রধানমন্ত্রী, বিমান বাহিনী প্রধান, নৌবাহিনী প্রধান, সেনাপ্রধান ও বিশিষ্ট ব্যক্তিদের অমর জওয়ান জ্যোতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের প্রথা ছিল।[৭] অন্যান্য অনুষ্ঠানগুলিও চিহ্নিত করা হয়েছিল, যেমন ১৬ই ডিসেম্বর বিজয় দিবস, ১৫ই আগস্ট স্বাধীনতা দিবস, নৌবাহিনী দিবসের মতো পরিষেবা দিবস ও জাতীয় ক্যাডেট কর্পসের মতো সম্পর্কিত বার্ষিকী।[১৭]

ভারতের রাষ্ট্রপতি রাম নাথ কোবিন্দ ৭৩তম স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে ইন্ডিয়া গেটের পুরানো অমর জওয়ান জ্যোতির পরিবর্তে নতুন উদ্বোধন করা রাষ্ট্রীয় যুদ্ধ স্মৃতিসৌধে প্রথমবারের মতো সৈন্যদের শ্রদ্ধা জানাতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন এবং ২ মিনিট নীরবতা পালন করেন।[১৮] আর এভাবেই স্বাধীনতার পর দেশের জন্য শহীদ সৈনিকদের সম্মান জানানোর নতুন প্রথার শুরু হয়।

রাষ্ট্রপতি কর্তৃক নির্ধারিত প্রথা অনুসরণ করে, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি প্রথমবারের মতো প্রজাতন্ত্র দিবস উপলক্ষে ইন্ডিয়া গেটের পরিবর্তে রাষ্ট্রীয় যুদ্ধ স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। সেনা প্রধান সহ প্রতিরক্ষা কর্মীদের প্রধানের দ্বারা রাষ্ট্রীয় যুদ্ধ স্মৃতিসৌধ অন্তর্গত নতুন অমর জওয়ান জ্যোতিতে একটি নতুন রীতি চালু করা হয়।[১৯]

ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও সামরিক প্রধানদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী ২০১৯ খ্রিস্টাব্দের ২৫শে ফেব্রুয়ারি রাষ্ট্রীয় যুদ্ধ স্মৃতিসৌধের উৎসর্গ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

স্মরণ, পর্যবেক্ষণ ও উদযাপন[সম্পাদনা]

  • প্রজাতন্ত্র দিবস (২৬শে জানুয়ারি)  – প্রজাতন্ত্র দিবসে প্রধানমন্ত্রী সফর করেন। উভয় অনুষ্ঠানেই প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সিডিএস ও ত্রি-বাহিনীর চিফ অফ স্টাফ রয়েছেন।[২০][১৯]
  • সশস্ত্র বাহিনী সেবা দিবস (৮ই ও ২৭ অক্টোবর, ৪ই ডিসেম্বর)  – ত্রি-সেনা প্রতিষ্ঠার স্ব-স্ব দিবসে, সেনাপ্রধান, নৌবাহিনী প্রধান এবং বিমানবাহিনী প্রধান সম্মিলিতভাবে পরিদর্শন করেন।
  • সশস্ত্র বাহিনী পতাকা দিবস (৭ই ডিসেম্বর)  – সিডিএস-এর সাথে তিনজন প্রধান স্টাফ যৌথভাবে পরিদর্শন করেন।
  • কার্গিল বিজয় দিবস (২৬শে জুলাই)  – ১৯৯৯ সালে কার্গিল যুদ্ধের সময় সংগঠিত মিশন বিজয়ের সাফল্যের উদযাপন।
  • বিজয় দিবস (১৬ই ডিসেম্বর)  – ১৯৭১ সালের বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ভারতীয় সেনাবাহিনীর বিজয়ের উদযাপন।

সময়রেখা[সম্পাদনা]

প্রাক নির্মাণ[সম্পাদনা]

  • ১৯৬০ খ্রিস্টাব্দ - ভারতীয় সশস্ত্র বাহিনী প্রথমে একটি রাষ্ট্রীয় যুদ্ধ স্মারক প্রস্তাব করে।[৪]
  • ২০০৬ খ্রিস্টাব্দ - একটি যুদ্ধ স্মৃতিসৌধের জন্য সশস্ত্র বাহিনী ও প্রবীণদের ক্রমাগত দাবির মুখে, ইউনাইটেড প্রগ্রেসিভ অ্যালায়েন্স (ইউপিএ) সরকার দাবিটি পরীক্ষা করার জন্য মন্ত্রীদের একটি দল (প্রণব মুখার্জির নেতৃত্বে) গঠন করে।[২১] প্রতিরক্ষা মন্ত্রক ২০০৬ খ্রিস্টাব্দে সিদ্ধান্ত নেয় যে যুদ্ধের স্মারকটি ইন্ডিয়া গেটের আশেপাশে স্থাপন করা উচিত, কিন্তু নগর উন্নয়ন মন্ত্রকের অধীনের সভাগুলি বলে যে এটি একটি ঐতিহ্যবাহী এলাকা এবং এর উপর নির্মিত হওয়া উচিত নয়।[২২]
  • ২০ অক্টোবর ২০১২ খ্রিস্টাব্দ - ৫০ বছর পর, সরকার ১৯৬২ সালের যুদ্ধে নিহত ভারতীয় সৈন্যদের সম্মান জানাতে অমর জওয়ান জ্যোতিতে একটি জাঁকজমক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ১৯৬২ সালের ২০ই অক্টোবর ভারতীয় সীমান্ত প্রতিরক্ষার বিরুদ্ধে চীনা পিপলস লিবারেশন আর্মি দ্বারা আক্রমণের বার্ষিকী পালন করে। অনুষ্ঠানে, এ কে অ্যান্টনি (প্রতিরক্ষা মন্ত্রী) ঘোষণা করেন যে সরকার ভারতীয় সশস্ত্র বাহিনীর একটি রাষ্ট্রীয় যুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভের জন্য দীর্ঘদিনের দাবি মেনে নিয়েছে এবং এটি ইন্ডিয়া গেটের কাছে নির্মিত হবে। তিনি আরও বলেন যে মন্ত্রীদের দল সমস্ত বকেয়া বিষয়গুলি সমাধান করেছে।[২৩] দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী শীলা দীক্ষিত এই পরিকল্পনার বিরোধিতা করেন।[২১]
  • ফেব্রুয়ারি, ২০১৪ - নরেন্দ্র মোদী ২০১৪-এর লোকসভা নির্বাচনের প্রচারে পূর্ববর্তী সরকার কীভাবে যুদ্ধের স্মৃতিসৌধ নির্মাণে ব্যর্থ হয়েছিল সে সম্পর্কে কথা বলেছিলেন।[২৪]
  • ৭ অক্টোবর ২০১৫ - কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা যুদ্ধ স্মৃতিসৌধ নির্মাণের প্রস্তাব পাস করে। এটি স্মারক ও জাদুঘরের জন্য ₹৫০০ কোটি ধার্য করেছিল, শুধুমাত্র স্মৃতিসৌধের জন্য ₹১৭৬ কোটি মঞ্জুর করেছিল।[২৫]
  • মে, ২০১৬ - এম্পাওয়ারড এপেক্স স্টিয়ারিং কমিটি (ইএএসসি) কর্তৃক গৃহীত সিদ্ধান্ত সম্পর্কে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভাকে অবহিত করা হয়েছে যে প্রিন্সেস পার্ক কমপ্লেক্স জাতীয় যুদ্ধ জাদুঘর নির্মাণের জন্য উপযুক্ত স্থান হবে। ২০১৫ সালের অক্টোবরে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকে অনুমোদন অনুসারে ইন্ডিয়া গেটের ‘সি’ ষড়ভুজে[২৬] নির্মাণ করা হবে।
  • ৩০ আগস্ট ২০১৬ - মাইগোভ.আইএন ওয়েব পোর্টালে রাষ্ট্রীয় যুদ্ধ স্মৃতিসৌধ ও জাদুঘরের জন্য একটি বিশ্বব্যাপী নকশা প্রতিযোগিতা চালু করা হয়েছিল।[২৭]
  • এপ্রিল, ২০১৭ - বিশ্বব্যাপী নকশা প্রতিযোগিতার ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছিল। মুম্বাই -ভিত্তিক এসপি+এ স্টুডিওর প্রস্তাব রাষ্ট্রীয় যুদ্ধ জাদুঘরের নকশার জন্য প্রতিযোগিতা জিতেছিল। চেন্নাই-ভিত্তিক ওয়েব ডিজাইন ল্যাবকে তাদের প্রস্তাবিত স্মারকটির নকশার জন্য বিজয়ী ঘোষণা করা হয়েছিল।[২৪] "রাষ্ট্রীয় যুদ্ধ স্মৃতিসৌধের জন্য বিশ্বব্যাপী নকশা প্রতিযোগিতা"য় মোট ৪২৭ টি জমা দেওয়া হয়েছিল এবং "ভারতীয় রাষ্ট্রীয় যুদ্ধ জাদুঘরের জন্য বিশ্বব্যাপী স্থাপত্য প্রতিযোগিতা"য় ২৬৮ টি জমা দেওয়া হয়েছিল।[২৮][২৯] জুরির নেতৃত্বে ছিলেন স্থপতি ও পরিকল্পনাবিদ ক্রিস্টোফার বেনিংগার[৫]
  • ১৫ আগস্ট ২০১৮ - রাষ্ট্রীয় যুদ্ধ স্মৃতিসৌধ তার উদ্বোধনের জন্য নির্ধারিত প্রথম সময়সীমা অতিক্রম করে।[৪]
  • ১ জানুয়ারী ২০১৯ - রাষ্ট্রীয় যুদ্ধ স্মৃতিসৌধের নির্মাণ সম্পন্ন হয়েছিল (যাদুঘরের নয়)।[৪][৩০]

পরবর্তী নির্মাণ[সম্পাদনা]

  • ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ - রাষ্ট্রীয় যুদ্ধ স্মৃতিসৌধ উদ্বোধন করা হয়।[৩১]
  • ৩০শে মে ২০১৯ - নরেন্দ্র মোদি দ্বিতীয়বারের মতো ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেওয়ার আগে রাষ্ট্রীয় যুদ্ধ স্মৃতিসৌধ পরিদর্শন করেন এবং ভারতের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।[৩২]
  • ১৫ আগস্ট ২০১৯ - ভারতের রাষ্ট্রপতি প্রথমবারের মতো ইন্ডিয়া গেটের পরিবর্তে ৭৩ তম স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে সৈন্যদের শ্রদ্ধা জানাতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন এবং ২ মিনিট নীরবতা পালন করেন।[১৮]
  • ২৬শে জানুয়ারি ২০২০ - প্রধানমন্ত্রী পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন এবং প্রজাতন্ত্র দিবসে প্রথমবারের মতো ৭১তম প্রজাতন্ত্র দিবসের প্যারেড শুরুর আগে সৈন্যদের শ্রদ্ধা জানাতে ২ মিনিট নীরবতা পালন করেন।[২০]
  • ২৩ জুলাই ২০২০ - কেন্দ্রীয় পাবলিক ওয়ার্কস বিভাগ রাষ্ট্রীয় যুদ্ধ জাদুঘরের জন্য একজন পরামর্শদাতা নির্বাচনের জন্য দরপত্র খোলে।[১৬]
  • ২৬শে জুলাই ২০২০ - কারগিল বিজয় দিবসের ২১তম বার্ষিকীতে ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রীর সঙ্গে এমওএস (প্রতিরক্ষা), সিডিএস ও ত্রি-বাহিনী প্রধানরা এনডব্লিউএম-এ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।[৩৩]
  • ১৬ই ডিসেম্বর ২০২০ - প্রধানমন্ত্রী শ্রদ্ধা নিবেদন করেন এবং এনডব্লিউএম-এ অমর জওয়ান জ্যোতি থেকে একটি স্বর্ণিম বিজয় মশাল (স্বর্ণ বিজয় মশাল) জ্বালিয়ে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ভারতের বিজয়ের সুবর্ণ জয়ন্তী বর্ষ উদযাপন শুরু করেন।[৩৪]
  • ২১শে জানুয়ারি ২০২২ - ইন্ডিয়া গেটের অমর জওয়ান জ্যোতি জাতীয় যুদ্ধ স্মৃতিসৌধের সঙ্গে একীভূত করা হয়।[৩৫]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Vijaykumar, Vaishali (৭ মার্চ ২০১৯)। "Meet WeBe Design Lab: The architecture team behind National War Memorial"The New Indian Express। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০২২ 
  2. "National War Memorial"nationalwarmemorial.gov.in। ৩১ মার্চ ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০২২ 
  3. "शहीदों के सम्मान पर 1916 में लिखी यह कविता आज भी मौजूं है"Aaj Tak आज तक (হিন্দি ভাষায়)। ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০২২ 
  4. Pandit, Rajat (১ জানুয়ারি ২০১৯)। "Delhi: War memorial ready, 60 years after it was first proposed"The Times of India। ৩ জানুয়ারি ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০২২ 
  5. Baruah, Sukrita (২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯)। "Explained: India's National War Memorial"The Indian Express। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০২২ 
  6. "PM Modi inaugurates National War Memorial in New Delhi"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। PTI। ২০১৯-০২-২৫। আইএসএসএন 0971-751X। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০২২ 
  7. Chhina, Last Post. Indian War Memorials Around the World (2014).
  8. Bose, Joydeep (২০২২-০১-২১)। "In historic move, Amar Jawan Jyoti merged with National War Memorial flame"Hindustan Times (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০২২ 
  9. Bhatnagar, Gaurav Vivek (২১ এপ্রিল ২০১৮)। "National War Memorial Takes Shape Six Decades After Being Conceived"The Wire। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০২২ 
  10. Gupta, Moushumi Das (২৮ এপ্রিল ২০১৮)। "War memorial near India Gate to be completed by Independence Day"Hindustan Times (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০২২ 
  11. "Charter of Duties"। Ministry of Defence। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০২২ 
  12. Siddiqui, Huma (২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯)। "National War Memorial: India's tribute to her war heroes, see stunning pics"The Financial Express। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০২২ 
  13. Yadav, Namrata (৩ মার্চ ২০১৯)। "Are you looking for someone you lost, Ma'am? They asked my mother at National War Memorial"The Print। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০২২ 
  14. "National War Memorial"www.nationalwarmemorial.gov.in। ৫ আগস্ট ২০২১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০২২ 
  15. Pandit, Rajat (১০ জুলাই ২০১৪)। "Budget 2014: India to finally get a national war memorial, Modi govt allocates Rs 100cr"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০২২ 
  16. Dutta, Anisha (২০২০-০৮-১১)। "Centre shortlists consultants for National War Museum"Hindustan Times (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০৮-১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০২২ 
  17. "Search results for "Amar Jawan Jyoti""Wikimedia Commons। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০১-২৩ 
  18. "Independence Day 2019 highlights: Pinarayi Vijayan, E Palaniswami, Jagan Mohan Reddy hoist tricolour in celebration of 73rd Independence Day"Firstpost। ২০১৯-০৮-১৫। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-১২-১৪ 
  19. "Not Amar Jawan Jyoti, Republic Day wreath-laying ceremony at National War Memorial from this year"India Today (ইংরেজি ভাষায়)। জানুয়ারি ২৩, ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-১২-১৪ 
  20. "Not Amar Jawan Jyoti, PM To Pay Homage At War Memorial On Republic Day"NDTV। PTI। ২৪ জানুয়ারি ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০২২ 
  21. Nitin Gokhale (১৬ ডিসেম্বর ২০১২)। "National war memorial - an unrealised dream"NDTV। ২৮ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০২২ 
  22. P Sharma, Aruna (৫ ডিসেম্বর ২০০৬)। "Ministry seeks new war memorial"Hindustan Times (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০২২ 
  23. "In a first, nation pays homage to martyrs of 1962 Indo-China war"। Firstpost। PTI। ২০ অক্টোবর ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০২২ 
  24. Bhatnagar, Gaurav Vivek (২১ এপ্রিল ২০১৮)। "National War Memorial Takes Shape Six Decades After Being Conceived"The Wire। ৩০ জানুয়ারি ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০২২ 
  25. Joseph, Josy (২০১৫-১০-০৭)। "Cabinet clears Rs. 500 crore for National War Memorial"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। আইএসএসএন 0971-751X। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০২২ 
  26. "Site for construction of National War Memorial and National War Museum - Press Information Bureau"। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০২২ 
  27. "Global Design Competition for National War Memorial and Museum"Press Information Bureau, Government of India, Ministry of Defence। ৩০ আগস্ট ২০১৬। ৩০ জানুয়ারি ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০২২ 
  28. "Global Architectural Competition for Indian National War Museum"MyGov.in (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৬-০৮-১৯। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০২২ 
  29. "Global Design Competition for National War Memorial"MyGov.in (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৬-০৮-১৯। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০২২ 
  30. Alex Philip, Snehesh (৭ জানুয়ারি ২০১৯)। "National War Memorial to honour 22,600 soldiers set for R-Day eve inauguration"The Print। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০২২ 
  31. Pandit, Rajat (৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯)। "National War Memorial to be finally inaugurated this month"The Times of India। ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০২২ 
  32. "Ahead of oath-taking ceremony, PM Modi visits National War Memorial"WION (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০২২ 
  33. "Kargil Vijay Diwas Live Updates: Enemy perched atop heights was defeated by brave soldiers, says PM Modi"The Indian Express (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০৭-২৬। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০২২ 
  34. Mehrotra, Vani (২০২০-১২-১৬)। "Vijay Diwas: PM Modi lights 'Swarnim Vijay Mashaal' at National War Memorial"www.indiatvnews.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০২২ 
  35. Bose, Joydeep (২০২২-০১-২১)। "In historic move, Amar Jawan Jyoti merged with National War Memorial flame"Hindustan Times (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০২২ 

গ্রন্থপঞ্জি[সম্পাদনা]