বড়া গুম্বদ

স্থানাঙ্ক: ২৮°৩৫′৩৪.৪০৭৬″ উত্তর ৭৭°১৩′১২.৬৪৮০″ পূর্ব / ২৮.৫৯২৮৯১০০০° উত্তর ৭৭.২২০১৮০০০০° পূর্ব / 28.592891000; 77.220180000
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বড়া গুম্বদ
Bara Gumbad 2015.JPG
লোদি উদ্যানে বড়া গুম্বদ
ধরনঐতিহাসিক স্মারকমসজিদ
অবস্থানলোদি উদ্যান
স্থানাঙ্ক২৮°৩৫′৩৪.৪০৭৬″ উত্তর ৭৭°১৩′১২.৬৪৮০″ পূর্ব / ২৮.৫৯২৮৯১০০০° উত্তর ৭৭.২২০১৮০০০০° পূর্ব / 28.592891000; 77.220180000
অঞ্চল৩৬১ বর্গমিটার (৩,৮৮৬ বর্গফুট) (বড়া গুম্বদের মেঝের আয়তন)
নির্মিত১৪৯০ খ্রিস্টাব্দ
স্থাপত্যশৈলীইসলামিহিন্দু স্থাপত্য
পরিচালকবর্গভারতীয় পুরাতত্ত্ব সর্বেক্ষণনতুন দিল্লি নগরপালিকা পরিষদ
মালিকদিল্লি সরকার
দাপ্তরিক নাম: বড়া গুম্বদ
মনোনীত৯ এপ্রিল ১৯৩৬
সূত্র নংএন-ডিএল-৭৩
বড়া গুম্বদ দিল্লি-এ অবস্থিত
বড়া গুম্বদ
দিল্লিতে বড়া গুম্বদের অবস্থান

বড়া গুম্বদ (অর্থ: বড়ো গম্বুজ) হল ভারতের দিল্লির লোদি উদ্যানে অবস্থিত একটি মধ্যযুগীয় স্মারক। এটি একটি জামে মসজিদদিল্লি সুলতানির শাসক শিকন্দর লোদির "মেহমান খানা" (অতিথিশালা) সহ এক গুচ্ছ স্মারকের একটি অংশ। ১৪৯০ খ্রিস্টাব্দে লোদি রাজবংশের শাসনকালে বড়া গুম্বদ নির্মিত হয়। সাধারণভাবে শিকন্দর লোদিকেই এটির নির্মাতা মনে করা হয় এবং এই ভবনের গম্বুজটিই সম্ভবত দিল্লির সবচেয়ে পুরনো পূর্ণাঙ্গ গম্বুজ।

বড়া গুম্বদ শিকন্দর লোদির সমাধিশিশা গুম্বদের কাছে অবস্থিত। তিনটি স্থাপনা একই উত্তোলিত মঞ্চের উপর অবস্থিত হলেও এবং তিনটিই লোদি রাজত্বে নির্মিত হলেও এগুলির নির্মাণকাল এক নয়। বড়া গুম্বদ নির্মাণের উদ্দেশ্য স্পষ্ট নয়: এটি সম্ভবত নির্মিত হয়েছিল একটি একক সমাধি রূপে, কিন্তু এখানে কোনও সমাধিশিলা চিহ্নিত করা যায় না; অথবা এটি একটি প্রবেশদ্বার রূপেও নির্মিত হয়ে থাকবে। যে অঞ্চলে বর্তমানে বড়া গুম্বদ অবস্থিত অতীতে সেটির নাম ছিল খইরপুর গ্রাম।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

বড়া গুম্বদ নির্মিত হয়েছিল ১৪৯০ খ্রিস্টাব্দে। মনে করা হয় যে, এটিই দিল্লির প্রথম কোনও ভবনে নির্মিত পূর্ণাঙ্গ গম্বুজ।[১][২] সাধারণভাবে শিকন্দর লোদিকে এই স্থাপনাটির নির্মাণকারী মনে করা হয়।[২][৩][৪] বড়া গুম্বদের জামে মসজিদের মিহরাব থেকে জানা যায় মন্দিরটির নির্মাণকাল হল ৯০০ হিজরি[৪]

বড়া গুম্বদ সহ লোদি উদ্যানে চারটি স্মারক রয়েছে; অপর তিনটি স্মারক হল শিকন্দর লোদির সমাধি, শিশা গুম্বদসৈয়দ রাজবংশের মুহাম্মদ শাহের সমাধি।[৫] বড়া গুম্বদ সমাধিটি থেকে প্রায় ৪০০ মিটার (১,৩০০ ফু) এবং শিশা গুম্বদ থেকে ৭৫ মিটার (২৪৬ ফু) দক্ষিণে অবস্থিত।[২] শিকন্দর লোদির শাসনকালে বড়া গুম্বদ, পার্শ্ববর্তী মসজিদ এবং "মেহমান খানা" অর্থাৎ অতিথিশালাটি নির্মিত হয়। অনুমান করা হয় যে, বড়া গুম্বদ জামে মসজিদের প্রবেশদ্বারের কাজ করত। যদিও উভয়ের নির্মাণকাল, অবস্থান ও শৈলীগত পার্থক্য প্রবেশপথ-সংক্রান্ত এই তত্ত্বটিকে সমর্থন করে না। বড়া গুম্বদ নির্মাণের উদ্দেশ্য ও গুরুত্ব অজ্ঞাতই থেকে গিয়েছে এবং এটির নির্মাণকালও একটি রহস্য।[২][৪] জামে মসজিদটি নির্মিত হয়েছিল ১৪৯৪ খ্রিস্টাব্দে। লোদি রাজবংশের শাসনকালে প্রথম প্রবর্তিত স্থাপত্যশৈলীতে নির্মিত প্রথম মসজিদ এটিই।[২][৬]

কোনও কোনও ইতিহাসবিদের মতে, ১৪৯০ খ্রিস্টাব্দে এক অভিজাত ব্যক্তির দ্বারা বড়া গুম্বদ নির্মিত হয়েছিল। এই অভিজাত ব্যক্তিকে শনাক্ত করা সম্ভব হয়নি। এরপর ১৪৯৪ খ্রিস্টাব্দে শিকন্দর লোদি নিজের তৈরি করা মসজিদের জন্য একটি প্রবেশপথ নির্মাণ করার উদ্দেশ্যে বড়া গুম্বদকে পৃথক করেন।[৩]

সাইমন ডিগবির মতে, বড়া গুম্বদ একটি বৃহৎ প্রাচীরবেষ্টিত প্রাঙ্গনের প্রবেশদ্বারের কাজ করত। এই প্রাঙ্গনেরই অন্তর্ভুক্ত ছিল শিশা গুম্বদ, যেটিকে ডিগবি বাহলুল লোদির সমাধি হিসেবে চিহ্নিত করেন।[৭]

প্রথম দিকে সব ক’টি স্মারকই পৃথক পৃথক ভাবে নির্মিত হয়েছিল এবং কোনওটিই একই প্রাঙ্গনের অন্তর্ভুক্ত ছিল না। বিংশ শতাব্দীর গোড়ার দিকে যখন একটি উদ্যান গড়ে তোলা হয়, তখনই চারটি স্মারক একক প্রাঙ্গনের অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল। ১৯৩৬ সালের ৯ এপ্রিল ভাইসরয় লর্ড উইলিংডনের স্ত্রী লেডি উইলিংডন উদ্যানটির দ্বারোদ্ঘাটন করেন।[৫] প্রথমে উদ্যানটির নামকরণ করা হয়েছিল লেডি উইলিংডন পার্ক; কিন্তু ১৯৪৭ সালে ভারতের স্বাধীনতা অর্জনের পর এটির নামকরণ করা হয় লোদি উদ্যান।[৮]

নির্মাণ ও স্থাপত্য[সম্পাদনা]

বড়া গুম্বদের অভ্যন্তরভাগ

অনুমান করা হয় যে, বড়া গুম্বদ নির্মিত হয়েছিল নিকটবর্তী মসজিদ বা একটি বৃহৎ প্রাচীরবেষ্টিত প্রাঙ্গনের প্রবেশপথ হিসেবে। যদিও বড়া গুম্বদের মধ্যে কোনও সমাধি নেই, কিন্তু কেন্দ্রীয় প্রাঙ্গনে একটি উঁচ মঞ্চ রয়েছে যা ইঙ্গিত করে যে এই স্থাপনার আকারটি একটি সমাধিসৌধেরই। বড়া গুম্বদ নির্মাণের উদ্দেশ্য অবশ্য অজানাই রয়ে গিয়েছে।[২][৪] বড়া গুম্বদ একটি মসজিদ ও একটি "মেহমান খানা"-র সঙ্গে অবস্থিত, যেগুলি বড়া গুম্বদের থেকে আকারে ছোটো। প্রতিটি স্থাপনায় একটি ৪ মিটার (১৩ ফুট) উঁচু মঞ্চের উপর অবস্থিত, যার মোট আয়তন ১,০৫০ বর্গমিটার (১১,৩০২ বর্গফুট)। মঞ্চটির পরিমাপ ৩০ মিটার (৯৮ ফুট) (পূর্ব-পশ্চিমে) ও ২৫ মিটার (৮২ ফুট) (উত্তর-দক্ষিণে)।[২]

মসজিদের অর্ধ-বৃত্তাকার টারেট

মসজিদের পাঁচটি বে-র মধ্যে তিনটির উপরে গম্বুজ রয়েছে, অবশিষ্ট দু’টির উপর রয়েছে ভল্টেড ছাদ (মসজিদ ও "মেহমান খানা"য়)। কেন্দ্রীয় বে-গুলির গম্বুজগুলি নিচু, আবার শেষ দিকের বে-গুলির ছাদ চ্যাপ্টা।[২][৩][৯] উত্তর ও দক্ষিণে রয়েছে ওরিয়েল জানলা। ওরিয়েল জানলা ও ক্রমাগত সরু হয়ে উঠে যাওয়া মিনারেটগুলি সম্ভবত পরবর্তীকালের স্থাপত্যশৈলীতে নির্মিত।

বড়া গুম্বদ হল একটি বর্গাকার ভবন, যেটি একটি চতুষ্কোণ বেদিকার উপর অবস্থিত। মসজিদটির দুই পাশের দৈর্ঘ্য ২০ মিটার (৬৬ ফুট)। সম্মুখভাগে মসজিদের কোণায় ও ধারগুলিতে রয়েছে সুউচ্চ ক্রমশ সরু হতে থাকা অর্ধ-বৃত্তাকার মিনার[৯] পূর্ব, দক্ষিণ ও পশ্চিম ভাগ অলংকৃত এবং এই অংশে ইংরেজি খিলানযুক্ত মুখ অংশ দেখা যায়, যেগুলি আয়তাকার কাঠামোর মধ্যে নিবদ্ধ। বড়া গুম্বদের স্থাপত্যে ব্র্যাকেটলিনটেল কড়িকাঠের সমন্বয় দেখা যায়, যা ইসলামিহিন্দু স্থাপত্যশৈলীর একটি মিশ্র রূপ।[২][৩][৯]

বড়া গুম্বদের উচ্চতা ২৯ মিটার (৯৫ ফুট), দৈর্ঘ্য ২০ মিটার (৬৬ ফুট) ও প্রস্থ ২০ মিটার (৬৬ ফুট)। প্রাচীরগুলির উচ্চতা ১২ মিটার (৩৯ ফুট)। শিশা গুম্বদের মতো বড়া গুম্বদও এক তলা ভবন, কিন্তু বাইরে থেকে দেখলে সেটিকে দোতলা মনে হয়। বড়া গুম্বদের মেঝের মোট আয়তন (মসজিদ ও অতিথিশালাটি বাদে) ৩৬১ বর্গমিটার (৩,৮৮৬ বর্গফুট)।[২][৩][৯]

গম্বুজ, মসজিদ ও "মেহমান খানা" ধূসর কোয়ার্টজাইট ও লাল বেলেপাথর সহ লাল, ধূসর ও কালো পাথরে নির্মিত। অভ্যন্তরভাগ বহুবর্ণ স্টাকো দ্বারা বিস্তারিতভাবে অলংকৃত। রঙিন টালি, খোদাইচিত্র ও রঙিন প্লাস্টারের মাধ্যমে মসজিদের দেওয়াল লতাপাতা, ফুল, জ্যামিতিক নকশা ও কুরআনের বাণীতে সুসজ্জিত।[২][৩][৯]

অবস্থান[সম্পাদনা]

বড়া গুম্বদ ভারতের দিল্লিতে অবস্থিত লোদি উদ্যানের একটি অংশ। অতীতে এই এলাকাটি ছিল খইরপুর নামে একটি গ্রামের অংশ।[১০][১১] লোদি উদ্যানের পশ্চিমে, উত্তরপশ্চিমে ও উত্তরে অমৃতা শেরগিল মার্গ, পূর্বে ম্যাক্স মুলার মার্গ এবং দক্ষিণে লোদি রোড অবস্থিত। সফদরজং সমাধি লোদি গার্ডেনের দক্ষিণপশ্চিম কোণে অবস্থিত।[১২]

চিত্রশালা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "লোদি গার্ডেন অ্যান্ড দ্য গলফ ক্লাব" [লোদি উদ্যান ও গলফ ক্লাব] (PDF)দিল্লি হেরিটেজ। ওয়ার্ল্ড মনুমেন্টস ফান্ড। সংগ্রহের তারিখ ২৯ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  2. "বড়া গুম্বদ মসজিদ ডেসক্রিপশন" [বড়া গুম্বদ মসজিদের বিবরণ]। আর্কনেট.অর্গ। সংগ্রহের তারিখ ২৯ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  3. "জেনারেল ভিউ অফ দ্য বড়া গুম্বদ মসজিদ" [বড়া গুম্বদ মসজিদের সাধারণ দৃশ্য]। ব্রিটিশ গ্রন্থাগার। সংগ্রহের তারিখ ২৯ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  4. "দ্য দিল্লি দ্যাট নো-ওয়ান নোজ (পেজ ৩৮)" [যে দিল্লিকে কেউ জানে না (পৃষ্ঠা ৩৮)]। ওরিয়েন্ট ব্ল্যাকসোয়ান। ২০০৫। আইএসবিএন 9788180280207। সংগ্রহের তারিখ ২৯ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  5. "ইমপরট্যান্ট গার্ডেনস" [গুরুত্বপূর্ণ উদ্যানসমূহ] (PDF)নতুন দিল্লি নগরপালিকা পরিষদ। সংগ্রহের তারিখ ২৯ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  6. ব্লুম, জোনাথান এম.; ব্লেয়ার, শিলা এস. (২০০৯)। দ্য গ্রোভ এনসাইক্লোপিডিয়া অফ ইসলামিক আর্ট অ্যান্ড আর্কিটেকচার [গ্রোভ ইসলামি শিল্প ও স্থাপত্য কোষ]। অক্সফোর্ড: অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি প্রেস। পৃষ্ঠা ১৩৯। আইএসবিএন 9780195373042। সংগ্রহের তারিখ ২৯ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  7. সাইমন ডিগবি, দ্য টুম্ব অফ বাহলুল লোদি [বাহলুল লোদির সমাধি], দ্য বুলেটিন অফ এসওএএস, খণ্ড ৩৮, সংখ্যা ৩, ১৯৭৫, পৃ. ৫৫০–৬১
  8. "হেরিটেজ ওয়াক মার্কস সেভেন্টি-ফিফথ অ্যানিভার্সারি অফ লোদি গার্ডেন" [লোদি উদ্যানের ৭৫তম বার্ষিকী উপলক্ষ্যে ঐতিহ্যযাত্রা]। দ্য টাইমস অফ ইন্ডিয়া। ৯ এপ্রিল ২০১১। 
  9. "মনুমেন্ট ভিউয়ার" [স্মারক দ্রষ্টা]। কমপেটেন্ট অথরিটি দিল্লি। সংগ্রহের তারিখ ২৯ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  10. "লোদি টুম্ব" [লোদি সমাধি]। দিল্লি পর্যটন বিভাগের ওয়েবসাইট। সংগ্রহের তারিখ ২৯ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  11. "অ্যালফাবেটিক্যাল লিস্ট অফ মন্যুমেন্টস ইন দিল্লি" [দিল্লির স্মারকগুলির বর্ণানুক্রমিক তালিকা]। ভারতীয় পুরাতত্ত্ব সর্বেক্ষণ। সংগ্রহের তারিখ ২৯ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  12. "অবস্থান"গুগল ম্যাপস। সংগ্রহের তারিখ ২৯ ডিসেম্বর ২০১৫ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]