মারগাঁও বন্দর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মারগাঁও বন্দর
Goa-Vasco 03-2016 08 view to Mormugao Harbour.jpg
অবস্থান
দেশভারত
অবস্থানমারগাঁও, গোয়া
স্থানাঙ্ক১৫°২৪′৩২″ উত্তর ৭৩°৪৮′০৪″ পূর্ব / ১৫.৪০৮৯° উত্তর ৭৩.৮০১২° পূর্ব / 15.4089; 73.8012স্থানাঙ্ক: ১৫°২৪′৩২″ উত্তর ৭৩°৪৮′০৪″ পূর্ব / ১৫.৪০৮৯° উত্তর ৭৩.৮০১২° পূর্ব / 15.4089; 73.8012
বিস্তারিত
চালু১৮৮৫
পরিচালনা করেমারগাঁও বন্দর কর্তৃপক্ষ
মালিকভারত সরকার
উপলব্ধ নোঙরের স্থান১১
কর্মচারী২,৬০০
ওয়েবসাইট
www.mptgoa.com

মারগাঁও বন্দর হল ভারতের উপকূলীয় রাজ্য গোয়াতে অবস্থিত ভারতের পশ্চিম উপকূলের বন্দর। ১৮৮৫ খ্রিষ্টাব্দে প্রাকৃতিক আশ্রয়স্থলে বন্দরটি প্রতিষ্ঠিত হয় এবং এটি ভারতের প্রাচীনতম বন্দরগুলির মধ্যে একটি।[১] বন্দরে প্রায় ২,৬০০ জন কর্মী নিযুক্ত রয়েছেন এবং প্রায় ৪,০০০ জন পেনশন প্রাপক রয়েছে।[২]

বন্দর পরিচালনাকারী মারগাঁও পোর্ট ট্রাস্ট ভাস্কো দা গামা অঞ্চলের বৃহত্তম নিয়োগকর্তা এবং বন্দরের অন্তর্গত হেডল্যান্ড সাদায় একটি সম্পূর্ণ ছোট-শহর রয়েছে যা বন্দরের কর্মচারীদের জন্য বিদ্যালয়, আবাসিক চত্বর এবং বিভিন্ন সুবিধা (যেমন একটি হাসপাতাল) প্রদান করে।[৩]

অবস্থান[সম্পাদনা]

মারগাঁও পোতাশ্রয়ের বিমান দৃশ্য।

মারগাঁও বন্দর ভারতের গোয়া রাজ্যের মারগাঁও শহরে অবস্থিত। এটি একটি স্বাভাবিকভাবেই সুরক্ষিত খোলা টাইপের আশ্রয়স্থল, যা জুয়ার নদীটির দক্ষিণ অংশে অবস্থিত। এই বন্দরটি জলপ্রাচীরের ও বোল্ডার (বড় পথর খন্ড) দ্বারা সুরক্ষিত। এই জলপ্রাচীর বন্দরের প্রতাশ্রয়ের বাইরের প্রান্তে নির্মান করা হয়েছে।[৪]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

ঊনবিংশ শতাব্দীতে, পর্তুগিজ ভারতব্রিটিশ ভারত ১৮৭৭ সালের অ্যাংলো-পর্তুগিজ চুক্তির অধীনে সামুদ্রিক বাণিজ্য উন্নত করার জন্য একই বাহিনীতে যোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল।[৫][৬][৭][৮][৯] এর পর মারগাঁওকে একটি প্রাকৃতিক পোতাশ্রয় হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছিল এবং এই স্থানের সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করার জন্য একটি মিটার-গেজ রেলপথ নির্মাণ করা হয়েছিল। বন্দরের আধুনিকীকরণ এবং মিটার-গেজ রেলপথ স্থাপনের কাজটি ব্রিটিশ কোম্পানী ওয়েস্টার্ন ইন্ডিয়ান পর্তুগীজ গ্যারান্টি রেলওয়ে কোম্পানি দ্বারা পরিচালিত হয়।

পরিবহন সংযোগগুলি[সম্পাদনা]

বন্দরটি তার নিজস্ব রেলওয়ে লাইন দ্বারা সংযুক্ত, এর সাথে পূর্ববর্তী মারমাগাঁও রেলওয়ে স্টেশন বন্দর এলাকাতেই অবস্থিত। এভাবে এটি দক্ষিণ মধ্য রেলওয়ে এবং কংকন রেলওয়ে দ্বারা মহারাষ্ট্র এবং কর্ণাটক অঞ্চলের সাথে বন্দরটি সংযুক্ত। জাতীয় সড়ক ১৭এ-এর সঙ্গে বন্দরটি বা এমপিটি সংযুক্ত। একটি চার-লেন মহাসড়ক দিয়ে জাতীয় সড়ক ১৭বি-এর সঙ্গে সংযোগ স্থাপনের পরিকল্পনা রয়েছে, যা ২০১৮ সালের অক্টোবরে সম্পন্ন হওয়ার কথা ছিল।[১০] গোয়াকর্ণাটকের অভ্যন্তরীণ অঞ্চলে খননকৃত লৌহ আকরিক ম্যান্ডোভি এবং জুড়ি নদীপথে বার্জ দ্বারা পরিবহন করে বন্দরে আনা হয়।[১১]

সুযোগ-সুবিধা[সম্পাদনা]

জুড়ি নদী থেকে মারগাঁও পোতাশ্রয়ের দৃশ্য।

মারগাঁও বন্দরে কয়লা ও লোহা আকরিক জন্য বার্থ আছে। এটি ক্রুজ জাহাজের জন্য একটি বেষ্টনও রয়েছে, এমনকি একটি ডেডিকেটেড ক্রুজ টার্মিনাল ভবন রয়েছে এবং সারা বছর বিভিন্ন ধরণের ক্রুজ জাহাজ বন্দরের টার্মিনালে চলাচল করে।[১২][১৩]

একটি ডেডিকেটেড বহুমুখী পণ্যসম্ভার খালাসের বার্থ, একটি সাধারণ পণ্যসম্ভার খালাসের বার্থ (জাহাজ মেরামত কেন্দ্রকে প্রতিস্থাপন করে) এবং ভারতীয় নৌবাহিনী এবং উপকূলরক্ষি বাহিনীর জন্য নিবেদিত বার্থের সাথে বন্দরকে প্রসারিত করার পরিকল্পনা করা হয়েছে।[১৪]

পণ্যসম্ভারের ধরন[সম্পাদনা]

২০১০-১১ সালে প্রায় ৫৪.৫০ মিলিয়ন মেট্রিক টন (এমএমটি) লৌহ আকরিক পরিবহন করে এমপিটি ভারতবর্ষের নেতৃস্থানীয় লৌহ আকরিক রপ্তানিকারক বন্দর হয়ে উঠেছিল (এর প্রায় ৯০% চীনকে রপ্তানি করা হয়েছিল)।[১৫] পরবর্তীতে, ২০১১-১২ সালে ৩৯ মিলিয়ন টন পন্য পরিবহন করে বন্দর করে, যার মধ্যে বিশ্বব্যাপী লৌহ আকরিকের চাহিদা কমায় বন্দরটির দ্বারা লৌহ আকরিক রপ্তানি কমে হয় ২২.২১ মিলিয়ন টন। লৌহ আকরিকের। চাহিদা মেটাতে বিশ্বব্যাপী হ্রাসের কারণে, ২২.২1 এমএমটির জন্য লৌহ আকরিক অ্যাকাউন্টিংয়ের সাথে বন্দরের মালামালের পরিমাণ কমেছে 39 এমএমটি।[২]

পুরস্কার[সম্পাদনা]

২০১৫-২০১৬ সাল নাগাদ মারগাঁও বন্দর জাহাজ মন্ত্রণালয়ের দুটি সম্মানিত পুরষ্কার জিতেছে: দেশের সব বড় বন্দরগুলির মধ্যে সর্বাধিক পন্য পরিবহনের বৃদ্ধি এবং আরএফডি (ফলাফল ফ্রেমওয়ার্ক ডকুমেন্ট) বাস্তবায়নে সর্বোচ্চ স্কোর অর্জনের জন্য।[১৬]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Correia, Sherwyn (ডিসে ৮, ২০১৮)। "Mormugao Port Modernisation: Proceedings of an Environmental Public Hearing"Economic & Political Weekly53 
  2. Manoj, P. (ডিসে ৫, ২০১২)। "India's top iron ore port hit by Goa mining ban"Livemint 
  3. "MPT seeks closure of garbage dump at Sada"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-১২ 
  4. "Mormugao Port Trust (MPT)"GCCI (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-১২ 
  5. Borges, Charles; Pereira, Oscar; Stubbe, Hannes (২০০০)। Goa and Portugal: History and Development। New Delhi: Concept Publication Company। পৃষ্ঠা 144–145। আইএসবিএন 8170228670 
  6. DaCosta, Murelle Maria Leonildes (২০০২)। History of Trade and Commerce in Goa 1878-1961 (গবেষণাপত্র) (ইংরেজি ভাষায়)। Goa University। পৃষ্ঠা 219–242। 
  7. Nagvenkar, Harischandra Tucaram (১৯৯৯)। Salt and the Goan Economy: A Study of Goa's salt industry and salt trade in the 19th and 20th centuries during the Portuguese rule (গবেষণাপত্র) (ইংরেজি ভাষায়)। Goa University। পৃষ্ঠা 196–250 – Shodhganga-এর মাধ্যমে। 
  8. Pinto, Eric (সেপ্টে ১৭, ২০১৩)। "The Anglo-Portuguese Treaty of 1878 - Impact on Goa"Goanet (মেইলিং তালিকা)। সংগ্রহের তারিখ ডিসে ১৩, ২০১৮ 
  9. Noronha, Frederick (জুন ২৮, ২০১৫)। "Goa's Babel"The Navhind Times (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-১৩ 
  10. Jha, Navin (আগস্ট ১৮, ২০১৬)। "Will 4-lane to Mormugao be a reality by Oct 2018?"oHeraldo (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-১২ 
  11. "High Court rejects pleas to allow ore transportation in state"The Times of India। মার্চ ৩০, ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-১২ 
  12. "Italian cruise ship brings over 1,000 visitors to Goa"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-১২ 
  13. "Gadkari To Inaugurate Cruise Terminal & Fishing Harbour at Vasco Tomorrow"Digital Goa (ইংরেজি ভাষায়)। ডিসে ২১, ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-১৩ 
  14. "Mormugao port in Goa lines up Rs 3,141 crore projects"The Economic Times। ২০১৫-০১-০৪। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-১২ 
  15. "Highest ever iron-ore exports from Goa ports this fiscal"The Economic Times। ২০১১-০৯-০৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-১২ 
  16. "MPT bags two prestigious awards from Union Ministry of Shipping"Navhind Times (ইংরেজি ভাষায়)। জুন ৮, ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-১২ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]