চেন্নাই বন্দর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
চেন্নাই বন্দর
Madras Port In 1996.jpg
চেন্নাই (মাদ্রাস) বন্দরের দৃশ্য
অবস্থান
দেশ ভারত
অবস্থানচেন্নাই,তামিলনাড়ু
স্থানাঙ্ক১৩°০৫′০৪″ উত্তর ৮০°১৭′২৪″ পূর্ব / ১৩.০৮৪৪১° উত্তর ৮০.২৮৯৯° পূর্ব / 13.08441; 80.2899স্থানাঙ্ক: ১৩°০৫′০৪″ উত্তর ৮০°১৭′২৪″ পূর্ব / ১৩.০৮৪৪১° উত্তর ৮০.২৮৯৯° পূর্ব / 13.08441; 80.2899
বিস্তারিত
চালু১৮৮১
পরিচালনা করেচেন্নাই বন্দর কর্তিপক্ষ
পোতাশ্রয়ের প্রকারকৃত্রিম পোতাশ্রয়
বৃহত্ত সমুদ্র বন্দর
পোতাশ্রয়ের আকার১৬৯.৯৭ হেক্টর (৪২০.০ একর)
জমির আয়তন২.৭৩ বর্গকিলোমিটার (১.০৫ মা)
আকার৪.০৭ বর্গকিলোমিটার (১.৫৭ মা)
উপলব্ধ নোঙরের স্থান২৬
কর্মচারী৮,০০০ (২০১৪)
চেয়ারম্যানঅটুলা মিশ্রা (২০১৪)
পোতাশ্রয়ের গভীরতা১০ মিটার (৩৩ ফু)
পরিসংখ্যান
জলযানের আগমন২১৮১ (২০১০-২০১১)
বার্ষিক কার্গো টন৫৩.০১ মিলিওন টন (২০১৮-২০১৯)[১]
বার্ষিক কন্টেইনারের আয়তন১.৬২০ মিলিওন টিইইউ (২০১৮-২০১৯)[২]
বার্ষিক আয়৮,৯০৪ কোটি (US$১.২৪ বিলিয়ন)

চেন্নাই বন্দর বা মাদ্রাস বন্দর হল মুম্বাইয়ের জওহরলাল নেহেরু বন্দরের পরে ভারতের দ্বিতীয় বৃহত্তম কনটেইনার বন্দর এবং কলকাতা ও মুম্বাই বন্দরের ভারতের ১৩ টি বড় বন্দরের মধ্যে তৃতীয় প্রাচীনতম বন্দর। ১৮৮১ সালে দাপ্তরিক ভাবে বন্দরের কার্যক্রম শুরু হয়, যদিও সমুদ্রের বাণিজ্য বহু পূর্বে ১৬৩৯ সালে শুরু হয়। এটি দক্ষিণ ভারতের বৃহত্তম সমুদ্র বন্দর। গাড়ি রপ্তানির ক্ষেত্রে বন্দরটি ভারতের মধ্যে বৃহত্তম। এই বন্দরকে কেন্দ্র করে বর্তমান চেন্নাই মহানগরী গড়ে উঠেছে। এখনও বন্দরটি চেন্নাই এর অর্থনীতির মূল চালিকা শক্তি। বর্মতানে বন্দরটির নিরাপত্তাা বারানো হয়েছে সন্ত্রাসবাদি আক্রমনের পতিরোধ গড়ার জন্য।[৩] এটি স্বাধীনতা পরবর্তী যুগে একটি প্রধান ধারক বন্দরে পরিণত হয়। বন্দরটি তামিলনাড়ুর অর্থনৈতিক বিকাশের একটি প্রধান কারণ, বিশেষত দক্ষিণ ভারতে উৎপাদন শিল্পের জন্য এবং এই শহরের উন্নয়নে ব্যাপক অবদান রেখেছে।[৪] এটি বন্দরটির অস্তিত্বের কারণে চেন্নাই শহর অবশেষে দক্ষিণ ভারতের গেটওয়ে বা প্রবেশ দ্বার হিসাবে পরিচিতি লাভ করে। বন্দরটি ভারতের পূর্ব উপকূলে কনটেইনার, গাড়ি এবং প্রকল্পের পণ্যসম্ভারের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে। বন্দরটি প্রথমদিকে সামান্য পরিমাণে পণ্যসম্ভার পরিচালনা করা থেকে শুরু করে সাম্প্রতিক বছরগুলিতে মূলত তেল ও মোটর আমদানি এবং চিনাবাদাম, গ্রানাইট এবং আকরিক রফতানির সমন্বয়ে বন্দরটি ৬০ মিলিয়ন টনেরও বেশি পণ্যসম্পদ পরিচালনা করতে শুরু করেছে। ২০০৮ সালে, বন্দরের কনটেইনার ট্রাফিক ১০ মিলিয়ন বিশ ফুট সমতুল্য ইউনিট (টিইইউ) অতিক্রম করে। এটি বর্তমানে বিশ্বের ৮৬ তম বৃহত্তম কনটেইনার বন্দর হিসাবে স্থান পেয়েছে এবং বার্ষিক সক্ষমতাটি প্রায় ১৪০ মিলিয়ন টনে উন্নীত করার পরিকল্পনা রয়েছে।[৫][৬] এটি একটি আইএসও ১৪০০১: ২০০৪ এবং আইএসপিএস-প্রত্যয়িত বন্দর এবং সারা বিশ্বের ৫০ টিরও বেশি বন্দরের সাথে সরাসরি সংযোগ স্থাপনকারী একটি প্রধান লাইন বন্দর হয়ে উঠেছে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

বন্দরটি ১৮৮১ সালে মাদ্রাস বন্দর নামে চালু হয়।তবে ১৬৩৯ সাল থেকেই এখানে একটি বন্দর চালু ছিল।বন্দরটি প্রথম প্রাতিষ্ঠানিক ভাবে চালু করে ইংরেজরা।মাদ্রাস(চেন্নাই) কে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠে মাদ্রাস প্রেসিডেন্সি এবং এর রাজধানী হয় মাদ্রাস।এই রাজধানী মাদ্রাস বা চেন্নাই ছিল সেই সয় ভারতের গুরুত্ব পূর্ন বন্দর।এই বন্দর দ্বারা ইংরেজরা দক্ষিণ ভারতের সঙ্গে ব্রিটেনের ব্যবসা বাণিজ্য চালাতো।স্বাধীনতার পড় এটি ভারতের প্রধান তিনটি বন্দরের একটি ছিল বর্তমান বন্দর গুলি গড়ার আগে।

পশ্চাতভূমি[সম্পাদনা]

বন্দরটির পশ্চাত ভূমি খুবই সমৃদ্ধ।অন্ধ্রপ্রদেশ এর দক্ষিণ অংশ,তামিলনাড়ুকর্ণাটক এর কিছু অংশ ওই বন্দরের পশ্চাৎভূমির অন্তর্গত।অতিতে সমগ্র দক্ষিণ ভারত বন্দরটির পশ্চাৎ ভূমির অন্তর্গত ছিল।বর্তমানে বিশাখাপত্তনম,এন্নোর,তুতিকোরিন বন্দর তৈরির পড় পশ্চাৎ ভূমি কিছুটা হ্রাস পেয়েছে।তবে বন্দরটির পশ্চাৎ ভূমি আগের থেকে অনেক শিল্প সমৃদ্ধ ও নগরায়ীত হয়েছে।

পরিকাঠামো[সম্পাদনা]

বন্দরটি জমির পরিমানের দিক থেকে ভারতের দ্বিতীয় ক্ষুদ্র।বন্দরটি মোট ৩টি ডক নিয়ে গঠিত।এই তিনটি ডক হল -আম্বেদকর ডক,সত্যাবতি জহর ডক ও ভারতী ডক।জহর ডকে ৬ টি আম্বদকর ডকে ১২ টি ও ৮ টি জেটি(বার্থ) রয়েছে।এছায়া এখানে কন্টেইনার টার্মিনাস রয়েছে।এটির গভীরতা ১২-১৬.৫ মিটার।বন্দরে ৩ টি তেল জেটি রয়েছে।

আমদানি-রপ্তানি[সম্পাদনা]

হুন্ডাই গাড়ি চেন্নাই বন্দরের রপ্তানির জন্য

২০১৪-২০১৬ সালে বন্দরটির দ্বারা ৫২ মিলিওন টন এর বেশি কার্গো ও ১.৫৫ মিলিওন টিইইউএস কন্টেইনার পরিবহন করা হয়েছে।বন্দরটির প্রধান আমদানি দ্রব্য হল - পেট্রোলিয়াম,ইস্পাত,সেশিনারি,রাসায়নিক দ্রব্য এবং রপ্তানি করা হয় -লৌহ আকরিক,গাড়ি,কাপড়,চর্ম প্রভৃতি ।বর্তমানে (২০১৪-২০১৫) বন্দরটি দিয়ে ২ লক্ষের বেশি গাড়ি রপ্তানি করা হয়েছে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Top ports record marginal upswing in FY19 cargo handling at 699 MT"। economictimes.indiatimes.com। ৭ এপ্রিল ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১৯ 
  2. "Containers handled at major ports up 8% at 9.876 million TEUs in FY19"। www.thehindubusinessline.com/। ৩ এপ্রিল ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০১৯ 
  3. "আইএসআই-মদত পুষ্ঠ জঙ্গি আক্রমনের পরিকল্পনা করেছিল"। সংগ্রহের তারিখ ৩০-১০-২০১৬  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  4. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; TOI_CenturyOldStoriesWashUp নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  5. "Chennai"CS Top 100 Container Ports 2010। Cargo Systems। আগস্ট ২০১০। পৃষ্ঠা 69। সংগ্রহের তারিখ ২৩ অক্টো ২০১১ 
  6. "Chennai Port capacity to be expanded with Rs.100 billion"The Siasat Daily। ১৯ জানুয়ারি ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ২৩ অক্টো ২০১১ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]