পিপাভাব বন্দর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পিপাভাব বন্দর
অবস্থান
দেশভারত
অবস্থানপিপাভাব
স্থানাঙ্ক২০°৩২′ উত্তর ৭১°১৮′ পূর্ব / ২০.৫৪° উত্তর ৭১.৩০° পূর্ব / 20.54; 71.30
বিস্তারিত
চালু২০০২ (বাণিজ্যিক কার্যক্রম)
পরিচালনা করেএপিএম টার্মিনাল
মালিকএপিএম টার্মিনাল
পোতাশ্রয়ের ধরনএকাধিক ব্যবহারকারী, বহু-পণ্য, সকল আবহাওয়া বন্দর
উপলব্ধ নোঙরের স্থান২ টি ধারক বার্থ, ২ টি বাল্ক বার্থ, ২ টি তরল পণ্য জেটি
কর্মচারী৫০০+
পরিচালন অধিকর্তাকেল্ড পেদারসেন
পোতাশ্রয়ের গভীরতা১৪.৫ মিটার (৪৮ ফু)

পিপাভাব বন্দর বেসরকারী খাতে নির্মিত ভারতের প্রথম বন্দর। এটি কন্টেইনার, বাল্ক এবং তরল পণ্যসম্ভারের জন্য ভারতের পশ্চিম উপকূলের একটি বন্দর। এর প্রধান প্রচারক হলেন এপিএম টার্মিনাল, যা বিশ্বের বৃহত্তম কন্টেইনার টার্মিনাল পরিচালনাকারীদের মধ্যে একটি। পরিষেবাগুলিতে পাইলটেজ/টাওয়েজ, পণ্যসম্ভার পরিচালনা ও সরবরাহ (লজিস্টিক) সহায়তা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। পিপাভাব বন্দর আম্রেলি থেকে ৯০ কিলোমিটার দক্ষিণে, রাজুলার ১৫ কিমি দক্ষিণে এবং ভবানগরের ১৪০ কিমি দক্ষিণ পশ্চিমে গুজরাটের রাজুলা সৌরাষ্ট্রে অবস্থিত।

পিপাভাব বর্তমানে প্রতি বছর ১.৩৫ মিলিয়ন টিইইউ কনটেইনার, ৪-৫ মিলিয়ন টন শুষ্ক বাল্ক কার্গো, ২ মিলিয়ন টন তরল কার্গো এবং প্রতি বছর প্রায় ২,৫০,০০০ টি গাড়ি পরিচালনা করার ক্ষমতা রাখে। ভবিষ্যতের উন্নয়নের জন্য বন্দরে অতিরিক্ত সামুদ্রিক এলাকা এবং স্থল পার্শ্ব অঞ্চল উপলভ্য রয়েছে।

অবস্থান[সম্পাদনা]

পিপাভাব ভারতের পশ্চিম উপকূলে মুম্বইয়ের ১৫২ নটিক্যাল মাইল উত্তর-পশ্চিমে গুজরাট রাজ্যে অবস্থিত। এটি ২০°৫৪' উত্তর অক্ষাংশ এবং ৭১°৩০' পূর্ব দ্রাঘিমাংশে অবস্থিত।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯৯৮ সালে, গুজরাট মেরিটাইম বোর্ড গুজরাট পিপাভাব পোর্ট লিমিটেডকে অনুমোদন প্রদান করে। ২০০০ সালে, বন্দরটি পিপাভাব রেল কর্পোরেশন লিমিটেড শুরু করতে ভারতীয় রেলের সাথে একটি যৌথ উদ্যোগ গঠন করে। বাণিজ্যিক কার্যক্রম ২০০২ সালে শুরু হয়।

২০০৫ সালে এপিএম টার্মিনাল সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশ অর্জন করে। বড় প্রকল্পগুলি ২০০৯ সালে শেষ হয় এবং সংস্থাটি একটি আইপিও নিয়ে আসে এবং ২০১০ সালে ভারতীয় স্টক এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্ত হয়।

টার্মিনাল[সম্পাদনা]

বন্দরে পণ্য সম্ভার পরিচালনার জন্য তিন ধরনের টার্মিনাল রয়েছে। এগুলি হল - কন্টেইনার টার্মিনাল, বাল্ক টার্মিনাল, তরল পণ্য টার্মিনাল।

কন্টেইনার টার্মিনাল[সম্পাদনা]

কন্টেইনার টার্মিনালের জেটির দৈর্ঘ্য ৭৩৫ মিটার, (৩৫০ মিটার, ৩৮৫ মিটার)। জেটিতে জলের গভীরতা ১৪.৫ মিটার। কন্টেইনার টার্মিনালটি দ্রুত পণ্য পরিবহনের জন্য অধিক যন্ত্র নির্ভর। বন্দরটি আধুনিক এবং দক্ষ কন্টেইনার হ্যান্ডলিং সরঞ্জামগুলি যেমন প্যানাম্যাক্স জেটি ক্রেন, রাবার টায়ার গ্যান্ট্রি ক্রেন [আরটিজি], রেল মাউন্টেড গ্যান্ট্রি ক্রেন [আরএমজিসি] এবং সম্পর্কিত সহায়তা অবকাঠামো দিয়ে সজ্জিত। জাহাজ থেকে কন্টেইনার খালাস এবং জাহাজে কন্টেইনার মজুতের জন্য ৮ টি পোস্ট পানামেক্স জেটি ক্রেন রয়েছে। এছাড়া টার্মিনালে ৪ টি রেল মাউন্ট গ্যান্ট্রি ক্রেন, ২০ টি রাবার টায়ার্স গ্যান্ট্রি ক্রেন রয়েছে।[১]

বন্দরে কন্টেইনার পরিচালনার জন্য বন্দরের মধ্যে ১ টি এবং বন্দরের বাইরে ২ টি কনটেইনার ফ্রেইট স্টেশন রয়েছে। পিপাভাভ বন্দর একটি উৎসর্গীকৃত হিমায়ক অঞ্চল এবং ৫০০ শতাধিক হিমায়ক প্লাগ'সহ সমর্থন করে। বন্দরটিতে বছরে প্রায় ৪০,০০০ টিইইউ হিমায়ক কন্টেইনার সমৃদ্ধ পশ্চাৎভূমির প্রবেশাধিকার রয়েছে এবং এটি সামুদ্রিক খাদ্য রফতানির পরিমাণ ও মূল্য উভয় ক্ষেত্রেই দেশের মধ্যে শীর্ষস্থানীয়।[১]

ডিসেম্বরে ২০১৯ সালে, শুল্ক ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা কেন্দ্র দ্বারা নির্বাচিত কন্টেইনার স্ক্যান করার জন্য এপিএম টার্মিনাল পিপাভাব-এ এক্স-রে ভিত্তিক কন্টেইনার স্ক্যানার এবং একটি রেডিয়েশন পোর্টাল মনিটর চালু হয়। এটি চোরাচালান রোধ করতে সহায়তা করে এবং ভুলভাবে ঘোষিত পণ্যগুলি শনাক্ত করে।[১]

বাল্ক টার্মিনাল[সম্পাদনা]

পিপাসার বন্দরে একটি বাল্ক পণ্য টার্মিনাল রয়েছে এবং এটি ৬৯০ মিটার দীর্ঘ, যায় মধ্যে ৩৫০ মিটার অংশ বহুমুখী পণ্য টার্মিনাল হিসাবে ব্যবহৃত হয়। বহুমুখী পণ্য পরিচালনাকারী বার্থ সহ টার্মিনালটিতে মোট ৩ টি বার্থ রয়েছে। টার্মিনালটিতে ১৩ মিটার গভীরতা জাহাজ নোঙর করতে সক্ষম। এই টার্মিনালটিতে ৬৫ হাজার বর্গ মিটার এলাকা বিশিষ্ট ছাউনিযুক্ত গুদাম ঘর এবং ২ টি গটওয়াল্ড ক্রেন রয়েছে।[২]

বন্দরটি আধুনিক অবকাঠামো যেমন মেকানিকাইজড ব্যাগিং ইউনিট এবং গতি ওজন সেতুতে সার রেক পরিচালনা করার জন্য ওয়াগন লোডিং ব্যবস্থা, ভারতে বাধ্যতামূলক ইউরিয়া কার্গোর নিম লেপের জন্য বার্থগুলি নিম লেপ প্ল্যান্ট সহ সজ্জিত। পিপাভাব হল পরিবেশ বান্ধব কয়লা ইয়ার্ড গঠনকারী প্রথম বন্দরগুলির মধ্যে একটি।[২]

টার্মিনালটি বিভিন্ন বাল্ক এবং ব্রেক-বাল্ক কার্গো যেমন কয়লা, সিমেন্ট, ক্লিঙ্কার, সার, ইস্পাত, লোহা আকরিক, কৃষি পণ্য, লবণ এবং সোডা অ্যাশ পরিচালনা করে। বন্দরটি বিশেষায়িত প্রকল্প কার্গোও পরিচালনা করে। টার্মিনালটির ৪ এমএমটি বাল্ক কার্গো পরিচালনা করার ক্ষমতা রয়েছে।[২]

তরল পণ্য টার্মিনাল[সম্পাদনা]

বন্দরে একটি উৎসর্গীকৃত তরল বাল্ক জেটি রয়েছে এবং এটি পেট্রোলিয়াম পণ্য, রাসায়নিক, উদ্ভিজ্জ তেল, বিটুমিন এবং এলপিজি কার্গো ইত্যাদি পরিচালনা করতে সজ্জিত রয়েছে। এই টার্মিনালটি ১ টি মাত্র বার্থ নিয়ে গঠিত এবং এই টার্মিনালে সর্বোচ্চ ১৯০ মিটার দীর্ঘ জাহাজ নোঙর করতে পারে। বন্দরের ১২ মিটার খসড়া গভীরতার পাশাপাশি তরল পণ্যের জন্য রেলপথ সাইডিং এবং ট্যাঙ্কেজগুলি থেকে রেলপথের সাথে পাইপলাইনের সংযোগ রয়েছে। পিপাভাব বন্দর বছরে ২ এমএমটি তরল পণ্য পরিচালনা করতে ক্ষমতা রয়েছে।[৩]

বন্দরে সমস্ত শ্রেণীর কার্গো [এলপিজি, পিওএল, কেমিক্যালস, ভেজি অয়েল, বিটুমিন ইত্যাদি) জন্য প্রায় ৪,৫০,০০০ কেএল পরিচালনাগত ট্যাঙ্কেজ ক্ষমতা রয়েছে। ট্যাঙ্কেজগুলি ট্যাঙ্কেজ টার্মিনাল অপারেটরগুলি দ্বারা পরিচালিত হয়। তরল/গ্যাস পণ্য আমদানি ও রফতানির জন্য এজিএস লজিস্টিকস, গাল্ফ পেট্রোকেম এবং আইএমসি লিমিটেড নামে তিনটি প্রতিষ্ঠানের সাথে বন্দরের কৌশলগত সম্পর্ক রয়েছে।[৩]

যোগাযোগ ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

রেল[সম্পাদনা]

পিআরসিএল নির্মিত ২৬৯ কিলোমিটার ব্রডগেজ রেলপথটিতে এপিএম টার্মিনালের ৩৮.৮% সত্ত্ব রয়েছে, যা বন্দরকে সুরেন্দ্রনগরে জাতীয় রেল নেটওয়ার্ক এবং একটি উৎসর্গীকৃত ফ্রেইট করিডোরের সঙ্গে সংযুক্ত করে। বন্দরটি থেকে উত্তর এবং পশ্চিম ভারতের সমস্ত আইসিডিগুলিতে নিয়মিত ট্রেন পরিষেবা চালু আছে। বন্দরটি একসাথে আগত এবং বহির্গামী ট্রেন পরিচালনা করতে পারে। এই কাজের জন্য বন্দরে বেশ কয়েকটি রেলপথ রয়েছে। ২০০৬ সালের মার্চ মাসে এপিএম টার্মিনাল পিপাভাব ভারতে প্রথম বন্দর ছিল, যেটি ডাবল স্ট্যাকযুক্ত কনটেইনার ট্রেন পরিষেবা চালু করে।

পিপাভাব উত্তর-পশ্চিম ভারতের সমস্ত বড় আইসিডি থেকে কন্টেইনার ট্রেন গ্রহণ করে। ২০০৩ সালের নভেম্বর মাসে বন্দরে আইসিডি তুঘলাকাবাদ থেকে প্রথম ট্রেন প্রবেশ করে। ফেব্রুয়ারি ২০০৪ সাল থেকে উত্তর-পশ্চিম ভারতে বন্দর এবং বিভিন্ন আইসিডি-র মধ্যে নিয়মিত ট্রেন পরিষেবা চালু হয়।

সড়ক[সম্পাদনা]

পিপাভাভ বন্দরটি জাতীয় সড়ক ৮ই এর সাথে সংযোগ করতে ১১ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের একটি চার-লেনের এক্সপ্রেসওয়ে তৈরি করা হয়। হাইওয়েটি পূর্বে উপকূলীয় হাইওয়ে ৬ হিসাবে পরিচিত ছিল এবং এটি এনএইচ ৮ইতে রূপান্তরিত হওয়ার পরে উল্লেখযোগ্যভাবে আপগ্রেড হয়। এছাড়াও, আহমেদাবাদ-ঢোলেরা কেন্দ্রীয় মেরুদণ্ড সড়কটি বন্দর পর্যন্ত প্রসারিত করা হবে। এটি ১০-লেনের রাস্তা হবে এবং এক্সটেনশনটি বিশেষ বিনিয়োগ অঞ্চলে বিকল্প বন্দর সংযোগ প্রদান করবে। এই প্রকল্পটি দ্রুত শুরু করা হয় এবং সরকার প্রয়োজনীয় ৩৬,০০০ হেক্টর জমির মধ্যে ২৬,০০০ হেক্টর জমি বরাদ্দ করে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Pipavav port - Containers"৮ জুলাই ২০২০ 
  2. "Bulk Cargo"৭ জুলাই ২০২০ 
  3. "Liquid Cargo"। সংগ্রহের তারিখ ৭ জুলাই ২০২০ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]