হলদিয়া বন্দর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
হলদিয়া বন্দর
হলদিয়া বন্দর.jpg
হলদিয়া বন্দরের ডকের দৃশ্য।
অবস্থান
দেশ ভারত
অবস্থানহলদিয়া, পশ্চিমবঙ্গ
স্থানাঙ্ক২১°১২′ উত্তর ৮৮°০০′ পূর্ব / ২১.২০° উত্তর ৮৮.০০° পূর্ব / 21.20; 88.00
বিস্তারিত
চালু১৯৬৭
পরিচালনা করেকলকাতা বন্দর কর্তৃপক্ষ
মালিকজাহাজ মন্ত্রক, ভারত সরকার
পোতাশ্রয়ের ধরনকৃত্রিম নদী বন্দর
উপলব্ধ নোঙরের স্থান১৪
জেটি
জেনারেল ম্যানেজারঅমল দত্ত
প্রতাশ্রয়ের গভীরতা৮.৫ মিটার (২৮ ফু)
পরিসংখ্যান
জলযানের আগমন২,২৬২ (২০১৮-২০১৯) [১]
বার্ষিক কার্গো টন৪৭ মিলিয়ন টন (২০১৯-২০২০)[২][৩][৪]
বার্ষিক কন্টেইনারের আয়তন১,৭৮,০০০ টিইইউ (২০১৮-২০১৯)[২]
হলদিয়া বন্দরে পণ্য যাতায়াত

হলদিয়া বন্দর বা হলদিয়া ডক কমপ্লেক্স ভারতের অঙ্গরাজ্য পশ্চিমবঙ্গের পূর্ব মেদিনীপুর জেলার হলদিয়া শহরে গড়ে উঠেছে হলদি নদীহুগলি নদীর মিলন স্থলে। এই বন্দরটি তৈরি করা হয়েছে কলকাতা বন্দর এর সহযোগি বন্দর হিসাবে। তাই একে বন্দর না বলে ডক কমপ্লেক্স বলা হয়।[৫] হলদিয়া বন্দর বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গের একক বৃহত্তম বন্দর। কলকাতা বন্দর সহযোগে হলদিয়া বন্দর হল ভারতের পঞ্চম বৃহত্তম পণ্যবাহী বন্দর এবং তৃতীয় বৃহত্তম (২০১৫-২০১৬) কন্টেইনার বন্দর।বন্দরটির পণ্য খালাসের ক্ষমতা বছরে ৪৬ মিলিয়ন টন। হলদিয়া বন্দরের সর্বোচ্চ গভীরতা হল ৮.৫ মিটার এবং বন্দরটিতে সর্বোচ্চ ২৩০ মিটার দীর্ঘ জাহাজ নোঙর করতে পাড়ে।[৬]

অবস্থান[সম্পাদনা]

হলদিয়া বন্দর সমুদ্র সমতল থেকে ৮ মিটার উচ্চতায় এবং ২১.২০ উত্তর ও ৮৮.০০ পূর্বে অবস্থিত। এই বন্দর পূর্ব মেদিনীপুর জেলার তমলুক মহকুমায় অবস্থিত।বন্দরটি হুগলি নদীহলদি নদীর মিলন স্থানে হুগলি হুগলি নদীর পশ্চিম উপকূলে গড়ে উঠেছে।বন্দরটি কলকাতা মহানগর থেকে নদী বা জলপথে ৯০ কিলোমিটার দূরে এবং বঙ্গোপসাগর থেকে নদী পথে ৪০ কিলোমিটার অভ্যন্তরে অবস্থিত।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

পশ্চাৎভূমি[সম্পাদনা]

বন্দরটি কলকাতা বন্দরের সহযোগী বন্দর হওয়ার কলকাতা বন্দরের পশ্চাৎ ভূমি হলদিয়া বন্দরের পশ্চাৎ ভূমিতে পরিণত হয়েছে। পশ্চিমবঙ্গ, ঝাড়খন্ড, বিহার, মধ্যপ্রদেশ ও উত্তরপ্রদেশের পূর্ব অংশ, ওড়িশার উত্তর অংশ এবং উত্তর-পূর্ব ভারত হলদিয়া বন্দর পশ্চাৎ ভূমির অন্তর্গত। এই বিশাল পশ্চাৎ ভূমির পণ্যদ্রব্য হলদিয়া বন্দর দ্বারা আমদানি ও রপ্তানি করা হয়। ভারতের বাইরে নেপালভূটানের পণ্য কলকাতা বন্দর ছাড়াও হলদিয়া বন্দরের মধ্যমে পরিবহন করা হয়।

পরিকাঠামো[সম্পাদনা]

হলদিয়া বন্দরের ডকে ১৪ টি বার্থ ও হুগলি নদীর তীরে ৩ টি তেল জেটি ও ৩ টি বার্জ জেটি রয়েছে। বন্দরের ডকটি একটি লক গেট দ্বারা হুগলী নদী থেকে পৃথক। ডকটিতে ৩০ হাজার মেট্রিক টন পন্য বোঝাই জাহাজ নোঙর করতে পাড়ে। হুগলি নদীর তীরে বন্দরের তেল জেটিসমূহে ৩০ হাজার মেট্রিক টনের অধিক পণ্যবাহী জাহাজের নোঙরের সক্ষমতা রয়েছে। বন্দরটি গড়ে ৮–৮.৫ মিটার (২৬–২৮ ফু) গভীরতা সম্পন্ন।

ড্রাই বাল্ক কার্গো টার্মিনাল[সম্পাদনা]

ড্রাই বাল্ক কার্গো টার্মিনাল বা শুষ্ক বাল্ক পণ্যের টার্মিনালটি ডক মধ্যস্থিত ২ নং, ৪ নং, ৪এ নং,৪বি নং, ৮ নং ও ১৩ নং বার্থের দ্বারা গঠিত।[৭] প্যানাম্যাক্স ও হ্যান্ডিম্যাক্স জাহাজে পণ্য বোঝাই ও খালাস করার জন্য ২ নং বার্থে দুটি মোবাইল হারবার ক্রেন (এমএইচসি) এবং টার্মিনালে পণ্য হ্যান্ডলিংয়ে প্রয়োজনীয় ডাম্পার, পে লোডার ও বুলডোজারের মত সরঞ্জাম পর্যাপ্ত সংখ্যায় রয়েছে।[৭]

বহুমুখী টার্মিনাল[সম্পাদনা]

হলদিয়া বন্দরে বহুমুখী টার্মিনাল ডক মধ্যস্থিত তিনটি বার্থ দ্বারা গঠিত। বার্থ তিনটি ‘৩ নং বার্থ’, ‘৯ নং বার্থ’ ও ‘১২ নং বার্থ’ নামে পরিচিত।[৮] টার্মিনালটি বার্ষিক ৫.১ মিলিয়ন টন পণ্য পরিবহনের সক্ষমতা সম্পন্ন, যার মধ্যে ‘৩ নং বার্থ’, ‘৯ নং বার্থ’ ও ‘১২ নং বার্থ’ এর বার্ষিক যথাক্রমে ২.৩ মিলিয়ন টন, ০.৯ মিলিয়ন টন ও ১.৯ মিলিয়ন টন পণ্য পরিবহনে সক্ষম। টার্মিনালের মাধ্যমে শুষ্ক বাল্ক পণ্য, পরিষ্কার শুষ্ক বাল্ক পণ্য ও ব্রেক বাল্ক কার্গো পরিবহন করা হয়।[৮]

তরল বাল্ক কার্গো টার্মিনাল[সম্পাদনা]

হলদিয়া বন্দরে তরল পণ্য মূলত হুগলী নদীর পশ্চিম তীরের তিনটি তেল জেটি দ্বারা পরিবহন করা হয়। তেল জেটি তিনটি ‘তেল জেটি ১’, ‘তেল জেটি ২’ ও ‘তেল জেটি ৩’ নামে পরিচিত। তেল জেটি তিনটি বার্ষিক ১০.৭ মিলিয়ন টন পণ্য পরিবহনের সক্ষমতা সম্পন্ন, যার মধ্যে ‘তেল জেটি ১’, ‘তেল জেটি ২’ ও ‘তেল জেটি ৩’ এর বার্ষিক যথাক্রমে ২.৬ মিলিয়ন টন, ৩.৭ মিলিয়ন টন ও ৪.৪ মিলিয়ন টন পণ্য পরিবহনে সক্ষম।[৯] জেটি তিনটির মাধ্যমে অশোধিত, পেট্রোলিয়াম পণ্য, নাফথা, এলপিজি, প্যারা জাইলিন, তরল অ্যামোনিয়া, এফও, বিভিন্ন ধরণের রাসায়নিক ও ভোজ্য তেল পরিবহন করা হয়।[৯]

এছাড়াও ডকের মধ্যে অবস্থিত ৫ নং, ৬ নং ও ৭ নং বার্থ দ্বারা ভোজ্য তেল, সিবিএফএস, ফসফরিক অ্যাসিড ও বিভিন্ন ধরণের অ-বিপজ্জনক তরল পণ্য পরিবহনের ব্যবস্থা রয়েছে। এই বার্থ তিনটি বার্ষিক ৪.২ মিলিয়ন টন পণ্য পরিবহনের সক্ষমতা সম্পন্ন।[৯]

কন্টেইনার টার্মিনাল[সম্পাদনা]

কন্টেইনার টার্মিনালটি হলদিয়া বন্দরে ডক মধ্যস্থিত ২ টি বার্থ দ্বারা গঠিত। বার্থ ২ টি ‘১০ নং বার্থ’ ও ‘১১ নং বার্থ’ নামে পরিচিত।[১০] টার্মিনালের জেটিটি ৪৩২ মিটার দীর্ঘ। এটি বার্ষিক ২ লাখ কন্টেইনার পরিবহনের সক্ষমতা সম্পন্ন।[১০]

আমদানি রপ্তানি[সম্পাদনা]

বন্দরটির প্রধান আমদানি দ্রব্য হল পেট্রোলিয়াম, রাসায়নিক দ্রব্য, যন্ত্রাংশ। রপ্তানি দ্রব্য হল- কয়লা, আকরিক লোহা, ইস্পাত প্রভৃতি। ২০১৪-২০১৫ সালে বন্দরটি ৩৩ মিলিয়ন টন পণ্য পরিবহন করেছে।

সম্প্রসারণ[সম্পাদনা]

সরকারি ও বেসরকারি যৌথ উদ্যোগে হলদিয়া বন্দরে ৮০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ হতে চলেছে। বন্দরের নতুন করে পরিকাঠামো উন্নয়নের জন্যই পিপিপি মডেলে চারটি বার্জ জেটি তৈরি করা হচ্ছে। এই প্রকল্পের বার্জ জেটিগুলি বেশ বড় মাপের তৈরি করা হবে। এই জেটিগুলির মাধ্যমে বাল্ক জাতীয় এবং লিকুইড জাতীয় কার্গো পরিবহন করা যাবে।

হলদিয়া বন্দরের লকগেটের ওপর চাপ কমাতেই এই উদ্যোগ। বন্দরের লকগেট দুর্বল হয়ে পড়ায় এবং নাব্যতা সমস্যার জন্য বার্জ জেটি তৈরি করা হচ্ছে। আউটার টার্মিনাল-১ ও আউটার টার্মিনাল-২ তৈরি করা হচ্ছে। ইতিমধ্যেই ৭৩ কোটি টাকা ব্যয়ে একটি বার্জ জেটি আর ৭০ কোটি টাকা ব্যয়ে স্বয়ংক্রিয় ফ্লোটিং ক্রেন তৈরি করা হয়েছে। টেন্ডার প্রক্রিয়ার পর দক্ষিণ ভারতের বোথরা শিপিং এজেন্সি এই কাজের বরাত পেয়েছিল এবং এই সংস্থা বর্তমানে মাঝ সমুদ্র থেকে বার্জে করে বড় জাহাজ থেকে পণ্য নবনির্মিত জেটিতে নিয়ে এসে খালাস করছে।

হলদি নদীহুগলী নদীর পাড় বরাবর নতুন চারটি বার্জ জেটি তৈরিতে উদ্যোগী হয়েছে। এগুলিকেই বলা হচ্ছে আউটার টার্মিনাল। ৪১৩ কোটি টাকা ব্যয়ে সবচেয়ে বড় আউটার টার্মিনাল তৈরি হতে চলেছে। এই টার্মিনালটি তৈরি হবে হলদিয়া ভবনের ঠিক বিপরীতে। পাশাপাশি শালুকখালিতে ১৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে লিকুইড কার্গো হ্যান্ডেলিংয়ের জেটি তৈরি হচ্ছে। ৪১৩ কোটি টাকার আউটার টার্মিনালের কাজ পেতে টেন্ডারে যোগ দিয়েছে দু’টি গোষ্ঠী।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. http://www.kolkataporttrust.gov.in/index1.php?layout=2&lang=1&level=1&sublinkid=83&lid=124
  2. "পণ্য পরিবহণে 'সেরা' বন্দর হলদিয়া"। আনন্দবাজার পত্রিকা। ২২ জুন ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২২ জুন ২০২০ 
  3. "KoPT gets highest ever cargo growth this year"। www.millenniumpost.in। ৩ এপ্রিল ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ৪ এপ্রিল ২০১৯ 
  4. http://kolkataporttrust.gov.in/index1.php?
  5. "অচলাবস্থা কাটার মুখে হলদিয়া বন্দর, শুরু পণ্য খালাস"। ৩১ মার্চ ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  6. "haldia dock" 
  7. "DRY BULK CARGO TERMINAL"smportkolkata.shipping.gov.in। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুন ২০২১ 
  8. "MULTIPURPOSE TERMINAL"smportkolkata.shipping.gov.in। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুন ২০২১ 
  9. "LIQUID BULK CARGO TERMINAL"smportkolkata.shipping.gov.in/। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুন ২০২১ 
  10. "CONTAINER TERMINAL"smportkolkata.shipping.gov.in। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুন ২০২১ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]