ভ্যানবার্ন হোল্ডার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ভ্যানবার্ন হোল্ডার
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামভ্যানবার্ন আলোঞ্জো হোল্ডার
জন্ম (1945-10-10) ১০ অক্টোবর ১৯৪৫ (বয়স ৭৩)
ডিনস ভিলেজ, সেন্ট মাইকেল, বার্বাডোস
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি ফাস্ট মিডিয়াম
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক১২ জুন ১৯৬৯ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ টেস্ট২ ফেব্রুয়ারি ১৯৭৯ বনাম ভারত
ওডিআই অভিষেক৫ সেপ্টেম্বর ১৯৭৩ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ ওডিআই১২ এপ্রিল ১৯৭৮ বনাম অস্ট্রেলিয়া
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৯৬৬–১৯৭৮বার্বাডোস
১৯৬৮–১৯৮০ওরচেস্টারশায়ার
১৯৮৫–১৯৮৬অরেঞ্জ ফ্রি স্টেট
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ৪০ ১২ ৩১৩ ১৯৬
রানের সংখ্যা ৬৮২ ৬৪ ৩,৫৯৩ ৫৮৭
ব্যাটিং গড় ১৪.২০ ১২.৮০ ১২.৯৭ ৭.৯৩
১০০/৫০ ০/০ ০/০ ১/৪ ০/০
সর্বোচ্চ রান ৪২ ৩০ ১২২ ৩৫*
বল করেছে ৯,০৯৫ ৬৮১ ৫৫,৫৯৩ ৯,৩৪২
উইকেট ১০৯ ১৯ ৯৫০ ২৭৭
বোলিং গড় ৩৩.২৭ ২৩.৮৯ ২৪.৫২ ১৮.৯৪
ইনিংসে ৫ উইকেট ৩৮
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ৬/২৮ ৫/৫০ ৭/৪০ ৬/৩৩
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১৬/– ৬/– ৯৯/– ৪৬/–
উৎস: ক্রিকইনফো, ৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮

ভ্যানবার্ন আলোঞ্জো হোল্ডার (ইংরেজি: Vanburn Holder; জন্ম: ১০ অক্টোবর, ১৯৪৫) বার্বাডোসের সেন্ট মাইকেল এলাকার ডিনস ভিলেজে জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা ও সাবেক ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার।[১][২] ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন। ১৯৬৯ থেকে ১৯৭৯ সময়কালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশ নিয়েছেন। ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান ক্রিকেটে বার্বাডোস এবং ইংরেজ কাউন্টি ক্রিকেটে ওরচেস্টারশায়ার ও মাইনর কাউন্টিজ এবং দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটে অরেঞ্জ ফ্রি স্টেটের প্রতিনিধিত্ব করেছেন তিনি। দলে তিনি মূলতঃ ফাস্ট মিডিয়াম বোলিংয়ে দক্ষতা প্রদর্শন করেছেন। এছাড়াও নিচেরসারিতে ব্যাটিংয়ে পারঙ্গমতা দেখিয়েছেন ভ্যানবার্ন হোল্ডার

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৯৭৪ সালে কাউন্টি ক্রিকেটে ওরচেস্টারশায়ারের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। ঐ মৌসুমে ক্লাব দলটি কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপের শিরোপা জয় করেছিল। বছরের শুরুতে বার্বাডোসের পক্ষে ১২২ রান তুলেন। এ সংগ্রহটি প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটের একমাত্র ব্যক্তিগত সেঞ্চুরি ছিল।

১৯৭৩-৭৪ মৌসুমে বার্বাডোসের পক্ষে নিজস্ব সর্বোচ্চ ১২২ রান তুলেন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে চল্লিশ টেস্ট ও বারোটি একদিনের আন্তর্জাতিকে অংশগ্রহণের সুযোগ পেয়েছেন ভ্যানবার্ন হোল্ডার। চার্লি গ্রিফিথওয়েস হলের সাথে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ভয়ঙ্কর বোলিং আক্রমণে দলের অগ্রযাত্রায় যথোচিত ভূমিকা পালন করেছিলেন তিনি।

১৯৬৯ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের সদস্যরূপে ইংল্যান্ড সফরে যান। ঐ সফরেই তার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে ও মাঝারীমানের সফলতা পান। ১৯৭৩ সালে পুণরায় ইংল্যান্ড গমন করেন। ঐ সাড়ে ছয় বছরে দলটি কোন টেস্ট সিরিজে জয় পায়নি।

১৯৭৪-৭৫ মৌসুমে ভারত, পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কা সফরে যান। তন্মধ্যে ভারতের বিপক্ষে ৬/৩৯ বোলিং পরিসংখ্যান গড়ে দলকে আরেকটি সিরিজ জয়ে সহায়তা করেন। ঐ সময়ে তরুণ ও উদীয়মান ফাস্ট বোলারদের আবির্ভাবে দলের বাইরে চলে আসতে হয় তাকে। তবে, ১৯৭৭-৭৮ মৌসুমে বিশ্ব সিরিজ ক্রিকেট শুরু হলে পুণরায় খেলার সুযোগ পান। এ সময়ে অস্ট্রেলিয়া দল ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে আসে। ত্রিনিদাদ টেস্টে ৬/২৮ লাভ করেন।

১৯৭৮-৭৯ মৌসুমে পুণরায় ভারত সফর নিশ্চিত করেন। তবে, এ সফরে তেমন কোন ভূমিকা পালন করতে ব্যর্থ হন ও এরপরই ক্রিকেট থেকে অবসরের ঘোষণা দেন তিনি। ক্রিকেট খেলা থেকে অবসর গ্রহণের পর ১৯৯২ সালে ইংল্যান্ডে আম্পায়ার হিসেবে প্রথম-শ্রেণীর খেলা পরিচালনা করেছিলেন।

খেলার ধরন[সম্পাদনা]

ফাস্ট বোলিং নির্ভর ও দুই যুগ পার করা একচ্ছত্র প্রাধান্যবিস্তারকারী ওয়েস্টইন্ডিজ দলের অন্যতম ফাস্ট বোলার ছিলেন তিনি। মূলতঃ চার্লি গ্রিফিথ ও ওয়েস হলের পরিবর্তিত বোলার হিসেবে দলে ভূমিকা রেখেছেন। বল ফেলায় নিখুঁততা ও দৃঢ়প্রত্যয়ী মনোভাবের অধিকার ভ্যানবার্ন হোল্ডার ৪০ টেস্টে অংশ নিয়ে ১০৯টি টেস্ট উইকেট পেয়েছেন। তবে, ১৯৭৩ সালে সাড়ে ছয় বছর সিরিজ জয় থেকে বঞ্চিত ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের অগ্রযাত্রায় অবিচ্ছেদ্য অংশ ছিলেন তিনি।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. List of West Indies Test Cricketers
  2. "West Indies – Test Bowling Averages"। ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুলাই ২০১৬ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]