ফাল্গুন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বাংলাদেশে বসন্ত ঋতুর আগমনে, মঞ্চে ১লা ফাল্গুন উদ্‌যাপন, ২০১৪

ফাল্গুন বা ফাগুন বাংলা সনের একাদশ মাস,[১] এমনকি নেপালি বর্ষপঞ্জীরও এবং ভারতীয় রাষ্ট্রীয় শকাব্দের দ্বাদশ এবং সমাপনী মাস। এই মাস বসন্তের আগমনী বার্তা দেয়, যা বাংলাদেশ, নেপাল এবং আসামের ষষ্ঠ ও অন্তিম ঋতু। গ্রেগরীয় বর্ষপঞ্জী অনুযায়ী ফাল্গুন মাস সাধারণত ১৩ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হয়।[২] বাংলাদেশে বাংলা বর্ষপঞ্জি কয়েকবার সংস্কার করা হয়েছে। সর্বশেষ সংস্কার অনুযায়ী ২০২০ সাল থেকে সরকারি ভাবে ফাল্গুন মাস ১৪ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হয়।[৩]

নামের উৎস[সম্পাদনা]

নামটি এসেছে উত্তরফাল্গুনী নক্ষত্রে সূর্যের অবস্থান থেকে।

সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

বাংলাদেশ[সম্পাদনা]

ফাল্গুনের প্রথম দিনকে বাংলাদেশে পহেলা ফাল্গুন ও বসন্ত বরণ উৎসব হিসেবে উদ্‌যাপন করা হয়,[৪] যা ১৯৯১ সালে সর্বপ্রথম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদ কর্তৃক আয়োজন করা হয়েছিল।[৫]

ফাগ[সম্পাদনা]

ফাগুন মাসে হোলি উৎসবে আবীর ব্যবহার হয় বলে আবীরের অন্য নাম ফাগ

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. সৈয়দ আশরাফ আলী (২০১২)। "বাংলা বর্ষপঞ্জি"ইসলাম, সিরাজুল; মিয়া, সাজাহান; খানম, মাহফুজা; আহমেদ, সাব্বীর। বাংলাপিডিয়া: বাংলাদেশের জাতীয় বিশ্বকোষ (২য় সংস্করণ)। ঢাকা, বাংলাদেশ: বাংলাপিডিয়া ট্রাস্ট, বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটিআইএসবিএন 9843205901ওএল 30677644Mওসিএলসি 883871743 
  2. "Nepali Date Converter"। nepcal.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৬-২১ 
  3. ভালোবাসার দিনে বসন্তবরণ, জাগো নিউজ টুয়েন্টি ফোর ডটকম, ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০
  4. "Ushering in Pahela Falgun"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-০২-১৪। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৪-১৯ 
  5. "Falgun Fest at DU: How it all began"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-০২-১৩। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৪-১৯ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]