মুহররম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search

মুহররম (আরবি: محرم‎‎) হলো ইসলামি বর্ষপঞ্জির প্রথম মাস। চারটি পবিত্রতম মাসের মধ্যে এটি একটি। মুহররম শব্দটি আরবী যার অর্থ পবিত্র, সম্মানিত। প্রাচীনকাল থেকে মুহররম মাস পবিত্র হিসাবে গন্য। মহররমের ১০ তারিখ বিশেষ মর্যাদাসম্পন্ন দিন, যাকে আশুরা বলা হয়ে থাকে। মহররম মাসের পরবর্তি মাসের নাম সফর

উদ্ধৃতি[সম্পাদনা]

কুরআনে সূরা তওবার ৩৬ নং আয়াতে বর্ণিত যে চারটি মাসে যুদ্ধ-বিগ্রহ নিষিদ্ধ করা হয়েছে তার মধ্যে মহররম অন্যতম। ইসলামের নবী মুহাম্মদ এ মাসকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে বর্ণনা করেছেন। তিনি বলেছেন, ‘রমজানের পরে সর্বোত্তম সাওম হলো মহররম মাসের সাওম এবং ফরজ সালাতের পর সর্বোত্তম সালাত হল তাহাজ্জুদের সালাত’।

সময়সূচী[সম্পাদনা]

ইসলামি বর্ষপঞ্জি একটি চন্দ্র পঞ্জিকা এবং এই বর্ষপঞ্জির মাসগুলো শুরু হয় যখন নতুন চাঁদের ক্রিসেন্ট দৃশ্যমান হয়। যেহেতু ইসলামি চন্দ্রভিত্তিক বর্ষপঞ্জিটির বছর পূর্ণ হয় সৌর পঞ্জিকা অপেক্ষা ১১ হতে ১২ দিন পূর্বেই, ফলে প্রতি বছর মুহররম মাসের শুরুর দিনটি প্রচলিত সৌরভিত্তিক গ্রেগরিয়ান বর্ষপঞ্জির সাথে একই দিনে মেলে না। সৌদি আরবে প্রচলিত “উম্ম আল-কুরা বর্ষপঞ্জি” অনুসারে,[১] আনুমানিকভাবে, মুহররম মাসটি শুরু এবং স্থায়ীত্ব হবে নিম্নরূপঃ

হিজরী বর্ষ প্রথম দিন
(প্রচলিত খ্রিস্টীয় পঞ্জিকা অনুসারে)
শেষ দিন
(প্রচলিত খ্রিস্টীয় পঞ্জিকা অনুসারে)
১৪৩৭ ১৪ অক্টোবর ২০১৫ ১২ নভেম্বর ২০১৫
১৪৩৮ ২ অক্টোবর ২০১৬ ৩১ অক্টোবর ২০১৬
১৪৩৯ ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ ২০ অক্টোবর ২০১৭
১৪৪০ ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ৯ অক্টোবর ২০১৮
১৪৪১ ৩১ আগস্ট ২০১৯ ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯
১৪৪২ ২০ আগস্ট ২০২০ ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০
* খ্রিস্টীয় ২০১৫ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত হিজরী “মুহররম” মাস আরম্ভ ও সমাপ্তির তারিখ।

অনুমিত হিসাব অনুসারে, পরবর্তী “মুহররম” মাস আরম্ভ হবে ৩১ আগস্ট ২০১৯ তারিখে এবং সমাপ্ত হবে ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ তারিখে।[২][৩]

ঘটনাপঞ্জী[সম্পাদনা]

আশুরার দিনের ঘটনা[সম্পাদনা]

মুহররম মাসের দশম দিন ইসলামে বিশেষ মর্যাদাসম্পন্ন একটি দিন। প্রচলিত আছে যে, এই দিনে বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা ঘটেছিল। ঘটনাগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো:

  • এই দিনে প্রথম মানব আদি পিতা আদম-কে সৃষ্টি করেন ঈশ্বর (আল্লাহ)।
  • আদম-কে এদিনেই স্বর্গ বা জান্নাতে স্থান দেয়া হয় এবং পরবর্তীতে এই দিনেই পৃথিবীতে পাঠিয়ে আল্লাহ তাকে প্রতিনিধি মনোনীত করেছেন।
  • নূহ-এর সময়কালে এই দিনে মহাপ্লাবন হয়।
  • ইব্রাহীম জন্ম নেন এই দিনে এবং মূসা ও তার সাথীরা ফেরাউনের কবল থেকে উদ্ধার পানও এই দিনে।
  • মূসার সমসাময়িক ফেরাউন ও তার সৈন্যদেরকে আল্লাহ এই দিনে নীল নদের পানিতে ডুবিয়ে মারেন।
  • ইউনুছ মাছের পেট থেকে মুক্তি পান এই দিনে।
  • আইয়ূব রোগ মুক্তি পান এই দিনে।
  • ঈসা (খ্রিস্টধর্মমতে যিশু) এই দিনে জন্ম নেন এবং পরবর্তিতে তাকে সশরীরে ঊর্ধ্বাকাশে উঠিয়ে নেয়া হয় এই দিনে।
  • নবী মুহাম্মদ-এর দৌহিত্র ইমাম হুসাইন এই দিন কারবালার ময়দানে ইয়েজিদের সৈন্যদের হাতে মৃত্যুবরণ করেন।[৪]

তবে কারো কারো মতে, নবী মূসা ও ফিরাউনের ঘটনা এবং ইমাম হুসাইনের ঘটনা ছাড়া অন্যগুলো এই দিনে ঘটেছিল বলে বিশ্বস্ত সূত্রে জানা যায়নি।[৫]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. উম্ম আল-কুরা বর্ষপঞ্জি - সৌদি আরব (ইংরেজি)
  2. Gent, R.H. van। "The Umm al-Qura Calendar of Saudi Arabia" (ইংরেজি ভাষায়)। 
  3. http://www.ummulqura.org.sa/Index.aspx
  4. "Muharram"। ২০১০-১২-০৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-১২-০৮ 
  5. মুহাম্মাদ আব্দুল মালেক (অক্টোবর ২০১৮)। "মুহাররম ও আশুরা : কিছু কথা, কিছু প্রশ্নের উত্তর"মাসিক আলকাউসার। মারকাযুদ্ দাওয়াহ আলইসলামিয়া। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]