আলাইহিস সালাম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মুহম্মদ নামের সঙ্গে সালাত যুক্ত চারুলিপির উদাহরণ

ʿআলাইহিস সালাম (عَلَيْهِ ٱلسَّلَامُ), অর্থাৎ তাঁর ওপর শান্তি বর্ষিত হোক, বাগধারাটি ইসলামে একটি প্রচলিত সম্মানসূচক বাক্য বা দুরূদ যা মুসলমানেরা নবী, রসুলফেরেশতাদের নামের সঙ্গে উচ্চারণ করে থাকেন। শিয়া মুসলমানেরা তাদের ইমামগণআহল আল-বাইতের সদস্যদের নামের সঙ্গেও এটি উচ্চারণ করেন। এই বাগধারাটির একটি বর্ধিত রূপ হল স়াল্লাল্লাহু ʿআলাইহি ওয়া-ʾআলিহি ওয়া-সাল্লাম (আরবি: صَلَّىٰ ٱللَّٰهُ عَلَيْهِ وَآلِهِ وَسَلَّمَ‎‎), সংক্ষেপে (স.) আকারে লেখ হয়, যা মুসলমানেরা কেবল নবী মুহাম্মদের নামের সঙ্গে উচ্চারণ করেন।[১] তার উপর শান্তি বর্ষিত হোক হল আলাইহি ওয়া সাল্লাম ও অনেক সময় সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সালামের বাংলা ভাষার অনুদিত সংস্করণ।

যে কোন ভাষাতেই এটি মহান সম্মান ও শ্রদ্ধার একটি চিহ্নস্বরূপ।[১][২] মুসলিমগণ এই বাগধারাটি মুহাম্মাদের জন্য আল্লাহর রহমত প্রার্থনার উদ্দেশ্যে বলে বা লিখে থাকেন, এবং বিনিময়ে আল্লাহও তাদেরকে আশীর্বাদ করেন বলে তারা বিশ্বাস করেন।[২] এই বাগধারাটি মুসলিম বিশ্বের বেসরকারি এবং অনেক ক্ষেত্রে সরকারি কাগজপত্র ও লেখালিখিতেও ব্যবহৃত হয়।[২] ইসলামের প্রধান ধর্মগ্রন্থ কুরআনে এই সম্মান প্রদানের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। কুরআনের ৩৩ সূরা আহযাবের ৫৬ তম আয়াতে বলা হয়েছে, "আল্লাহ এবং তার ফেরেশতাগণ বিশ্বনবীর প্রতি আশীর্বাদ প্রেরণ করেন। হে বিশ্বাসীরা! তোমরাও তার প্রতি আশীর্বাদ প্রেরণ কর, এবং শ্রদ্ধার সাথে তার প্রতি সম্মান প্রদর্শন করো।"[২] এটি মুসলিমদের জন্য একটি স্মারক যা সকল কাজে-কর্মে তাদেরকে মোহাম্মদের আদর্শ অনুসরণে সচেতন করে।[৩]

আরবিতে বাগধারাটির বিভিন্ন রূপ[সম্পাদনা]

আরবি
কোরʾআনীয় আরবি
লিপ্যন্তর
অর্থ
ব্যবহার সংক্ষিপ্তরূপ
عَلَيْهِ ٱلسَّلَامُ
عَلَيْهِ ٱلسَّلَٰمُ
এই অভিব্যক্তিটি ইসলামের নবী ও রসুলগণ, শিয়া ইমামগণ এবং ফেরেশতাদের নামের শেষে ব্যবহৃত হয়। (আ.), (আ:), (আঃ)
ʿalayhi s-salāmu
তাঁর উপর শান্তি বর্ষিত হোক
عَلَيْهِ ٱلصَّلَاةُ وَٱلسَّلَامُ‎
عَلَيْهِ ٱلصَّلَوٰةُ وَٱلسَّلَٰمُ
এই অভিব্যক্তিটি ইসলামের নবী ও রসুলগণ, শিয়া ইমামগণ এবং ফেরেশতাদের নামের শেষে ব্যবহৃত হয়। (আ.), (আ:), (আঃ)
ʿalayhi ṣ-ṣalātu wa-s-salāmu
তাঁর উপর আশিস ও শান্তি বর্ষিত হোক
سَلَامُ ٱللَّٰهِ عَلَيْهِ
سَلَٰمُ ٱللَّٰهِ عَلَيْهِ
এই অভিব্যক্তিটি ইসলামের নবী ও রসুলগণ, শিয়া ইমামগণ এবং ফেরেশতাদের নামের শেষে ব্যবহৃত হয়। এর স্ত্রীজাতীয় সংস্করণটি (سَلَامُ ٱللَّٰهِ عَلَيْهَا‎) সাধারণত ইসলামের ঐতিহাসিক নারীদের (যেমন: ফাতিমা, খাদিজা বিনতে খুওয়াইলিদ, মরিয়ম, আসিয়া, সারা, হাওয়া, প্রমুখ) ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়। (সা. আ.), (সাঃ আঃ)
salāmu -llāhi ʿalayhī
তাঁর উপর ঈশ্বরের শান্তি বর্ষিত হোক
صَلَّىٰ ٱللَّٰهُ عَلَيْهِ وَآلِهِ وَسَلَّمَ‎ এই অভিব্যক্তিটি কেবল ইসলামী নবী মুহাম্মদের নামের শেষে ব্যবহৃত হয়। এটি সকল মুসলমান উচ্চারণ করে থাকেন। (স.), (স:), (সঃ), (সা.), (সা:), (সাঃ), (দ.), (দ:), (দঃ)
ṣallā -llāhu ʿalayhī wa-ʾālihī wa-sallama
তাঁর ও তাঁর পরিবারের উপর ঈশ্বরের আশিস ও শান্তি বর্ষিত হোক
صَلَّىٰ ٱللَّٰهُ عَلَيْهِ وَآلِهِ এই অভিব্যক্তিটি কেবল ইসলামী নবী মুহাম্মদের নামের শেষে ব্যবহৃত হয়। এটি মূলত শিয়া মুসলমানেরা উচ্চারণ করে থাকেন। (স.), (স:), (সঃ), (সা.), (সা:), (সাঃ), (দ.), (দ:), (দঃ)
ṣallā -llāhu ʿalayhī wa-ʾālihī
তাঁর ও তাঁর পরিবারের উপর ঈশ্বরের আশিস বর্ষিত হোক
صَلَّىٰ ٱللَّٰهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ‎ এই অভিব্যক্তিটি কেবল ইসলামী নবী মুহাম্মদের নামের শেষে ব্যবহৃত হয়। এটি মূলত সুন্নি মুসলমানেরা উচ্চারণ করে থাকেন। (স.), (স:), (সঃ), (সা.), (সা:), (সাঃ), (দ.), (দ:), (দঃ)
ṣallā -llāhu ʿalayhī wa-sallama
তাঁর উপর ঈশ্বরের আশিস ও শান্তি বর্ষিত হোক
رَحِمَهُ ٱللَّٰهُ‎ এই অভিব্যক্তিটি ঐতিহাসিক ও সমসাময়িক মুসলিম মনীষীদের নামের শেষে ব্যবহৃত হয়। (রহ.), (রহ:), (রহঃ)
raḥimahu -llāhu
তাঁর উপর ঈশ্বরের রহমত বর্ষিত হোক
رَضِيَ ٱللَّٰهُ عَنْهُ‎ এই অভিব্যক্তিটি ইসলামী নবী মুহাম্মাদের সাহাবিদের নামের শেষে ব্যবহৃত হয়। (রা.), (রা:), (রাঃ)
raḍiya -llāhu ʿanhū
ঈশ্বর তাঁর প্রতি সন্তুষ্ট হোন

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "What does the Muslim phrase, "Peace Be Upon Him" mean?" (ইংরেজি ভাষায়)। InnovateUs Inc.। ১১ জুলাই ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুলাই ২০১৫ 
  2. John L. Esposito, What Everyone Needs to Know about Islam, Second Edition (ইংরেজি), (New York: Oxford University Press, 2011), p. 128
  3. Jean Mead, Why Is Muhammad Important to Muslims? (ইংরেজি) (London: Evans, 2008), p. 5