ডোডা নদী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
ডোডা নদী
স্টোড নদী
নদী
ডোডা নদী
ডোডা নদী
দেশ ভারত
রাজ্য জম্মু ও কাশ্মীর
অঞ্চল লাদাখ
জেলা কার্গিল
উপনদী
 - ডানদিকে সারাপ নদী
উত্স ৩৩°৪৭′৪০″ উত্তর ৭৬°২০′২২″ পূর্ব / ৩৩.৭৯৪৫৭৮° উত্তর ৭৬.৩৩৯৩৪১° পূর্ব / 33.794578; 76.339341স্থানাঙ্ক: ৩৩°৪৭′৪০″ উত্তর ৭৬°২০′২২″ পূর্ব / ৩৩.৭৯৪৫৭৮° উত্তর ৭৬.৩৩৯৩৪১° পূর্ব / 33.794578; 76.339341
 - অবস্থান দ্রাং-দ্রুং হিমবাহ
 - উচ্চতা ৪,৫৬০ মিটার (১৪,৯৬১ ফিট)
মোহনা ৩৩°৩০′৫৭″ উত্তর ৭৬°৫৬′০২″ পূর্ব / ৩৩.৫১৫৮৫৫° উত্তর ৭৬.৯৩৩৮০৫° পূর্ব / 33.515855; 76.933805
 - অবস্থান পাদুমে সারাপ নদীর সাথে মিশে জাংস্কার নদী তৈরী করে
 - উচ্চতা ৩,৪৮৫ মিটার (১১,৪৩৪ ফিট)
দৈর্ঘ্য ৭৯ কিলোমিটার (৪৯ মাইল)
প্রবাহ
 - গড় ২০৬ /s (৭,২৭৫ ft³/s)

ডোডা নদী বা স্টোড নদী [১] ভারতের জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যে অবস্থিত একটি নদী।

ভূগোল[সম্পাদনা]

ডোডা নদী পেনসি গিরিবর্ত্মের নিকটে জাংস্কার পর্বতশ্রেণীতে অবস্থিত দ্রাং-দ্রুং হিমবাহ থেকে উৎপত্তি লাভ করেছে। [২][৩] এই হিমবাহ থেকে উৎপত্তি লাভ করে ডোডা নদী দক্ষিণ পশ্চিম দিকে কার্গিল-জাংস্কার সড়কের সমান্তরালে আকশু, আব্রান, কুশোল ও ফে শহরের মধ্যে দিয়ে বয়ে গেছে। পাদুমে পৌঁছে নদীটি সারাপ নদীর সাথে মিশে সিন্ধু নদের উপনদী জাংস্কার নদী তৈরী করেছে। [৪]

উপত্যকা[সম্পাদনা]

ডোডা বা স্টোড নদী দ্বারা সৃষ্ট উপত্যকা স্টোড নদী উপত্যকা নামে পরিচিত। এই উপত্যকায় ডোডা নদীর জল ব্যবহার করে গম, বার্লি, মটর চাষ করা হয়ে থাকে। [৫] শীতকালে পেনসি গিরিবর্ত্ম এলাকায় প্রচন্ড তুষারপাতের ফলে ডোডা নদীর জল জমে যায় এবং স্টোড নদী উপত্যকা রাজ্যের অন্য অংশ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। [৬]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Hashmat Singh, Pallav Das, Jai Kumar Sharma (২০০২)। Trekking in the Himalayas। Roli Books, 2002। পৃষ্ঠা -140। আইএসবিএন 9788174361066। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১২ 
  2. Janet Rizvi (১৯৯৬)। Ladakh: crossroads of high Asia। Oxford University Press, 1996। পৃষ্ঠা 30–। আইএসবিএন 9780195640168। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১২ 
  3. Kim Gutschow (২০০৪)। Being a Buddhist Nun: The Struggle for Enlightenment in the Himalayas। Harvard University Press, 2004। পৃষ্ঠা -40। আইএসবিএন 9780674012875। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১২ 
  4. "Stod a tributory of Zanskar river"। tourisminjammukashmir। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০৮-১৭ 
  5. Henry Osmaston, Nawang Tsering (১৯৯৭)। Recent Research on Ladakh 6: Proceedings of the Sixth International Colloquium on Ladakh, Leh 1993। Motilal Banarsidass Publ., 1997। পৃষ্ঠা -106। আইএসবিএন 9788120814325। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১২ 
  6. Jasbir Singh (২০০৪)। The economy of Jammu & Kashmir। Radha Krishan Anand & Co., 2004। পৃষ্ঠা 223-। আইএসবিএন 9788188256099। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১২