বিষয়বস্তুতে চলুন

অক্ষৌহিণী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

একটি অক্ষৌহিণী (সংস্কৃত: अक्षौहिणी akṣauhiṇī) মহাভারতে বর্ণনা করা হয়েছে (আদিপর্ব ২.১৫-২৩) ২১,৮৭০টি রথ নিয়ে গঠিত একটি যুদ্ধ গঠন হিসাবে; ২১,৮৭০ হাতি (সংস্কৃত গজ); ৬৫,৬১০টি ঘোড়া (সংস্কৃত তুরগ) এবং ১০৯,৩৫০ পদাতিক (সংস্কৃত পদ সৈন্যম)।[১][২] এইভাবে একটি অক্ষৌহিণীতে ২১৮,৭০০ জন যোদ্ধা ছিল (যারা যুদ্ধ করেননি রথীদের অন্তর্ভুক্ত নয়)। অনুপাত ১ রথ : ১টি হাতি : ৩ অশ্বারোহী : ৫ পদাতিক সৈন্য। এই বৃহৎ সংখ্যার প্রতিটি গ্রুপে (৬৫,৬১০, ইত্যাদি), সংখ্যাগুলো ১৮ অঙ্ক পর্যন্ত হতে পারে।

মহাভারতে উল্লেখ করা হয়েছে যে, কুরুক্ষেত্র যুদ্ধে পাণ্ডব বাহিনী সাতটি অক্ষৌহিণী (১,৫৩০,৯০০ যোদ্ধা) নিয়ে গঠিত এবং কৌরব সেনাবাহিনীতে এগারোটি অক্ষৌহিণী (২,৪০৫,৭০০ যোদ্ধা) ছিল।

গঠন[সম্পাদনা]

পট্টি (কোম্পানি) : ১ হাতি (গজ) + ১ রথ + ৩ ঘোড়া (অশ্ব) + ৫ পদাতিক (পদতি) = ১০ যোদ্ধা
সেনামুখ = (৩ x পট্টি) : ৩ হাতি + ৩ রথ + ৯ ঘোড়া + ১৫ পদাতিক = ৩০ যোদ্ধা
গুল্ম = (৩ x সেনামুখ) : ৯ হাতি + ৯ রথ + ২৭ ঘোড়া + ৪৫ পদাতিক = ৯০ যোদ্ধা
গণ = (৩ x গুল্ম) : ২৭ হাতি + ২৭ রথ + ৮১ ঘোড়া + ১৩৫ পদাতিক = ২৭০ যোদ্ধা
বাহিনী = (৩ x গণ) : ৮১ হাতি + ৮১ রথ + ২৪৩ ঘোড়া + ৪০৫ পদাতিক = ৮১০ যোদ্ধা
প্রীতনা/প্রুতানা = (৩ x বাহিনী) : ২৪৩ হাতি + ২৪৩ রথ + ৭২৮ ঘোড়া + ১২১৫ পদাতিক = ২,৪৩০ যোদ্ধা
চামু = (৩ x প্রিতনা/প্রুতানা) : ৭২৮ হাতি + ৭২৯ রথ + ২১৮৭ ঘোড়া + ৩৬৪৫ পদাতিক = ৭,২৯০ যোদ্ধা
অনিকিনি = (৩ x চামু) : ২১৮৭ হাতি + ২১৮৭ রথ + ৬৫৬১ ঘোড়া + ১০৯৩৫ পদাতিক = ২১,৮৭০ যোদ্ধা
অক্ষৌহিণী = (১০ x অনিকিনি) : ২১৮৭০ হাতি + ২১৮৭০ রথ + ৬৫৬১০ ঘোড়া + ১০৯৩৫০ ফুট সৈনিক = ২১৮,৭০০ যোদ্ধা[৩]

কৌরব বাহিনী এবং তাদের মিত্রবাহিনী[সম্পাদনা]

কুরু আর্মি হল ১১টি অক্ষৌহিণীর একটি জোট যা হস্তিনাপুর রাজ্যের সাথে জোটে গঠিত হয়েছিল সংসপ্তক, ত্রিগর্ত, নারায়ণ সেনাবাহিনী, সিন্ধু সেনাবাহিনী এবং মাদ্রার শল্যের মতো জাতিদের সাথে নিয়ে।[৪]

পাণ্ডব বাহিনী এবং তাদের সহযোগীরা[সম্পাদনা]

পাণ্ডব বাহিনী হল ৭ অক্ষৌহিণীর একটি জোট, প্রাথমিকভাবে পাঞ্চাল ও মৎস্য বাহিনী, ভীমের পুত্র রাক্ষস বাহিনী, ঘটোৎকচ এবং বৃষ্ণী-যাদব বীর।

৪ ধরনের একক যা একটি অক্ষৌহিনী তৈরি করে তা দাবা খেলার পূর্বসূরী চতুরঙ্গেও দেখা যায়।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "The Mahabharata, Book 1: Adi Parva: Section II"। ২৯ মে ২০২৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ অক্টোবর ২০২৩ 
  2. Sachau, Eduard (১৯১০)। Alberuni's India: an account of the religion, philosophy, literature, geography, chronology, astronomy, customs, laws and astrology of India about A.D. 1030, Volume 1। Kegan Paul। আইএসবিএন 9780415244978 
  3. "A Glossary Of Terms in Indian Scriptures"। ৫ মার্চ ২০২০। ২০২১-০৪-১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  4. Ganguli, Kisari Mohan (১৮৮৩–১৮৯৬)। The Mahabharata of Krishna-Dwaipayana Vyasa Translated into English Prose। Kolkata: Pratap Chandra Roy। পৃষ্ঠা 5 (Udyoga Parva): Section XIX। ৮ মে ২০২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ মে ২০২২ 

বহি সংযোগ[সম্পাদনা]

3. dot com/search/label/Akshauhini অক্ষৌহিনী যুদ্ধ বিস্তারিত - একটি অধ্যয়ন[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]