সেঁজুতি সাহা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সেঁজুতি সাহা
জাতীয়তাবাংলাদেশী
প্রতিষ্ঠানচাইল্ড হেলথ রিসার্চ ফাউন্ডেশন (সিএইচআরএফ)
পরিচিতির কারণঅনুজীববিজ্ঞানী
বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো নতুন করোনাভাইরাসের জিনোম বিন্যাস উন্মোচন
উল্লেখযোগ্য
পুরস্কার
গেটস গোলকিপার
বিল এন্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন এওয়ার্ড

সেঁজুতি সাহা একজন বাংলাদেশী অণুজীববিজ্ঞানী। আণবিক জিনতত্ত্বের এই গবেষক বাংলাদেশের শিশু স্বাস্থ্য গবেষণায় আধুনিক বৈজ্ঞানিক প্রযুক্তির সমন্বয়ে[১] বর্তমানে বাংলাদেশের চাইল্ড হেলথ রিসার্চ ফাউন্ডেশনে (সিএইচআরএফ) কর্মরত। সেঁজুতি সাহা ও সিএইচআরএফ প্রথমবারের বাংলাদেশের রোগীদের মধ্য থেকে পাওয়া নমুনা থেকে নতুন করোনা ভাইরাসের পূর্ণাঙ্গ জিনোম বিন্যাস উন্মোচন করেন।[২]

শিক্ষা[সম্পাদনা]

বাংলাদেশ থেকে ও লেভেল শেষ করে ২০০৫ সালে কানাডার টরন্টো বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতকে ভর্তি হন।[৩] জৈবরসায়নে স্নাতক শেষ করে তিনি একই বিশ্ববিদ্যালয়ে আণবিক জিনতত্ত্বে পিএইচডি করেন।

কর্ম ও গবেষণা[সম্পাদনা]

উচ্চশিক্ষা শেষে তিনি বাংলাদেশের সিএইচআরএফ ছাড়াও কানাডা ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে গবেষক হিসেবে কিছুদিন কাজ করেন। ২০১৯ সাল থেকে সিএইচআরএফ-এ বিজ্ঞানী হিসেবে কর্মরত। এছাড়াও প্রিন্স্টনের একটি গবেষণা সংস্থায় অণুজীববিজ্ঞান ও স্বাস্থ্যব্যবস্থার পরামর্শদাতা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

আণবিক জীববিজ্ঞানের প্রযুক্তি শিশুরোগ গবেষণায় ব্যবহারে সেঁজুতি সাহা কাজ করছেন। ২০১৭ সালে বাংলাদেশের শিশুদের মাঝে মেনিনজাইটিসের হঠাত প্রাবল্যতা দেখা দেয়। সেসময় তিনি আধুনিক আণবিক জীববিজ্ঞানের প্রযুক্তি ব্যবহার করে এই আকস্মিক রোগ বিস্তারের কারণ অনুসন্ধান করে বের করেন। চিকনগুনিয়া জ্বরমেনিনজাইটিস সংক্রমনের মধ্যকার একটি সম্পর্ক নির্নয় করে রোগ সনাক্তকরনের আধুনিক ও সুল্ভ উপকরণ বের করেন।[৪]

২০২০ সালের কোভিড মহামারিতে বাংলাদেশের কোভিড-১৯ সনাক্তকরনের কাজে সিএইচআরএফ যোগ দেয়। সেঁজুতি সাহার নেতৃত্বে আরো আটজন গবেষকের যৌথ উদ্য়োগে মে মাসে বাংলাদেশে প্রাপ্ত নমুনা থেকে সংগ্রহকৃত নতুন করোনা ভাইরাসের জিনোম সিকোয়েন্স সফলভাবে উন্মোচন করেন।[৫] একই বছরের জুলাইয়ে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে বিশ্ব সাস্থ্য সংস্থার গ্লোবাল পোলিও ইরেডিকেশন ইনিশিয়েটিভের বোর্ড মেম্বার পদের নিযুক্ত হন।[৬]

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

সেঁজুতি সাহার জন্ম ও বেড়ে ওঠা ঢাকায়। তার পিতা বাংলাদেশের আরেক প্রসিদ্ধ অণুজীববিজ্ঞানী ড. সমীর সাহা ও মাতা ড. সেতারুন্নাহার গণস্বাস্থ্যের গবেষক। সেঁজুতির ছোট এক ভাইও পেশায় অণুজীববিজ্ঞানী। ব্যক্তিগত জীবনে সেঁজুতি সাহা বিবাহিত। [৭]

স্বীকৃতি[সম্পাদনা]

  • বিল এন্ড মেলিন্ডা গেটস এওয়ার্ড ২০১৮

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Gates, Bill। "Bangladesh's dynamic duo battle global health inequity"gatesnotes.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৭-১০ 
  2. Saha, Senjuti; Malaker, Roly; Sajib, Mohammad Saiful Islam; Hasanuzzaman, Md; Rahman, Hafizur; Ahmed, Zabed B.; Islam, Mohammad Shahidul; Islam, Maksuda; Hooda, Yogesh (২০২০-০৬-১১)। Roux, Simon, সম্পাদক। "Complete Genome Sequence of a Novel Coronavirus (SARS-CoV-2) Isolate from Bangladesh"Microbiology Resource Announcements (ইংরেজি ভাষায়)। 9 (24): e00568–20, /mra/9/24/MRA.00568–20.atom। আইএসএসএন 2576-098Xডিওআই:10.1128/MRA.00568-20পিএমআইডি 32527780 |pmid= এর মান পরীক্ষা করুন (সাহায্য)পিএমসি PMC7291105অবাধে প্রবেশযোগ্য |pmc= এর মান পরীক্ষা করুন (সাহায্য) 
  3. "Senjuti Saha – School of Graduate Studies" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৭-১০ 
  4. "বিল গেটসের নায়ক বাংলাদেশি বাবা-মেয়ে"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৭-১০ 
  5. "বাবা-মেয়ের নেতৃত্বে দেশে করোনাভাইরাসের জিনোম সিকোয়েন্স উদ্‌ঘাটন"The Daily Star Bangla। ২০২০-০৫-১৩। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৭-১০ 
  6. "GPEI-TIMB Members" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৭-১৪ 
  7. "একজন সেঁজুতির বিজ্ঞানী হয়ে ওঠা"Sarabangla.net | Bangladesh newspaper | Bangla | Breaking News | Sports | Entertainment (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০৫-২৪। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৭-১০ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]