সমীর কুমার সাহা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সমীর কুমার সাহা
Samir kumar saha in chandpur (2) (cropped).jpg
জন্ম (1955-12-28) ২৮ ডিসেম্বর ১৯৫৫ (বয়স ৬৫)
জাতীয়তাবাংলাদেশী
প্রতিষ্ঠানঢাকা শিশু হাসপাতাল
পরিচিতির কারণঅনুজীববিজ্ঞানী
উল্লেখযোগ্য
পুরস্কার
অ্যামেরিকান সোসাইটি ফর মাইক্রোবায়োলজি (২০১৭)
ইউনেস্কো কার্লোস জে মাইক্রোবায়োলজিতে ফিনলে অ্যাওয়ার্ড (২০১৭)

সমীর কুমার সাহা (জন্ম ২৮ ডিসেম্বর ১৯৫৫) একজন বাংলাদেশী অণুজীববিজ্ঞানী এবং জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ। [১][২] তিনি শিশুদের জন্য ঢাকা শিশু হাসপাতালের মাইক্রোবায়োলজির ডায়াগনস্টিক বিভাগের অধ্যাপক, সিনিয়র পরামর্শদাতা এবং বাংলাদেশ শিশু স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের[৩] দ্য চাইল্ড হেলথ রিসার্চ ফাউন্ডেশনের (সিএইচআরএফ) নির্বাহী পরিচালক। [২][৪][৫]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

সাহা নিউমোনিয়া, মেনিনজাইটিস এবং এন্টারিক জ্বর বিশেষজ্ঞ বিশেষত পেডিয়াট্রিক সংক্রামক রোগগুলির জন্য তার গবেষণার জন্য পরিচিত। তিনি এই রোগগুলির প্রকৃত বোঝা, তাদের কার্যকারক জীব, ওষুধ প্রতিরোধের নিদর্শন এবং সেরোটাইপ বিতরণের সন্ধানে মনোনিবেশ করেছেন। [৬][৭][৮]

২০১৭ সালে, ক্লিনিকাল মাইক্রোবায়োলজিতে অসামান্য গবেষণার জন্য আমেরিকান সোসাইটি ফর মাইক্রোবায়োলজি (এএসএম) অ্যাওয়ার্ড প্রাপ্ত সাহা একজন উন্নয়নশীল দেশের প্রথম বিজ্ঞানী ছিলেন। যার অনুসরণে তিনি আমেরিকান একাডেমি অফ মাইক্রোবায়োলজিতে ফেলোশিপে নির্বাচিত হয়েছেন। [৯] একই বছর সাহা মাইক্রোবায়োলজিতে ইউনেস্কো কার্লোস জে ফিনলে পুরস্কার পেয়েছিলেন এবং মাইক্রোবায়োলজির ক্ষেত্রে গবেষণা ও কাজের জন্য খ্যাতিমান পাকিস্তানী মাইক্রোবায়োলজিস্ট শাহিদা হাসনাইনকেও পেয়েছিলেন। [১][২][৪][১০] ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক ম্যাগাজিনের নভেম্বর ২০১৭ সংস্করণে প্রকাশিত " হেয়ারস হোয়াই ভ্যাকসিনস আর সো ক্রুশিয়াল ", একটি নিবন্ধটি সমাজে ভ্যাকসিনগুলির প্রয়োজনীয়তা এবং প্রভাব সম্পর্কে এবং নিউমোনিয়াসহ অন্যান্য নিউমোকোকাল ইনফেকশনগুলিকে মারতে সাহার লড়াইয়ের আজীবন উত্সর্গকে স্পষ্টভাবে তুলে ধরেছে। নিবন্ধটি প্রকাশের পরে সাহাকে নিউমোকোকাল ভ্যাকসিন এবং ভ্যাকসিনের সাধারণ দিকগুলি, ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক দ্বারা পরিচালিত এবং সম্প্রচারিত ব্লুমবার্গ স্কুল অফ পাবলিক হেলথ, বাল্টিমোর, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং আন্তর্জাতিক ভ্যাকসিন অ্যাক্সেস সেন্টারে বিল ও মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন, জনস হপকিন্সের প্যানেল আলোচনায় অংশ নিতে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল । [১১][১২]

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

সমীর কুমার সাহা অণুজীববিজ্ঞানী ড. সেঁজুতি সাহার পিতা। তার স্ত্রী ড. সেতারুন্নাহার গণস্বাস্থ্যের গবেষক। তার ছোট ছেলেও পেশায় অণুজীববিজ্ঞানী। [১৩]

শিক্ষাজীবন[সম্পাদনা]

সাহা তার ১৯৮৩ সালে বাংলাদেশের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএসসি এবং এমএসসি ডিগ্রি অর্জন করেন। এছাড়া ১৯৮৯ সালে ভারতের বারাণসী হিন্দু বিশ্ববিদ্যালয় ইনস্টিটিউট অফ মেডিকেল সায়েন্সেস থেকে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেছেন। [১৪]

কৃতিত্ব[সম্পাদনা]

সাহা বাংলাদেশে মেনিনজাইটিস এবং নিউমোনিয়া সৃষ্টিকারী দুটি ব্যাকটিরিয়ার বিরুদ্ধে ভ্যাকসিন প্রয়োগে মূল ভূমিকা পালন করেছিলেন। [১৫] এটি দেশের শিশুদের স্বাস্থ্যের উপর প্রত্যক্ষ ইতিবাচক প্রভাব ফেলেছিল। [৪][১৬] শিশু বিশেষজ্ঞের শীর্ষস্থানীয় গবেষক হিসাবে তিনি এক দশকেরও বেশি সময় ধরে বাংলাদেশে আক্রমণাত্মক শৈশব রোগের উপর নজরদারি করে চলেছেন। [১৭][১৮] কিছু নিউমোকোকাল রোগের চিকিত্সা প্রতিরোধের বিষয়েও তিনি গবেষণার নেতৃত্ব দিয়েছেন। [১][৪][১৯]

সাহা তার দলভিত্তিক বাংলাদেশে চারটি সেন্ডিনেল হাসপাতাল নজরদারি নেটওয়ার্ক ডিজাইন ও স্থাপন করেছিলেন। "কমিউনিটি অ্যাডজাস্টেড হসপিটাল-ভিত্তিক তত্ত্ববধান করার একটি মডেল যা জনসংখ্যা স্তরে রোগের উৎসের তথ্য রেকর্ড করে। [২০] স্ট্রেপ্টোকোকাস নিউমোনিয়া,[৭] হিমোফিলাস ইনফ্লুয়েঞ্জা,[২১] সালমোনেলা টাইফি / প্যারাটিফি,[৮] ইত্যাদি দ্বারা আক্রান্ত আক্রমণাত্মক শৈশব রোগের উপর নজরদারি তথ্য তৈরি করার ক্ষেত্রেও তার ভূমিকা রয়েছে।  

লেখক[সম্পাদনা]

সাহা পিয়ার-রিভিউড জার্নালগুলিতে প্রায় দেড় শতাধিক নিবন্ধ প্রকাশ করেছেন। এসব নিবন্ধের বেশিরভাগ ক্ষেত্রে শৈশব নিউমোনিয়া এবং মেনিনজাইটিসের বিষয়গুলি অন্বেষণ করে। [১৭][১৮][২২]

আন্তর্জাতিক ও জাতীয় জনস্বাস্থ্য সংস্থা[সম্পাদনা]

সাহা নিউমোকোকল অ্যাওয়ারনেস কাউন্সিল অফ এক্সপার্টস (পিএসিই) এর সদস্য, সাবিন ভ্যাকসিন ইনস্টিটিউটের কোয়ালিশন অ্যাগেইনস্ট (টাইময়েড) (সিএটি) এর স্টিয়ারিং কমিটিরও প্রধান। [১৪][১৫][১৬] তিনি জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়, মেরিল্যান্ডের আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য অধিদফতরের সহযোগী এবং বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক ডায়রিয়াল ডিজিজ রিসার্চ, আইসিডিডিআর, বি এর সংযুক্ত বিজ্ঞানী। তিনি বাংলাদেশ সরকারের জাতীয় টিকা নীতি কমিটির সদস্যও রয়েছেন। [১৪]

সম্মান ও পদবী[সম্পাদনা]

সাহা সহ অসংখ্য পুরস্কার দ্বারা স্বীকৃত:

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Bangladeshi microbiologist wins Unesco award | Dhaka Tribune"www.dhakatribune.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১০-২৫ 
  2. risingbd.com। "Bangladeshi Dr Samir wins UNESCO award for microbiology"risingbd.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১০-২৫ 
  3. "বিল গেটসের নায়ক বাংলাদেশি বাবা-মেয়ে"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০১-১৬ 
  4. "'UNESCO award is recognition for my country'"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-১০-২২। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১০-২৫ 
  5. "Management Board (Present) | Dhaka Shishu Hospital"dhakashishuhospital.org.bd (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১০-২৫ 
  6. Sultana, Nadira K.; Saha, Samir K. (জুলাই ২০১৩)। "Impact of introduction of the Haemophilus influenzae type b conjugate vaccine into childhood immunization on meningitis in Bangladeshi infants": S73–78। ডিওআই:10.1016/j.jpeds.2013.03.033পিএমআইডি 23773597পিএমসি 4629472অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  7. Saha, Samir K.; Emran, Hassan M. Al (২০১২-০৩-৩০)। "Streptococcus pneumoniae Serotype-2 Childhood Meningitis in Bangladesh: A Newly Recognized Pneumococcal Infection Threat": e32134। আইএসএসএন 1932-6203ডিওআই:10.1371/journal.pone.0032134পিএমআইডি 22479314পিএমসি 3316528অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  8. Saha, Senjuti; Islam, Maksuda (২০১৭-১০-২৬)। "Integration of enteric fever surveillance into the WHO-coordinated Invasive Bacterial-Vaccine Preventable Diseases (IB-VPD) platform: A low cost approach to track an increasingly important disease": e0005999। আইএসএসএন 1935-2735ডিওআই:10.1371/journal.pntd.0005999পিএমআইডি 29073137পিএমসি 5658195অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  9. Urban, Joanna। "Announcing the 2017 ASM Award Winners"www.asm.org (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-১০-২৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০১-০৯ 
  10. "Shahida Hasnain (Pakistan) and Samir Saha (Bangladesh) to receive Carlos J. Finlay UNESCO Prize for Microbiology"UNESCO (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১০-২৫ 
  11. "The Life-Saving Vaccine the World Has Never Heard Of... - Stop Pneumonia"stoppneumonia.org (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০১-০৯ 
  12. "অণুজীববিজ্ঞানী সমীর সাহা | কালের কণ্ঠ"Kalerkantho। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০১-১৬ 
  13. "একজন সেঁজুতির বিজ্ঞানী হয়ে ওঠা"Sarabangla.net | Bangladesh newspaper | Bangla | Breaking News | Sports | Entertainment (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০৫-২৪। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৭-১০ 
  14. User, Super। "Samir K. Saha"chrfbd.org (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-১০-২৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১০-২৫ 
  15. "UNESCO awards Bangladeshi microbiologist"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-১০-২২। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১০-২৫ 
  16. http://www.banglanews24.com। "Bangladeshi microbiologist awarded UNESCO Prize"www.banglanews24.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১০-২৫ 
  17. Correspondent, Sana Jamal, (২০১৭-১০-২০)। "Pakistan professor wins prestigious UNESCO award"GulfNews। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১০-২৫ 
  18. "Pakistani laureate awarded UNESCO Prize for Microbiology - Pakistan - Dunya News"Dunya News (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১০-২৫ 
  19. "Pakistani Professor Wins UNESCO Prize for Microbiology"www.technologyreview.pk (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১০-২৫ 
  20. "Multiple Modalities to Explore Typhoid among Children: implication in vaccination policy" (PDF) 
  21. Saha, Samir K.; Baqui, Abdullah H. (২০০৫-০২-০১)। "Invasive Haemophilus influenzae type b diseases in Bangladesh, with increased resistance to antibiotics" (English ভাষায়): 227–233। আইএসএসএন 0022-3476ডিওআই:10.1016/j.jpeds.2004.09.007পিএমআইডি 15689914 
  22. "Pakistani scientist awarded UNESCO prize for microbiology"www.pakistantoday.com.pk (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১০-২৫ 
  23. Urban, Joanna। "Announcing the 2017 ASM Award Winners"www.asm.org (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-১০-২৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১০-২৫