শূর্পণখা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
শূর্পণখা
Rama spurns the demon lover.jpg
চিত্রকর ওয়ারউইক গোবেলের রং-তুলিতে ১৯১৩ খ্রিস্টাব্দে অঙ্কিত "শূর্পণখার অপমান"
তথ্য
পরিবারবিশ্রবা (পিতা)
নিকষা (মাতা)
বিদ্যুজ্জিহ্বা (দাম্পত্যসঙ্গী)
শাম্ভৃ (পুত্র)

শূর্পণখা (আসংলিব: śūrpaṇakhā) হলো মহর্ষি বাল্মীকি রচিত রামায়ণের একটি চরিত্র৷ তিনি ছিলের রামায়ণের মূল খলচরিত্র লঙ্কার রাজা রাবণের ভগিনী৷[১] শূর্পণখা শব্দটির সংস্কৃৃতাগত আক্ষরিক অর্থটি হলো কুলোর মতো নখ৷ আঞ্চলিকতার ওপর ভিত্তিক করে বিভিন্ন অঞ্চলে তাঁর বিভিন্ন ধরণের নাম পাওয়া যায় যেমন, তামিল ভাষায় সূর্পণগৈ, ইন্দোনেশিয় ভাষাতে সর্পকনকা, খমের ভাষাতে শূর্পণখর, মালয় ভাষাতে শূরপণ্ডাকী এবং থাই ভাষাতে শম্মণক্খা

বিবরণ ও চরিত্র[সম্পাদনা]

শূর্পণখার রামের নিকট বিবাহপ্রস্তাব

  • কুম্ভোদরা (কলসির মত উদর)
  • চোখ ট্যারা
  • কৃশকৃত বাদামীবর্ণ চুল
  • কর্কশ রূঢ় ও শ্রুতিকটু কণ্ঠস্বর
  • অত্যাকৃতি স্তনগ্রন্থি এবং অসদাচারী হৃদয়৷

ঋষি বিশ্রবা ও তার দ্বিতীয় পত্নী কৈকসী বা নিকষার কনিষ্ঠা কন্যা শূর্পণখা জন্মকালে মীনাক্ষী এবং দীক্ষা এইদুটি নাম পায়৷ আবার অনেকের মতে চাঁদের মতো আকৃৃতির নখের জন্য তিঁনি চন্দ্রনখা নামেও পরিচিতা ছিলেন৷ সে তাঁর মাতা নিকষা এবং মাতামহী কেতুমতির মতোই সুদর্শনা ছিলেন৷ তিনি পরবর্তীকালে উপযুক্ত বয়সে কলকেয় দানব গোত্রের দানব রাজপুত্র বিদ্যুজ্জিহ্বাকে গোপনে বিবাহ করেন৷ স্বভাবতই শূর্পণখার বিবাহ দানবকুলে হওয়ার ফলে তার জ্যেষ্ঠভ্রাতা রাবণ ক্রুদ্ধ হন৷ দানবরা ছিলো নীতিগতভাবে রাক্ষসদের বিপক্ষে তাই রাক্ষসরা তাদের শত্রু বলে মনে করতো৷ একারণে রাবণ শূর্পণখাকে দৃৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে চাইলে তার স্ত্রী মন্দোদরী তাকে বাঁধা দেন এই তার বোনের ইচ্ছাকে সম্মতি জানিয়ে তার সম্মানরক্ষার জন্য সবকিছুমানিয়ে নেওয়ার অনুরোধ করেন৷ এভাবে রাবণ শূর্পণখার বিবাহকে ও দানবকুলকে নিজ আত্মীয় মেনে নিয়ে তাতে সামাজিক সম্মতি দেন৷

রাবণের সপ্তমতল, তথা রসাতল জয়ের কালে তিনি তার নববিবাহিত ভগিনী শূর্পণখার সঙ্গে দানবপুরীতে দেখা করতে যান৷ সেখানে গিয়ে তিনি তার দানব ভগ্নীপতির আসল উদ্দেশ্য আন্দাজ করতে পারেন ও বোঝেন যে বিদ্যুজ্জিহ্বা রাবণকে হত্যা করতেই শূর্পণখাকে বিবাহ করেছিলো৷ শূর্পণখার অনুপস্থিতিতে বিদ্দুজ্জিহ্বা রাবণের ওপর আক্রমণ করতে উদ্যত হয় কিন্তু আত্মরক্ষা করতে গিয়ে স্বয়ং রাবণ তার ভগ্নীপতিকে হত্যা করে বসে৷[২] এরপর রাবণ নিজের কৃৃতকার্যের জন্য মর্মাহত হন ও নিজের ভগিনীর দুর্দশার কারণ হয়ে ওঠেন৷ এরপরে শূর্পণখা বৈধব্য গ্রহণ করে লঙ্কার সাথে সমস্ত সম্পর্ক ছিন্ন করে দক্ষিণ ভারতের বনাঞ্চলে বাস-স্থাপন করেন, রাবণের আদেশানুসারে এই সময়ে সঙ্গী হিসাবে তিনি তার দুই বৈমাত্রেয় ভাই খরদূষণকে সাথে পান৷ বৈধব্যকালে তিনি শাম্ভৃ নামে এক পুত্রসন্তান জন্ম দেন৷ ঘটনাক্রমে শাম্ভৃ লক্ষ্মণের হাতে নিহত হন৷

বাল্মীকি রামায়ণ অনুসারে, শূর্পণখা পঞ্চবটীবন পরিদর্শনের সময় পিতৃসত্য পালনার্থে বনবাসে ভ্রমণরত অযোধ্যার রাজপুত্র রামলক্ষ্মণের সাক্ষাৎ পান৷ তার রূপ দেখে শূর্পণখা তার প্রতি আকৃষ্ট হন৷ রাম এই প্রস্তাব পেয়ে তৎক্ষণাৎ এই প্রস্তাব নাকচ করে দেন এবং তাঁকে সীতাকে দেখিয়ে বলেন যে, তিনি তাঁর স্ত্রীর বিশ্বাস খণ্ডন করে দ্বিতীয়বার বিয়ে করতে অপারক৷ প্রত্যাখ্যাত শূর্পণখা তখন তার ভ্রাতা লক্ষ্মণের কাছে একই প্রস্তাব দিলে সে-ও তা প্রত্যাখ্যান করেন ও বলেন তার স্ত্রীয়ের প্রয়োজন নেই৷ একই সময়ে দুইভাই শূর্পণখাকে দেখে কৌতুক করতে থাকলে শূর্পণখা রেগে গিয়ে সীতাকে আঘাত করতে উদ্যত হয়৷ তখন লক্ষ্মণ তার অসি দিয়ে শূর্পণখার নাক-কান কেটে দেয় ও তাকে তাদের কুটিরের আশপাশ থেকে তাড়িয়ে দেন৷

এই অপমানের পর শূর্পণখা তার ভ্রাতা খরের কাছে গিয়ে অভিযোগ জানান৷ খর এই খবর পেয়ে উক্তস্থানে সাত জন রাক্ষসকে পাঠান কিন্তু রাম সকলকে পদানত করন৷ অতঃপর খর স্বয়ং ১৪,০০০ সৈন্য সহ উভয়কে আক্রমণ করলে তারাও রাম ও লক্ষ্মণের হাতে নিহত হন৷ একমাত্র সুমালীর পুত্র ও নিকষার ভ্রাতা অকম্পন বেঁচে যায় ও লঙ্কায় পলায়ন করে৷ শূর্পণখা তখন রাবণের কাছে বিচার চাইতে লঙ্কায় যান এবং সেখানে গিয়ে সমস্ত ঘটনার বিবরণ দিয়ে সীতার অপরূপ সৌন্দর্যের কথা বলেন ও রাবণকে প্রস্তাব দেন সীতাকে বিবাহ করার জন্য৷ অকম্পনও রাবণকে প্ররোচিত করতে থাকে৷ রাবণ ভ্রাতা বিভীষণের বারণ অগ্রাহ্য করে সীতাহরণ করে আনলে লঙ্কায় রাম-রাবণের যুদ্ধ অবশ্যম্ভাবী হয়ে পড়ে৷

বাল্মীকি রামায়ণে এই রহিত শূর্পণখার আর বিশেষ উল্লেখ পাওয়া যায় না৷ মনে করা হয় তিনি তার ভ্রাতা ও লঙ্কার পরবর্তী রাজা বিভীষণের সহিত লঙ্কাতেই পরবর্তী জীবন কাটান৷ তিনি এবং তার বৈমাত্রেয় ভগিনী কুম্ভিনী কিছুবছর পর সমুদ্রে প্রাণত্যগ করেন বলেও অনুমান করা হয়৷

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Johnson, W.J. (২০০৯)। A Dictionary of Hinduism (1st সংস্করণ)। Oxford: Oxford University Press। doi:10.1093/acref/9780198610250.001.0001আইএসবিএন 9780191726705 
  2. Valmiki Ramayan by Rajshekhar Basu - Uttarkanda