মারীচ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মারীচ
Rama stalks the demon Marica, who has assumed the form of a golden deer.jpg
রাম সোনার হরিণ হিসাবে মারীচকে তাড়া করে
দেবনাগরীमारीच
অন্তর্ভুক্তিঅসুর
আবাসদণ্ডকারণ্য
গ্রন্থসমূহরামায়ণ
ব্যক্তিগত তথ্য
মাতাপিতা
সহোদরসুবাহু

মারীচ (সংস্কৃত: मारीच), রামায়ণ অনুসারে একজন অসুর, যাকে ভগবান বিষ্ণুর অবতার রাম বধ করেন। মহাকাব্যে তাকে রাবণের মিত্র হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। তার সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য শোষণ হল রামের সহধর্মিণী সীতা অপহরণে তার ভূমিকা। তার ছেলে কালনেমী হনুমানের হাতে নিহত হন।

তার মা তাতাক এবং ভাই সুবাহুর সাথে অসুর হওয়ার অভিশপ্ত, মারীচ প্রাথমিকভাবে ঋষিদের ভয় দেখিয়ে তার জীবন পরিচালনা করেছিলেন। ঋষি বিশ্বামিত্রের নির্দেশে তিনি রামের কাছে পরাজিত হন। তিনি আবার রামকে হত্যা করার চেষ্টা করেছিলেন, কিন্তু তাকে আবার প্রাণের জন্য দৌড়াতে হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত, মারীচ সোনার হরিণের রূপ ধারণ করে এবং রাবণকে সীতাকে অপহরণ করতে সাহায্য করে।

কিংবদন্তি[সম্পাদনা]

জীবনের প্রথমার্ধ[সম্পাদনা]

মারীচ ছিলেন রাক্ষস বা অসুর সুন্দ (জাম্ব বা ঝাড়ঝার পুত্র) ও তাতাক নামে যক্ষিণী এর পুত্র। তাতাক ছিলেন যক্ষ রাজা সুকেতুর কন্যা, এবং সুকেতু তাকে ব্রহ্মার আশীর্বাদ হিসেবে পেয়েছিলেন। মারীচ এর সুবাহু নামে একজন ছোট ভাই ছিল। ভাইবোনেরা ছিলেন অত্যন্ত সুদর্শন এবং চরিত্রের দিক থেকে অভিজাত। তারা জাদুবিদ্যায় দক্ষ হয়ে ওঠে। একবার, সুন্দ নেশাগ্রস্ত অবস্থায় অগস্ত্য ঋষির আশ্রম আক্রমণ করেছিল। ক্রুদ্ধ অগস্ত্য তার ধ্যান শক্তি দ্বারা তাকে পুড়িয়ে ফেললেন। তাতাক যখন সুন্দ এর মৃত্যুর খবর জানতে পারেন, তখন তিনি ও তার ছেলেরা ঋষির উপর প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য অগস্ত্যকে আক্রমণ করেন। ঋষি তাতাক, মারীচ ও সুবাহুকে অভিশাপ দেন, তাদের দুষ্ট, জঘন্য, রাক্ষসে রূপান্তরিত করেন।

তাতাকা এবং তার ছেলেরা রাক্ষসদের (অসুর) কুলপতি সুমালীর কাছ থেকে সাহায্য চাইতে পাতালে গিয়েছিলেন। সুমালী তাদের তার নাতি, রাবণ, লঙ্কার রাক্ষস রাজার কাছে নিয়ে যায়। রাবণ ত্রয়ীকে গঙ্গার সঙ্গমস্থলের কাছে সরযূ নদীর তীরে অবস্থিত মালদা ও কারুশ রাজ্য দখল করতে সাহায্য করেছিল। এই ত্রয়ী রাজ্যগুলিকে ধ্বংস করে ঘন বনে পরিণত করে, যা তাতাকের বন নামে পরিচিত হয়। তারা জনগণকে আতঙ্কিত করেছিল, যে কেউ সেই বনে যাওয়ার সাহস করেছিল তাকে গ্রাস করেছিল। দেবতা, দানব ও মানুষ, এমনকি সূর্য ও মেঘও তাতাক এবং তার পুত্রদের অঞ্চলে প্রবেশ করার সাহস করেনি। মারীচ ও সুবাহু এই অঞ্চলের ঋষিদের হয়রানি করতে এবং তাদের যজ্ঞবলি ধ্বংস করতে পছন্দ করতেন। ভাইয়েরা বলির বেদিতে রক্ত, মাংস ও হাড় নিক্ষেপ করে এবং ঋষিদের বলির পবিত্রতা নষ্ট করে।[১][২][৩][৪][৫]

বিশ্বামিত্রের যজ্ঞে রামের মুখোমুখি[সম্পাদনা]

রামলক্ষ্মণ রাক্ষস মারীচ ও সুবাহুর মুখোমুখি হন।

মহান ঋষি বিশ্বামিত্র তাদাক বনের নিকটবর্তী এলাকায় বাস করছিলেন এবং তাঁর শিষ্যদের সাথে তপস্যাযজ্ঞ করছিলেন এবং তাদাক ও তাঁর পুত্রদের দ্বারা যন্ত্রণা ভোগ করছিলেন। বিপদ আর সহ্য করতে না পেরে বিশ্বামিত্র সাহায্যের জন্য অযোধ্যার রাজা দশরথের কাছে যান। তিনি দশরথকে তার যজ্ঞ রক্ষার জন্য তার জ্যেষ্ঠ পুত্র রামকে পাঠাতে অনুরোধ করেছিলেন। যদিও দশরথ প্রথমে তার ১৬ বছর বয়সী ছেলেকে পাঠাতে অনিচ্ছুক ছিলেন, শেষ পর্যন্ত তিনি রাজগুরু বশিষ্ঠের পরামর্শে রাম এবং তার ছোট ভাই লক্ষ্মণকে বিশ্বামিত্রের সাথে পাঠান। বিশ্বামিত্র তাদের যুদ্ধের প্রশিক্ষণ দিয়েছিলেন এবং বিভিন্ন মন্ত্র শিখিয়েছিলেন।[১][২][৪]

বিশ্বামিত্র ও রাজপুত্ররা যখন তাদাক বনের মধ্য দিয়ে যাচ্ছিলেন, তখন তাদাক তাদের আক্রমণ করেন। লক্ষ্মণের সাহায্যে রাম তার তীর দিয়ে তাকে হত্যা করেন। বিশ্বামিত্র রামকে আশীর্বাদ করেছিলেন, যেমন তাদাকের শেষে দেবতারা আনন্দ করেছিলেন। ঋষি তাকে পুরষ্কার হিসেবে দিব্য অস্ত্র দিয়েছিলেন। বিশ্বামিত্র তখন তার ছয় দিনের যজ্ঞ শুরু করেন, যেখানে রাজপুত্ররা পাহারায় ছিলেন।[১][২][৪]

প্রথম পাঁচ দিন কোনো ঘটনা ছাড়াই অতিবাহিত হলেও, ষষ্ঠ দিনে বলিদানের অগ্নি হঠাৎ বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে, যা সমস্যার ইঙ্গিত দেয়। মারীচ ও তার ভাই সুবাহু রাক্ষসদের দল নিয়ে গাছের চূড়া থেকে কালো মেঘের মতো গর্জন ও বজ্রধ্বনি করে আবির্ভূত হলেন। তারা যজ্ঞের আগুনকে রক্ত-মাংস বর্ষণ করে ধ্বংস করার চেষ্টা করেছিল। রাম তার ধনুক থেকে তার অস্ত্র মানবস্ত্র থেকে তীর ছুড়লেন। তীরটি মারীচ এর বুকে আঘাত করে এবং তাকে একশত লিগ দূরে সমুদ্রে ফেলে দেয়। অন্য সংস্করণে, রামের ধনুকের শব্দ শুনেই মারীচ সাগরে পালিয়ে যায়। সুবাহু ও অন্যান্য রাক্ষসরা রাম কর্তৃক অন্যান্য বিভিন্ন অস্ত্র ব্যবহার করে হত্যা করা হয়েছিল। যজ্ঞ সফলভাবে সম্পন্ন হয়।[৩][৫][৬][৭] পরবর্তীকালে, বিশ্বামিত্রের নির্দেশনায়, রাম সীতাকে বিয়ে করেন, যিনি জনকমিথিলার রাজকুমারীর দত্তক কন্যা।

দণ্ডকারণ্যে রামের সাক্ষাত[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Taraka (Thataka)"Encyclopedia for Epics of Ancient India। Dowson's Classical Dictionary of Hindu Mythology। সংগ্রহের তারিখ ১২ ডিসেম্বর ২০১২ 
  2. Sehgal 1999, পৃ. 200-2।
  3. Mani, Vettam (১৯৭৫)। Puranic Encyclopaedia: A Comprehensive Dictionary With Special Reference to the Epic- and Puranic Literature। Delhi: Motilal Banarsidass। পৃষ্ঠা 486–7আইএসবিএন 0-8426-0822-2 
  4. Mani, Vettam (১৯৭৫)। Puranic Encyclopaedia: A Comprehensive Dictionary With Special Reference to the Epic- and Puranic Literature। Delhi: Motilal Banarsidass। পৃষ্ঠা 787আইএসবিএন 0-8426-0822-2 
  5. Āi Pāṇḍuraṅgārāva (১৯৯৪)। Valmiki: Makers of Indian Literature। Sahitya Akademi। পৃষ্ঠা 71–72। আইএসবিএন 978-81-7201-680-7 
  6. "Maricha"Encyclopedia for Epics of Ancient India। Dowson's Classical Dictionary of Hindu Mythology। সংগ্রহের তারিখ ১২ ডিসেম্বর ২০১২ 
  7. Goldman, Robert P. (১৯৯০)। The Ramayana of Valmiki: Balakandaবিনামূল্যে নিবন্ধন প্রয়োজন। The Ramayana of Valmiki: an Epic of Ancient India। 1Princeton University Press। পৃষ্ঠা 180–2আইএসবিএন 978-0-691-01485-2 

উৎস[সম্পাদনা]