নীল স্মিথ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
নীল স্মিথ
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামনীল মাইকেল নাইট স্মিথ
জন্ম (1967-07-27) ২৭ জুলাই ১৯৬৭ (বয়স ৫২)
সোলিহাল, ওয়ারউইকশায়ার, ইংল্যান্ড
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি অফ ব্রেক
ভূমিকাবোলার
সম্পর্কএম. জে. কে. স্মিথ (পিতা)
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ১৩৩)
২৬ আগস্ট ১৯৯৬ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
শেষ ওডিআই৬ মে ১৯৯৬ বনাম অস্ট্রেলিয়া
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৯৮৭ - ২০০৪ওয়ারউইকশায়ার
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা ওডিআই এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ২০৫ ৩৩০
রানের সংখ্যা ১০০ ৬৭৮৩ ৪৯৬৭
ব্যাটিং গড় ২০.০০ ২৬.৬০ ২১.২২
১০০/৫০ -/- ৪/৩৫ ২/২৫
সর্বোচ্চ রান ৩১ ১৬১ ১২৫
বল করেছে ২৬১ ২৮১০০ ১১৩৩৮
উইকেট ৩৭৪ ৩০৬
বোলিং গড় ৩১.৬৬ ৩৭.৩৪ ২৭.৫২
ইনিংসে ৫ উইকেট ১৮
ম্যাচে ১০ উইকেট - -
সেরা বোলিং ৩/২৯ ৭/৪২ ৬/৩৩
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১/- ৭৩/- ১০০/–
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২৫ অক্টোবর ২০১৯

নীল মাইকেল নাইট স্মিথ (ইংরেজি: Neil Smith; জন্ম: ২৭ জুলাই, ১৯৬৭) ওয়ারউইকশায়ারের সোলিহাল এলাকায় জন্মগ্রহণকারী সাবেক ইংরেজ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন। ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি।[১] ১৯৯৬ সালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে ইংল্যান্ডের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ইংরেজ কাউন্টি ক্রিকেটে ওয়ারউইকশায়ার দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি অফ ব্রেক বোলার হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, নিচেরসারিতে ডানহাতে কার্যকরী ব্যাটিংশৈলী প্রদর্শন করেছেন নীল স্মিথ

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৯৮৭ সাল থেকে ২০০৩ সাল পর্যন্ত নীল স্মিথের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। ১৯৮৭ সালে ওয়ারউইকশায়ারের পক্ষে প্রথম খেলতে নামেন। এর ছয় বছর পর কাউন্টি ক্যাপ লাভ করেন তিনি। ডানহাতি ব্যাটসম্যান ও অফ স্পিনার নীল স্মিথ বেশ কয়েক মৌসুম ধারাবাহিকতা বজায় রেখেছিলেন। ব্যাট হাতে ২০-এর মাঝামাঝি গড়ে অবস্থান করেন ও তিন শতাধিক উইকেট পান। তবে, এরজন্যে ৩০-এর অধিক গড়ে রান খরচ করতে হয়েছিল তাকে।

নীল স্মিথ অপ্রত্যাশিতভাবে দুইটি রেকর্ডের সাথে স্বীয় নামকে জড়িয়ে রেখেছেন। ১৯৯৭ সালে একদিনের খেলায় ওয়ারউইকশায়ারের সদস্যরূপে নর্দাম্পটনশায়ারের বিপক্ষে দলকে নেতৃত্বে দিয়েছিলেন। এরফলে, ঐ কাউন্টি দলে পিতা-পুত্রের প্রথম নেতৃত্বের ঘটনা ঘটে। এছাড়াও তার পিতা এম. জে. কে. স্মিথ ইংল্যান্ডের পক্ষে অধিনায়কত্ব করেছেন। কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপের ইতিহাসে দ্রুততম সময়ে সেঞ্চুরি করার কৃতিত্ব প্রদর্শন করেছেন। ১৭ এপ্রিল, ১৯৯৮ তারিখে এজবাস্টনে ডারহামের বিপক্ষে করা এ সেঞ্চুরির রেকর্ডটি একবছর বাদেই দলীয় সঙ্গী ডগি ব্রাউন নিজের করে নেন। দূর্ভাগ্যবশতঃ ২০০০ সালের শেষদিকে মাইকেল পাওয়েলের কাছে অধিনায়কত্ব হস্তান্তর করতে হয়েছিল। ঐ মৌসুমে কাউন্টি দলটি লর্ডসের চূড়ান্ত খেলায় অংশ নিয়েছিল ও জাতীয় লীগে খেলার যোগ্যতা অর্জনে সমর্থ হয়।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে সাতটিমাত্র একদিনের আন্তর্জাতিকে অংশগ্রহণ করেছেন নীল স্মিথ। কোন টেস্টে অংশগ্রহণ করার সুযোগ পাননি তিনি। ৯ জানুয়ারি, ১৯৯৬ তারিখে কেপটাউনে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকা দলের বিপক্ষে ওডিআইয়ে অভিষেক ঘটে তার। ২৬ মার্চ, ১৯৯৬ তারিখে ম্যানচেস্টারে সফরকারী ভারতের বিপক্ষে সর্বশেষ ওডিআইয়ে অংশ নেন তিনি।

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দুইটি একদিনের আন্তর্জাতিকে অংশ নেন। ১৯৯৬ সালে ভারত, পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কায় যৌথভাবে অনুষ্ঠিত ক্রিকেট বিশ্বকাপে পাকিস্তানের মাটিতে তিনটি খেলায় অংশগ্রহণের সুযোগ লাভ করেছিলেন। এরপর গ্রীষ্মকালে ভারতের বিপক্ষে আরও দুইটি ওডিআইয়ে অংশ নেন। তবে, অংশগ্রহণকৃত খেলাগুলোয় সাদামাটা ছিল। ফলে, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে উপেক্ষিত হন।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

ক্রিকেট খেলা থেকে অবসর গ্রহণের পর বালকদের ওয়ারউইক স্কুলে কাজ করেন। তবে, সাম্প্রতিক সময়ে ওয়ারউইকের মাইটন রোডে মাঠ কর্মকর্তার দায়িত্ব থেকে সাময়িকভাবে অবসর নিয়েছেন। ইংল্যান্ডের বিখ্যাত ও সাবেক অধিনায়ক এম. জে. কে স্মিথ সম্পর্কে তার পিতা হন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "England Players by ODI Caps"। ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৩ অক্টোবর ২০১৯ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]