স্ট্যানলি ক্রিস্টোফারসন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
স্ট্যানলি ক্রিস্টোফারসন
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামস্ট্যানলি ক্রিস্টোফারসন
জন্ম(১৮৬১-১১-১১)১১ নভেম্বর ১৮৬১
কিডব্রুক, ব্ল্যাকহিদ, কেন্ট, ইংল্যান্ড
মৃত্যু৬ এপ্রিল ১৯৪৯(1949-04-06) (বয়স ৮৭)
সেন্ট জন্স উড, লন্ডন
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি ফাস্ট
ভূমিকাবোলার
সম্পর্কপার্সি ক্রিস্টোফারসন (ভ্রাতা)
ইয়ান অ্যাকার্স-ডগলাস (নাতি)
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
একমাত্র টেস্ট
(ক্যাপ ৪৫)
২১ জুলাই ১৮৮৪ বনাম অস্ট্রেলিয়া
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৮৮৩ - ১৮৯০কেন্ট
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ৬৬
রানের সংখ্যা ১৭ ৯২৩
ব্যাটিং গড় ১৭.০০ ৯.৫১
১০০/৫০ ০/০ ০/০
সর্বোচ্চ রান ১৭ ৪৭
বল করেছে ১৩৬ ১১,৫৩১
উইকেট ২৪১
বোলিং গড় ৬৯.০০ ২২.১২
ইনিংসে ৫ উইকেট ১৩
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ১/৫২ ৮/৪১
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ০/– ৪১/–
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ১৮ অক্টোবর ২০১৯

স্ট্যানলি ক্রিস্টোফারসন (ইংরেজি: Stanley Christopherson; জন্ম: ১১ নভেম্বর, ১৮৬১ - মৃত্যু: ৬ এপ্রিল, ১৯৪৯) ব্ল্যাকহিদের কিডব্রুক এলাকায় জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা ও শৌখিন ইংরেজ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন। এছাড়াও, ১৯৩৯ থেকে ১৯৪৬ সময়কালে মেরিলেবোন ক্রিকেট ক্লাবের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছিলেন। ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৮৮৪ সালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে ইংল্যান্ডের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ইংরেজ কাউন্টি ক্রিকেটে কেন্ট দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ফাস্ট বোলার হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, নিচেরসারিতে ডানহাতে ব্যাটিং করতেন স্ট্যানলি ক্রিস্টোফারসন।

শৈশবকাল[সম্পাদনা]

১৮৬১ সালে কেন্টের ব্ল্যাকহিদ এলাকার কিডব্রুকে স্ট্যানলি ক্রিস্টোফারসনের জন্ম।[১] আপিংহাম স্কুলে অধ্যয়ন করেছেন তিনি। সেখানে ক্রিকেট একাদশে খেলেন ও উদীয়মান বোলার হিসেবে স্বীকৃতি পান।[২] ক্রিস্টোফারসন ভাইদের মধ্যে তিনিই সেরা খেলোয়াড় ছিলেন। তারা প্রায়শঃই পারিবারিক একাদশ দল নিয়ে মাঠে নামতেন। এ দল গঠনের দায়িত্বে তার পিতা থাকতেন।

ব্ল্যাকহিদে তিনি ও অপর নয় ভাই বেশ কয়েক মৌসুম একটি দলে অংশ নিয়েছিলেন। দলের শেষ সদস্য হিসেবে তার পিতা খেলতেন।[৩] পার্সি ক্রিস্টোফারসন নামীয় কেবলমাত্র এক ভাই প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অংশ নিয়েছেন। ১৮৮৭ সালে একবার স্ট্যানলির সাথে কেন্টের সদস্যরূপে খেলেছেন। ক্রিকেটের পাশাপাশি হকি খেলায়ও দক্ষ ছিলেন স্ট্যানলি ক্রিস্টোফারসন।[১] তার নাতি ইয়ান অ্যাকার্স-ডগলাস ১৯৩০-এর দশকে কেন্টের পক্ষে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে অধিনায়কত্ব করেছেন।[৪]

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৮৮৩ সাল থেকে ১৮৯০ সাল পর্যন্ত স্ট্যানলি ক্রিস্টোফারসনের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। কেন্ট দলে অংশগ্রহণকারী দশ ভাইয়ের অন্যতম হিসেবে ক্রিকেট খেলেছিলেন। চমৎকারভাবে ফাস্ট-মিডিয়াম বোলিং করতেন। লাফিয়ে বল করার ভঙ্গীমায় বোলিং করার প্রাক্কালে দীর্ঘ দূরত্ব অতিক্রম করতেন। নিখুঁত বোলিংয়ের পাশাপাশি চমৎকারভাবে ইয়র্কার মারতেন।

১৮৮৩ সালে কেন্ট দলের পক্ষে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে স্ট্যানলি ক্রিস্টোফারসনের। এরপর থেকে ১৮৮৩ থেকে ১৮৮৭ সময়কালের মধ্যে কাউন্টি দলটির পক্ষে ৫০বার খেলায় অংশগ্রহণ করেছিলেন।[২][৪] ১৮৮০-এর দশকে অন্যতম সেরা ফাস্ট বোলার হিসেবে তাকে বিবেচনা করা হতো। ১৮৮৪ সালে জেন্টলম্যানের সদস্যরূপে প্লেয়ার্সের বিপক্ষে খেলেন। এরপর ঐ বছরই ইংল্যান্ড সফরে আসা সফরকারী অস্ট্রেলিয়া দলের বিপক্ষে টেস্ট খেলার জন্যে মনোনীত হন ও কাউন্টি ক্যাপ লাভ করেন।[২][৪] একই বছরে জেন্টলম্যানের সদস্যরূপে অস্ট্রেলিয়া একাদশের বিপক্ষে খেলে ৮/৭৮ লাভ করেন। এরপর, কেন্টের পক্ষে খেলে ১৯ ওভারে ৩/১২ পান।[২] খুব সম্ভবতঃ ১৮৮৩ ও ১৮৮৪ সালে স্বর্ণালী সময় অতিবাহিত করেছেন।

১৮৮৬ সালে আঘাতের কবলে পড়েন। বেশ কয়েকবার হাতে আঘাত পান। ফলশ্রুতিতে, ১৮৮৭ সালে শীর্ষস্তরের ক্রিকেটে খুব কমই অংশগ্রহণের সুযোগ পেয়েছিলেন। ১৮৯০ সালে কেন্টের পক্ষে সর্বশেষ খেলায় অংশ নেন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে একটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন স্ট্যানলি ক্রিস্টোফারসন। ২১ জুলাই, ১৮৮৪ তারিখে লর্ডসে সফরকারী অস্ট্রেলিয়া দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। এটিই তার একমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ ছিল।

১৮৮৪ সালে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্ট খেলার জন্যে মনোনীত হন। একটিমাত্র উইকেট পান। এগারো নম্বরে ব্যাটিংয়ে নেমে ১৭ রান তুলে ইংল্যান্ডের ইনিংস বিজয়ে ভূমিকা রাখেন। এ খেলায় সফরকারী দল পরাভূত হয়েছিল।

অবসর[সম্পাদনা]

১৯৩৯ থেকে ১৯৪৬ সময়কালে স্ট্যানলি ক্রিস্টোফারসন মেরিলেবোন ক্রিকেট ক্লাবের প্রেসিডেন্টের ভূমিকায় অবতীর্ণ হন। এটিই যে-কোন ব্যক্তির সর্বাধিক সময় এ কার্যালয়ে দায়িত্ব গ্রহণের ঘটনা ছিল। ১৯৪৩ থেকে ১৯৪৫ সময়কালে মিডল্যান্ড ব্যাংকের অস্থায়ী চেয়ারম্যানের দায়িত্বে ছিলেন।[২]

ব্যবসায়িক কারণে ব্যস্ত থাকলেও খুব কম সময়ই লর্ডসের আঙ্গিনায় অনুপস্থিত থাকতেন। ৬ এপ্রিল, ১৯৪৯ তারিখে ৮৮ বছর বয়সে লন্ডনের সেন্ট জন্স উড এলাকায় নার্সিং হোমে স্ট্যানলি ক্রিস্টোফারসনের দেহাবসান ঘটে। তিনিই ক্রিস্টোফারসন ভাইদের মধ্যে সর্বশেষ জীবিত ব্যক্তি ছিলেন।[২][৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Stanley Christopherson, CricInfo. Retrieved 2017-04-16.
  2. Stanley Christopherson, Obituary, Wisden Cricketers' Almanack, 1949. Retrieved 2017-04-16.
  3. Preston H (1946) Notes by the Editor, Wisden Cricketers' Almanack, 1946. Retrieved 2017-04-16.
  4. Stanley Christopherson, CricketArchive. Retrieved 2017-04-16.

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]