ইন্দোর মেট্রো

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ইন্দোর মেট্রো
এমপিএমআরসিএল লোগো
সংক্ষিপ্ত বিবরণ
মালিকানায়মধ্যপ্রদেশ মেট্রো রেল কর্পোরেশন লিমিটেড
অবস্থানইন্দোর, মধ্যপ্রদেশ, ভারত
পরিবহনের ধরনদ্রুতগামী পরিবহন
লাইনের (চক্রপথের)
সংখ্যা
১ (নির্মাণাধীন)
৫ (আনুমানিক)
৫ (পরিকল্পিত)
বিরতিস্থলের (স্টেশন)
সংখ্যা
৮৯ (আনুমানিক)
২৯ (নির্মাণাধীন)
দৈনিক যাত্রীসংখ্যা২,৫০,০০০ (আনুমানিক)
ওয়েবসাইটএমপিএমআরসিএল
চলাচল
রেলগাড়ির দৈর্ঘ্য৬ কোচ
কারিগরি তথ্য
মোট রেলপথের দৈর্ঘ্য১২৪ কিমি (৭৭ মা) (আনুমানিক)
১২৪ কিমি (৭৭ মা) (পরিকল্পিত)
৩৩.৫৩ কিমি (২০.৮৩ মা) (নির্মানাধীন)
রেলপথের গেজ১,৪৩৫ মিলিমিটার (৪ ফুট   ইঞ্চি) আদর্শ গেজ
বিদ্যুতায়ন২৫ কেভি ৫০ হার্জ ওভারহেড ক্যাটেনারি
গড় গতিবেগ৩৫ কিমি/ঘ (২২ মা/ঘ)
শীর্ষ গতিবেগ৯০ কিমি/ঘ (৫৬ মা/ঘ)

ইন্দোর মেট্রো হল একটি দ্রুতগামী পরিবহন ব্যবস্থা, যা ভারতের ইন্দোর শহরের জন্য নির্মাণাধীন। মোট ব্যবস্থায় ১১ টি করিডোর (লাইন) রয়েছে, যা ১২৪ কিলোমিটার (৭৭ মা) দূরত্ব অতিক্রম করে। এই প্রকল্পে খরচ হবে প্রায় ১২,০০০ কোটি (US$ ১.৪৭ বিলিয়ন)[১] প্রতি কিমিতে খরচ ১৮২ কোটি টাকা এবং মোট খরচ ১৫,০০০ কোটি টাকা হবে। মেট্রো ব্যবস্থাটি উত্তোলিত, ভূগর্ভস্থ ও ভূমিগত হবে।[২] সিসমিক জোন-২ থেকে সিসমিক জোন-৪ শ্রেণিতে অনুপযুক্ত স্থানান্তরের কারণে ইন্দোর মেট্রো প্রকল্পটি গুরুতর হুমকির মুখে হয়েছে, যার ফলে পুরো প্রকল্পের জন্য বাজেটের ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে।[৩]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

পরিকল্পনা[সম্পাদনা]

ইন্দোরে পরিকল্পিত মেট্রো হল মেট্রো ব্যবস্থা যা রোহিত অ্যাসোসিয়েটস সিটিস অ্যান্ড রেল প্রাইভেট লিমিটেড দ্বারা নকশা করা হয়েছে, যার প্রধান স্থপতি রোহিত গুপ্ত। এই ব্যবস্থা রেলপথের ওভারল্যাপিং ও শাখা সহ ১০০-১০৭ কিমি রেলপথ নিয়ে গঠিত। রোহিত অ্যাসোসিয়েটসকে ২০১৩ সালের মে মাসে শহরের জন্য ব্যবস্থা নির্বাচন সহ এমআরটিএস-এর জন্য একটি বিশদ প্রকল্প প্রতিবেদন প্রস্তুত করার জন্য নিযুক্ত করা হয়েছিল। পরামর্শদাতা রোহিত অ্যাসোসিয়েটসের বহু-মাপদণ্ড বিশ্লেষণ ও সুপারিশের উপর ভিত্তি করে, মধ্যপ্রদেশ সরকার ২০১৪ সালের ৩০শে জুন পরামর্শদাতার দ্বারা প্রস্তুত সূচনা প্রতিবেদন অনুমোদন করেছিল। ৯ ডিসেম্বর ২০১৪ (2014-12-09)-এর হিসাব অনুযায়ী, প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য ভূ-প্রযুক্তিগত জরিপ এবং কোম্পানির গঠন করা হয়।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] প্রকল্পটি ২০২৪ সালের মধ্যে শেষ হওয়ার কথা রয়েছে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

মধ্যপ্রদেশের তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান ২০১৫ সালের ৯ই অক্টোবর ভোপাল ও ইন্দোর মেট্রো রেল প্রকল্পের জন্য ০.৩ শতাংশ সুদের হারে ১২,০০০ কোটি টাকা ঋণের জন্য জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সি (জিয়াইসিএ) থেকে সম্মতি পেয়েছেন বলে দাবি করেছিলেন।[৪] যাইহোক, ২০১৭ সালের ৭ই মার্চ একটি আপডেটের সময় এটি রাজ্যের নগর প্রশাসন ও উন্নয়ন মন্ত্রী মায়া সিং দ্বারা প্রকাশ করা হয়েছিল, যে জাইকা ভোপাল ও ইন্দোরের মেট্রো প্রকল্পগুলিতে অর্থায়ন করতে অস্বীকার করেছে।[৫]

ভোপাল ও ইন্দোরের মেট্রো প্রকল্পে তহবিল দিতে জাইকা-এর অস্বীকৃতির পরে, রাজ্য সরকার দ্বিপাক্ষিক/বহুপাক্ষিক আর্থিক সংস্থাগুলির থেকে তহবিল পাওয়ার জন্য কেন্দ্রের কাছে একটি প্রস্তাব পাঠিয়েছিল।

এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাঙ্ক (এডিবি) ২০১৯ সালের ১লা মে ইন্দোর মেট্রো প্রকল্পে অর্থায়নের জন্য নীতিগত অনুমোদন দিয়েছিল। ঋণের গ্যারান্টার হিসেবে কেন্দ্রীয় সরকার রয়েছে।[৬]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Bhopal, Indore to have Metro Rail soon"। Thaindian.com। ৫ মার্চ ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জানুয়ারি ২০১১ 
  2. "DMRC surveys Indore for metro rail service"। Hindustan Times। ২০ এপ্রিল ২০১০। ৫ সেপ্টেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জানুয়ারি ২০১১ 
  3. Dec 25, P. Naveen / TNN /। "Indore Metro caught in seismic-zone 'faultlines' | Bhopal News - Times of India"The Times of India (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৭ ডিসেম্বর ২০২১ 
  4. Trivedi, Shashikant (৯ অক্টোবর ২০১৫)। "MP Metro Project gets Rs 12,000 Crore soft loan from Japan."Business Standard India। Business Standard। 
  5. "JICA refused to fund 2 metro rail projects in MP: Govt"Business Standard India। Press Trust of India। ৭ মার্চ ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ৮ মার্চ ২০২০ 
  6. "ADB to fund Delhi-Meerut rapid rail link, 4 metro projects"Hindu Business Line (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৪ মে ২০১৯