লখনউ মেট্রো

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
লখনউ মেট্রো
Lucknow Metro Logo.svg
Lucknow Metro under operation.jpg
লখনউ মেট্রো রেল
তথ্য
মালিকলখনউ মেট্রো রেল কর্তৃপক্ষ (এলএমআরসি)
অবস্থানলখনউ, উত্তরপ্রদেশ, ভারত
ধরনদ্রুত পরিবহন
লাইনের সংখ্যা১ (সক্রিয়)
১ (অনুমোদিত)
বিরতিস্থলের সংখ্যা২১ (পরিচালনাগত)
১২ (অনুমোদিত)
দৈনিক যাত্রীসংখ্যা১০,০০০[১][২] (মে ২০১৮)
সদরদপ্তরলখনউ মেট্রো রেল কর্তৃপক্ষ প্রশাসনিক সদর দপ্তর, ভিপিন খান্ড, গোমতীনগর, লখনউ ২২৬০১০
ওয়েবসাইটhttp://www.lmrcl.com/
কাজ
কাজ শুরু৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭[৩]
গাড়ির সংখ্যা৮০
দৈর্ঘ্য৪ কোচ
অগ্রগতি৬ মিনিট[৪]
প্রযুক্তি
লাইনের দৈর্ঘ্য২২.৮৭ কিমি (১৪.২১ মা) (পরিচালনাগত)
গতিপথ গেজস্ট্যান্ডার্ড গেজ[৫]
গড় গতিবেগ৩২–৩৪ কিমি/ঘ (২০–২১ মা/ঘ)[৫]
সর্বোচ্চ গতিবেগ৯০ কিমি/ঘ (৫৬ মা/ঘ)[৬]
ব্যবস্থার মানচিত্র

Lucknow Metro Route Map

লখনউ মেট্রো হল একটি দ্রুত গণপরিবহন ব্যবস্থা যা একটি পরিবেশ বান্ধব পরিবেশের সাথে লখনউ শহরের যাত্রী পরিসেব সরবরাহের জন্য নির্মিত হয়েছে।[৭][৮] ২৭ শে সেপ্টেম্বর ২০১৪ সালে নির্মান কাজ শুরু করা হয়। ।[৯] ট্রান্সপোর্ট নগর থেকে চারবাঘ রেলওয়ে স্টেশন পর্যন্ত ৮.৫ কিলোমিটার (৫.৩ মাইল) রেলপথ, যা ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭ সালে বাণিজ্যিকভাবে যাত্রা শুরু করে। এটি নির্মাণ সময়ের হিসাবে দেশের দ্রুততম মেট্রো রেল ব্যবস্থা। চৌধুরী চরণ সিং আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের মেট্রো স্টেশন থেকে মুন্সি পুলিয়া মেট্রো স্টেশন পর্যন্ত লাল লাইনের সম্পূর্ণ অংশটি ৮ মার্চ ২০১৯ সালে যাত্রী পরিবহন শুরু করে।

লখনউ মেট্রো ২১ টি স্টেশন দিয়ে ২৩ কিমি দূরত্বে অতিক্রম করে।

লখনউ মেট্রো রেল কর্পোরেশন (এলএমআরসি) যাত্রীদের, বিশেষ করে প্রবীণ নাগরিকদের টিকিট পেতে সহায়তা করার জন্য ৩৫ জন গ্রাহক সম্পর্ক সহায়ককে নিয়োগ করেছে। এলএমআরসি সকল স্টেশনগুলিতে বিনামূল্যে পানীয় জল, শৌচালয়, এসকলেটর এবং লিফ্টের পরিষেবা সরবরাহ করে।

লখনউ মেট্রো প্রকল্পটি উত্তর প্রদেশের সবচেয়ে ব্যয়বহুল পরিবহন ব্যবস্থা যা প্রকল্পের পর্যায় ১এ (রেড লাইন) এবং ১বি (ব্লু লাইন) এর আনুমানিক মোট খরচ $২ বিলিয়ন ডলার, যার মধ্যে ₹৬,৯২৮ কোটি টাকা (৯৬০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার) হচ্ছে পর্যায় ১এ-এর ব্যয়।[১০] ভারত সরকারউত্তর প্রদেশ সরকারের ৫০:৫০ যৌথ উদ্যোগে উত্তরপ্রদেশ মেট্রো রেল কর্পোরেশন প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল মেট্রো নির্মাণ ও পরিচালনা করার জন্য।[১১]

একবার সম্পন্ন হলে লখনউ মেট্রোতে ২ টি রেলপথ থাকবে, যার মধ্যে দীর্ঘতম ২২.৮৭৮ কিমি (১৪.২১৬ মাইল) লাল (উত্তর-দক্ষিণ) লাইন থাকবে চৌধুরী চরাণ সিং আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে মুন্সী পুলিয়া চৌরহ পর্যন্ত এবং নীল (পূর্ব-পশ্চিম) লাইন থাকবে চারবাগ রেলওয়ে স্টেশন থেকে বসন্ত কুঞ্জ পর্যন্ত। চারবাগ রেলওয়ে স্টেশন দুটি লাইনের মধ্যে জংশন স্টেশন হিসেবে কাজ করবে। উপরন্তু, মেট্রো পর্যায়-২ এবং পর্যায়-৩ মোট ৭৪ কিমি রেলপথ নিয়ে গঠিত হয়ে ৬ টি লাইনের দ্বারা। দ্বিতীয় পর্বটি (পর্যায়-২) আইআইএম লখনউ থেকে রাজজিপুরম, ইন্দিরা নগর থেকে সিজি সিটি এবং সিজি সিটি থেকে সিসিএস আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর পর্যন্ত পৃথক ৩টি রেলপথ নির্মিত হবে। পর্যায়-৩-এ মুন্সী পুলিয়া থেকে জানকিপুরাম, চারবাগ থেকে এসজিপিজিআই এবং সচিবালয় থেকে সিজি সিটি পর্যন্ত ৩ টি লাইন নির্মিত হবে। পর্যায়-৪-এ আরও মেট্রো রুট লখনউ শহরের বাইরের এলাকায় এবং উপগ্রহ শহরে প্রসারিত হবে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

মেট্রো প্রকল্পের মূল নকশায় একটি উত্তর-দক্ষিণ করিডোর এবং একটি পূর্ব-পশ্চিম করিডোর অন্তর্ভুক্ত ছিল, এটি গোমতি নগরের মাধ্যমে সংযুক্ত ছিল। উত্তর-দক্ষিণ করিডোরের জন্য আনুমানিক ব্যয় ছিল ৫,৪১৩ কোটি (২০১৮ সালের হিসাবে ₹৮৩ বিলিয়ন বা ১.২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার), পূর্ব-পশ্চিম করিডোরের জন্য ৩,৬১১ কোটি (২০১৮ সালের হিসাবে ₹৫৬ বিলিয়ন বা ৭৭০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার) এবং গোমতি নগরের মাধ্যমে সংযোগের জন্য ₹৪৯৫ কোটি (২০১৮ সালের হিসাবে ₹৭৬২ কোটি ডলার বা ১১০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার)।[১২] পূর্ব-পশ্চিম করিডোরের প্রাথমিক প্রস্তাবে রাজজিপুরম থেকে শুরু হয়ে এবং হযরতমণে শেষ হয়, পরে হযরতগঞ্জ ও অক্ষরপুরপুরের মাধ্যমে গোমতী নগর পর্যন্ত ১৪ কিলোমিটার (৮.৭ মাইল) রুট নির্মাণের জন্য উদ্যোগ নেয়া হয়। যাইহোক, ২০১০ সালে নকশাটি বদলানো হয়েছিল, তাই করিডোরটি বসন্ত কুঞ্জ থেকে শুরু করে ১৩ কিলোমিটার (৮.১ মাইল) সংশোধিত দূরত্ব অতিক্রম করে চরবাগে পৌঁছাবে।[১৩]

আরও একবার সংশোধনের পরে পূর্ব-পশ্চিম করিডোর দ্বারা লখনউয়ের চারবঘর রেলওয়ে স্টেশনটি হারদো রোডে অবস্থিত বসন্ত কুঞ্জের সঙ্গে সংযুক্ত হবে এবং এর দৈর্ঘ্য ১১ কিলোমিটার (৬.৮ মাইল), যার মধ্যে ৪.২৯ কিমি উত্তোলিত (২.৬৭ মাইল), ০.৫ কিমি র্যাম (০.৩১ মাইল) এবং ৬.৩ কিমি ভূগর্ভস্থ (৩.৯ মাইল)।

বর্তমান অবস্থা[সম্পাদনা]

লখনউ মেট্রো
লাইন নাম প্রথম পরিচালনাগত সর্বশেষ সম্প্রসারণ স্টেশন দৈর্ঘ্য (কিমি) প্রান্তিক রোলিং স্টকে ট্র্যাক গেজ (এমিএমি) বিদ্যুতায়ন
লাল লাইন ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭ ৮ মার্চ ২০১৯ ২১ ২২.৮৭ কিমি (১৪.২১ মা) চৌধুরী চরণ সিং বিমানবন্দর মেট্রো স্টেশন মুন্সি পুলিয়া অলস্টম ১,৪৩৫ ২৫ কেভি ওএইচই
নীল লাইন চারবাগ রেলওয়ে স্টেশন বসন্ত কুঞ্জ ১,৪৩৫ ২৫ কেভি ওএইচই

পর্যায়-১[সম্পাদনা]

লাইনের নাম স্টেশন দৈর্ঘ্য প্রান্তিক উদ্বোধনের তারিখ
লাল লাইন ৮.৫ কিমি (৫.৩ মা) পরিবহন নগর চারবাগ রেলওয়ে স্টেশন ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭
২.৬৭ কিমি (১.৬৬ মা) চৌধুরী চরণ সিং বিমানবন্দর মেট্রো স্টেশন পরিবহন নগর ৮ মার্চ ২০১৯
১১ ১২.৬ কিমি (৭.৮ মা) চারবাগ রেলওয়ে স্টেশন মুন্সি পুলিয়া ৮ মার্চ ২০১৯
নীল লাইন ১২ ১১.১০ কিমি (৬.৯০ মা) চারবাগ রেলওয়ে স্টেশন বসন্ত কুঞ্জ ২০২২

যাত্রপথ[সম্পাদনা]

লাল লাইন[সম্পাদনা]

লাল লাইন লখনউ মেট্রো প্রথম রেলপথ এবং এটি প্রথমে কেন্দ্রীয় লখনউয়ের দক্ষিণে পরিবহন নগর ও চারবাগের মধ্যে সংযোগ ঘটায়। বর্তমানে রেলপথটি ২২.৮৭ কিলোমিটার (১৪.২১ মাইল) দূরত্বে উত্তরে মুন্সি পুলিয়া এবং দক্ষিণে বিমানবন্দর পর্যন্ত বিস্তৃত হয়েছে। এটা আংশিকভাবে উত্তোলিত এবং ভূগর্ভস্থ।

নীল লাইন[সম্পাদনা]

নীল লাইন লখনউ মেট্রোর একটি প্রস্তাবিত মেট্রো রেলপথ। এতে লখনউয়ের চারবাগ রেল স্টেশন থেকে বসন্ত কুঞ্জ পর্যন্ত ১২ টি মেট্রো স্টেশন রয়েছে, যা মোট ১১.০৯৮ কিলোমিটার (৬.৮৯৬ মাইল) দীর্ঘ।

অর্থায়ন[সম্পাদনা]

লখনউ মেট্রো রেল প্রকল্পের ৫০% -এর বেশি অর্থ ইউরোপীয় ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংক থেকে বৈদেশিক ঋণ মাধ্যমে মাধ্যমে অর্থায়ন করা হয়।[১৪][১৫] লখনউ মেট্রোর নিজস্ব পরিচালনা সংস্থা লখনউ মেট্রো রেল কর্পোরেশন হল একটি বিশেষ উদ্দেশ্যমূলক যানবাহন (এসপিভি) এবং ভারত সরকারউত্তর প্রদেশ সরকার দ্বারা ৫০:৫০ যৌথ উদ্যোগ লখনউ মেট্রো নির্মিত।[১১][১৪] এলএমআরসি সদর দপ্তর লখনউ শহরের গোমতি নগরের ভিপিন খন্ডে অবস্থিত।[১৬]

অবকাঠামো[সম্পাদনা]

রোলিং স্টকে[সম্পাদনা]

৫ অক্টোবর ২০১৫ সালে, অ্যালস্টমকে তাদের মেট্রোপলিট ডিজাইনের ভিত্তিতে প্রথম পর্যায়ের জন্য ২০ টি চারটি কোচ বিশিষ্ট ইএমইউ রেল গাড়ি নির্মাণের জন্য ১,১০২ কোটি টাকার (২০১৮ সালের হিসাবে ₹১২ বিলিয়ন, মার্কিন $১৭০ মিলিয়ন বা €১৫০ মিলিয়ন) চুক্তি প্রদান করা হয়েছিল। এই গাড়িগুলি অন্ধ্রপ্রদেশের শ্রীসিস্তার অ্যালস্টমের কারখানাতে নির্মিত হয়েছে।[১৭][১৮]

রেলগারিগুলিতে ১,৩১০ জন যাত্রী ধারণের ক্ষমতা থাকবে এবং অনুদৈর্ঘ্য আসন, সিসিটিভি নিরাপত্তা এবং অ্যানবোর্ড বিনোদন জন্য একটি ডেডিকেটেড এফ এম রেডিও স্টেশন দিয়ে সজ্জিত করা হবে। বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হবে ২৫ কেভি এসি ওভারহেড দ্বারা। ট্রেনগুলি দুটি ট্রেন যাত্রার মাঝে ১০০-সেকেন্ডের অন্তঃর বজায় রাখার জন্য সিবিটিসি এর অ্যালস্টম-এর ইউরবালিস সংকেত ব্যবস্থা ব্যবহার করবে। ট্রেনগুলি সোনার রঙে রঙ্গিন থাকবে এবং লখনউ শহরের উল্লেখযোগ্য কীর্তিস্তম্ভের ছবিগুলি দিয়ে সজ্জিত করা হবে, যার মধ্যে রয়েছে বড় ইমামবারা, আসিফি মসজিদ এবং রুমী গেট।

স্টেশনে সুযোগ-সুবিধা[সম্পাদনা]

স্মার্ট কার্ড ধারকদের জন্য বিনামূল্যে প্রবেশসহ প্রতিটি স্টেশনে ওয়াইফাই পাওয়া যায়। অন্যান্য পরিষেবাদি বিনামূল্যে পরিশোধিত পানীয় জল এবং বিনামূল্যে টয়লেটের ব্যবহার অন্তর্ভুক্ত।[১৯][২০]

লখনউ মেট্রোর নর্থ-সাউথ করিডোর ডেটম্যাটিক্স দ্বারা সরবরাহিত একটি স্বয়ংক্রিয় ভাড়া সংগ্রহ (এএফসি) ব্যবস্থা ব্যবহার করে।[২১]

নিরাপত্তা[সম্পাদনা]

টিকিট এবং রিচার্জ[সম্পাদনা]

যাত্রী সংখ্যা[সম্পাদনা]

লখনউতে মেট্রো রেলের ক্রমবর্ধমান যাত্রী সংখ্যা বাণিজ্যিক পরিষেবা শুরুর প্রথম ৭০ দিনের মধ্যে ১ মিলিয়ন অতিক্রম করে;[২২] দ্রুত গণপরিবহনটি ব্যবস্থাটি ৩১,৬৮৮ জন যাত্রী উদ্বোধনী দিনে পেয়েছিল এবং ৪১,০৭৫ জন যাত্রীর ১০ সেপ্টেম্বর লখনউতে মেট্রো ব্যবহার করেছে।

২০১৮ সালের জুন পর্যন্ত, লখনউ মেট্রোর দৈনিক যাত্রী সংখ্যা ১০,০০০ এবং ১১,০০০ জনের মধ্যে রয়েছে;[১][২] ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বর মাসে মাসিক যাত্রী সংখ্যা ৪,৮০,০০০, [64] ২০১৭ সালের অক্টোবর মাসে ৪,০০,০০০ জন,[২৩] ২০১৭ সালের নভেম্বর এবং ডিসেম্বর মাসে ৩,০০,০০০০ জন[২৩] এবং ২০১৮ সালের জানুয়ারী, ফেব্রুয়ারি, মার্চ এবং এপ্রিল মাসের যাত্রী সংখ্যা ৩,০০,০০০০ জন।[২৩]

জনপ্রিয় সংস্কৃতিতে[সম্পাদনা]

২০১৭ সালের জানুয়ারিতে, বেহেন হগি তেরি নামের হিন্দি চলচ্চিত্রে মেট্রো প্রাঙ্গনের দৃশ্যগুলি ধারণ করা হয়েছিল। এটি ছিল লখনউ মেট্রোতে প্রথম চলচ্চিত্র দৃশ্য ধারণ। [65]

পুরস্কার[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Srivastava, Anupam (২৫ মে ২০১৮)। "Ridership to touch 3Lakh per day in 2019: LMRC MD"Hindustan TimesLucknowওসিএলসি 231696742। সংগ্রহের তারিখ ১১ আগস্ট ২০১৮ 
  2. Singh, Priyanka (২ জুন ২০১৮)। "Metro footfall surges with e-rickshaw feeder service - Times of India"The Times of IndiaLucknow: Bennett, Coleman & Co. Ltd.ওসিএলসি 23379369। সংগ্রহের তারিখ ১১ আগস্ট ২০১৮ 
  3. http://timesofindia.indiatimes.com/city/lucknow/free-water-toilets-first-at-lucknow-metro-stations/articleshow/59690778.cms
  4. https://www.nyoooz.com/news/lucknow/861616/metro-stns-to-have-free-wifi-for-those-with-gosmart-card/
  5. "Technical features of the Project"Lucknow Metro Rail Corporation। সংগ্রহের তারিখ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  6. "Lucknow Metro achieves maximum speed certificate of 90 kmph - Times of India"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ 
  7. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ৩ জুলাই ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০১৭ 
  8. "Lucknow Metro Rail fastest and most economical project in India"। সংগ্রহের তারিখ ২৮ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  9. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; construct-Sept নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  10. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; :18 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  11. "Lucknow Metro a joint venture now, clearances to be faster"Hindustan Times। ৩০ মার্চ ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  12. "UP in search of financial model to make metro cost-effective"The Indian Express। ৮ জুন ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  13. Verma, Lalmani (৭ ফেব্রুয়ারি ২০১০)। "DMRC proposes new changes in Lucknow Metro corridors"The Indian Express। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  14. "About Us"Lucknow Metro Rail Corporation। সংগ্রহের তারিখ ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  15. Rawat, Virendra Singh (২ এপ্রিল ২০১৭)। "European bank to advance Rs 1,752 cr to Lucknow Metro"Business Standard। সংগ্রহের তারিখ ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  16. "Contact Us"Lucknow Metro Rail Corporation। সংগ্রহের তারিখ ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  17. "Alstom bags 150 million euro contract from Lucknow Metro"The Economic Times। ৫ অক্টোবর ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  18. "Alstom bags Lucknow Metro contract worth Rs 1,100 crore"Live MintHT Media Ltd। ৫ অক্টোবর ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  19. Singh, Priyanka (২১ জুলাই ২০১৭)। "In a first, free water, toilets at Lucknow Metro stations"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  20. Plummer, Lucy। "Lucknow Metro Station Is Set to Become India's First to Provide Free Water & Toilet Facilities"The Better India। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  21. "Consortium of Datamatics & Mikroelektronika wins Automatic Fare Collection (AFC) contract for Lucknow Metro Phase 1A Project"Datamatics। ৬ মে ২০১৬। ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  22. "Lucknow Metro ridership crosses 10 lakh in just 70 days"The Indian ExpressLucknow: Indian Express GroupPress Trust of India। ১৬ নভেম্বর ২০১৭। ওসিএলসি 70274541। সংগ্রহের তারিখ ১১ আগস্ট ২০১৮ 
  23. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; :19 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  24. Singh, Priyanka (১৯ মার্চ ২০১৬)। "Lucknow Metro adjudged as best metro for 'excellence in innovative designs'"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]