ইন্ডিকা ডি সরম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ইন্ডিকা ডি সরম
ඉන්දික ද සේරම්
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামসামান্থা ইন্ডিকা ডি সরম
জন্ম (1973-09-02) ২ সেপ্টেম্বর ১৯৭৩ (বয়স ৪৭)
মাতারা, শ্রীলঙ্কা
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি অফ ব্রেক
ভূমিকাউইকেট-রক্ষক, কোচ
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৮০)
১৮ নভেম্বর ১৯৯৯ বনাম জিম্বাবুয়ে
শেষ টেস্ট১২ মার্চ ২০০০ বনাম পাকিস্তান
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ১০০)
২২ আগস্ট ১৯৯৯ বনাম অস্ট্রেলিয়া
শেষ ওডিআই২০ এপ্রিল ২০০১ বনাম পাকিস্তান
একমাত্র টি২০আই
(ক্যাপ ২৭)
১০ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ বনাম ভারত
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই টি২০আই এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ১৫ ১৮৩
রানের সংখ্যা ১১৭ ১৮৩ ৪,৫৫৩
ব্যাটিং গড় ২৩.৪০ ১৬.৬৩ ২৮.৬৩
১০০/৫০ ০/০ ০/০ ০/০ ৪/৩০
সর্বোচ্চ রান ৩৯ ৩৮ ১৩৮
বল করেছে ৬৫২
উইকেট ১১
বোলিং গড় ৪৩.৯০
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ২/৫
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১/– ৯/– ১/০ ৭১/২
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ১ জুলাই ২০২০

সামান্থা ইন্ডিকা ডি সরম (সিংহলি: ඉන්දික ද සේරම්; জন্ম: ২ সেপ্টেম্বর, ১৯৭৩) মাতারা এলাকায় জন্মগ্রহণকারী কোচ ও সাবেক শ্রীলঙ্কান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার। শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৯০-এর দশকের শেষদিক থেকে শুরু করে ২০১০-এর দশকের শেষার্ধ্ব পর্যন্ত শ্রীলঙ্কার পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটে ব্লুমফিল্ড ক্রিকেট ও অ্যাথলেটিক ক্লাব, কোল্টস ক্রিকেট ক্লাব, মুরস স্পোর্টস ক্লাব, রাগামা ক্রিকেট ক্লাব, রুহুনা, তামিল ইউনিয়ন ক্রিকেট ও অ্যাথলেটিক ক্লাব এবং বাংলাদেশী ক্রিকেটে আবাহনী ও সিলেট বিভাগ দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ উইকেট-রক্ষক হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, ডানহাতে ব্যাটিংসহ ডানহাতে অফ ব্রেক বোলিংয়ে পারদর্শী ছিলেন ইন্ডিকা ডি সরম

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

মাতারার সেন্ট টমাস কলেজে পড়াশুনো করেছেন। সেখানে অবস্থানকালে উইকেট-রক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করতেন ও দেশের অন্যতম সেরা ধারাবাহিকভাবে রান সংগ্রাহকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছিলেন।

বেশ মারকুটে ব্যাটসম্যান ইন্ডিকা ডি সরম বিদ্যালয় দলের পক্ষে উইকেট-রক্ষণের দায়িত্বে ছিলেন ও বেশ রান তুলতে সমর্থ হন। ফলশ্রুতিতে, দেশের অন্যতম সেরা বিশ্বস্ত ব্যাটসম্যান হিসেবে নিজেকে পরিচিতি করে তুলেন। তন্মধ্যে, মাত্র ১৪৯ বলে একাই তুলেন ৩০৪ রান। ২৫টি ছক্কা ও ১৯টি চারের মারে এ ইনিংসটি সাজিয়েছিলেন। আম্বালাঙ্গোদায় শ্রী দেবানন্দ কলেজের বিপক্ষে ওয়ানাত্তে স্টেডিয়ামে এ সংগ্রহটি করেছিলেন। জাতীয় দলে অংশগ্রহণের পূর্বে এ-দলের নিয়মিত খেলোয়াড়ের মর্যাদা লাভ করেন।

১৯৯০-৯১ মৌসুম থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত ইন্ডিকা ডি সরমের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। ক্ষীণকায় হলেও বেশ মারকুটে ব্যাটসম্যান ছিলেন ইন্ডিকা ডি সরম। ব্যাটিংয়ে সবিশেষ দক্ষতা রয়েছে তার। ১৯৯৯-২০০০ মৌসুমে জিম্বাবুয়ে সফরে তাকে জাতীয় দলে খেলার জন্যে আমন্ত্রণ জানানো হয়। সচরাচর ছয় কিংবা সাত নম্বরে ব্যাটিংয়ে নামতেন ও কখনো নিজেকে পূর্ণাঙ্গভাবে তার সম্ভাব্যতা তুলে ধরতে পারেননি।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে চারটিমাত্র টেস্ট, পনেরোটিমাত্র একদিনের আন্তর্জাতিক ও একটিমাত্র টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিকে অংশগ্রহণ করেছেন ইন্ডিকা ডি সরম। ১৮ নভেম্বর, ১৯৯৯ তারিখে বুলাওয়েতে স্বাগতিক জিম্বাবুয়ে দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। ১২ মার্চ, ২০০০ তারিখে করাচীতে স্বাগতিক পাকিস্তান দলের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্টে অংশ নেন তিনি। এছাড়াও, ১০ ফেব্রুয়ারি, ২০০৯ তারিখে কলম্বোয় সফরকারী ভারত দলের বিপক্ষে ব্যক্তিগত একমাত্র টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিকে অভিষেক ঘটে তার।

দলে অনেক স্থায়ী সদস্যের পদচারণায় শ্রীলঙ্কা দলে আসা-যাওয়ার পালায় অবস্থান করতেন তিনি। শ্রীলঙ্কার শততম ওডিআই ক্যাপধারী তিনি।

২০০১ সালে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে দল থেকে প্রত্যাখ্যাত হবার আট বছর পর ২০০৯ সালে পুণরায় খেলার সুযোগ পান। ২০০৯ সালের আইসিসি টুয়েন্টি২০ বিশ্বকাপে ভারতের বিপক্ষে অভিষেক ঘটে তার। এরপর, খেলা থেকে অবসর গ্রহণের পূর্বে এটিই তার একমাত্র খেলায় অংশগ্রহণ ছিল।[১][২] এরপর, ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত ২০০৯ সালের আইসিসি বিশ্ব টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিকে অংশ নেন। ঐ প্রতিযোগিতায় তার দল রানার্স-আপ হয়।

টেস্ট দলে থাকা অবস্থায় নিজেকে কখনো মেলে ধরতে পারেননি তিনি। প্রায় ছয় বছর টেস্ট খেলা থেকে দূরে থাকার পর টুয়েন্টি২০ ক্রিকেটের দিকে ধাবিত হন তিনি। এছাড়াও, এনসিএল টি২০ বাংলাদেশ প্রতিযোগিতায় সুলতান্স অব সিলেটের পক্ষে খেলেছেন তিনি।

হংকং সিক্সেস প্রতিযোগিতায় শ্রীলঙ্কা দলের চলমান সদস্য ছিলেন। তার অধিনায়কত্বে শ্রীলঙ্কা দল ২০০৭ সালের প্রতিযোগিতায় শিরোপাধারী হয়।[৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "de Saram ready to hold his own"। ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১১ মার্চ ২০১৭ 
  2. "de Saram added to World Twenty20 squad"। ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১১ মার্চ ২০১৭ 
  3. "All Stars fumble against champions Sri Lanka"। ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১১ মার্চ ২০১৭ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]