ইটাকুমারী জমিদার বাড়ি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ইটাকুমারী জমিদার বাড়ি
বিকল্প নামইটাকুমারী রাজবাড়ি
সাধারণ তথ্য
ধরনবাসস্থান
অবস্থানপীরগাছা উপজেলা
শহরপীরগাছা উপজেলা, রংপুর জেলা
দেশবাংলাদেশ
খোলা হয়েছেঅজানা
স্বত্বাধিকারীরাজা শিব চন্দ্র
কারিগরী বিবরণ
পদার্থইট, সুরকি ও রড

ইটাকুমারী জমিদার বাড়ি বাংলাদেশ এর রংপুর জেলার পীরগাছা উপজেলায় অবস্থিত এক ঐতিহাসিক জমিদার বাড়ি[১][২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

পুরো ভারতবর্ষের মধ্যে এই ইটাকুমারী এলাকাটি উন্নত শিক্ষা ও সংস্কৃতিময় এলাকা ছিল। তাই এটিকে অবিভক্ত বাংলার দ্বিতীয় নবদ্বীপ হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। ইটাকুমারীর জমিদার ছিলেন রাজা শিব চন্দ্র। তিনি এই জমিদার বাড়ি প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি এই জমিদার বাড়ি থেকেই রংপুরের কৃষক প্রজা বিদ্রোহ পরিচালনা করেন। তার সাথে একই উপজেলার মন্থনা জমিদার বাড়ির জমিদার দেবী চৌধুরানীও উক্ত কৃষক প্রজা আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। পরবর্তীতে তারা উভয়ই ব্রিটিশ সরকারের গুলিতে মৃত্যুবরণ করেন।[১][২]

১৭৮৩ সালে রংপুরের  ঐতিহাসিক প্রজা বিদ্রোহ ইটাকুমারী রাজা শিব চন্দ্রের বাড়ী থেকে সংঘটিত হয়েছিল। ১৭৮৩ সালে বৃটিশ বিরোধী শীব চন্দ্র ও দেবী চৌধুরানী প্রজা বিদ্রোহের নেতৃত্ব দিয়ে  দেবী সিংহের অত্যাচার থেকে রংপুরের কৃষক প্রজাদের রক্ষা করেছিলেন। ইটাকুমারী জমিদারবাড়ী ছিলো তৎকালীন অবিভক্ত বাংলার দ্বিতীয় নবদ্বীপ। শিক্ষা, সাংস্কৃতিক বাতিঘর হিসেবে ইটাকুমারীর খ্যাতি গোটা ভারতবর্ষে  ছড়িয়ে পড়েছিল। এখানে রাজ শীব চন্দ্রের নামে স্বনামধন্য একটি কলেজ রয়েছে। এছাড়াও জমিদার বাড়ি, মন্দির, বিশালাকার পুকুর ও অন্যান্য প্রত্নতাত্বিক নিদর্শন রয়েছে।

অবকাঠামো[সম্পাদনা]

বর্তমান অবস্থা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "ইটাকুমারী জমিদার বাড়ী"বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন। ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯। ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 
  2. "রক্ষণারেক্ষণের অভাবে হারিয়ে যাচ্ছে মোগল স্থাপত্য শিল্পের অসংখ্য নিদর্শন"The Daily Sangram। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৯-২০