সেস্‌ ফাব্রিগাস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সেস্‌ ফাব্রিগাস
Cesc Fàbregas Euro 2012 vs France 02.jpg
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নাম ফ্রান্সেস ফাব্রিগাস সোলের
জন্ম (১৯৮৭-০৫-০৪) ৪ মে ১৯৮৭ (বয়স ৩১)
জন্ম স্থান আরেনিস দি মার, কাতালুনিয়া, স্পেন
উচ্চতা ১.৭৫ মিটার (৫ ফুট ৯ ইঞ্চি)
মাঠে অবস্থান মধ্যমাঠের খেলোয়াড়
ক্লাবের তথ্য
বর্তমান ক্লাব চেলসি
জার্সি নম্বর
যুব পর্যায়ের খেলোয়াড়ী জীবন
১৯৯৫–১৯৯৭ মাতারো
১৯৯৭–২০০৩ বার্সেলোনা
২০০৩ আর্সেনাল
জ্যেষ্ঠ পর্যায়ের খেলোয়াড়ী জীবন*
বছর দল উপস্থিতি (গোল)
২০০৩–২০১১ আর্সেনাল ২১২ (৩৫)
২০১৪– চেলসি ১৩২ (১৫)
জাতীয় দল
২০০২–২০০৩ স্পেন অনূর্ধ্ব ১৬ (০)
২০০৩–২০০৪ স্পেন অনূর্ধ্ব ১৭ ১৪ (৭)
২০০৫ স্পেন অনূর্ধ্ব ২০ (০)
২০০৪–২০০৫ স্পেন অনূর্ধ্ব ২১ ১২ (৮)
২০০৬– স্পেন ১১০ (১৫)
২০০৪– কাতালোনিয়া (০)
  • পেশাদারী ক্লাবের উপস্থিতি ও গোলসংখ্যা শুধুমাত্র ঘরোয়া লিগের জন্য গণনা করা হয়েছে এবং ১০ মে ২০১৮ তারিখ অনুযায়ী সঠিক।

† উপস্থিতি(গোল সংখ্যা)।

‡ জাতীয় দলের হয়ে খেলার সংখ্যা এবং গোল ২৭ অগাস্ট ২০১৭ তারিখ অনুযায়ী সঠিক।

ফ্রান্সেস ‘‘সেস’’ ফাব্রিগাস সোলের (জন্ম মে ৪, ১৯৮৭) একজন পেশাদার স্পেনীয় ফুটবলার, যিনি বর্তমানে স্পেন জাতীয় ফুটবল দল এবং চেলসি ফুটবল ক্লাব এ একজন সেন্ট্রাল মিডফিল্ডার হিসেবে খেলছেন।

ফাব্রিগাস বার্সেলোনায় একজন শিক্ষানবিস হিসেবে ক্যারিয়ার শুরু করলেও, ২০০৩ সালের সেপ্টেম্বরে প্রিমিয়ার লীগের দল আর্সেনালে যোগ দেন। সেখানে তিনি নিজেকে দলের একজন নিয়মিত খেলোয়াড়ে পরিণত করেন এবং মাত্র ২১ বছর বয়সেই দলের অধিনায়কের দায়িত্ব নেন। ২০১১ সালে ব্যাপক দর কষাকষি শেষে প্রাথমিক ২৯ মিলিয়ন ইউরো এবং পরবর্তীতে আরও ৫ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে তিনি পুনরায় বার্সেলোনায় ফিরে আসেন। ২০১৪ সালে তিনি তিন কোটি পাউন্ডের বিনিময়ে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ এর দল চেলসিতে যোগ দেন।

প্রারম্ভিক সময়[সম্পাদনা]

ফাব্রিগাস বার্সেলোনার অ্যারিনেস দি মার শহরে জন্মগ্রহন করেন।[১] তার বাবা ফ্রান্সেস ফাব্রিগাস সিনিয়র একজন আবাসন ব্যবসায়ী এবং মা নুরিয়া সলের পেস্ট্রি কোম্পানির মালিক। কাতালান ক্লাব সিই মাতারো’র হয়ে ফুটবল ক্যারিয়ার শুরু করেন ফাব্রিগাস। অবশ্য ছোটবেলা থেকেই তিনি ছিলেন বার্সেলোনার সমর্থক। ১৯৯৭ সালে ১০ বছর বয়সে তিনি বার্সেলোনার যুব একাডেমী লা মাসিয়ায় যোগ দেন।[২]

লোক মুখে শোনা যায় যে তার প্রথম কোচ, সেনিয়র ব্লাই বার্সেলোনার বিপক্ষে খেলায় তাকে মাঠে নামাতেন না। বার্সেলোনার স্কাউটদের নজর থেকে ফাব্রিগাসকে লুকিয়ে রাখার জন্য তিনি এই কাজ করতেন।[৩] তবে, বার্সেলোনার কাছে তাদের এই কৌশল বেশি দিন টেকেনি, তারা ফাব্রিগাসকে সপ্তাহে একদিন করে বার্সেলোনার সাথে প্রশিক্ষনের অনুমতি দেন। অবশেষে তিনি পুরোপুরিভাবে বার্সার যুব একাডেমীতে যোগ দেন।

প্রাথমিকভাবে, তাকে একজন ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার হিসেবে প্রশিক্ষন দেওয়া হত। যদিও তিনি একজন দূর্দান্ত গোল স্কোরার ছিলেন, এমনকি যুব দলের হয়ে এক মৌসুমে ৩০ এরও অধিক গোল করতেন, তিনি বার্সেলোনার প্রথম একাদশে নিজের নাম লেখাতে পারেননি।[৪]

বার্সেলোনার যুব একাডেমীতে থাকার সময়, বার্সেলোনার তত্‍কালীন অধিনায়ক এবং নম্বর ৪ পেপ গার্দিওলাকে নিজের আদর্শ হিসেবে মানতে শুরু করেন ফাব্রিগাস। পরবর্তীতে তার বাবা-মা’র বিচ্ছেদ ঘটলে গার্দিওলা তাকে সেই চার নম্বর জার্সি সান্ত্বনা হিসেবে দেন।[৫]

ক্লাব ক্যারিয়ার[সম্পাদনা]

আর্সেনাল[সম্পাদনা]

বার্সেলোনা[সম্পাদনা]

আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার[সম্পাদনা]

খেলার ধরণ[সম্পাদনা]

ক্যারিয়ার পরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

ক্লাব পরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ অনুসারে।[৬]

ক্লাব মৌসুম লীগ কাপ[৭] ইউরোপ মোট
বিভাগ উপস্থিতি গোল সহায়তা উপস্থিতি গোল সহায়তা উপস্থিতি গোল সহায়তা উপস্থিতি গোল সহায়তা
আর্সেনাল ২০০৩–০৪ প্রিমিয়ার লীগ
২০০৪–০৫ ৩৩ ৪৬
২০০৫–০৬ ৩৫ ১৩ ৫০
২০০৬–০৭ ৩৮ ১৩ ১০ ৫৪ ১৬
২০০৭–০৮ ৩২ ২০ ১০ ৪৫ ১৩ ২৩
২০০৮–০৯ ২২ ১১ ১০ ৩৩ ১৬
২০০৯–১০ ২৭ ১৫ ১৩ ৩৬ ১৯ ১৭
২০১০–১১ ২৫ ১১ ৩৬ ১৪
মোট ২১২ ৩৫ ৭৭ ৩০ ৬১ ১৭ ১৫ ৩০৩ ৫৭ ৯৮
বার্সেলোনা ২০১১–১২ লা লিগা ২৮ ১০ ১১ ৪৮ ১৫ ২০
২০১২–১৩ ৩২ ১১ ১১ ৪৮ ১৪ ১২
২০১৩–১৪ ২১ ১০ ৩৪ ১২ ১২
মোট ৮১ ২৭ ৩০ ২৫ ২৪ ১৩০ ৪১ ৪৪
ক্যারিয়ারে সর্বমোট ২৯৩ ৬২ ১০৭ ৫৫ ১৪ ১৪ ৮৫ ২২ ২০ ৪৩৩ ৯৮ ১৪২
২০০৮ সালের জানুয়ারিতে নিউকাসল ইউনাইটেডের বিপক্ষে একটি খেলার পূর্বে ফাব্রিগাস।

আন্তর্জাতিক[সম্পাদনা]

১ সেপ্টেম্বর ২০১৩ অনুসারে।[৮]

স্পেন জাতীয় ফুটবল দল
সাল উপস্থিতি গোল
২০০৬ ১৪
২০০৭
২০০৮ ১৫
২০০৯ ১০
২০১০ ১১
২০১১
২০১২ ১৩
২০১৩ ১০
মোট ৮৫ ১৩

সম্মাননা[সম্পাদনা]

স্পেনের প্রধানমন্ত্রী রোদ্রিগেজ জাপাতেরো (বামে) এবং যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের (ডানে) সাথে ফাব্রিগাস।

আর্সেনাল[সম্পাদনা]

বার্সেলোনা[সম্পাদনা]

জাতীয় দল[সম্পাদনা]

ব্যক্তিগত অর্জন[সম্পাদনা]

সম্মানসূচক পদক[সম্পাদনা]

  • প্রিন্স অফ আস্তুরিয়াস পুরস্কার: ২০১০
  • রয়্যাল অর্ডার অফ স্পোর্টিং মেরিট স্বর্ণপদক: ২০১১[৯]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Francesc Fabregas"। ইএসপিএনসকারনেট। সংগ্রহের তারিখ ৪ মে ২০১৩ 
  2. "Cuando todo era un sueño"। EL PAÍS। ১৬ মে ২০০৬। সংগ্রহের তারিখ ৪ মে ২০১৩ 
  3. Lowe, Sid (৩১ মার্চ ২০১০)। "Cesc Fàbregas faces the Barcelona Dream Team he left behind"দ্য গার্ডিয়ান। সংগ্রহের তারিখ ৪ মে ২০১৩ 
  4. "Cesc Fabregas"উয়েফা। সংগ্রহের তারিখ ৪ মে ২০১৩ 
  5. Sheringham, Sam (২ জুন ২০১০)। "The one that got away"বিবিসি স্পোর্ট। সংগ্রহের তারিখ ৪ মে ২০১৩ 
  6. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; stats নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  7. কাপের মধ্যে রয়েছে এফএ কাপ, লীগ কাপ এবং এফএ কমিউনিটি শিল্ড
  8. National-Football-Teams.com-এ সেস্‌ ফাব্রিগাস (ইংরেজি)
  9. "Royal Order of Sporting Merit 2011"মুন্দো দেপোর্তিভো। সংগ্রহের তারিখ ১১ নভেম্বর ২০১৩ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]