লাল তরকারী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
লাল তরকারী
Kaeng phet mu.jpg
শূকরের মাংসের সাথে লাল তরকারী
ধরনতরকারী
উৎপত্তিস্থলথাইল্যান্ড
প্রধান উপকরণতরকারীর কাই (রসুন, গন্ধপিঁয়াজ, (শুষ্ক) লাল মরিচ, গালানগল, চিংড়ি বাঁটা, লবণ, কাফির লেবুর খোসা, ধনের মূল, ধনে বীজ, জিরা বীজ, গোল মরিচ, লেবু ঘাস), নারকেল দুধ
রন্ধনপ্রণালী: লাল তরকারী  মিডিয়া: লাল তরকারী
কাই তৈরির কিছু উপকরণ

লাল তরকারী (থাই: แกงเผ็ด; আরটিজিএস: kaeng phet, আইপিএ: [kɛːŋ pʰèt], আক্ষরিকঅর্থে: মসলাদার স্যুপ) হচ্ছে এক প্রকার জনপ্রিয় থাই রন্ধনশৈলীর খাবার যা নারকেল দুধে লাল তরকারী কাই করে রান্না করা হয় এবং এতে মাংস মিশানো হয়; যেমন মুরগীর মাংস, গরুর মাংস, শূকরের মাংস, হাসের মাংস বা চিংড়ি, অথবা নিরামিষ আমিষ উৎস যেমন টফু ব্যবহার করা হয়।

লাল তরকারীর কাই[সম্পাদনা]

মূল থাই লাল তরকারীর কাই (থাই: พริกแกงเผ็ด আরটিজিএস: phrik kaeng phet) ঐতিহ্যগতভাবে পেষণী এবং পাত্রে তৈরি করা হয়, এবং প্রস্তুতকালে সারাক্ষণ আদ্র রাখা হয়। লাল বর্ণটি শুকনো লাল মরিচ (থাই: พริกแห้งเม็ดใหญ่ আরটিজিএস: prik haeng met yai) থেকে আসে – যেটা প্রিক ছী ফা লাল মরিচ হিসেবে শুকানো হয়। প্রধান উপকরণের মধ্যে রয়েছে (শুকনো) লাল মরিচ, রসুন, গন্ধপিঁয়াজ, গালানগল, চিংড়ি বাঁটা, লবণ, কাফির লেবুর খোসা, ধনের মূল, ধনে বীজ, জিরা বীজ, গোল মরিচ এবং লেবু ঘাস[১] আজকাল, থাই লাল তরকারীর কাই বাজারে একদম সহজপ্রাপ্য হয়ে গেছে যা বিপুল পরিমাণে বানানো হয়, এবং বিভিন্ন ব্র্যান্ডের বয়ামও পাওয়া যায়।

উপকরণ এবং প্রস্তুতকরণ[সম্পাদনা]

প্রস্তুতকৃত লাল তরকারীর কাইকে কড়াইয়ে করে রান্নার তেল দিয়ে রান্না করা হয়, যেটাতে নারকেল দুধ যোগ করা হয়।[১] তারপর আমিষের উৎস হিসেবে এই তরকারী-ভিত্তিক স্যুপে মাংস মিশানো হয়। লাল তরকারী হিসেবে বিভিন্ন প্রকারের মাংস তৈরি করা হতে পারে, এগুলো হল- মুরগীর মাংস, গরুর মাংস, শূকরের মাংস, চিংড়ি, হাসের মাংস, বা বহিরাগত নানা জাতের মাংসও হতে পারে যেমন- ব্যাঙ এবং সাপের মাংস। যদিও সবথেকে প্রচলিত হচ্ছে মুরগী, শূকর এবং গরুর মাংস। মাংসগুলোকে কামড়যোগ্য করে টুকরা টুকরা করা হয়। সাধারণ সংযোজিত খাদ্য তালিকায় আছে- মাছের ভর্তা, চিনি, কাটা কাফির লেবুর পাতা, থাই বেগুন, বাঁশের কুঁড়ি, থাই বাসিল (বাই হরাফা)।[২]

টফু, মাংস সদৃশ কিছু বা শাকসবজি যেমন মিষ্টিকুমড়া, একটি ছদ্ম-নিরামিষাশী উপায় হিসেবে পরিবর্তিত হতে পারে, তবে তরকারীর কাইয়ে চিংড়ীর কাইয়ের উপস্থিতির কারণে, আমিষ প্রতিস্থাপন এই খাবারের পদকে নিরামিষাশী করে না। যাইহোক না কেন, উদ্ভিদভোজী লাল তরকারীর কাই এখন পাওয়া যায়।

এই খাবার সাধারণত স্যুপের মতো ঘন প্রকৃতির হয় এবং একটি বাটিতে পরিবেশন করা হয় ও ভাপে সিদ্ধ ভাতের সাথে খাওয়া হয়।

লাল তরকারীর কাই নিজেই আবার এই জাতের নয় এমন অন্যান্য অনেক খাদ্যের মূল স্বাদ সৃষ্টি করে থাকে যেমন থট ম্যান প্লা (মাছের কেক) এবং সাই য়ুয়া (গ্রীল করা চিয়াং মাই মাংসের বড়া)।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Mark Wiens (জুন ২০, ২০১৪)। "Authentic Thai Red Curry Paste Recipe (พริกแกงเผ็ด)"। Eating Thaifood। মে ২৪, ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ মে ২০১৫ 
  2. surfin' chef। "Scrumptious Thai Coconut Red Curry"। Food.com। সংগ্রহের তারিখ ২০ মে ২০১৫ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]