রেজি সোয়ার্জ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
রেজি সোয়ার্জ
1193420 Reggie Schwarz.jpg
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামরেজিনাল্ড অস্কার সোয়ার্জ
জন্ম(১৮৭৫-০৫-০৪)৪ মে ১৮৭৫
লি, লন্ডন, ইংল্যান্ড
মৃত্যু১৮ নভেম্বর ১৯১৮(1918-11-18) (বয়স ৪৩)
ইতাপলস, ফ্রান্স
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনলেগ ব্রেক
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ২০ ১২৫
রানের সংখ্যা ৩৭৪ ৩৭৯৮
ব্যাটিং গড় ১৩.৮৫ ২২.৬০
১০০/৫০ ০/১ ১/২০
সর্বোচ্চ রান ৬১ ১০২
বল করেছে ২৬৩৯ ১৩৫৫৩
উইকেট ৫৫ ৩৯৮
বোলিং গড় ২৫.৭৬ ১৭.৫৮
ইনিংসে ৫ উইকেট ২৫
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ৬/৪৭ ৮/৫৫
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১৮/- ১০৮/-
উৎস: ক্রিকেটআর্কাইভ, ২১ জুলাই ২০১৭

মেজর রেজিনাল্ড অস্কার সোয়ার্জ, এমসি (ইংরেজি: Reggie Schwarz; জন্ম: ৪ মে, ১৮৭৫ - মৃত্যু: ১৮ নভেম্বর, ১৯১৮) লন্ডনের লি এলাকায় জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা দক্ষিণ আফ্রিকান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন। দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। দলে তিনি মূলতঃ লেগ ব্রেক বোলিং করতেন। পাশাপাশি ডানহাতে নিচেরসারিতে ব্যাটিংয়ে নামতেন। এছাড়াও, আন্তর্জাতিক পর্যায়ে রাগবি ইউনিয়ন ফুটবলার ছিলেন রেজি সোয়ার্জ

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

সারের বাগশট এলাকার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী রবার্ট জর্জ সোয়ার্জের সন্তান তিনি। লন্ডনের সেন্ট পলস স্কুলে অধ্যয়ন শেষে ১৮৯৩ সালে কেমব্রিজের ক্রাইস্টস কলেজ থেকে ম্যাট্রিকুলেশন ডিগ্রী লাভ করেন।[১] কেমব্রিজে থাকাকালে কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় রাগবি দলে যোগ দেন। ১৮৯৩ সালে বিশ্ববিদ্যালয় খেলায় অংশগ্রহণের মাধ্যমে তিনি তার একমাত্র ব্লু লাভ করেন। রাগবি খেলোয়াড়ের তুলনায় ক্রিকেটে সবিশেষ দক্ষতা থাকা স্বত্ত্বেও ক্রিকেটের জন্য ব্লু পাননি।[২]

১৮৯৯ সালে স্কটল্যান্ড এবং ১৯০১ সালে ওয়েলস ও আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে রাগবি খেলায় ইংল্যান্ডের পক্ষে তিনবার ক্যাপ পরিধান করেন। ক্লাব পর্যায়ে রিচমন্ডের পক্ষে খেলেন। এরপর ১৮৯৬-৯৭ মৌসুমে বার্বাডিয়ান্সের পক্ষে খেলার জন্য আমন্ত্রিত হন।

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

১৯০১ থেকে ১৯০২ সাল পর্যন্ত মিডলসেক্সের পক্ষে চমকপ্রদ খেলেন। এরপর দক্ষিণ আফ্রিকায় অভিবাসিত হন ও ট্রান্সভালে যোগ দেন। ১৯০৪ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা দলের সাথে ইংল্যান্ড সফরে যান ও নিজেকে তুলে ধরতে সচেষ্ট হন। বসানকোয়েতের কাছ থেকে কিভাবে গুগলি বল ছুঁড়তে হয়, তা শিখেন। অপ্রত্যাশিতভাবে গোপনে রাখা এ বল মেরে প্রভূতঃ সফলতাও লাভ করেন। ১৯০৪ ও ১৯০৭ সালে বোলিং গড়ে শীর্ষস্থানে ছিলেন। শেষ বছরটিতে মাত্র ১১.৭০ গড়ে ১৩৭ উইকেট নেন। ফলশ্রুতিতে ১৯০৮ সালে উইজডেন কর্তৃক বর্ষসেরা ক্রিকেটার হিসেবে মনোনীত হন।[৩] ১৯০৭ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা টেস্ট খেলার জন্য প্রথমবারের মতো ইংল্যান্ড সফরে যায়। দলে কমপক্ষে চারজন লেগ-ব্রেক ও গুগলি বোলার ছিলেন। অব্রে ফকনার, বার্ট ভগলারগর্ডন হোয়াইটের সাথে তার গোপন অস্ত্র গুগলি ছুঁড়ে সফলতার সাথে সফর শেষ করেন।

১৯১২ মৌসুমের পর অবসর নেন। তাস্বত্ত্বেও আরও তিনবার এল রবিনসন একাদশের পরবর্তী দুই মৌসুম খেলেন। ১৭.৫৮ গড়ে ৩৯৮ উইকেট নেন। টেস্টে ২২.৬০ গড়ে ৫৫ উইকেট পান। প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে একটি সেঞ্চুরিও করেন তিনি। টেস্টবিহীন অবস্থায় ১৯০৪ সালে লর্ডসে ইংল্যান্ড একাদশের বিপক্ষে মনোমুগ্ধকর ১০২ রান তুলেন।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

১৮৯৯ থেকে ১৯০২ সময়কালে লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জের সদস্য ছিলেন। এরপর ১৯০২ সালে দক্ষিণ আফ্রিকায় অভিবাসিত হবার পর দক্ষিণ আফ্রিকান রেলওয়েজে যোগ দেন। ১৯০৪ থেকে ১৯১১ সময়কালে দক্ষিণ আফ্রিকান স্টক এক্সচেঞ্জের সদ্য ছিলেন। পরবর্তীতে ব্রিটেনে ফিরে আসার পর পুণরায় লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জে যুক্ত হন।

ব্রিটিশ সেনাবাহিনীতে কিংস রয়্যাল রাইফেল কোর রেজিমেন্টে মেজর ছিলেন সোয়ার্জ। এ কোরটি প্রথম বিশ্বযুদ্ধে পশ্চিম রণাঙ্গনে মোতায়েন ছিল। যুদ্ধে অবদান রাখায় মিলিটারী ক্রস পান। যুদ্ধে তিনি অক্ষত থাকলেও ১৮ নভেম্বর, ১৯১৮ তারিখে ফ্রান্সের ইতাপলস এলাকায় স্পেনীয় ফ্লুয়ের কারণে মাত্র সাত দিন অবস্থানের পর ৪৩ বছর বয়সে তার দেহাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Schwarz, Reginald Oscar (SCWS893RO)"A Cambridge Alumni Databaseকেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় 
  2. Marshall, Howard; Jordon, J.P. (১৯৫১)। Oxford v Cambridge, The Story of the University Rugby Match। London: Clerke & Cockeran। পৃষ্ঠা 83। 
  3. "Wisden Cricketers of the Year"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০২-২১ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]