রূপহী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
রূপহী
রূপহী চলচ্চিত্রের একটি স্থিরচিত্র.jpeg
রূপহী চলচ্চিত্রের একটি স্থিরচিত্র
পরিচালকপার্বতী প্রসাদ বড়ুয়া
প্রযোজকপার্বতী প্রসাদ বড়ুয়ার তৈরি প্রযোজক সংস্থা 'বরুবা বোলছবি, রূপালী পাম'
কাহিনিকারকমলেশ্বর চলিহা
শ্রেষ্ঠাংশেকানন চক্ৰবৰ্তী
ডানকান আচাও
সুরকারপার্বতী প্রসাদ বড়ুয়া
চিত্রগ্রাহকবিভূতি দাস, ধীরেন দে
প্রযোজনা
কোম্পানি
শ্ৰী ভারত লক্ষ্মী ষ্টুডিও, কলকতা
মুক্তি১৯৪১
দেশভারত
ভাষাঅসমীয়া

রূপহী (অসমীয়া: ৰূপহী) হলো চতুর্থ অসমীয়া ছবি যা ১৯৯৮ সালে মুক্তি মুক্তি পেয়েছিল। পার্বতী প্রসাদ বড়ুয়া প্রযোজিত ও পরিচালিত এই ছবির একমাত্র প্রিন্টটি ১৯৭৮ সালে সোনারী সিনেমাহলে আগুন লেগে পুড়ে যায়। এমনকি কলকাতার ফিল্ম সার্ভিসের গুদামেও চলচ্চিত্রটির সমস্ত নেগেটিভগুলি ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল। [১] [২]

কাহিনি[সম্পাদনা]

ভূমি এবং চম্পা লুইতপারিয়ার একটি ছোট গ্রাম রূপিমুখের এক যুবক দম্পতি। তারা দুজনেই পুনর্মিলনের স্বপ্ন দেখতেন। কিন্তু চম্পা বড় হয়েছেন বারমেধির ঘরে। আপনি আপনার আত্মবিশ্বাসের উন্নতি করতে পারেন এমন অনেক উপায় আছে। অনেক উপায় আছে যেগুলোতে আপনি আপনার আত্মবিশ্বাসকে উন্নত করতে পারেন। নিহতের নাম ধনঞ্জয় দত্ত, শহরের আইনজীবী বিশ্বকান্ত হাজারিকার গার্ড।

কনক ও মিনতি শহরের ধনী ভদ্রলোক হরপ্রসাদ বড়ুয়ার সন্তান। তারা কিছু উত্সাহী বন্ধুদের সহায়তায় অসমীয়া শিল্প ও সাহিত্যের বিকাশে নিযুক্ত রয়েছে। অন্যদিকে, বিশ্বকান্ত হাজারিকা তার অভিজাত ও তরল মনের মেয়ে মৃদুলাকে কনকের সাথে বিয়ে দিতে চেয়েছিলেন। কিন্তু মার্জিত রুচির অধিকারী কনক বিয়েতে রাজি হননি।

ব্ৰতী সংঘৰ সংগঠনৰ কামত কনক আহি ৰূপহীমুখ গাঁও পায় আৰু ইয়াতেই চম্পাৰ লগত চিনাকি হয়। মায়াৰামে এই চিনাকিৰ পৰা অধিক লাভ কৰাৰ আশাত ব্ৰতী সংঘৰ ঘাই সভ্য পৱনৰ কাণত বিহ ঢালেগৈ। মানৱধৰ্মী, কিন্তু ভাৱপ্ৰৱণ পৱনে ভুলি বুজিলে আৰু তেওঁ আজলী ৰূপহী চম্পাক মিছা অপবাদৰপৰা ৰক্ষা কৰিবলৈ কনকক বাধ্য কৰে। কনকে চম্পাক বিয়া কৰাবলৈ সাজু হয়। হৰপ্ৰসাদ বৰুৱা পুতেকৰ বিয়াৰ জোৰোণ লৈ মায়াৰামৰ পদূলিত উপস্থিত হয়। কিন্তু ভূমি আৰু মৃদুলা?[১][৩][২]

অভিনয়ে[সম্পাদনা]

  • ডানকান আচাও (ভূমি)
  • কানন চক্ৰবৰ্তী (চম্পা)
  • গৌরী কাকতি (কনক)
  • পুণ্য কৌরব (মৃদুলা)
  • সুভা দত্ত (মিনতি)
  • সূৰ্য বুড়ুয়া (মায়ারাম)
  • শৈলেন ফুকন (বিশ্বকান্ত)
  • পদ্মধর চলিহা (হরপ্ৰসাদ)
  • দুলাল গোস্বামী (ধনঞ্জয়)
  • মণিকা নাজির (কেতেকী)
  • প্ৰদীপ চলিহা (পবন)
  • তরুণ হাজারিকা (গগন)
  • চারু বরদলৈ (অমর)
  • দুৰ্গা ফুকন]] (বেজ)
  • বাপুরাম বরা (গোচরীয়া)
  • এস. এম. মহবুবুল্লা (ডাক্তার)
  • শরৎ বরা (দারোগা)
  • রাম দত্ত (লাটুম)
  • পাৰ্বতি প্ৰসাদ বড়ুয়া (আনন্দ) আরও অনেক চরিত্রে অভিনয় করেছেন[৩]

চলচ্চিত্র নির্মাণ[সম্পাদনা]

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের মাঝামাঝি সময়ে রূপহী চলচ্চিত্র তৈরির কাজ শুরু হয়। পার্বতী প্রসাদ বড়ুয়া 'বড়ুয়া বলসবি, রূপালী পাম' নামে একটি চলচ্চিত্র প্রযোজনা সংস্থা প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, এই সংস্থার ব্যানারেই নির্মিত হয়েছিল রূপহী। ছবিটি পরিচালনা ও প্রযোজনা সহ পার্বতী প্রসাদ এর চিত্রনাট্য, সংলাপ, গান করেছিলেন এবং তারই সাথে সঙ্গীত পরিচালনার দায়িত্বও তিমিই সামলেছেন। রূপহীর গল্পটি কমলেশ্বর চালিহার একটি ছোটো গল্পের উপর ভিত্তি করে নির্মিত। তবে ছবিটির গল্প মূল গল্প থেকে একটু আলাদা। যেমন, প্রথম অংশের শুটিং হয়েছে মাজুলিতে। দক্ষিণপাট সাতরাতে রাস নৃত্য এবং ব্রহ্মপুত্রের ভাঙনের দৃশ্য অন্তর্দৃষ্টি চিত্রগ্রহণের জন্য কলকাতায় নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। কলকাতায় খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আসামে একটি ছবিরও শুটিং হয়নি। তাই পার্বতী প্রসাদকে সেই অংশটি বাদ দিয়ে পুরো গল্পটি পুনর্বিন্যাস করতে হয়েছিল। এটি ট্র্যাজেডির গল্পকে মিলনের গল্পে পরিবর্তন করে। ছবিটির শুটিং হয়েছে কলকাতার শ্রী ভারত লক্ষ্মী স্টুডিওতে। 1941 সালের 30 আগস্ট কলকাতার পূর্বী থিয়েটারে ছবিটির প্রিমিয়ার হয়। ছবিটি ১৯৪১ সালের ৬ সেপ্টেম্বর গুয়াহাটির সতী [২] হাউসে (পরে বিজুলি সিনেমা ঘর) মুক্তি পায়। [৪]

সংগীত[সম্পাদনা]

গীত রচনা তথা সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন পার্বতী প্রসাদ বড়ুয়া। কণ্ঠ দিয়েছেন চারু বরদলৈ, তরুণ হাজরিকা, দুৰ্গা ফুকন, পূৰ্ণ কৌরব ও পার্বতী প্রসাদ বড়ুয়া।[৩][৫]

গানের শিরোনাম
নং.শিরোনামগীতিকারকণ্ঠশিল্পীদৈর্ঘ্য
১."নোবোলো তোক সোণর অসম"পার্বতী প্রসাদ বড়ুয়াতরুণ হাজারিকা ও চারু বরদলৈ 
২."জোনাক জোনাক শীতল জোনাক"পার্বতী প্রসাদ বড়ুয়াপুণ্য কোঁবর 
৩."বজালে আহিনে বাঁহী নে বীণ"পার্বতী প্রসাদ বড়ুয়াদুর্গা ফুকন 
৪."অকলশরীয়া বাটরুবা"পার্বতী প্রসাদ বড়ুয়াতরুণ হাজারিকা 
৫."প্রিয়তম তুমি আহিবা বুলি"পার্বতী প্রসাদ বড়ুয়াদুর্গা ফুকন 
৬."হাতর হেরোবা ধন বাটত হেরা পায়"পার্বতী প্রসাদ বড়ুয়াপার্বতী প্রসাদ বড়ুয়া 
৭."তোর নাই যে বন্ধোবা বাট"পার্বতী প্রসাদ বড়ুয়াচারু বরদলৈ 

ব্যবসা[সম্পাদনা]

মোট দুটি প্রিন্টে রূপহী মুক্তি পায়। থিয়েটারে রূপহী ভালো করতে পারেনি। ফলাফলস্বরূপ ছবিটি ব্যবসায়িক ভাবে ব্যর্থ হয়।[১]

তথ্য সংগ্ৰহ[সম্পাদনা]

  1. এবাৰ উভতি চাওঁ। শিশুসাৰথি প্ৰকাশন, গুৱাহাটী। ২০০১। 
  2. "Assamese Movie Rupohi"। সংগ্রহের তারিখ ৩০ এপ্রিল ২০২০ 
  3. ১০০ অসমীয়া চলচ্চিত্ৰৰ কাহিনী আৰু গীত। শশী শিশু প্ৰকাশন, গুৱাহাটী। ২০১৩। 
  4. Flashback-Ruphi (1941) আহৰণ কৰা তাৰিখ: ০২-০৪-২০১২
  5. Babul Das (১৯৮৫)। অসমীয়া বলশাবীর গীতর প্রতিযোগিতা। বনি প্রকাশ, ডিব্রুগড়। পৃষ্ঠা ৯। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]