রাজীব গান্ধী আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম, হায়দ্রাবাদ

স্থানাঙ্ক: ১৭°২৪′২৩.৪″ উত্তর ৭৮°৩৩′০১.৬″ পূর্ব / ১৭.৪০৬৫০০° উত্তর ৭৮.৫৫০৪৪৪° পূর্ব / 17.406500; 78.550444
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
রাজীব গান্ধী আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম
Panorama of rajiv gandhi stadium.jpg
আলোর নিচে স্টেডিয়ামের ভেতরের দৃশ্য
স্টেডিয়ামের তথ্যাবলি
অবস্থানহায়দ্রাবাদ, তেলেঙ্গানা, ভারত
দেশভারত
প্রতিষ্ঠা২০০৩
ধারণক্ষমতা৫৫,০০০
স্বত্ত্বাধিকারীহায়দ্রাবাদ ক্রিকেট সংস্থা
স্থপতিশশী প্রভু[১]
পরিচালকহায়দ্রাবাদ ক্রিকেট সংস্থা
ভাড়াটেভারত ক্রিকেট দল
হায়দ্রাবাদ ক্রিকেট দল
সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদ
প্রান্তসমূহ
শিবলাল যাদব প্রান্ত
ভিভিএস লক্ষ্মণ প্রান্ত
আন্তর্জাতিক খেলার তথ্য
প্রথম পুরুষ টেস্ট১২ নভেম্বর ২০১০:
 ভারত বনাম  নিউজিল্যান্ড
সর্বশেষ পুরুষ টেস্ট১২ অক্টোবর ২০১৮:
 ভারত বনাম  ওয়েস্ট ইন্ডিজ
প্রথম পুরুষ ওডিআই১৬ নভেম্বর ২০০৯:
 ভারত বনাম  দক্ষিণ আফ্রিকা
সর্বশেষ পুরুষ ওডিআই২ মার্চ ২০১৯:
 অস্ট্রেলিয়া বনাম  শ্রীলঙ্কা
প্রথম পুরুষ টি২০আই১৩ অক্টোবর ২০১৭:
 ভারত বনাম  অস্ট্রেলিয়া
সর্বশেষ পুরুষ টি২০আই৬ ডিসেম্বর ২০১৯:
 ভারত বনাম  ওয়েস্ট ইন্ডিজ
৭ ডিসেম্বর ২০১৯ অনুযায়ী
উৎস: ইসপিএন ক্রিকইনফো

রাজীব গান্ধী আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম (তেলুগু: రాజీవ్ గాంధీ అంతర్జాతీయ క్రికెట్ మైదానం, উর্দু: راجیو گاندھی انٹرنیشنل کرکٹ اسٹیڈیم‎‎) হচ্ছে হায়দ্রাবাদ, তেলেঙ্গানা, ভারতে অবস্থিত একটি আন্তজার্তিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম এবং এটি হায়দ্রাবাদ ক্রিকেট সংস্থার হোম গ্রাউন্ড। এটি উপ্পাল নামক স্থানে অবস্থিত। ধারণক্ষমতার বিচারে এটি ভারতের দ্বিতীয় বৃহত্তম সক্রিয় ক্রিকেট মাঠ। এ স্টেডিয়ামের আয়তন ১৬ একর (৬৫,০০০ মি)। ভিভিএস লক্ষ্মণ এর অবসরের পরে, হায়দ্রাবাদ ক্রিকেট সংস্থা তাদের রাজ্যের গর্বিত এই ক্রিকেটারকে সম্মান জানানোর লক্ষ্যে মাঠের উত্তর-শেষ প্রান্ত তার নামানুসারে নামাঙ্কিত করেছে।

পরিকাঠামো[সম্পাদনা]

  • লাল বাহাদুর শাস্ত্রী স্টেডিয়াম এর আধুনিক বিকল্প হিসেবে আরো বেশি আসন বিশিষ্ট এই স্টেডিয়াম গড়ে তোলা হয়।
  • এটি ৫৫,০০০ দর্শক ধারনক্ষমতা সম্পূর্ণসহ সর্বোচ্চ ৬৫,০০০ দর্শক এতে খেলা উপভোগ করতে পারে। এ স্টেডিয়ামের আয়তন ১৬ একর (৬৫,০০০ মি২)। ভিভিএস লক্ষ্মণের অবসরের পরে, হায়দ্রাবাদ ক্রিকেট সংস্থা তাদের রাজ্যের গর্বিত এই ক্রিকেটারকে সম্মান জানানোর লক্ষ্যে মাঠের উত্তর-শেষ প্রান্ত তার নামানুসারে নামাঙ্কিত করেছে।
  • দিবা-রাত্রির ম্যাচে আলোর জন্য ৬টি টাওয়ারে ফ্লাড লাইটের ব্যবস্থা রয়েছে ৷

টেস্ট[সম্পাদনা]

ভারতের নবীনতম টেস্ট স্টেডিয়ামগুলোর একটি এটি। এখনো অব্দি ৪ টি টেস্ট ম্যাচ হয়েছে। সেগুলি যথাক্রমে প্রথম ২টি নিউজিল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া ও বাংলাদেশের বিরুদ্ধে।

এক দিবসীয়[সম্পাদনা]

এখনো অব্দি ৫ টি ম্যাচ হয়েছে। ভারত তার ৩টি ম্যাচ এ হেরেছে। এখনো অব্দি ২টি অএশীয় দেশ ভারতের বিরুদ্ধে এই মাঠে জয় পেয়েছে।

দেশ প্রথম জয়(সেরা খেলোয়াড়) সর্বশেষ জয়(সেরা খেলোয়াড়)
অস্ট্রেলিয়া ২০০৭ (অ্যান্ড্রু সাইমন্ডস) ২০০৯ (-)
দক্ষিণ আফ্রিকা ২০০৫ (-) এখনো অব্দি একমাত্র জয়

২০০৫ দক্ষিণ আফ্রিকার ভারত সফর[সম্পাদনা]

২০০৭ অস্ট্রেলিয়ার ভারত সফর[সম্পাদনা]

এই ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করে অস্ট্রেলিয়া। ম্যাথু হেইডেন, মাইকেল ক্লার্কঅ্যান্ড্রু সাইমন্ডস-এর সৌজন্যে ২৯০ রান তোলে। জবাবে ব্রেট লি-র দুরন্ত বোলিংয়ে ১৩ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে চাপে পরে যায় ভারত। যুবরাজ সিং একক ভাবে ভালো খেললেও লি ও ব্র্যাড হগ-এর বোলিংয়ে ২৪৩ রানে গুটিয়ে যায় ভারত।

২০০৯ অস্ট্রেলিয়ার ভারত সফর[সম্পাদনা]

এই ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করে অস্ট্রেলিয়া। শেন ওয়াটসন, শন মার্শক্যামেরন হোয়াইট-এর সৌজন্যে ৩৫০ রান তোলে। শচীন তেন্ডুলকর শুরু থেকে প্রতিরোধ গড়ে তুললেও যোগ্য সংগদ পাননি। ১৭৫ রান করে নিজের কেরিয়ারের ৩য় সর্বোচ্চ ইনিংসটি খেলেন। ক্লিন্ট ম্যাককেশেন ওয়াটসন-এর বোলিংয়ে পর পর উইকেট হারাতে থাকে ভারত। ১৮ বলে ১৯ রান বাকি থাকতে সচিন আউট হয়ে যান। কিছু পর নবাগত রবীন্দ্র জাদেজা রান আউট হয়ে যায় ও ভারত ৩ রানে ম্যাচটি হারে।

২০১১ ইংল্যান্ডের ভারত সফর[সম্পাদনা]

২০১৪ শ্রীলংকার ভারত সফর[সম্পাদনা]

টি ২০[সম্পাদনা]

২০১৭ র অক্টোবর মাসে অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে এই মাঠে প্রথম একটি টি ২০ আয়োজনের সূচি থাকলেও তা বৃষ্টির জন্য বাতিল হয়ে যায়।

চিত্র[সম্পাদনা]

রাজীব গান্ধী আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম এর প্যানারমিক চিত্র

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "spa-aec.com"। ২৩ আগস্ট ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ মার্চ ২০১৭ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]