ম্যাগনেসিয়াম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

ম্যাগনেসিয়াম একটি রাসায়নিক পদার্থ যা এমজি প্রতীক দ্বারা চিহ্নিত করা হয় এবং এর পারমাণবিক সংখ্যা ১২। এটি একটি চকচকে ধূসর বর্ণের ধাতু যা পর্যায় সারণির দ্বিতীয় স্তম্ভের বাকি ৫ টি ( গ্রুপ ২, বা মৃৎক্ষার ধাতু) পদার্থের সাথে বাহ্যিক সামঞ্জস্যপূর্ণ। ২য় গ্রুপের সকল মৌলগুলোর শেষ শক্তিস্তরে একই রকম ইলেক্ট্রনীয় বৈশিষ্ট্য বিদ্যমান এবং মৌলগুলো অনুরূপ স্ফটিক গঠন বিশিষ্ট।

মহাজগতে মৌলের প্রাচুর্যের দিক বিচারে ম্যাগনেসিয়াম নবম স্থানে রয়েছে। এটা উৎপন্ন হয় বিশাল এবং পুরানো তারকায় ২টি হিলিয়াম নিউক্লিয়াস ও একটি কার্বন নিউক্লিয়াসের সাথে অনুক্রমিকভাবে যুক্ত হয়ে। যখন এসব তারকা সুপারনোভা বা অতিনবতারা হিসেবে বিষ্ফোরিত হয়, এতে বিপুল পরিমানে ম্যাগনেসিয়াম মহাশূন্যে ছড়িয়ে পড়ে যা পরবর্তীতে পুনরায় নতুন তারকা সৃষ্টিতে ব্যবহৃত হতে পারে। পৃথিবীর ভূত্বকের উপাদানের প্রাচুর্যের দিক থেকে অষ্টম মৌল এবং লোহা, অক্সিজেন এবং সিলিকনের পর এটা চতুর্থতম সুলভ উপাদান যা পৃথিবীর ১৩% ভর এবং আবরনের বিশাল অংশ সৃষ্টি করে। সোডিয়াম এবং ক্লোরিনের পর সমুদ্রজলে সবচেয়ে বেশি দ্রবীভূত উপাদানের মধ্যে এটি তৃতীয়।

ম্যাগনেসিয়াম স্বাভাবিকভাবেই অন্যান্য উপাদানের সাথে মিলিত হয়, যেখানে এটি অনির্দিষ্টভাবে একটি +2 অক্সিডেশন অবস্থায় থাকে।এই মুক্ত মৌলটি(ধাতু) কৃত্রিমভাবে তৈরী করা যায় এবং এটি খুব বেশি সক্রিয়(যদিও বায়ুমন্ডলের উপস্থিতিতে এর ওপর অক্সাইডের একটি পাতলা আবরন তৈরী হয় যা ধাতুটির সক্রিয়তা হ্রাস করে)। ধাতুটি খুব উজ্জ্বল সাদা অলো উৎপন্ন করে পুড়ে। এটি এখন মূখ্যভাবে সমুদ্রজলে উপস্থিত থাকা ম্যাগনেসিয়াম লবণ এর তড়িৎ বিশ্লেষনের মাধ্যমে সংগ্রহ করা হয় এবং অ্যালুমিনিয়াম-ম্যাগনেসিয়াম সংকর ধাতুর(ম্যাগনেলিয়াম বা ম্যাগনালিয়াম) একটি উপাদান হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

মানবদেহে ভরের দিক থেকে সবচেয়ে বেশি পাওয়া যায় এরকম উপাদানের মধ্যে ম্যাগনেসিয়াম এগারোতম উপাদান এবং এটি দেহের প্রত্যেকটি কোষ এবং ৩০০ টি এনজাইমের[১] জন্য প্রয়োজনীয়।ম্যাগনেসিয়াম আয়ন এটিপি, ডিএনএ এবং আরএনএ হিসাবে পলিফসফেট যৌগের সাথে ক্রিয়া করে। এনজাইমের শত শত কাজ করতে ম্যাগনেসিয়াম আয়ন প্রয়োজন। ম্যাগনেসিয়াম যৌগগুলি সাধারণ ল্যাক্সটিভস, অ্যান্টাকিডস (যেমন, ম্যাগনেসিয়া দুধ), এবং অ্যাক্ল্যাম্প্সিয়ার মতো অস্বাভাবিক নার্ভ উত্তেজক বা রক্তবাহী নালী স্থিতিশীল করতে ব্যবহৃত হয়।

বৈশিষ্ট্য[সম্পাদনা]

বাহ্যিক বৈশিষ্ট্য[সম্পাদনা]

বাহ্যিকভাবে ম্যাগনেসিয়াম হলো ধূসর-সাদা হাল্কা ধাতু যা অ্যালুমিনিয়ামের ঘনত্বের দুই-তৃতীয়াংশ। বায়ুর উপস্থিতিতে সামান্য পরিমাণে এটি ক্ষয় হয়, যদিও ভারী মৃৎক্ষার ধাতুগুলি এর বিপরীত। সংরক্ষনের জন্য অক্সিজেন মুক্ত পরিবেশ অপ্রয়োজনীয় কারণ ম্যাগনেসিয়াম অক্সাইডের পাতলা স্তর দ্বারা ধাতুটি সুরক্ষিত থাকে যা মোটামুটি সরানো কঠিন বা প্রায় অসম্ভব। সমস্ত মৃৎক্ষার ধাতুর মধ্যে ম্যাগনেসিয়াম সর্বনিম্ন গলনাংক (৯২৩ কেলভিন (১,২০২ ডিগ্রি ফারেনহাইট)) এবং সর্বনিম্ন স্ফুটনাংক বিন্দু (১,৩৬৩ কেলভিন (1,994 ডিগ্রী ফারেনহাইট) বিশিষ্ট।

ম্যাগনেসিয়াম ঘরের তাপমাত্রায় জলের সাথে প্রতিক্রিয়া জানায়, যদিও এটি ক্যালসিয়ামের তুলনায় অনেক ধীরে ধীরে প্রতিক্রিয়া করে, একই গ্রুপ 2 ধাতব। জলে ডুবে গেলে হাইড্রোজেন বুদবুদগুলি ধীরে ধীরে ধাতব পৃষ্ঠের উপরে গঠন করে - যদিও, যদি এটি গুঁড়ো করা হয় তবে এটি আরও বেশি দ্রুত প্রতিক্রিয়া দেখায়। উচ্চতর তাপমাত্রার সাথে প্রতিক্রিয়াটি দ্রুত ঘটে ( নিরাপত্তার সতর্কতা দেখুন )। জলের সাথে ম্যাগনেসিয়ামের বিপরীত প্রতিক্রিয়া শক্তি সঞ্চয় করতে এবং একটি ম্যাগনেসিয়াম-ভিত্তিক ইঞ্জিন চালনার জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে।

ম্যাগনেসিয়াম বেশিরভাগ অ্যাসিডের সাথে অত্যধিকভাবে বিক্রিয়া করে ধাতব ক্লোরাইড এবং হাইড্রোজেন গ্যাস উৎপাদন করে যা হাইড্রোক্লোরিক এসিড (এইচসিএল) এর সাথে অ্যালুমিনিয়াম, দস্তা এবং অন্যান্য অনেক ধাতুর বিক্রিয়ার অনুরূপ।

খাঁটি পলিক্রিস্টালিন ম্যাগনেসিয়াম ভঙ্গুর এবং শিয়ার ব্যান্ডগুলি সহ সহজেই ফ্র্যাকচার হয়। 1% অ্যালুমিনিয়াম, অল্প পরিমাণে এর সঙ্গে মিশ্রিত করলে এটি অনেক বেশি নমনীয় হয়ে ওঠে।

রাসায়নিক বৈশিষ্ট্য[সম্পাদনা]

দাহ্যতা[সম্পাদনা]

ম্যাগনেসিয়াম অত্যন্ত দাহ্য হয়, বিশেষ করে যখন গুঁড়া বা পাতলা চাঁচা(রিবন) জ্বালানো হয়, যদিও ভর বা বাল্কের মধ্যে জ্বলতে অসুবিধা হয়। ম্যাগনেসিয়াম এবং ম্যাগনেসিয়াম অ্যালয় এর শিখা তাপমাত্রা ৩,১০০ ডিগ্রি সেলসিয়াস (৫,৬১০ ডিগ্রি ফারেনহাইট) পৌঁছাতে পারে, যদিও ধাতুটির উপরে প্রজ্জ্বলিত শিখা উচ্চতা সাধারণত ৩০০ মিমি (১২ ইঞ্চি) কম। একবার জ্বললে এটি নেভানো কষ্টকর কারণ দহনে ম্যাগনেসিয়াম নাইট্রোজেন (ম্যাগনেসিয়াম নাইট্রাইড গঠন), কার্বন ডাই অক্সাইড (ম্যাগনেসিয়াম অক্সাইড এবং কার্বন গঠন), এবং পানি (ম্যাগনেসিয়াম অক্সাইড এবং হাইড্রোজেন গঠন) এর সাথে বিক্রিয়া করে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় শহরগুলোতে আগ্নেয়াস্ত্রের হামলায় ব্যবহৃত অস্ত্রগুলোর মধ্যে এটিও ব্যবহৃত হয়েছিল, যেখানে একমাত্র ব্যবহারিক নাগরিক প্রতিরক্ষাকারীরা এই জ্বলন থেকে তাদের প্রয়োজনীয় বায়ুমণ্ডলকে মুক্তি দেয়ার জন্য শুষ্ক বালির নিচে আশ্রয় নেয়।

ম্যাগনেসিয়ামটি থার্মাইটের জন্য প্রজ্বলক হিসাবেও ব্যবহার করা যেতে পারে, একটি অ্যালুমিনিয়াম এবং লোহা-অক্সাইড গুঁড়া মিশ্রণ যা শুধুমাত্র খুব উচ্চ তাপমাত্রায় জ্বলতে পারে

জৈব রসায়ন[সম্পাদনা]

জৈব রসায়নে অর্গানোগ্যাগনেসিয়াম যৌগগুলোর পরিসর ব্যাপক। তারা সাধারণত গ্রিগনার্ড রিএজেন্ট হিসাবে পাওয়া যায়। ম্যাগনেসিয়াম গ্রিগনার্ড রিএজেন্ট দিতে Haloalkanes সঙ্গে বিক্রিয়া করতে পারেন॥ গ্রিনগার্ড রিএজেন্টগুলির উদাহরণগুলি হল ফিনাইলম্যাগনেসিয়াম ব্রোমাইড এবং ইথাইলম্যাগনেসিয়াম ব্রোমাইড। গ্রাইগার্ড রিজেন্টস একটি সাধারণ নিউক্লিওফিল হিসাবে কাজ করে, কার্বনিল গ্রুপের মেরু বন্ধনের মধ্যে উপস্থিত কার্বন পরমাণুর মতো ইলেক্ট্রোফিলিক গ্রুপকে আক্রমণ করে।

গ্রিগনার্ড রিএজেন্টস ছাড়িয়ে একটি বিশিষ্ট অর্গোন্যাগনেসিয়াম রিএজেন্ট হ'ল ম্যাগনেসিয়াম অ্যানথ্রেসিন যা ম্যাগনেসিয়াম কেন্দ্রীয় রিংয়ের উপরে একটি 1,4-সেতু গঠন করে। এটি অত্যন্ত সক্রিয় ম্যাগনেসিয়ামের উত্স হিসাবে ব্যবহৃত হয়। এর সাথে সম্পর্কিত butadiene -magnesium adduct butadiene dianion জন্য একটি উৎস হিসেবে কাজ করে।

আলোর উৎস[সম্পাদনা]

বাতাসে জ্বলতে থাকা অবস্থায় ম্যাগনেসিয়াম একটি উজ্জ্বল-সাদা আলো তৈরি করে যার মধ্যে শক্তিশালী অতিবেগুনী তরঙ্গদৈর্ঘ্য অন্তর্ভুক্ত। ম্যাগনেসিয়াম পাউডার ( ফ্ল্যাশ পাউডার ) ফটোগ্রাফির প্রথম দিনগুলিতে বিষয় আলোকসজ্জার জন্য ব্যবহৃত হত। [২][৩] পরে, ম্যাগনেসিয়াম ফিলামেন্ট বৈদ্যুতিকভাবে জ্বলিত একক-ব্যবহার ফটোগ্রাফি ফ্ল্যাশবুলগুলিতে ব্যবহৃত হত। ম্যাগনেসিয়াম গুঁড়ো আতশবাজি এবং সামুদ্রিক শিখাতে ব্যবহৃত হয় যেখানে একটি উজ্জ্বল সাদা আলো প্রয়োজন। এটি বিভিন্ন নাট্য প্রভাবের জন্যও ব্যবহার করা হয়েছিল,[৪] যেমন বজ্রপাত,[৫] পিস্তল জ্বলে,[৬] এবং অতিপ্রাকৃত উপস্থিতি। [৭]

  1. "Dietary Supplement Fact Sheet: Magnesium"। Office of Dietary Supplements, US National Institutes of Health। ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১৩ অক্টোবর ২০১৬ 
  2. Hannavy, John (২০১৩)। Encyclopedia of Nineteenth-Century Photography। Routledge। পৃষ্ঠা 84। আইএসবিএন 978-1135873271 
  3. Scientific American: Supplement। Munn and Company। ১৮৯৯। পৃষ্ঠা 20035। 
  4. Billboard। Nielsen Business Media, Inc.। ১৯৭৪। পৃষ্ঠা 20। 
  5. Altman, Rick (২০০৭)। Silent Film Sound। Columbia University Press। পৃষ্ঠা 41। আইএসবিএন 978-0231116633 
  6. Lindsay, David (২০০৫)। Madness in the Making: The Triumphant Rise & Untimely Fall of America's Show Inventors। iUniverse। পৃষ্ঠা 210। আইএসবিএন 978-0595347667 
  7. McCormick, John; Pratasik, Bennie (২০০৫)। Popular Puppet Theatre in Europe, 1800–1914। Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 106। আইএসবিএন 978-0521616157