মেৎস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মেৎস
প্রেফ্যক্ত্যুরকম্যুন
শীর্ষ থেকে ঘড়ির কাঁটার দিকে: সিটি সেন্টারের দৃশ্য (সাঁ-স্তিপঁ ক্যাথিড্রাল), ইম্পেরিয়াল কোয়ার্টার, নোফ টেম্পল, জার্মান্স গেট, অপেরা-থিয়েটার
শীর্ষ থেকে ঘড়ির কাঁটার দিকে: সিটি সেন্টারের দৃশ্য (সাঁ-স্তিপঁ ক্যাথিড্রাল), ইম্পেরিয়াল কোয়ার্টার, নোফ টেম্পল, জার্মান্স গেট, অপেরা-থিয়েটার
মেৎসের পতাকা
পতাকা
মেৎসের প্রতীক
প্রতীক
মেৎস ফ্রান্স-এ অবস্থিত
মেৎস
মেৎস
স্থানাঙ্ক: ৪৯°০৭′১৩″ উত্তর ৬°১০′৪০″ পূর্ব / ৪৯.১২০২৮° উত্তর ৬.১৭৭৭৮° পূর্ব / 49.12028; 6.17778স্থানাঙ্ক: ৪৯°০৭′১৩″ উত্তর ৬°১০′৪০″ পূর্ব / ৪৯.১২০২৮° উত্তর ৬.১৭৭৭৮° পূর্ব / 49.12028; 6.17778
দেশ ফ্রান্স
নগরের পৌরসভামেৎস
ক্যান্টন
আন্তঃগোষ্ঠীমেৎস মেত্রোপোল
সরকার
 • মেয়র (২০১৪-২০২০) দোমিনিক গ্রো (পিএস)
আয়তন৪১.৯৪ বর্গকিমি (১৬.১৯ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (টেমপ্লেট:France metadata Wikidata)টেমপ্লেট:France metadata Wikidataটেমপ্লেট:France metadata Wikidata
 • মহানগর (২০১৬[১])৩,৯১,১৮৭
বিশেষণমেসাঁ
সময় অঞ্চলসিইটি (ইউটিসি+০১:০০)
 • গ্রীষ্মকালীন (দিসস)সিইএসটি (ইউটিসি+০২:০০)
আইএনএসইই/ডাক কোড৫৭৪৬৩ /৫৭০০০
উচ্চতা১৬২–২৫৬ মি (৫৩১–৮৪০ ফু)
ওয়েবসাইটMetz Ville
ফ্রান্সের ভূমি রেজিস্টার তথ্য, যার ভেতর হ্রদ, পুকুর, হিমবাহ > ১ বর্গকি.মি.(০.৩৮৬ বর্গ মাইল বা ২৪৭ একর) এবং নদীর মোহনা অন্তর্ভূক্ত নয়।

মেৎস উত্তর-পূর্ব ফ্রান্সে মোজেল নদীসেই নদীর মোহনায় অবস্থিত একটি শহর। এটি মোজেল দেপার্তমঁর একটি প্রেফ্যক্ত্যুর এবং গ্রঁ এস রেজিওঁর একটি সংসদীয় আসন।[২][৩] ফ্রান্স, জার্মানি ও লুক্সেমবুর্গের[৪] সাথে সংযুক্ত শহরটি বৃহত্তর ইউরোপীয় অঞ্চল ও জারলোরলুক্স ইউরোঅঞ্চলের কেন্দ্রস্থল।[৫]

মেৎসের ইতিহাস ৩,০০০ বছরের পুরনো।[৬] এটি কেল্টীয় ওপিডাম, গুরুত্বপূর্ণ গ্যালো-রোমান শহর,[৭] অস্ট্রেশিয়ার মেরোভিনিয় রাজধানী,[৮] কারোলিনিয় রাজবংশের প্রতিষ্ঠাস্থল,[৯] গ্রেগরীয় চ্যান্টের সূতিকাগার,[১০] ও ইউরোপের অন্যতম প্রাচীন প্রজাতন্ত্র ছিল।[১১] শহরটি রোমান সংস্কৃতি থেকে বিপুল রীতিনীতি গ্রহণ করেছে, কিন্তু এর অবস্থান ও ইতিহাসের কারণে জার্মানিক সংস্কৃতি দ্বারাই অধিক প্রভাবিত হয়েছে।[১২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

মেৎসের নথিবদ্ধ ইতিহাস দুই হাজারেরও অধিক সময়ের পুরনো। খ্রিষ্টপূর্ব ৫২ অব্দে জুলিয়াস সিজার কর্তৃক গোল বিজয়ের পূর্বে লৌহ যুগে এটি কেল্টীয় মেদিওমাত্রিকি উপজাতিদের বৃহৎ দুর্গবেষ্টিত জনবসতি ছিল।[৬] রোমান সাম্রাজ্যে অন্তর্ভুক্ত হওয়ার পর মেৎস অচিরেই গোলের প্রধান শহর হয়ে ওঠে। সে সময়ে শহরটির জনসংখ্যা ছিল ৪০,০০০ জন।[৭] ৫ম শতাব্দীর শেষভাগে শহরটি বর্বর জাতি কর্তৃক লুণ্ঠিত হয় এবং ফ্রাঙ্কদের নিকট হস্তান্তরিত হয়।[৬][১৩][১৪] ৬ষ্ঠ থেকে ৮ম শতাব্দীতে শহরটি অস্ট্রেশিয়ার মেরোভিনিয় রাজাদের নিবাস ছিল।[৮] ৮৪৩ সালে ভের্দুন চুক্তির পর মেৎস লোথারিনিয়া রাজ্যের রাজধানী হয় এবং অর্ধ-স্বাধীন মর্যাদা নিয়ে পবিত্র রোমান সাম্রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত হয়।[৬] ১২শ শতাব্দীতে মেৎস প্রজাতন্ত্রের রূপ নেয় এবং ১৫শ শতাব্দী পর্যন্ত মেৎস প্রজাতন্ত্র অটুট ছিল।[১১]

ভূগোল[সম্পাদনা]

মেৎস মোজেল নদীসেই নদীর তীরে অবস্থিত। এটি ফ্রান্স, জার্মানি ও লুক্সেমবুর্গের সীমান্ত শেঙ্গেন ত্রিকোণের ৪৩ কিমি (২৬.৭ মাইল) দূরে অবস্থিত।[৪] শহরটি এমন স্থানে গড়ে ওঠেছিল, যেখানে মোজেল নদীর একাধিক শাখা বেশ কিছু দ্বীপ তৈরি করে। এই দ্বীপগুলো নগর পরিকল্পনার অংশ।[১৫]

মেৎস ভূখণ্ড নিয়ে পারি বাসাঁ গড়ে ওঠেছে এবং উত্তর-দক্ষিণ দিকে ক্যেস্তা নদী উপত্যকা রয়েছে।[১৬] মেৎস ও এর পার্শ্ববর্তী গ্রামাঞ্চলে ২০৫,০০০ হেক্টর (৫০৬,৫৬৬ একর) জায়গা জুড়ে বন ও লরেন রেজিওনাল ন্যাচারাল পার্ক রয়েছে।[১৭]

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

মোজেল দেপার্তমঁর অর্থনীতি ইস্পাত শিল্পের উপর নির্ভরশীল হলেও মেৎস অর্থনৈতিক বিকেন্দ্রীকরণের মাধ্যমে শহরটিতে বাণিজ্য, পর্যটন, তথ্য প্রযুক্তি ও অটোমোবাইল শিল্পের ভিত্তি গড়ে তোলে। এই শহরটি লরেন রেজিওঁর অর্থনৈতিক প্রাণকেন্দ্র। এই উপনগরীতে প্রতিদিন ৭৩,০০০ জন কাজ করেন।[১৮] এই অঞ্চলে পাশাপাশি কয়েকটি শহর গড়ে ওঠেছে এবং পরিবহন ব্যবস্থার মধ্যে উচ্চ-গতিসম্পন্ন রেলওয়ে, মটরগাড়ি, স্থানীয় অতি-দ্রুত পরিবহন ব্যবস্থা রয়েছে, যা শহটিকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের পরিবহন কেন্দ্রে পরিণত করেছেন।[১৯] মেৎসে খাদ্যশস্য উঠানামার কাজে ব্যবহৃত ফ্রান্সের সর্ববৃহৎ পোতাশ্রয় রয়েছে, যেখানে প্রতি বছর ৪,০০০,০০০ টনের অধিক খাদ্যশস্য উঠানামা করে।[২০]

সাম্প্রতিক কালে মেৎস পৌর এলাকা পর্যটন শিল্পের জন্য উচ্চাকাঙ্ক্ষী নীতি গ্রহণ করেছে। এর আওতায় নগর পুনরুজ্জীবিতকরণ এবং দালানকোঠা ও রাস্তার মোড়গুলোর পুনর্বিন্যাস অন্তর্ভুক্ত।[২১][২২] ২০১০ সালে সঁত্র পোম্পিদু-মেৎস তৈরির মধ্য দিয়ে এই কার্যক্রম শুরু হয়।[২৩] সৃষ্টিলগ্ন থেকে এই প্রতিষ্ঠানটি প্যারিসের বাইরে ফ্রান্সের সবচেয়ে জনপ্রিয় সাংস্কৃতিক ভেন্যুতে পরিণত হয়। প্রতি বছর ৫৫০,০০০ দর্শনার্থী এটি দর্শন করতে আসেন।[২৪] এছাড়া সাঁ-স্তিপঁ ক্যাথিড্রাল এই শহরের সবচেয়ে বেশি লোকজন দেখতে আসা দালান। প্রতি বছর ৬৫২,০০০ দর্শনার্থী এই ক্যাথিড্রালটি দর্শন করতে আসেন।[২৫]

খেলাধুলা[সম্পাদনা]

মেৎস শহরে লীগ ওয়ানে ফুটবল ক্লাব এফসি মেৎস অবস্থিত। ক্লাবটি ১৯৩৫, ২০০৭, ও ২০১৪ সালে তিনবার লীগ ২ শিরোপা; ১৯৮৪ ও ১৯৮৮ সালে কুপ দ্য ফ্রান্স শিরোপা; ১৯৮৬ ও ১৯৯৬ সালে ফরাসি লীগ কাপ শিরোপা অর্জন করে এবং ১৯৯৮ সালে ফরাসি চ্যাম্পিয়নশিপে রানার-আপ হয়।[২৬] এফসি মেৎস ক্লাবটি ফ্রান্স এবং ইউরোপে এর সফল যুব একাডেমির জন্য প্রসিদ্ধ। তারা ১৯৮১, ২০০১ ও ২০১০ সালে তিনবার গাম্বার্দেলা কাপ অর্জন করে।[২৬] এফসি মেৎস ক্লাবটির প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই স্তাদ সাঁ-সিম্পোর‍্যাঁ ক্লাবটির নিজস্ব খেলার মাঠ।

মেৎস হ্যান্ডবল ক্লাবটি ২৩ বার ফরাসি নারী প্রথম লীগ চ্যাম্পিয়নশিপ, ৯ বার নারী ফরাসি কাপ, এবং ৮ বার ফরাসি নারী লীগ কাপ অর্জন করে।[২৭] ২০০২ সাল থেকে মেৎস এরেনা মেৎস হ্যান্ডবল ক্লাবের নিজস্ব খেলার মাঠ।

২০০৩ সাল থেকে মেৎস শহরের অভ্যন্তরীণ কোর্টে এটিপি ওয়ার্ল্ড টুর ২৫০ আসর মোজেল ওপেন অনুষ্ঠিত হয়। এই আসরটি সাধারণত সেপ্টেম্বর মাসে অনুষ্ঠিত হয়।[২৮]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. [১], insee.fr
  2. "Official website of the prefecture of Moselle" (ফরাসি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৬ জুলাই ২০১২ 
  3. "Official website of the Moselle department" (ফরাসি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৬ জুলাই ২০১২ 
  4. Says J.M. (2010) La Moselle, une rivière européenne. Eds. Serpenoise. আইএসবিএন ৯৭৮-২-৮৭৬৯২-৮৫৭-২ (in ফরাসি)
  5. "Official website of the Greater Region" (ফরাসি ভাষায়)। ১২ জুলাই ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 
  6. Bour R. (2007) Histoire de Metz, nouvelle édition. Eds. Serpenoise. আইএসবিএন ৯৭৮-২-৮৭৬৯২-৭২৮-৫ (in ফরাসি)
  7. Vigneron B. (1986) Metz antique: Divodurum Mediomatricorum. Eds. Maisonneuve. আইএসবিএন ২-৭১৬০-০১১৫-৪ (in ফরাসি)
  8. Huguenin A. (2011) Histoire du royaume mérovingien d'Austrasie. Eds. des Paraiges. আইএসবিএন ৯৭৯-১০-৯০১৮৫-০০-৫ pp. 134,275 (in ফরাসি)
  9. Settipani C. (1989) Les ancêtres de Charlemagne. Ed. Société atlantique d'impression. আইএসবিএন ২-৯০৬৪৮৩-২৮-১ pp. 3–49 (in ফরাসি)
  10. Demollière C.J. (2004) L'art du chantre carolingien. Eds. Serpenoise. আইএসবিএন ২-৮৭৬৯২-৫৫৫-৯ (in ফরাসি)
  11. Roemer F. (2007) Les institutions de la République messine. Eds. Serpenoise. আইএসবিএন ৯৭৮-২-৮৭৬৯২-৭০৯-৪ (in ফরাসি)
  12. Weyland A. (2010) Moselle plurielle: identité complexe & complexes identitaires. Eds. Serpenoise. আইএসবিএন ৯৭৮-২-৮৭৬৯২-৭৪৮-৩ (in ফরাসি)
  13. Di Rocco A. (2009) Année 451 : la bataille qui sauva l'Occident. Eds. Thélès. আইএসবিএন ৯৭৮-২-৩০৩-০০২২৮-৮ pp. 156–158 (in ফরাসি)
  14. Gibbon E (1788) History of the Decline and Fall of the Roman Empire. 4:35
  15. "Metz and the Messin pays from above, full movie, by Yann Arthus-Bertrand" (VIDEO)। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 
  16. Leza-Chomard A. and Pautrot C. (2006) Géologie et géographie de la Lorraine. Eds. Serpenoise. আইএসবিএন ২-৮৭৬৯২-৬৩২-৬ (in ফরাসি)
  17. "Official website of the Lorraine Regional Natural Park."। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 
  18. "Intercommunal cooperation scheme of Metz Metropole" (PDF) (ফরাসি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  19. "2nd seminar on the Greater Region transports" (PDF) (ফরাসি ভাষায়)। ২৬ মে ২০১৩ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 
  20. "Official data sheet of Metz harbor, VNF" (ফরাসি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 
  21. "Official Metz municipality website, municipal council July 2012, local tourism development scheme." (PDF) (ফরাসি ভাষায়)। ২৭ নভেম্বর ২০১২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 
  22. "Official website of the Metz tourism office." (PHP)। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 
  23. লিচফিল্ড, জন (১১ মে ২০১০)। "Pompidou centre puts Metz on the map, The Independent."। লন্ডন। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 
  24. "Official website of France tourism survey, 2011 Museum frequentation" (ফরাসি ভাষায়)। ৯ মার্চ ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 
  25. "Official website of Moselle tourism office, 2011 key numbers. p 12." (PDF) (ফরাসি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 
  26. "Official website of the Football Club de Metz, Honours." (ফরাসি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 
  27. "Official website of Metz Handball, Honours" (ফরাসি ভাষায়)। ৩০ মে ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 
  28. "ATP official webpage of the Moselle Open."। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

  •  This article incorporates text from a publication now in the public domainHerbermann, Charles, সম্পাদক (১৯১৩)। "Metz"। Catholic Encyclopedia। New York: Robert Appleton।