মার্কাস রাশফোর্ড

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মার্কাস রাশফোর্ড
Press Tren CSKA - MU (3).jpg
২০১৭ সালে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের হয়ে রাশফোর্ড
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নাম মার্কাস রাশফোর্ড
জন্ম (1997-10-31) ৩১ অক্টোবর ১৯৯৭ (বয়স ২৩)
জন্ম স্থান ম্যানচেস্টার, ইংল্যান্ড
উচ্চতা ১.৮০ মিটার (৫ ফুট ১১ ইঞ্চি)
মাঠে অবস্থান আক্রমণভাগের খেলোয়াড়
ক্লাবের তথ্য
বর্তমান ক্লাব
ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড
জার্সি নম্বর ১০
যুব পর্যায়
২০০৩–২০০৫ ফ্লেচার মস রেঞ্জার্স
২০০৫–২০১৫ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড
জ্যেষ্ঠ পর্যায়*
বছর দল ম্যাচ (গোল)
২০১৫– ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ১৭৯ (৫৫)
জাতীয় দল
২০১২ ইংল্যান্ড অনূর্ধ্ব-১৬ (০)
২০১৪ ইংল্যান্ড অনূর্ধ্ব-১৮ (০)
২০১৬ ইংল্যান্ড অনূর্ধ্ব-২০ (০)
২০১৬ ইংল্যান্ড অনূর্ধ্ব-২১ (৩)
২০১৬– ইংল্যান্ড ৪৬ (১২)
* শুধুমাত্র ঘরোয়া লীগে ক্লাবের হয়ে ম্যাচ ও গোলসংখ্যা গণনা করা হয়েছে এবং ১৫:৫৮, ২৯ আগস্ট ২০২১ (ইউটিসি) তারিখ অনুযায়ী সকল তথ্য সঠিক।
‡ জাতীয় দলের হয়ে ম্যাচ ও গোলসংখ্যা ১৫:৫৮, ২৯ আগস্ট ২০২১ (ইউটিসি) তারিখ অনুযায়ী সঠিক।

মার্কাস রাশফোর্ড এমবিই (ইংরেজি: Marcus Rashford; জন্ম: ৩১ অক্টোবর ১৯৯৭) হলেন একজন ইংরেজ পেশাদার ফুটবল খেলোয়াড়। তিনি বর্তমানে ইংল্যান্ডের পেশাদার ফুটবল লীগের শীর্ষ স্তর প্রিমিয়ার লীগের ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড এবং ইংল্যান্ড জাতীয় দলের হয়ে আক্রমণভাগের খেলোয়াড় হিসেবে খেলেন। তিনি মূলত বাম পার্শ্বীয় আক্রমণভাগের খেলোয়াড় হিসেবে খেললেও মাঝেমধ্যে কেন্দ্রীয় আক্রমণভাগের খেলোয়াড় এবং ডান পার্শ্বীয় আক্রমণভাগের খেলোয়াড় হিসেবে খেলেন।

২০০৩–০৪ মৌসুমে, ইংরেজ ফুটবল ক্লাব ফ্লেচার মস রেঞ্জার্সের যুব পর্যায়ের হয়ে খেলার মাধ্যমে রাশফোর্ড ফুটবল জগতে প্রবেশ করেছেন এবং পরবর্তীকালে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের যুব দলের হয়ে খেলার মাধ্যমে তিনি ফুটবল খেলায় বিকশিত হয়েছেন। ২০১৫–১৬ মৌসুমে, ইংরেজ ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের হয়ে খেলার মাধ্যমে তিনি তার জ্যেষ্ঠ পর্যায়ের খেলোয়াড়ি জীবন শুরু করেছেন।

২০১২ সালে, রাশফোর্ড ইংল্যান্ড অনূর্ধ্ব-১৬ দলের হয়ে ইংল্যান্ডের বয়সভিত্তিক পর্যায়ে অভিষেক করেছিলেন। ইংল্যান্ডের বয়সভিত্তিক দলের হয়ে খেলার পর, তিনি ২০১৬ সালে ইংল্যান্ডের হয়ে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে অভিষেক করেছেন; ইংল্যান্ডের জার্সি গায়ে তিনি এপর্যন্ত ৪৬ ম্যাচে ১২টি গোল করেছেন। তিনি ইংল্যান্ডের হয়ে এপর্যন্ত ২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপ এবং ২টি উয়েফা ইউরোপীয় চ্যাম্পিয়নশিপে (২০১৬ এবং ২০২০) অংশগ্রহণ করেছেন, যার মধ্যে ২০২০ সালে গ্যারেথ সাউথগেটের অধীনে উয়েফা ইউরোপীয় চ্যাম্পিয়নশিপের রানার-আপ হয়েছেন।

ব্যক্তিগতভাবে, রাশফোর্ড বেশ কিছু পুরস্কার জয়লাভ করেছেন, যার মধ্যে ২০২০ সালে পিএফএ মেরিট পুরস্কার এবং দ্য গার্ডিয়ানের বর্ষসেরা ফুটবলারের পুরস্কার অন্যতম।[১][২] দলগতভাবে, রাশফোর্ড এপর্যন্ত ৪টি শিরোপা জয়লাভ করেছেন, যার সবগুলো ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের হয়ে জয়লাভ করেছেন।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

মার্কাস রাশফোর্ড ১৯৯৭ সালের ৩১শে অক্টোবর তারিখে ইংল্যান্ডের ম্যানচেস্টারে জন্মগ্রহণ করেছেন এবং সেখানেই তার শৈশব অতিবাহিত করেছেন।

আন্তর্জাতিক ফুটবল[সম্পাদনা]

রাশফোর্ড ইংল্যান্ড অনূর্ধ্ব-১৬, ইংল্যান্ড অনূর্ধ্ব-১৮, ইংল্যান্ড অনূর্ধ্ব-২০ এবং ইংল্যান্ড অনূর্ধ্ব-২১ দলের হয়ে খেলার মাধ্যমে ইংল্যান্ডের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। ২০১২ সালের ২৭শে সেপ্টেম্বর তারিখে তিনি ইংল্যান্ড অনূর্ধ্ব-১৬ দলের হয়ে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে অভিষেক করেছেন। ইংল্যান্ডের বয়সভিত্তিক দলের হয়ে তিনি ৭ ম্যাচে অংশগ্রহণ করে ৩টি গোল করেছেন। তিনি ২০১৬ সালের ৬ই সেপ্টেম্বর তারিখে অনুষ্ঠিত ২০১৭ উয়েফা ইউরোপীয় অনূর্ধ্ব-১৭ চ্যাম্পিয়নশিপ বাছাইপর্বের ম্যাচে নরওয়ে অনূর্ধ্ব-২১ দলের বিরুদ্ধে ইংল্যান্ডের বয়সভিত্তিক দলের হয়ে প্রথমবারের মতো গোল করেছেন,[৩][৪] উক্ত ম্যাচে ইংল্যান্ডের হয়ে তিনি প্রথম, চতুর্থ এবং পঞ্চম গোল করার মাধ্যমে হ্যাট্রিক করেছেন।[৫][৬]

২০১৬ সালের ২৭শে মে তারিখে, মাত্র ১৮ বছর ৬ মাস ২৬ দিন বয়সে, ডান পায়ে ফুটবল খেলায় পারদর্শী রাশফোর্ড অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে অনুষ্ঠিত প্রীতি ম্যাচে অংশগ্রহণ করার মাধ্যমে আন্তর্জাতিক ফুটবলে ইংল্যান্ডের হয়ে অভিষেক করেছেন।[৭][৮] তিনি উক্ত ম্যাচের মূল একাদশে অন্তর্ভুক্ত ছিলেন,[৯] তবে ম্যাচের ৬৩তম মিনিটে মধ্যমাঠের খেলোয়াড় রস বার্কলির বদলি খেলোয়াড় হিসেবে তিনি মাঠ ত্যাগ করেন; ম্যাচে তিনি ৯ নম্বর জার্সি পরিধান করে কেন্দ্রীয় আক্রমণভাগের খেলোয়াড় হিসেবে খেলেছেন।[১০] অভিষেক ম্যাচেই তিনি ইংল্যান্ডের জার্সি গায়ে প্রথম গোলটি করেছেন; ম্যাচের তৃতীয় মিনিটে রাহিম স্টার্লিংয়ের অ্যাসিস্ট থেকে ম্যাচের প্রথম গোলটি করার মাধ্যমে তিনি আন্তর্জাতিক ফুটবলে তার প্রথম গোলটি করেছেন।[১১] ম্যাচটি ইংল্যান্ড ২–১ গোলের ব্যবধানে জয়লাভ করেছিল।[১২] ইংল্যান্ডের হয়ে অভিষেকের বছরে রাশফোর্ড সর্বমোট ৬ ম্যাচে ১টি গোল করেছেন। ২০২১ সালের ৬ই জুন তারিখে, তিনি রোমানিয়ার বিরুদ্ধে এক প্রীতি ম্যাচে ইংল্যান্ডের হয়ে প্রথমবারের মতো অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করেন, ম্যাচটি ইংল্যান্ড ১–০ গোলের ব্যবধানে জয়লাভ করেছিল, ম্যাচের ৬৮তম মিনিটে তিনি ইংল্যান্ডের জয়সূচক গোলটি করেছেন।[১৩][১৪][১৫]

রাশফোর্ড রাশিয়ায় অনুষ্ঠিত ২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপের জন্য গ্যারেথ সাউথগেটের অধীনে ঘোষিত ইংল্যান্ড দলে স্থান পাওয়ার মাধ্যমে প্রথমবারের মতো ফিফা বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করার সুযোগ পান।[১৬][১৭] ২০১৮ সালের ১৮ই জুন তারিখে, তিনি তিউনিসিয়ার বিরুদ্ধে গ্রুপ পর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে অংশগ্রহণ করার মাধ্যমে ফিফা বিশ্বকাপে অভিষেক করেছেন।[১৮][১৯][২০] উক্ত বিশ্বকাপে তিনি ৬ ম্যাচে অংশগ্রহণ করেছেন।[২১]

পরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

আন্তর্জাতিক[সম্পাদনা]

২৯ আগস্ট ২০২১ পর্যন্ত হালনাগাদকৃত।
দল সাল ম্যাচ গোল
ইংল্যান্ড ২০১৬
২০১৭
২০১৮ ১৬
২০১৯
২০২০
২০২১
সর্বমোট ৪৬ ১২

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Rashford wins PFA Award"। Manchester United F.C.। ৮ সেপ্টেম্বর ২০২০। ৬ ডিসেম্বর ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 
  2. "The Guardian Footballer of the Year Marcus Rashford: 'My mum is everything'"The Guardian। ৪ জানুয়ারি ২০২১। ১৪ জানুয়ারি ২০২১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ জানুয়ারি ২০২১ 
  3. "England U21 - Norway U21, Sep 6, 2016 - UEFA European Under-21 Championship Qualifying - Match sheet"Transfermarkt (ইংরেজি ভাষায়)। ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০২১ 
  4. "England U21 vs. Norway U21 - 6 September 2016"Soccerway। ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০২১ 
  5. "England-Norway - Under-21"UEFA.com। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০২১ 
  6. "England - Norway 6:1 (U21 EURO Qualifiers 2015/2016, Group 9)"worldfootball.net। ২৭ নভেম্বর ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০২১ 
  7. Taylor, Louise (২৭ মে ২০১৬)। "Marcus Rashford hits the mark in England debut to remember"the Guardian। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০২১ 
  8. "Boy wonder Marcus Rashford scores in 3rd minute of England debut"Hindustan Times। ২৮ মে ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০২১ 
  9. "England vs. Australia - 27 May 2016"Soccerway। ২৭ মে ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০২১ 
  10. "England - Australia, May 27, 2016 - International Friendlies - Match sheet"Transfermarkt (ইংরেজি ভাষায়)। ২৭ মে ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০২১ 
  11. "England - Australia 2:1 (Friendlies 2016, May)"worldfootball.net। ২৭ নভেম্বর ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০২১ 
  12. Strack-Zimmermann, Benjamin (২৭ মে ২০১৬)। "England vs. Australia (2:1)"National Football Teams। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০২১ 
  13. "England - Romania, Jun 6, 2021 - International Friendlies - Match sheet"Transfermarkt (ইংরেজি ভাষায়)। ৬ জুন ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০২১ 
  14. "England vs. Romania - 6 June 2021"Soccerway। ৬ জুন ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০২১ 
  15. "England - Romania 1:0 (Friendlies 2021, June)"worldfootball.net (ইংরেজি ভাষায়)। ২৭ নভেম্বর ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০২১ 
  16. "FIFA World Cup Russia 2018™: List of Players" (PDF)fifadata.com (ইংরেজি ভাষায়)। ফিফা। ১০ জুন ২০১৮। ৬ ডিসেম্বর ২০১৯ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ আগস্ট ২০২১ 
  17. "England World Cup squad: Liverpool's Trent Alexander-Arnold in Gareth Southgate's squad"BBC Sport। British Broadcasting Corporation। ১৬ মে ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ১৬ মে ২০১৮ 
  18. "Tunisia - England, Jun 18, 2018 - World Cup 2018 - Match sheet"Transfermarkt (ইংরেজি ভাষায়)। ১৮ জুন ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০২১ 
  19. "Tunisia vs. England - 18 June 2018"Soccerway। ১৮ জুন ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০২১ 
  20. "Tunisia - England 1:2 (World Cup 2018 Russia, Group G)"worldfootball.net। ২৭ নভেম্বর ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০২১ 
  21. "England - Appearances World Cup 2018"worldfootball.net। ২৭ নভেম্বর ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০২১ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]