বাংলাদেশের ভিসা নীতি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
বাংলাদেশের প্রবেশ এবং প্রস্থান স্ট্যাম্প

সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশ তার ভূখণ্ডে প্রবেশের জন্য সকল বিদেশিদের ক্ষেত্রে অনুমতি নিতে আবশ্যক করেছে। সমগ্র বিশ্ব জুড়ে অবস্থিত বাংলাদেশ মিশনের দ্বারা বা বাংলাদেশে পৌঁছে ভিসা নিতে হয়। বাংলাদেশ পাসপোর্ট এবং ইমিগ্রেশন বিভাগ থেকে মেয়াদ বাড়িয়ে নেয়া যায়, এবং দেশভেদে ফি পরিবর্তন হয়ে থাকে।[১] বেশিরভাগ বিদেশীদের জন্য বাংলাদেশে প্রবেশের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ভিসার প্রয়োজন পড়ে। [১]

ভিসা নীতি মানচিত্র[সম্পাদনা]

  বাংলাদেশ
  ভিসা ছাড়
  "আগমনের উপর ভিসা" গ্রহণযোগ্যতার ভিত্তিতে বিশেষভাবে অঙ্কিত
  "আগমনের উপর ভিসা" অগ্রহণযোগ্যতার ভিত্তিতে বিশেষভাবে অঙ্কিত
  আগমনের উপর ভিসা (শর্ত প্রযোজ্য)
  প্রবেশ নিষেধ[২]

ভিসা ছাড়[সম্পাদনা]

আইএটিএ কর্তৃক প্রদত্ত তথ্য অনুযায়ী, নিম্নলিখিত ২৩ টি দেশের নাগরিকদের ভিসার প্রয়োজনীয়তা থেকে মৌকুফ করা হয়েছে:[৩]

নিউ ইয়র্কে বাংলাদেশের কনস্যুলেট জেনারেলের মতে  আয়ারল্যান্ড -এর নাগরিকদের ভিসার প্রয়োজন নেই।[৪]

আগমনের উপর ভিসা[সম্পাদনা]

আইএটিএ কর্তৃক প্রদত্ত তথ্য অনুযায়ী, নিম্নোক্ত দেশগুলি বিশেষ করে যেসব দেশসমূহের কথা উল্লেখ করা হয়েছে, যার নাগরিকরা বাংলাদেশী মিশনের অবহিতি ছাড়াও সরকারী দায়িত্ব, ব্যবসা-বাণিজ্য, বিনিয়োগ এবং পর্যটনের উদ্দেশ্যে আগমনের জন্য ভিসা পেতে পারে:[৩][৫]

আইএটিএ কর্তৃক প্রদত্ত তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশি মিশন না-থাকা অন্যান্য দেশের নাগরিকরা বা এই ধরনের দেশ থেকে আসা নাগরিকরা সর্বোচ্চ ২৫ দিনের জন্য আগমনের উপর ভিসা পেতে পারে, শুধুমাত্র নিচের ২৪টি পরে (যদি না তারা বাংলাদেশী প্রতিনিধি না-থাকা দেশের হয়):[৩]

বিকল্প ভিসা নীতি তথ্য[সম্পাদনা]

বাংলাদেশ পুলিশের ল্যান্ডিং পারমিট (এলপি) যোগ্যতা পরীক্ষা অনুযায়ী বাংলাদেশ ভিসার নীতিমালা

বিশেষ শাখার দ্বারা প্রদত্ত ল্যান্ডিং পারমিট (এলপি) যোগ্যতা পরীক্ষা ভিসার নীতিমালা সম্পর্কে কিছুটা ভিন্ন তথ্য দেয়।[৬]

কোনও ভিসা সীল প্রয়োজন না[সম্পাদনা]

বাংলাদেশ মিশন বিদেশী পাসপোর্টধারী এবং জাতীয়তাধীন এবং একইসাথে বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত/সম্পর্কিত বাংলাদেশী নয় এদের জন্য কোনও ভিসার প্রয়োজনীয় সীল (এনভিআর) প্রদান করে না।[৭][৮][৯] এই সীল ভিসার মেয়াদে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কোন বাধা ব্যতীত যাত্রী বহুবার বাংলাদেশে ভ্রমণের ক্ষেত্রে ব্যবহার করতে পারবে।[৮]

নো-ভিসা আবশ্যক সুবিধাটি পাসপোর্টের বৈধতা থাকা পর্যন্ত গ্রহণযোগ্য এবং একই ব্যক্তির নতুন পাসপোর্টের ক্ষেত্রে স্থানান্তরিত হতে পারে।

অ-সাধারণ পাসপোর্ট[সম্পাদনা]

তাছাড়া, নিম্নলিখিত দেশের কূটনৈতিক ও অফিসিয়াল পাসপোর্টধারীদের শুধুমাত্র ৩০ দিনের জন্য হলে ভিসার প্রয়োজন হয় না (যদি না উল্লিখিত হয়):

জুলাই ২০১৭ সালে  শ্রীলঙ্কার সাথে কূটনৈতিক ও সরকারি পাসপোর্টধারীদের জন্য ভিসা মওকুফের চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় এবং এটি এখনো কার্যকর হয়নি।[১০]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Visa Information"Embassy of Bangladesh, Washington, D.C.। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  2. "National Israel (IL) / Destination Bangladesh (BD)"IATA TimaticWebIATA। ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৫। [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  3. টেমপ্লেট:Timatic Visa Policy
  4. "Visa Exemption"www.bdcgny.org। সংগ্রহের তারিখ ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  5. "Visa Policy of Bangladesh: Visa on Arrival"Bangladesh Tourism Board। ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  6. "Eligibility Test for Landing Permit (LP)"Immigration, Bangladesh Police। ৫ নভেম্বর ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ নভেম্বর ২০১৭ 
  7. "Visa Information"। Embassy of Bangladesh, Washington, DC। ১৪ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জুলাই ২০১১ 
  8. "No Visa"। Consulate General of Bangladesh, New York। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জুলাই ২০১১ 
  9. "Guideline for No Visa Required (NVR) Seal"। High Commission for Bangladesh, Canada। ১৮ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জুলাই ২০১১ 
  10. [১]