ইউক্লিড

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ইউক্লিড
Scuola di atene 07.jpg
রাফেলর অমর সৃষ্টি The School of Athens এর অংশবিশেষ।
জন্ম অজানা
মৃত্যু অজানা
বাসস্থান আলেকজান্দ্রিয়া, মিশর
কর্মক্ষেত্র গণিত
পরিচিতির কারণ ইউক্লিডের জ্যামিতি
ইউক্লিড’স এলিমেন্টস

ইউক্লিড (জন্ম: অজানা - মৃত্যু: ৩০০ খ্রি. পূ.) বিখ্যাত গ্রিক গণিতজ্ঞ। তার লেখা গ্রন্থগুলির মধ্যে মাত্র তিনটির সন্ধান পাওয়া গিয়েছে এগুলো, ডাটা, অপটিক্স ও এলিমেন্টস। এলিমেন্টস বইটি মোট ১৩ খণ্ডে প্রকাশিত হয়েছিল।

পাটিগণিতের মূল নিয়মাবলী, জ্যামিতি, গানিতিক রাশি ও গাণিতিক সংকেত, সংখ্যাতত্ত্ব_ গণিতের বিভিন্ন শাখায় তাঁর অবদান রয়েছে। অমূলদ রাশির আবিষ্কার গ্রীক গণিতকে যে সংকটে ফেলেছিল তা থেকে উদ্ধার পেতে পাটিগণিত জ্যামিতির দিকে ঝুঁকে পড়েছিল আর ইউক্লিডের গণিতেরও অনেকটাকেই বলা যেতে পারে জ্যামিতিক বীজগণিত। তাঁর প্রধান বৈজ্ঞানিক গ্রন্থ ইউক্লিড’স এলিমেন্টস। এতে আলোচনা আছে তলমিতি ও ঘ্নমিতি এবং সংখ্যাতত্ত্বের বিভিন্ন সমস্যা যেমন অ্যালগরিদম নিয়ে।[১]

ইউক্লিডের জ্যামিতির স্বতঃসিদ্ধ প্রণালী নিম্নোক্ত কয়েকটি মৌলিক প্রতীতির উপর নির্ভরশীল।সেগুলো হচ্ছে বিন্দু, রেখা, তল, গতি এবং এই দুটি সম্পর্ক_"কোনো বিন্দু একটি তলের অন্তর্গত একটি রেখার উপর অবস্থিত" ও "যে কোনো বিন্দুর অবস্থান অন্য আর দুটি বিন্দুর মধ্যে"। আধুনিক পর্যালোচনা অনুসারে, ইউক্লিডের জ্যামিতির স্বতঃসিদ্ধগুলো এই পাঁচটি ভাগে বিভক্তঃ আপত্ন, ক্রম, গতি, সন্ততি এবং সমান্তরাল স্বতঃসিদ্ধ। এই জ্যামিতি অসীম স্তরের উপাদানের কথাও বিবেচনা করেছে। এই প্রসঙ্গে ইউক্লিডিয়ান স্পেস ও ইউক্লিডিয়ান রিং-এর কথা উল্লেখ করা যায়।[১]

আরো পড়ুন[সম্পাদনা]

  • "Euclid (Greek mathematician)"। Encyclopædia Britannica, Inc। ২০০৮। সংগৃহীত ২০০৮-০৪-১৮ 
  • Artmann, Benno (1999). Euclid: The Creation of Mathematics. New York: Springer. ISBN 0-387-98423-2.
  • Ball, W.W. Rouse (১৯৬০) [১৯০৮]। A Short Account of the History of Mathematics (4th সংস্করণ)। Dover Publications। পৃ: 50–62। আইএসবিএন 0-486-20630-0 
  • Boyer, Carl B. (১৯৯১)। A History of Mathematics (2nd সংস্করণ)। John Wiley & Sons, Inc.। আইএসবিএন 0-471-54397-7 
  • Heath, Thomas (ed.) (১৯৫৬) [১৯০৮]। The Thirteen Books of Euclid's Elements 1। Dover Publications। আইএসবিএন 0-486-60088-2 
  • Heath, Thomas L. (1908), "Euclid and the Traditions About Him", in Euclid, Elements (Thomas L. Heath, ed. 1908), 1:1–6, at Perseus Digital Library.
  • Heath, Thomas L. (1981). A History of Greek Mathematics, 2 Vols. New York: Dover Publications. ISBN 0-486-24073-8 / ISBN 0-486-24074-6.
  • Kline, Morris (1980). Mathematics: The Loss of Certainty. Oxford: Oxford University Press. ISBN 0-19-502754-X.
  • জন জে. ও'কনোর এবং এডমান্ড এফ. রবার্টসন। "Euclid of Alexandria"। ম্যাকটিউটর গণিতের ইতিহাস আর্কাইভ
  • Proclus, A commentary on the First Book of Euclid's Elements, translated by Glenn Raymond Morrow, Princeton University Press, 1992. ISBN 978-0-691-02090-7.
  • Struik, Dirk J. (১৯৬৭)। A Concise History of Mathematics। Dover Publications। আইএসবিএন 486-60255-9 |isbn= মান পরীক্ষা করুন (সাহায্য) 
  • DeLacy, Estelle Allen (১৯৬৩)। Euclid and Geometry। New York: Franklin Watts। 
  • Knorr, Wilbur Richard (১৯৭৫)। The Evolution of the Euclidean Elements: A Study of the Theory of Incommensurable Magnitudes and Its Significance for Early Greek Geometry। Dordrecht, Holland: D. Reidel। আইএসবিএন 90-277-0509-7 
  • Mueller, Ian (১৯৮১)। Philosophy of Mathematics and Deductive Structure in Euclid's Elements। Cambridge, MA: MIT Press। আইএসবিএন 0-262-13163-3 
  • Reid, Constance (১৯৬৩)। A Long Way from Euclid। New York: Crowell। 
  • Szabó, Árpád (১৯৭৮)। The Beginnings of Greek Mathematics। A.M. Ungar, trans। Dordrecht, Holland: D. Reidel। আইএসবিএন 90-277-0819-3 

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ১.০ ১.১ ধীমান দাশগুপ্ত, বিজ্ঞানী চরিতাভিধান, ১ম খণ্ড, বাণীশিল্প, কলকাতা, জানুয়ারি ১৯৮৬, পৃষ্ঠা ৬৭-৬৮।