ইমরে নাগি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ইমরে নাগি
গণপ্রজাতন্ত্রী হাঙ্গেরির মন্ত্রী পরিষদের সভাপতি
কার্যালয়ে
৪ জুলাই, ১৯৫৩ – ১৮ এপ্রিল, ১৯৫৫
পূর্বসূরী মাতিয়াস রাকোসি
উত্তরসূরী আন্দ্রাস হেগেদাস
কার্যালয়ে
২৪ অক্টোবর, ১৯৫৬ – ৪ নভেম্বর, ১৯৫৬
পূর্বসূরী আন্দ্রাস হেগেদাস
উত্তরসূরী জানোস কাদার
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম (১৮৯৬-০৬-০৭)৭ জুন ১৮৯৬
কাপোসভার, অস্ট্রিয়া-হাঙ্গেরি
মৃত্যু ১৬ জুন ১৯৫৮(১৯৫৮-০৬-১৬) (৬২ বছর)
বুদাপেস্ট, গণপ্রজাতন্ত্রী হাঙ্গেরি
জাতীয়তা হাঙ্গেরীয়
রাজনৈতিক দল হাঙ্গেরীয় কম্যুনিস্ট পার্টি,
হাঙ্গেরিয়ান ওয়ার্কিং পিপল’স পার্টি,
হাঙ্গেরিয়ান সোশ্যালিস্ট ওয়ার্কার্স পার্টি
দাম্পত্য সঙ্গী মারিয়া এগেতো

ইমরে নাগি ([ˈimrɛ nɒɟ]; হাঙ্গেরীয়: ˈimrɛ nɒɟ; জন্ম: ৭ জুন, ১৮৯৬-মৃত্যু: ১৬ জুন, ১৯৫৮) ছিলেন হাঙ্গেরির বিশিষ্ট সমাজতান্ত্রিক রাজনীতিবিদ। তিনি গণপ্রজাতন্ত্রী হাঙ্গেরির মন্ত্রীপরিষদে দুই মেয়াদে সভাপতি ছিলেন। ১৯৫৬ সালে অনুষ্ঠিত হাঙ্গেরির বিপ্লব ব্যর্থতায় পর্যবসিত হওয়ায় সোভিয়েত হস্তক্ষেপে তাঁর সোভিয়েত বিরোধী সরকারের পতন ঘটে। ফলশ্রুতিতে দুই বছর পর নাগি’র প্রাণদণ্ড কার্যকর হয়।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

হাঙ্গেরির কাপোসভার এলাকায় এক গ্রামীণ কৃষক পরিবারে নাগি জন্মগ্রহণ করেন। দশ বছর বয়সে তালা নির্মাণ ও মেরামতকারী শিক্ষানবীশ কর্মী হিসেবে কাজে নেমে পড়েন। জোসেফ নাগি নামীয় বাবা খামারের ভৃত্য ও মা রোজালিয়া সাবো বিয়ের পূর্বে গৃহকর্মী ছিলেন।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধকালীন সময়ে তিনি যন্ত্রপ্রকৌশলী হিসেবে কাজ করেন। এ সময়ে তিনি অস্ট্রো-হাঙ্গেরীয় সেনাবাহিনীর নিবন্ধিত হয়ে পূর্বাঞ্চলীয় ফ্রন্টে অংশ নেন। আহত অবস্থায় ১৯১৫ সালে রুশ সাম্রাজ্যের সেনাবাহিনী কর্তৃক বন্দী হন। অক্টোবর, ১৯১৭ সালে রুশ বিপ্লবের মাধ্যমে সমাজতান্ত্রিক সরকার ক্ষমতাগ্রহণ করলে তাঁকে সাইবেরিয়ায় প্রেরণ করা হয়। সমাজতন্ত্রী হিসেবে সোভিয়েত নাগরিকের মর্যাদা লাভ করেন ও রেড আর্মিতে যোগদান করেন। ১৯২১ সালে নাগি হাঙ্গেরিতে ফিরে এসে সমাজতান্ত্রিক দল গঠন করেন। ১৯২৭ সালে গ্রেফতার বরণ করেন। কিন্তু মুক্ত হয়ে ১৯৩০ সালে মস্কোতে চলে যান ও পুণরায় কম্যুনিস্ট পার্টিতে যোগ দেন। কৃষি গবেষণায় যুক্ত থাকেন তিনি। ১৯৩৬ সালে পার্টি থেকে বহিষ্কৃত হন ও সোভিয়েত পরিসংখ্যান বিভাগে কাজ নেন। ১৯৮৯ সালে হাঙ্গেরীয় দলনেতা কারোলি গ্রোজ গুজব ছড়ান যে তিনি সোভিয়েত গোয়েন্দা সংস্থার চর ছিলেন, যা নাগিকে অমর্যাদাকরস্থানে নেয়ার চেষ্টা চালানো হয়।[১] অবশ্য প্রামাণ্য দলিল রয়েছে যে ঐ সময়ে মস্কোতে অবস্থানের সময় তিনি এনকেভিডি’র চর হিসেবে কাজ করেছেন ও নিরাপত্তা পুলিশের কাছে তাঁর বিশ্বস্ততার প্রমাণ রয়েছে।[২]

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধকালীন সময়ে ১৯৪৪ সালে সোভিয়েত সমাজতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র কর্তৃক বুদাপেস্টে সেনাবাহিনী প্রেরিত হলে পুণরায় হাঙ্গেরি ফিরে আসেন।

রাজনৈতিক জীবন[সম্পাদনা]

হাঙ্গেরির প্রথম সমাজতান্ত্রিক সরকার ও প্রধানমন্ত্রী বেলা মিকলোজ ডি দালনোকের শাসনামলে নাগি কৃষিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন এবং বৃহৎ আকারে রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত খামার কৃষকদের কাছে ফেরৎ দেন। জোলতান টিল্ডি’র পরবর্তী সরকারে তিনি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পান। এ সময়ে তিনি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে জার্মানদেরকে বিতারণে সক্রিয় ভূমিকা নেন।[৩] এছাড়াও, সমাজতান্ত্রিক সরকার ব্যবস্থায় তিনি ১৯৪৭-১৯৪৯ মেয়াদকালে জাতীয় পরিষদের স্পিকারের দায়িত্বে ছিলেন।

সোভিয়েত নাগরিক হওয়া স্বত্ত্বেও তাঁর হাঙ্গেরীয় জাতীয়তাবোধের কারণে মস্কোর সাথে মতানৈক্য ঘটে। ১৯৪৯ সালে সোভিয়েত নেতা জোসেফ স্টালিন কৃষিখাতে তাঁর এ ভূমিকা সঠিক দৃষ্টিভঙ্গীতে নয় মর্মে সমালোচনা করেন। এরপর নাগিকে পদচ্যুত করা হলেও একবছর পরই তিনি কার্যালয়ে ফিরে আসেন। ১৯৫৩ সালে তদানীন্তন প্রধানমন্ত্রী মাতিয়াস রাকোসি’র পতন ঘটলে তিনি ক্ষমতারোহণ করেন। পরবর্তী দুই বছরে সোভিয়েত নেতা গিওর্গি মাকসিমিলিয়ানোভিচ মালেনকোভের সংক্ষিপ্ত শাসনামলে নাগি একীভূত খামারগুলোকে কৃষকদের মাঝে বিতরণের অনুমোদন পান। এ সময়ে তিনি সমাজতন্ত্রের নতুন বিষয় চালুর উদ্যোগ নেন। সোভিয়েত পলিটব্যুরো, হাঙ্গেরীয় কেন্দ্রীয় কমিটি থেকে ১৮ এপ্রিল, ১৯৫৫ তারিখে নাগিকে প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে জোরপূর্বক পদত্যাগ করতে হয় এবং পলিটব্যুরো ও দলীয় কর্মকাণ্ড থেকে বহিষ্কার করা হয়।

অক্টোবর, ১৯৫৬ সালে সোভিয়েত বিরোধী আন্দোলন শীর্ষে পৌঁছলে নাগি পুণরায় প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন। জাতীয় বীরের মর্যাদায় আসীন হয়ে মুক্ত ও বহু-দলীয় নির্বাচন অনুষ্ঠানের প্রতিশ্রুতি দেন ও হাঙ্গেরি থেকে সোভিয়েত সেনা প্রত্যাহার করবেন। ১ নভেম্বর তিনি ওয়ারশ চুক্তি থেকে দূরে সরে আসার ঘোষণা দেন এবং জাতিসংঘের মাধ্যমে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রযুক্তরাজ্যের ন্যায় বৃহৎ শক্তিধর দেশের কাছে হাঙ্গেরিকে নিরপেক্ষ রাষ্ট্রের মর্যাদা দেয়ার আহ্বান জানান।[৪] এ সময়কালে এসেও নাগি মার্ক্সবাদের উপর বিশ্বাস রাখতেন। কিন্তু মার্ক্সবাদের দর্শনধারার সাথে তাঁর চিন্তাধারার পার্থক্য লক্ষ্য করা যায়। তিনি মার্ক্সবাদকে বিজ্ঞানরূপে চিহ্নিত করলেও স্থির থাকবে না বলে ভাবতেন।[৫]

গোপন বিচার ও প্রাণদণ্ড[সম্পাদনা]

নভেম্বরে সোভিয়েত সেনাবাহিনী কঠোরহস্তে বিদ্রোহ দমন করে। নাগি ও তাঁর সহচরেরা নিরাপত্তায় আশায় যুগোস্লাভ দূতাবাসে আশ্রয় নেন। জানোস কাদারের সহযোগিতার আশ্বাস স্বত্ত্বেও ২২ নভেম্বর তারিখে নাগিকে গ্রেফতার করে রোমানিয়ার স্নাগোভে নিয়ে যায়। ১৯৫৭ সালে তাঁকে বুদাপেস্টে নিয়ে আসা হয় ও গোপন বিচারে হাঙ্গেরীয় জনগোষ্ঠীকে গণতন্ত্রের দিকে ধাবিত করার অভিযোগ আনা হয়। গোপন বিচারে তাঁকে দোষীসাব্যস্ত করে জুন, ১৯৫৮ সালে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়।[৬] মৃত্যুদণ্ডের পর জনসমক্ষে তা প্রকাশ করা হয়।[৭] ফিদর বার্লাৎস্কি’র বর্ণনা মোতাবেক জানা যায়, ক্রেমলিনে নিকিতা ক্রুশ্চেভ নাগি’র প্রাণদণ্ডকে সমাজতান্ত্রিক দেশগুলোর শিক্ষা হিসেবে পরিগণিত করেন।[৮]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. János Rainer: Nagy Imre, (Budapest, 2002), 26.
  2. Gati, Charles (2006). Failed Illusions: Moscow, Washington, Budapest and the 1956 Hungarian Revolt, p. 42. Stanford University Press. ISBN 0-8047-5606-6.
  3. (hu) Imre Nagy's unknown life, in Magyar Narancs
  4. Gyorgy Litvan, The Hungarian Revolution of 1956, (Longman House: New York, 1996), 55–59
  5. Stokes, Gale. From Stalinism to Pluralism. p. 82-3
  6. Richard Solash, "Hungary: U.S. President To Honour 1956 Uprising", Radio Free Europe, 20 June 2006
  7. The Counter-revolutionary Conspiracy of Imre Nagy and his Accomplices White Book, published by the Information Bureau of the Council of Ministers of the Hungarian People's Republic (No date).
  8. David Pryce-Jones, "What the Hungarians wrought: the meaning of October 1956", National Review, 23 October 2006

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

  1. Gyula Háy (Julius Hay). Born 1900: memoirs. Hutchinson: 1974.
  2. Granville, Johanna. "Imre Nagy aka 'Volodya' – A Dent in the Martyr's Halo?", "Cold War International History Project Bulletin", no. 5 (Woodrow Wilson Center for International Scholars, Washington, DC), Spring, 1995, pp. 28, and 34–37.
  3. Granville, Johanna, The First Domino: International Decision Making During the Hungarian Crisis of 1956, Texas A & M University Press, 2004. ISBN 1-58544-298-4
  4. KGB Chief Vladimir Kryuchkov to CC CPSU, 16 June 1989 (trans. Johanna Granville). Cold War International History Project Bulletin 5 (1995): 36 [from: TsKhSD, F. 89, Per. 45, Dok. 82.]
  5. Alajos Dornbach, The Secret Trial of Imre Nagy, Greenwood Press, 1995. ISBN 0-275-94332-1
  6. Peter Unwin, Voice in the Wilderness: Imre Nagy and the Hungarian Revolution, Little, Brown, 1991. ISBN 0-356-20316-6
  7. Karl Benziger, Imre Nagy, Martyr Of The Nation: Contested History, Legitimacy, and Popular Memory in Hungary. Lexington Books, 2008. ISBN 0-7391-2330-0
রাজনৈতিক দফতর
পূর্বসূরী
ফিদেল পাফি
কৃষিমন্ত্রী
১৯৪৪-১৯৪৫


উত্তরসূরী
বেলা কোভাচ
পূর্বসূরী
ফেরেঙ্ক এরদেই
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
১৯৪৫-৪৬


উত্তরসূরী
লাজলো রাক
পূর্বসূরী
আরপদ সাবো
জাতীয় পরিষদের স্পিকার
১৯৪৭-১৯৪৯


উত্তরসূরী
কারোলি অল্ট
পূর্বসূরী
মাতিয়াস রাকোসি
হাঙ্গেরীয় প্রধানমন্ত্রী
১৯৫৩-১৯৫৫


উত্তরসূরী
আন্দ্রাস হেগেদাস
পূর্বসূরী
আন্দ্রাস হেগেদাস
হাঙ্গেরীয় প্রধানমন্ত্রী
১৯৫৬


উত্তরসূরী
জানোস কাদার
পূর্বসূরী
ইমরে হোরভাথ
পররাষ্ট্রমন্ত্রী
১৯৫৬


উত্তরসূরী
ইমরে হোরভাথ