সুদীপ্ত সাঈদ খান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সুদীপ্ত সাইদ খান
জন্ম১০ অক্টোবর ১৯৯০
নাগরিকত্ববাংলাদেশি
শিক্ষাস্নাতক
পেশালেখক ও সাংবাদিক
পিতা-মাতা
  • আব্দুল মান্নান খান (পিতা)
  • মনোয়ারা বেগম (মাতা)
পুরস্কারজাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার (২০১৮)
ওয়েবসাইটhttps://kalbela.com/

সুদীপ্ত সাইদ খান একজন বাংলাদেশি সাংবাদিক, লেখক ও চিত্রনাট্যকার। তিনি জান্নাত (২০১৮) চলচ্চিত্রের কাহিনি রচনার জন্য ৪৩তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে শ্রেষ্ঠ কাহিনীকার বিভাগে পুরস্কার লাভ করেন।[১]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

সুদীপ্ত সাইদ খান লেখালেখির শুরু ১৯৯৫ সালে। শুরুতে ছড়া লিখলেও পরে কবিতা লেখা শুরু করেন। ২০১১ সালে বাংলা একাডেমির তরুণ লেখক প্রকল্পের তৃতীয় ব্যাচে প্রশিক্ষণও নিয়েছেন তিনি।

তার প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা দুটি । শিশু কিশোর বিষয়ক কবিতার বই ‘রূপসী’ প্রকাশিত হয় ২০০৬ সালে। ১০ বছর বিরতি নিয়ে ২০১৬ সালে প্রকাশ করেন তার দ্বিতীয় বই, কাব্যগ্রন্থ ‘মাতাল আত্মপাঠ’।

কবিতা চর্চার পাশাপাশি তিনি লিটল ম্যাগ আন্দোলনের সঙ্গেও সম্পৃক্ত ছিলেন। ‘লিটলম্যাগ প্রাঙ্গণ’ এর নির্বাহী সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। নিজের সম্পাদনায় ‘নৈর্ব্যক্তিক’ নামে একটি লিটলম্যাগ সম্পাদনাও করেছেন।

পেশাগত জীবনে সুদীপ্ত সাংবাদিকতার সঙ্গে সম্পৃক্ত। ২০০৮ সাল থেকে বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক পত্রিকা ও নিউজ পোর্টালে সাংবাদিকতা করে বর্তমানে দৈনিক কালবেলা পত্রিকায় সহ-সম্পাদক হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। এর আগে তিনি দৈনিক দেশরূপান্তর, প্রিয় ডটকম, চ্যানেল আই, বাংলা ট্রিবিউন, নিউজবাংলাদেশ, পাক্ষিক অনন্যা, পাক্ষিক তারকা কাগজ’সহ একাধিক অনলাইন ও পত্রিকায় কাজ করেছেন।

২০১৮ সালে তিনি জান্নাত চলচ্চিত্রের কাহিনি রচনা করেন। এটি ছিল চলচ্চিত্রে তার প্রথম কাজ। এই চলচ্চিত্রের কাহিনি রচনার জন্য তিনি শ্রেষ্ঠ কাহিনীকার বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন।[২]

পুরস্কার[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রদানের আসর বসছে আজ"দেশ টিভি। সংগ্রহের তারিখ ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ 
  2. "শ্রেষ্ঠ কাহিনীকার হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেলেন সাংবাদিক সুদীপ্ত"দৈনিক ইনকিলাব। সংগ্রহের তারিখ ৮ ডিসেম্বর ২০১৯