মোজাম্বিক জাতীয় ফুটবল দল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মোজাম্বিক
দলের লোগো
ডাকনামওস মাম্বাস
অ্যাসোসিয়েশনমোজাম্বিকীয় ফুটবল ফেডারেশন
কনফেডারেশনক্যাফ (আফ্রিকা)
প্রধান কোচলুইস গন্সালভেস
অধিনায়কজাইনাদিন জুনিয়র
সর্বাধিক ম্যাচতিকো-তিকো (৯৪)
শীর্ষ গোলদাতাতিকো-তিকো (৩০)
মাঠজিম্পেতো স্টেডিয়াম
ফিফা কোডMOZ
ওয়েবসাইটwww.fmf.co.mz
প্রথম জার্সি
দ্বিতীয় জার্সি
ফিফা র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ১১৯ হ্রাস ২ (৩১ মার্চ ২০২২)[১]
সর্বোচ্চ৬৬ (নভেম্বর ১৯৯৭)
সর্বনিম্ন১৩৪ (জুলাই ২০০৫, সেপ্টেম্বর ২০০৬)
এলো র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ১৩৬ বৃদ্ধি ৯ (৩০ এপ্রিল ২০২২)[২]
সর্বোচ্চ৮৫ (সেপ্টেম্বর ১৯৮৫)
সর্বনিম্ন১৫১ (মার্চ ২০০৩)
প্রথম আন্তর্জাতিক খেলা
 মোজাম্বিক ২–১ জাম্বিয়া 
(মোজাম্বিক; ২৫ জুন ১৯৭৫)
বৃহত্তম জয়
 মোজাম্বিক ৬–১ লেসোথো 
(মোজাম্বিক; ১০ আগস্ট ১৯৮০)
 মোজাম্বিক ৫–০ দক্ষিণ সুদান 
(মোজাম্বিক; ১৮ মে ২০১৪)
বৃহত্তম পরাজয়
 জিম্বাবুয়ে ৬–০ মোজাম্বিক 
(সালিসবুরি, জিম্বাবুয়ে; ২০ এপ্রিল ১৯৮০)
আফ্রিকা কাপ অফ নেশন্স
অংশগ্রহণ৪ (১৯৮৬-এ প্রথম)
সেরা সাফল্যগ্রুপ পর্ব (১৯৮৬, ১৯৯৬, ১৯৯৮, ২০১০)

মোজাম্বিক জাতীয় ফুটবল দল (ইংরেজি: Mozambique national football team) হচ্ছে আন্তর্জাতিক ফুটবলে মোজাম্বিকের প্রতিনিধিত্বকারী পুরুষদের জাতীয় দল, যার সকল কার্যক্রম মোজাম্বিকের ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা মোজাম্বিকীয় ফুটবল ফেডারেশন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। এই দলটি ১৯৮০ সাল হতে ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা ফিফার এবং ১৯৭৮ সাল হতে তাদের আঞ্চলিক সংস্থা আফ্রিকান ফুটবল কনফেডারেশনের সদস্য হিসেবে রয়েছে। ১৯৭৫ সালের ২৫শে জুন তারিখে, মোজাম্বিক প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক খেলায় অংশগ্রহণ করেছে; মোজাম্বিকে অনুষ্ঠিত উক্ত ম্যাচে মোজাম্বিক জাম্বিয়াকে ২–১ গোলের ব্যবধানে পরাজিত করেছে।

৪২,০০০ ধারণক্ষমতাবিশিষ্ট জিম্পেতো স্টেডিয়ামে ওস মাম্বাস নামে পরিচিত এই দলটি তাদের সকল হোম ম্যাচ আয়োজন করে থাকে। এই দলের প্রধান কার্যালয় মোজাম্বিকের রাজধানী মাপুতুতে অবস্থিত। বর্তমানে এই দলের ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করছেন লুইস গন্সালভেস এবং অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করছেন মারিতিমোর রক্ষণভাগের খেলোয়াড় জাইনাদিন জুনিয়র

মোজাম্বিক এপর্যন্ত একবারও ফিফা বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করতে পারেনি। অন্যদিকে, আফ্রিকা কাপ অফ নেশন্সে মোজাম্বিক এপর্যন্ত ৪ বার অংশগ্রহণ করেছে, যার প্রত্যেকবার তারা শুধুমাত্র গ্রুপ পর্বে অংশগ্রহণ করতে সক্ষম হয়েছিল।

তিকো-তিকো, চিকুইনিয়ো কঁদে, দোমিঙ্গুয়েস, দারিও মোন্তেইরো এবং জেরি সিতোয়ের মতো খেলোয়াড়গণ মোজাম্বিকের জার্সি গায়ে মাঠ কাঁপিয়েছেন।

র‌্যাঙ্কিং[সম্পাদনা]

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে, ১৯৯৭ সালের নভেম্বর মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে মোজাম্বিক তাদের ইতিহাসে সর্বোচ্চ অবস্থান (৬৬তম) অর্জন করে এবং ২০০৫ সালের জুলাই মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে তারা ১৩৪তম স্থান অধিকার করে, যা তাদের ইতিহাসে সর্বনিম্ন। অন্যদিকে, বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে মোজাম্বিকের সর্বোচ্চ অবস্থান হচ্ছে ৮৫তম (যা তারা ১৯৮৫ সালে অর্জন করেছিল) এবং সর্বনিম্ন অবস্থান হচ্ছে ১৫১। নিম্নে বর্তমানে ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং এবং বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে অবস্থান উল্লেখ করা হলো:

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং
৩১ মার্চ ২০২২ অনুযায়ী ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং[১]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
১১৭ বৃদ্ধি  লিবিয়া ১১৪৯.৬৩
১১৮ বৃদ্ধি  গুয়াতেমালা ১১৪৭.৮৫
১১৯ হ্রাস  মোজাম্বিক ১১৪৬.০৯
১২০ হ্রাস  মালাউই ১১৪৫.০৮
১২১ বৃদ্ধি  টোগো ১১৪০
বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং
৩০ এপ্রিল ২০২২ অনুযায়ী বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং[২]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
১৩৪ বৃদ্ধি  বতসোয়ানা ১৩০০
১৩৫ হ্রাস ১৯  কঙ্গো ১২৯৮
১৩৬ বৃদ্ধি  মোজাম্বিক ১২৯৪
১৩৭ বৃদ্ধি ১০  কিউবা ১২৮৯
১৩৭ বৃদ্ধি  তুর্কমেনিস্তান ১২৮৯

প্রতিযোগিতামূলক তথ্য[সম্পাদনা]

ফিফা বিশ্বকাপ[সম্পাদনা]

ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
সাল পর্ব অবস্থান ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো
উরুগুয়ে ১৯৩০ পর্তুগালের অংশ ছিল পর্তুগালের অংশ ছিল
ইতালি ১৯৩৪
ফ্রান্স ১৯৩৮
ব্রাজিল ১৯৫০
সুইজারল্যান্ড ১৯৫৪
সুইডেন ১৯৫৮
চিলি ১৯৬২
ইংল্যান্ড ১৯৬৬
মেক্সিকো ১৯৭০
পশ্চিম জার্মানি ১৯৭৪
আর্জেন্টিনা ১৯৭৮ অংশগ্রহণ করেনি অংশগ্রহণ করেনি
স্পেন ১৯৮২ উত্তীর্ণ হয়নি
মেক্সিকো ১৯৮৬ অংশগ্রহণ করেনি অংশগ্রহণ করেনি
ইতালি ১৯৯০
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৯৯৪ উত্তীর্ণ হয়নি ১১
ফ্রান্স ১৯৯৮
দক্ষিণ কোরিয়া জাপান ২০০২
জার্মানি ২০০৬
দক্ষিণ আফ্রিকা ২০১০ ১২ ১০ ১০
ব্রাজিল ২০১৪ ১০
রাশিয়া ২০১৮
কাতার ২০২২ অনির্ধারিত অনির্ধারিত
মোট ০/২১ ৩৪ ১৮ ৩০ ৪৯

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "ফিফা/কোকা-কোলা বিশ্ব র‍্যাঙ্কিং"ফিফা। ৩১ মার্চ ২০২২। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মার্চ ২০২২ 
  2. গত এক বছরে এলো রেটিং পরিবর্তন "বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং"eloratings.net। ৩০ এপ্রিল ২০২২। সংগ্রহের তারিখ ৩০ এপ্রিল ২০২২ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]