মঙ্গলেশ্বর শিব মন্দির

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(মঙ্গলেশ্বরের শিব মন্দির থেকে পুনর্নির্দেশিত)
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মঙ্গলেশ্বর শিব মন্দির
Mangalesvara Siva Temple..png
ধর্ম
অন্তর্ভুক্তিহিন্দুধর্ম
শ্বরভগবান শিব
অবস্থান
অবস্থানভুবনেশ্বর
রাজ্যওড়িশা
দেশভারত
মঙ্গলেশ্বর শিব মন্দির ওড়িশা-এ অবস্থিত
মঙ্গলেশ্বর শিব মন্দির
Location in Orissa
ভৌগোলিক স্থানাঙ্ক২০°১৪′৩৮″ উত্তর ৮৫°৫০′৩৮″ পূর্ব / ২০.২৪৩৮৯° উত্তর ৮৫.৮৪৩৮৯° পূর্ব / 20.24389; 85.84389স্থানাঙ্ক: ২০°১৪′৩৮″ উত্তর ৮৫°৫০′৩৮″ পূর্ব / ২০.২৪৩৮৯° উত্তর ৮৫.৮৪৩৮৯° পূর্ব / 20.24389; 85.84389
স্থাপত্য
ধরনকলিঙ্গ শৈলী
সম্পূর্ণ হয়১৪ তম শতাব্দী
উচ্চতা১৪ মি (৪৬ ফু)

মঙ্গলেশ্বর শিব মন্দির হল ভারতের অঙ্গরাজ্য উড়িষ্যার রাজধানী ভুবনেশ্বরের হিন্দু মন্দির যা ভগবান শিবের উদ্দেশে নিবেদিত একটি শিব মন্দির। এটি ২০.১৪৩৮ ডিগ্রি উত্তর, ৮৫.৫০৩৮ ডিগ্রি পূর্বে অবস্থিত এবং মন্দিরটি সমুদ্রসমতল থেকে ফুট উঁচুতে অবস্থিত।

অবস্থান[সম্পাদনা]

মন্দির পাপনাশীনি নদীর প্রান্তে এবং দক্ষিণ বাঁধ নেভিগেশন অবস্থিত। মন্দির পূর্ব দিকের মুখোমুখি এবং দেবতা একটি নিখুঁত বৃত্তাকার বেদি। লিঙ্গাম বা শিব লিঙ্গ অনুপস্থিত। বর্তমান রাস্তা থেকে মন্দির ১.৬০ মিটার নিচে।

সংক্রান্তি, শিবরাত্রি এবং জলাভিষেক মতো ধর্মিও সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড সঞ্চালিত হয় মন্দিরে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

মন্দির জনসাধারণের সম্পত্তি। ত্বারিণী বাতু এই মন্দির এর পুরোহিত এবং তার নির্দেশিত স্থাপত্য বৈশিষ্ট্য দ্বারা মন্দিরটি ১৪ তম শতাব্দীর সময়ে নির্মিত হয়েছিল।

স্থাপত্য[সম্পাদনা]

এটি একটি প্রিভিন্ট এবং টাইপোলোজি রেখা এবং পাইধা। এর আগে এটি পূজা জন্য ব্যবহৃত হয় কিন্তু এখন এটি একটি জীবন্ত মন্দির হয়।

মন্দিরটির উত্তরে ৬.৭০ মিটার দূরত্বে অবস্থিত পাপনাশীনি ট্যাঙ্ক এবং পশ্চিম ও দক্ষিণে পাপনাশীনি ট্যাংকের প্রাচীর। মন্দিরটির পূর্ব দিকে একটি দোকান রয়েছে।

অবস্থান: মন্দির পূর্ব দিকে সম্মুখীন হয় অবস্থিত।

মাপ[সম্পাদনা]

পরিকল্পনায়, মন্দিরের একটি বর্গিমর্ম বর্গ ৩.৩০ বর্গ মিটার এবং একটি বর্গক্ষেত্র ৪.৫ কাঠা জমি যা বর্গ মিটার পরিমাপ করা হয়। গ্যান্থিয়ালার দৈর্ঘ্য ০.৪০ মিটার। উদ্যানের পবিত্র স্থানটি ১.২০ বর্গ মিটার এবং যগমহান পদ্ধতির পরিমাপ ২.৫০ বর্গ মিটার। বর্ধিতকরণে, বানিজ্য রেখা অর্ডারের যেটি ৮.১৪ মিটার উঁচু আকারের পঞ্চভূম থেকে মাষ্টাক পর্যন্ত। মন্দিরটি একটি বড় গদি এবং মস্তকা রয়েছে। বর্মের পাঁচগুণ বিভাজনের সাথে এটি ২.৫৫ মিটার পরিমাপ করে। নীচের অংশে পলাগা পাঁচটি খাল, কুঁড়া, পাটা, কানি এবং বসন্তের পাঁচটি মৌসুম রয়েছে যা উচ্চতা ০.৬১ মিটার, তাজঙ্গা পরিমাপ ০.৪৫ মিটার, বন্দনা ০.২১ মিটার, ঊর্ধ্বাঙ্গা ০.৫৮ মিটার এবং বারান্দা ০.৫৯ মিটার। ব্রীজটির গণ্ডি ৩.৭০ মিটার উচ্চতায় সেন্ট্রাল রাহা এবং আনুরাত এবং কানিকা পাগাগুলির একটির সাথে উভয় দিকই রয়েছে। বীমাকৃতির মস্তকা পরিমাপ ২.০০ মিটার উচ্চতা। জগমোহনের বাদাটির দৈর্ঘ্য ২.২০ মিটারের উচ্চতা পাঁচগুণ রয়েছে। পলাগা পাঁচটি খাল, কুঁড়া, পাটা, কান এবং বসন্ত পরিমাপ ০.৫৭ মিটার উচ্চতা, তাজঙ্গা ০.৫৩ মিটার, বন্দনা ০.১৩ মিটার, ঊর্ধ্বাঙ্গা ০.৫২ মিটার এবং বারান্দা ০.৪৫ মিটার। জগমোহনের গদি ও মস্তকা মজুরি যথাক্রমে ১.৬০ মিটার এবং ১.৮৫ মিটার। বীমার একটি বর্ধিত স্পার রয়েছে, তবে জগমোহনের একটি পিরামিড গণ্ডি আছে, যেখানে দুটি পলাতুল আছে একটি ছিদ্র কাণ্ড দ্বারা পৃথক। নিচের পোটালাটিতে তিনটি টিয়ার রয়েছে এবং উচ্চতর দুইটি টিয়ার। জগমোহনের উত্তর ও দক্ষিণের দেওয়ালের বাড়াতে দুইটি বালাস্ট্রয়েড উইন্ডো রয়েছে। রাহা কুলুঙ্গি ও পার্বা দেবতারা: উত্তর, পশ্চিম ও দক্ষিণের তিন দিকে তিলাঙ্গাঘাছের পাহাড়ের পাদদেশে অবস্থিত বিশদবত্নমূর্তি ০.৬০ মিটার উচ্চতা x ০.৩০ মিটার প্রস্থ x ০.১৫ মিটার গভীরতায় অবস্থিত।

আলংকারিক বৈশিষ্ট্য[সম্পাদনা]

দ্বারজমগুলির তিনটি সরল উল্লম্ব ব্যান্ড রয়েছে যা উচ্চতায় ১.৬০ মিটার এবং প্রস্ত ১.২৮ মিটার। দরজার পেছনে রয়েছে দ্বারপালের পীঠামন্দির ব্যবস্থা যা উচ্চতায় ০.২২ মিটার, প্রস্তে ০.১১ মিটার। লালতাবিম্বার লক্ষ্মী দেবী পদ্মাসনে বসে আছেন এবং তাঁর উভয় হাতই পদ্ম বা কমলা রয়েছে। জগমোহনের দরজায় ১.৬৩ মিটার x ১.১২ মিটার মাপের। এটি প্রতিটি পাশে তিনটি সরল উল্লম্ব ব্যান্ড আছে এবং দরজার চৌম্বকক্ষেত্রে সেখানে রয়েছে শিবের দ্বাপরাল। দ্বারপাল্লা উচ্চতা ০.২০ মিটার ওবং প্রস্থ ০.২০ মিটার। দ্বাপারপাল তাদের বাম হাত ত্রিভুজটি ধরে রাখে এবং তাদের ডান হাতটি বারাডা মুদ্রায় থাকে। শ্রীরামম্ফায় লক্ষ্মী পণ্ডমশানে বিহ্বল হয়ে পড়ে এবং দেবতার উভয় হাতেই কমল রয়েছে।

দ্বারজমগুলির উপরে আর্কিতরাজের উপরে একটি খোদিত নবগঠন প্যানেল রয়েছে যার মধ্যে রবি (সূর্য) তার হাতে একটি কূট আছে। রাহু তার হাতে একটি ধনুক বা অর্ধচন্দ্র রাখেন। কেতু একটি সর্প পুঙ্খানুপুঙ্খ সঙ্গে অঙ্কিত হয়।

  • নির্মাণ উপাদান: ল্যাটারাইট
  • নির্মাণ কৌশল: শুকনো দাগন
  • শৈলী: কালিঙ্গ

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  • Dr. Sadasiba Pradhan & Team, Dated on 15.11.2006,Debala Mitra, ‘Bhubaneswar’ New Delhi, 1958, P. 29.
  • K.C. Panigrahi, Archaeological Remains at Bhubaneswar, Calcutta, 1961. PP. 16–17 and 25.
  • L. S.S. O’ Malley, Bengal District Gazetteer Puri, Calcutta 1908, P. 240.
  • M.M. Ganguly, Orissa and Her remains, Calcutta, 1912, PP. 393–394.
  • P.R. Ramachandra Rao, Bhubaneswar Kalinga Temple Architecture, Hyderabad, 1980, P. 29.
  • R.P. Mohapatra, ‘Archaeology in Orissa’. Vol. I, Delhi, 1986. P. 57.
  • R.L. Mitra. The Antiauities of Orissa, Vol.II, Calcutta, 1963, PP. 160–161.
  • T.E. Donaldson, ‘Hindu Temple Art of Orissa’. Vol. I, Leiden, 1985, P. 76.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]