লক্ষেশ্বর শিব মন্দির

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
লক্ষেশ্বর মন্দির
ধর্ম
অন্তর্ভুক্তিহিন্দুধর্ম
অবস্থান
অবস্থানভুবনেশ্বর
রাজ্যওড়িশা
দেশভারত
লক্ষেশ্বর শিব মন্দির ওড়িশা-এ অবস্থিত
লক্ষেশ্বর শিব মন্দির
Location in Odisha
লক্ষেশ্বর শিব মন্দির ভারত-এ অবস্থিত
লক্ষেশ্বর শিব মন্দির
Location in Odisha
ভৌগোলিক স্থানাঙ্ক২০°১৫′২২″ উত্তর ৮৫°৫০′১৮″ পূর্ব / ২০.২৫৬১১° উত্তর ৮৫.৮৩৮৩৩° পূর্ব / 20.25611; 85.83833স্থানাঙ্ক: ২০°১৫′২২″ উত্তর ৮৫°৫০′১৮″ পূর্ব / ২০.২৫৬১১° উত্তর ৮৫.৮৩৮৩৩° পূর্ব / 20.25611; 85.83833
স্থাপত্য
ধরনকলিঙ্গ শৈলী
সম্পূর্ণ হয়১৩ তম শতাব্দী
উচ্চতা১৮ মি (৫৯ ফু)

বর্তমান নাম- লক্ষেশ্বর শিব মন্দির। (১৩ শত খ্রিস্টাব্দ) অবস্থান: ২০.১৪৩৩ উত্তর ও ৮৫.৫০১৭ পূর্ব। উচ্চতা ৬০ ফুট। উপকেন্দ্র- লক্ষেশ্বর শিব মন্দিরটি গঙ্গা-যমুনা রাস্তার ডানদিকে অবস্থিত লিঙ্গরাজ বাজার কমপ্লেক্স, পুরাতন শহর, ভুবনেশ্বর। এটি লিঙ্গরাজ মন্দিরের ৭০ মিটার উত্তর-পূর্বে এবং গঙ্গেশ্বরের ১০ মিটার দক্ষিণে এবং রাস্তা জুড়ে যমুনেশ্বর শিব মন্দিরের কাছে অবস্থিত। মন্দির পূর্ব দিকে সম্মুখীন। সন্নিহিত দেবতা একটি বৃত্তাকার বেদি বা ইউনি-পীঠের মধ্যে একটি শিব লিঙ্গ, যা চন্দ্রশিলা থেকে ০.৭৭ মিটার নিচে।

ঐতিহ্য ও কিংবদন্তী[সম্পাদনা]

স্থানীয় মানুষ মন্দির ঐতিহাসিক কিংবদন্তি প্রতি উদাসীন। এটা দেখেছি পরে গঙ্গা-যমুনা সংগ্রাহকের সদস্যদের দ্বারা। ঠিকানা: গঙ্গাস-যমুনা রোড, পুরাতন শহর, ভুবনেশ্বর।

তথ্য উৎস[সম্পাদনা]

সৌরশক্তি পরিকল্পনা এবং অরুঠা পাগা লৌহ নকশা দ্বারা সজ্জিত করা হয়।

ক) ঐতিহাসিক তাত্পর্য: স্থানীয় ঐতিহ্য গঙ্গাসে মন্দিরকে স্বীকৃতি দেয়

খ) সাংস্কৃতিক তাত্পর্য: শিবরাত্রি, সংক্রান্তি, চন্দনা উত্সব, কার্তিক-পূর্ণিমা, জালভীশেকা ইত্যাদি তার প্রেক্ষিতে উদযাপন করা হয়।

গ) সামাজিক তাত্পর্য: মন্দিরের সীমানা জন সভার জন্য ব্যবহৃত হয়।

শারীরিক বিবরণ[সম্পাদনা]

ক) আশেপাশে: মন্দিরের উত্তর দিকেগঙ্গা-যমুনা রাস্তা অবস্থিত এবং বাকি তিনটি দিকের ব্যক্তিগত আবাসিক ভবনগুলি। মন্দিরের সম্মুখ ভাগ পূর্ব দিকের সম্মুখীন।

খ) স্থাপত্য বৈশিষ্ট্য: বর্তমানে মন্দির ১১.০৮ মিটার দীর্ঘ x ৫.৭০ মিটার প্রস্থ x ০.৪৩ মিটার উচ্চতায় কাঠামোর উপর দাঁড়িয়ে আছে। পরিকল্পনায়, মন্দির একটি বর্গিমর্ম এবং একটি পুনর্নবীকরণ বহির্ভাগের সঙ্গে বার্তাবাহক সপ্তরথ রয়েছে। ভিয়ামানানা ৫.৪০ বর্গ মিটার এবং পোরকমেসিং ০.৯০ মিটার পূর্ব দিকে প্রসারিত করে। মন্দিরের কক্ষটি ২.৪৫ বর্গ মিটার। উঁচুতে, রেখার দেউল আদেশে বাদা, গন্ডি, মস্তকা ১৩.০৫ মিটার উচ্চতা। বাদাটির উচ্চতা ৩.৫৫ মিটার পরিমাপের পাঁচগুণ বিভাজন রয়েছে। পূভাগ (০.৯৩ মিটার) এর পাঁচটি ছাঁচনির্মাণ, তালা জঙ্গা (০.৮৩ মিটার), তিনটি ছাঁচনির্মাণ (০.২৭ মিটার), বর্ধনগঙ্গা (০.৮৭ মিটার), বারান্দা (সাত মিটার) (০.৬৫ মিটার) দিয়ে বাঁধানা। মন্দিরের গণ্ডি ৬.০০ মিটার উচ্চতা পরিমাপ করে। মস্তকা উচ্চতা ৩.৫০ মিটার বেকে, আমলাক, খাপুরি এবং কালসা এর মধ্যে রয়েছে।

গ) রাহা কুলুঙ্গি ও পার্বা দেবতারা: রাহা পগাতে উত্তর, দক্ষিণ ও পশ্চিমে অবস্থিত পারভবেভাসের নিক ০.৮১ মিটার উচ্চতা ০.৫৭ মি প্রস্থ x ০.৮৩ মিটার গভীরতা মিটার। বর্তমানে সব খালি আছে।

আলংকারিক বৈশিষ্ট্য[সম্পাদনা]

পলাগ নগরীর রাহা মৌসুমের ভিত্তিটি তালগৌক্তির সাথে সজ্জিত। রাহা কুলুঙ্গিটি একটি বিভা মোটিফ দ্বারা পরিচালিত হয় যার মধ্যে একটি চট্টি চিত্তের মোটিফ দুটি নারী দ্বারা প্রবাহিত হয় এবং উভয় পক্ষের একটি শঙ্কু। এটা উপরে আছে গাজাক্রান্ত বকী ছিটমহলগুলি কানিকা পাগড়ের উপরে রাহা ও দো-পঞ্চা সিং এর উপরে শিব দেবতা। আনু রাধা এবং কণিক প্যাগের মধ্যে সমন্বয় করা কমল নকশাগুলির একটি ছোট প্যাড দিয়ে সজ্জিত করা হয়। রাহা পগাটি চৈতীর নকশা দিয়ে সজ্জিত এবং অঞ্ছিত পাগাটি আঙিসখার হিসাবে ক্ষুদ্রতর রেখা দেউল এর একটি সিরিজ দিয়ে সজ্জিত করা হয়। মন্দির দশটি কেরামতী দশটি ভূমি-আমলাদের সমন্বয়ে গঠিত। দোঞ্জজাম: দ্যজারজাম একটি সাম্প্রতিক সংযোজন এবং কোন অলঙ্করণের বর্জিত।

বিশেষ বৈশিষ্ট্য[সম্পাদনা]

পঞ্চভূভাগে নিম্নাংশের ভিত্তিটি দুটি উল্লিখিত স্তম্ব দ্বারা গঠিত একটি রেখা দেউল এবং পদ্মগুলির সমন্বয়ে সজ্জিত করা হয়, যা কমপ্লেক্স ডিজাইন দিয়ে সজ্জিত করা হয় যা মন্দিরটিকে সপ্তরথ হিসাবে গড়ে তুলেছে।

সংরক্ষণের অবস্থা[সম্পাদনা]

ছাদে ফাটল এবং অধস্তন দেওয়ালের মাধ্যমে বৃষ্টির জলের সংমিশ্রণ ঘটছে। মন্দিরের উত্তরের প্রাচীরের মধ্যে ফাটলগুলি লক্ষ্য করা যায়। বাদা মন্দিরের দক্ষিণ-পশ্চিমাংশে অংশগুলি আংশিকভাবে বন্ধ করা হয়েছে।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]