নাগেশ্বর মন্দির, ভুবনেশ্বর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
নাগেশ্বর মন্দির
ধর্ম
অন্তর্ভুক্তিহিন্দুধর্ম
অবস্থান
অবস্থানভুবনেশ্বর
রাজ্যওড়িশা
দেশভারত
স্থাপত্য
ধরনকলিঙ্গ শৈল
উচ্চতা৮ মি (২৬ ফু)
প্রধান প্রবেশ পথ
পার্শ্ব ছবি

নাগেশ্বর মন্দির হল ভারতের ওড়িশা রাজ্যের একটি পরিত্যক্ত হিন্দু মন্দির। মন্দিরটি ওড়িশার রাজধানী শহর ভুবনেশ্বরের কাছে গ্রামে অঞ্চলে অবস্থিত। এটি খাল জুড়ে অবস্থিত সুবর্ণেশ্বর শিব মন্দিরের পশ্চিমে ১০.৩৫ মিটার (৩৪.০ ফুট) দূরত্বে লিঙ্গরাজ পশ্চিম খালের পশ্চিমাংশের ডান তীরে অবস্থিত। অনুমান করা হয় যে মন্দিরটিতে ভগবান শিবর পূজা করা হত।

বিবরণ[সম্পাদনা]

নাগেশ্বর মন্দির ভুবনেশ্বরের গ্রামে আবাসিক বা কৃষি এলাকার মাঝখানে অবস্থিত। মন্দিরটি ৫.০ মিটার (১৬.৪ ফুট) গভীরতাযর ০.৪ মিটার (১.৩ ফু) উচ্চ দ্বারা ৫.৬ মিটার (১৮ ফুট) প্রশস্তের একটি ভিতের উপরে পূর্ব দিকে মুখোমুখি দাঁড়িয়ে আছে। মন্দিরটির উচ্চতা হল ৮.১৫ মিটার (২৬.৭ ফুট)।মন্দিরটির সমুখ ভাগে রয়েছে প্রবেশ পথ বা দরজা। প্রবেশ পথের নীচে দুইপাশে রয়েছে পাথরের উপর নির্মিত চিত্র-মূর্তি। দরজার উপড়েও রয়েছে এমনই একটি চিত্র-মূর্তি। মন্দির বহির ভাগের দেয়াল জুড়ে বিভিন্ন চিত্র আঁকা রয়েছে।

মন্দিরের গর্ব মহিষ খালি। তবে মন্দিরটির বহিরাগত প্রাচীরের ভাস্কর্যের অভিলাষগুলিই নির্দেশ করে যে মন্দিরটিকে মূলত প্রভু শিভা নিবেদিত করা হয়েছিল। তবে অনেকের মতে মন্দিরটি দেবতা শিবর উদ্দেশ্যে নির্মিত হয়েছিল।

মন্দির মূর্তি জন্য অনেক niches অন্তর্ভুক্ত, যদিও মূর্তি নিজেই বিদ্যমান না। মন্দিরটির বহির্ভাগ নির্মিত হয়েছিল উচ্ছল, বালিপাথর (চৌধনিয়াপদর মুক্তেশ্বর মন্দির- এর উপাদানগুলির অনুরূপ) দ্বারা কলিঙ্গ রাজবংশের রাজত্বকালে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

নাগেশ্বর মন্দিরটি ওড়িশার মন্দির গুলির মধ্যে অন্যতম প্রাচীন মন্দির। মন্দিরটি কলিঙ্গ রাজবংশের রাজত্বকালে নির্মিত হয়েছিল। স্থানীয় বাসিন্দারা বিশ্বাস করেন যে কেশরস দ্বারা মন্দিরটি নির্মিত হয়েছিল। মন্দিরতে কোনো কারণে পূজাপাঠ বন্ধ হয়ে পড়ে। বর্তমান সময়েও মন্দিরটিতে পূজা হয় না।

সংরক্ষণ অবস্থা[সম্পাদনা]

মন্দির আজ সাধারণত ভাল অবস্থায় আছে, তবে কিছু আঁকা পৃষ্ঠতল মন্দিরটির থেকে খুলে পরেছে বা হারিয়ে গেছে। মন্দিরটির বহির্বিভাগে গাছপালা ও আগাছা জন্মেছে ও মন্দিরটির ক্ষয়সাধন কোরে চলেছে।

উড়িষ্যা রাজ্য পুরাতাত্ত্বিক বিভাগের দ্বারা মন্দিরটি পুনরুদ্ধার করা হয় এবং পুনর্নির্মাণ করা হয়, যার ফলে পাথরগুলি সাদা রঙে চিহ্নিত করা হয়, যা স্থাপত্যিক ভবনটিকে ক্ষয় ও বিকৃত করে।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]