অষ্টশম্ভু শিবমন্দির

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
অষ্টশম্ভু শিবমন্দির
Astasambhu Siva Temple-I.jpg
ধর্ম
অন্তর্ভুক্তিহিন্দুধর্ম
শ্বরশিব
অবস্থান
অবস্থানভুবনেশ্বর
রাজ্যওড়িশা রাজ্য
দেশভারত
অষ্টশম্ভু শিবমন্দির ওড়িশা-এ অবস্থিত
অষ্টশম্ভু শিবমন্দির
ওড়িশাতে অবস্থান
ভৌগোলিক স্থানাঙ্ক২০°১৪′৩৭.২৮″ উত্তর ৮৫°৫০′১০.০৪″ পূর্ব / ২০.২৪৩৬৮৮৯° উত্তর ৮৫.৮৩৬১২২২° পূর্ব / 20.2436889; 85.8361222স্থানাঙ্ক: ২০°১৪′৩৭.২৮″ উত্তর ৮৫°৫০′১০.০৪″ পূর্ব / ২০.২৪৩৬৮৮৯° উত্তর ৮৫.৮৩৬১২২২° পূর্ব / 20.2436889; 85.8361222
স্থাপত্য
ধরনকলিঙ্গ শৈলী
সম্পূর্ণ হয়১০ম শতক
উচ্চতা৩৩ মি (১০৮ ফু)

অষ্টশম্ভু শিবমন্দির ভারতের ওড়িশা রাজ্যের রাজধানী ভুবনেশ্বরে অবস্থিত দেবতা শিবের উদ্দেশ্যে নির্মিত আটটি মন্দিরের সমষ্টি।[১]

বর্ণনা[সম্পাদনা]

উত্তরেশ্বর শিবমন্দির সীমানার মধ্যে একই আকৃতির এবং একই রকমের দেখতে আটটি মন্দির আছে যা স্থানীয়ভাবে অষ্ঠশম্ভু নামে পরিচিত। অষ্ট মানে আট এবং শম্ভু হচ্ছে শিবের নাম। এর মধ্যে পাঁচটি মন্দির একই অক্ষে থাকায় তারা একত্রে পঞ্চ পান্ডব নামে পরিচিত। অষ্টশম্ভু মন্দির ব্যক্তিমালিকানাধীন এবং রত্নাকর গার্গাবাতু ও পরিবার মন্দিরটির দেখাশোনা করেন। বড় অংশ এবং পভগের প্রত্নতাত্ত্বিক বৈশিষ্ট্য মন্দিরটি ১০ শতকের নির্মাণ বলে নির্দেশ করে। পাথরে নির্মিত মন্দিরটি রেখা দেউল ধরণের। মন্দিরটির পুর্বে গোদাবরী দীঘি, পশ্চিমে উত্তরেশ্বর মন্দিরের সীমানা প্রাচীর এবং দক্ষিণে বিন্দুসাগর দীঘি। মন্দিরটি পূর্বমুখী।

স্থাপত্যশৈলী[সম্পাদনা]

মন্দিরটিতে ২.৪৫ মিটার পরিমাপের একটি বর্গাকার বিমান আছে যা সম্মুখ পোর্চের পরিমাপ ০.৫৩ মিটার। এটা পঞ্চরথ শৈলীর।

উত্তর, পশ্চিম ও দক্ষিণে পার্শ্বদেবতাদের কুলুঙ্গি আছে। দক্ষিণ ব্যতীত বাকি দুই কুলুঙ্গি ফাঁকা। কুলুঙ্গি গুলো খাখাড়া রীতির তলগর্ভিকা ও উর্ধ্বগর্ভিকা দ্বারা সজ্জিত। দক্ষিণের কুলুঙ্গিতে চারহাতযুক্ত গণেশ বিরাজমান যার নিচের বাম হাতে পরশু ও ডান হাতে অক্ষমালা সহ বারদামুদ্রা ধরা। উপরের হাত ভাঙা। মন্দিরটির গঠনশৈলীতে কলিঙ্গস্থাপত্যশৈলীর ছাপ আছে। দরজার পাল্লা উচ্চতায় ১.২০ মিটার এবং প্রস্থে ০.৮৪ মিটার। দরজার দুইপাশে দ্বারপাল কুলুঙ্গি আছে যার প্রতিটির উচ্চতা ০.২৮ মিটার এবং প্রস্থে ০.১২ মিটার। কুলুঙ্গিতে সেবায়েত দ্বারপাল ত্রিশুল হাতে দাঁড়িয়ে আছে। ললাটবিম্বে বামহাতে পদ্ম এবং ডান হাতে বারদামুদ্রাসহ গজলক্ষী বিরাজমান। চৌকাঠের উপরের অংশে প্রথাগর নবগ্রহ খোদাই করা আছে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Iconography of the Buddhist Sculpture of Orissa: Text .P.42.Thomas E. Donaldson