ভারতে বিবেকানন্দ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
ভারতে বিবেকানন্দ
Lectures from Colombo to Almora
Cover of 1897 edition
লেখক স্বামী বিবেকানন্দ
দেশ ভারত
ভাষা ইংরেজি (পরে বাংলায় অনূদিত)
বিষয় দর্শন
প্রকাশক বৈজয়ন্তী প্রেস, মাদ্রাজ
প্রকাশনার তারিখ
১৮৯৭
আইএসবিএন 9788175050815
ওসিএলসি 276782395
পাঠ্য ভারতে বিবেকানন্দ at উইকিসংকলন

ভারতে বিবেকানন্দ (মূল ইংরেজিতে: Lectures from Colombo to Almora) (১৮৯৭) হল স্বামী বিবেকানন্দের বক্তৃতার একটি সংকলন গ্রন্থ। পাশ্চাত্য দেশগুলি ভ্রমণ করার পর ১৮৯৭ সালের ১৫ জানুয়ারি বিবেকানন্দ অধুনা শ্রীলঙ্কার কলম্বোতে এসে পৌঁছান। এরপর তিনি দক্ষিণ ভারতের রামনাদে এসে অবতরণ করেন। এইখানে তাঁর আগমন উপলক্ষে একটি চল্লিশ ফুট লম্বা স্মারক নির্মিত হয়।[১] ওই বছরই ২০ জানুয়ারি তিনি মাদ্রাজ (অধুনা চেন্নাই) হয়ে কলকাতা পৌঁছান। এরপর বিবেকানন্দ ভারতের বিভিন্ন রাজ্য ভ্রমণ করেন। ১৯ জুন তিনি আলমোড়া পৌঁছান। এই সময়ের মধ্যে তাঁর দেওয়া বক্তৃতাগুলিই এই বইতে সংকলিত হয়েছে। এই বইতে মোট ১৭টি বক্তৃতা পাওয়া যায়।

প্রেক্ষাপট[সম্পাদনা]

১৮৯৩ সালে স্বামী বিবেকানন্দ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বিশ্ব ধর্ম মহাসম্মেলনে যোগ দেন। সেখানে তিনি বিশেষ জনপ্রিয়তা পেয়েছিলেন। এরপর ১৮৯৭ সাল পর্যন্ত তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইংল্যান্ডের নানা শহরে ভ্রমণ করে বেদান্ত বিষয়ে একাধিক বক্তৃতা দেন। ১৮৯৭ সালে তিনি কলম্বো হয়ে ভারতে ফিরে আসেন।[২] ১৮৯৭ সালের ১৫ জানুয়ারি বিবেকানন্দ কলম্বো আসেন। সেখানে তাঁকে অভ্যর্থনা জানানো হয়।[৩] ১৮৯৭ সালের ৩০ জানুয়ারি মেরি হলকে লেখা একটি চিঠিতে বিবেকানন্দ এই অভ্যর্থনার উল্লেখ করেন।[৩][৪]

চারিদিকের অবস্থা অতি আশ্চর্যরূপে আমার অনুকূল হয়ে আসছে। সিংহলে―কলম্বোয় আমি জাহাজ থেকে নেমেছি এবং এখন ভারতবর্ষের প্রায় শেষ দক্ষিণপ্রান্ত রামনাদে সেখানকার রাজার অতিথিরূপে রয়েছি। এই কলম্বো থেকে রামনাদ পর্যন্ত আমার পর্যটন যেন একটা বিরাট শোভাযাত্রা―হাজার হাজার লোকের ভিড়, আলোকসজ্জা, অভিনন্দন ইত্যাদি! ভারতভূমির যেখানে আমি প্রথম পদার্পণ করি, সেই স্থানে ৪০ ফুট উচ্চ একটি স্মৃতিস্তম্ভ তৈরি হচ্ছে। রামনাদের রাজা একটি সুন্দর কারুকার্যখচিত খাঁটি সোনার তৈরি বৃহৎ পেটিকায় তাঁর অভিনন্দনপত্র আমাকে দিয়েছেন; তাহাতে আমাকে His Most Holiness (মহাপবিত্রস্বরূপ) বলে সম্বোধন করা হয়েছে। মাদ্রাজ ও কলকাতা আমার জন্য উদগ্রীব হয়ে রয়েছে, যেন সমগ্র দেশটা আমাকে অভিনন্দিত করবার জন্য উঠে পড়ে লেগেছে। সুতরাং তুমি দেখতে পাচ্ছ, মেরী, আমি আমার সৌভাগ্যের উচ্চতম শিখরে উঠেছি। তবু আমার মন চিকাগোর সেই নিস্তব্ধ, প্রশান্ত দিনগুলির দিকেই ছুটেছে―কি বিশ্রাম-শান্তি ও প্রেমপূর্ণ দিনগুলি! তাই এখনি তোমাকে চিঠি লিখতে বসেছি। আশা করি, তোমরা সকলে বেশ ভাল আছ ও আনন্দে আছ।

১৮৯৭ সালের ১৬ জানুয়ারি, তিনি “পবিত্রভূমি ভারত” নামে একটি বক্তৃতা দেন।[১] কলম্বোয় চারদিন থাকার পর ২০ জানুয়ারি মাদ্রাজ হয়ে তিনি কলকাতায় আসেন। ১৮৯৭ সাল থেকে ১৮৯৯ সালের মধ্যে বিবেকানন্দ ভারতের বর্তমান উত্তরপ্রদেশ, পাঞ্জাবকাশ্মীর ভূখণ্ডের নানা দেশীয় রাজ্য পরিভ্রমণ করেন।[২] ৬ মে তিনি আলমোড়ার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন। [৫] এবং ১৯ জুন সেখানে পৌঁছান। এই পর্বে তিনি মোট ১৭টি বক্তৃতা দিয়েছিলেন, যা এই সংকলনে গ্রন্থিত হয়।[৬][৭]

বক্তৃতার স্থান[সম্পাদনা]

ভারতে বিবেকানন্দ ভারত-এ অবস্থিত
১
২
৩
৪
৫
৬
৭
৮
৯
১০
১০
১১
১১
১২
১২
১৩
১৩
১৪
১৪
১৫
১৫
১৬
১৬
১৭
১৭
১৮
১৮
বইয়ে গ্রন্থিত বক্তৃতাগুলি নিম্নোক্ত স্থানে প্রদত্ত হয়েছিল

নিম্নোক্ত স্থানে দেওয়া বক্তৃতাগুলি এই বইয়ে অন্তর্ভুক্ত হয়—[ক]

প্রকাশনা[সম্পাদনা]

১৮৯৭ সালে মাদ্রাজের বৈজয়ন্তী প্রেস থেকে বইটি প্রথম প্রকাশিত হয় “ফ্রম কলম্বো টু আলমোড়া” নামে।[৬] বিবেকানন্দের বন্ধু ও শিষ্য হেনরিয়েটা মুলার এই বইয়ের মুখবন্ধ লিখে দিয়েছিলেন।[৭]

অনুপ্রেরণা[সম্পাদনা]

এই বইয়ের বক্তৃতাগুলি গবেষকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে এবং অনেক খ্যাতনামা ব্যক্তিত্বকে অনুপ্রেরণা জোগায়। শ্রীলঙ্কার সন্ত যোগস্বামী বইয়ে বিবেকানন্দের প্রথম কথাগুলি (“সময় কম, কাজ অনেক”) দ্বারা বিশেষ অনুপ্রেরণা লাভ করেছিলেন।[৮]

পাদটীকা[সম্পাদনা]

ব্যাখ্যামূলক টীকা[সম্পাদনা]

  1. In alphabetical order, name and spelling according to book's first edition's table of content.[৭]

সূত্র[সম্পাদনা]

  1. Mittra 2001, পৃ. 70
  2. Bharathi 1998, পৃ. 123–125
  3. Mukhopadhyay 2011, পৃ. 188
  4. Vivekananda 1897
  5. RKMIC 2009, পৃ. 53
  6. Chattopadhyaya 1999, পৃ. 239–242
  7. Vivekananda 1897a
  8. Hinduism Today 1999, পৃ. 116–118

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]