বিধানসভা সদস্য (ভারত)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

বিধানসভা সদস্য (এমএলএ) একজন সদস্য প্রতিনিধি, যিনি ভারতীয় সরকার ব্যবস্থায় একটি নির্বাচনী এলাকা (আসন) থেকে রাজ্য সরকারের আইনসভায় ভোটারদের ভোটে নির্বাচিত হন। প্রতিটি আসন থেকে জনগণ একজন প্রতিনিধি নির্বাচন করেন, যিনি তারপরে বিধানসভার সদস্য (বিধায়ক) হন। প্রতিটি রাজ্য থেকে সাত থেকে নয়জন বিধায়ক ভারতের দ্বিকক্ষবিশিষ্ট সংসদের নিম্নকক্ষ লোকসভার সংসদ সদস্য (এমপি) হন। কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলির মধ্যে তিনটি এককক্ষবিশিষ্ট বিধানসভার সদস্যও রয়েছেন: দিল্লি বিধানসভা, জম্মু ও কাশ্মীর বিধানসভা পুডুচেরি বিধানসভা

ভূমিকা[সম্পাদনা]

যে রাজ্যেগুলিতে দুটি কক্ষ রয়েছে সেখানে একটি রাজ্য আইন পরিষদ এবং একটি রাজ্য বিধানসভা রয়েছে। এই জাতীয় ক্ষেত্রে বিধান পরিষদ হ'ল উচ্চকক্ষ, এবং বিধানসভা হল রাজ্য আইনসভার নিম্নকক্ষ।

গভর্নর আইনসভা বা সংসদের সদস্য হতে পারবেন না, লাভের কোনও পদে অধিষ্ঠিত থাকবেন না এবং অনুদান ও ভাতার অধিকারী হবেন। (ভারতীয় সংবিধানের ১৫৮ অনুচ্ছেদ)।

বিধানসভাটি ৫০০ এর বেশি নয় এবং ৬০ এর কম নয় সদস্য নিয়ে গঠিত। বৃহত্তম রাজ্য উত্তর প্রদেশের বিধানসভায় ৪০৪ জন সদস্য রয়েছে। যেসব রাজ্যের লোকসংখ্যা কম এবং আকারে ছোট তাদের বিধানসভায় আরও কম সংখ্যক সদস্য থাকার বিধান রয়েছে। পুডুচেরির ৩৩ জন সদস্য রয়েছে। মিজোরাম এবং গোয়ায় ৪০ জন করে সদস্য রয়েছে। সিকিমের ৩২টি। আইনসভার সমস্ত সদস্য প্রাপ্ত বয়স্ক ভোটাধিকারের ভিত্তিতে নির্বাচিত হন এবং একটি আসন থেকে একজন সদস্য নির্বাচিত হন। (কেবল রাষ্ট্রপতি দু'জন অ্যাংলো ইন্ডিয়ানকে লোকসভায় মনোনীত করার ক্ষমতা রাখেন, ২৬/০১/২০২০ বাতিল হয়) তেমনই গভর্নর অ্যাংলো ইন্ডিয়ান সম্প্রদায়ের একজন সদস্যকে [১] মনোনীত করার ক্ষমতা রাখেন, কারণ তিনি/তাঁর বিবেচনা অনুযায়ী মানানসই, এমন কাউকে যেখান থেকে লোকসভায় পর্যাপ্ত প্রতিনিধিত্বকারী নেই।

যোগ্যতা[সম্পাদনা]

বিধানসভার সদস্য হওয়ার যোগ্যতা সংসদ সদস্য হওয়ার যোগ্যতার সাথে অনেকটাই মিল রয়েছে।

ক) ব্যক্তিটি ভারতের নাগরিক হওয়া উচিত

খ) বিধানসভার সদস্য হওয়ার জন্য ২৫ বছরের কম বয়সী [২] এবং বিধান পরিষদের সদস্য হওয়ার জন্য ভারতীয় সংবিধানের ১৭৩ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী ৩০ বছরের কম নয়।

গ) কোনও ব্যক্তি কোনও রাজ্যের বিধানসভা বা আইন পরিষদের সদস্য হতে পারবেন না, যদি না তিনি রাজ্যের যে কোনও নির্বাচনী এলাকার ভোটার না হন। যারা সংসদের সদস্য হতে পারেন না তারাও রাজ্য বিধানসভার সদস্যও হতে পারবেন না।

ঘ) ঐ ব্যক্তি কোনও অপরাধের জন্য দোষী সাব্যস্ত হওয়া উচিত নয় এবং তাকে ২ বছর বা তার বেশি কারাদন্ডের সাজাপ্রাপ্ত হওয়া উচিত নয়।

মেয়াদ[সম্পাদনা]

বিধানসভার মেয়াদ পাঁচ বছর। তবে এটি মুখ্যমন্ত্রীর অনুরোধে রাজ্যপাল কর্তৃক এর আগেও বিলীন হয়ে যেতে পারে। জরুরী সময় বিধানসভার মেয়াদ বাড়ানো যেতে পারে,[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] তবে একবারে ছয় মাসের বেশি নয়। আইন পরিষদ হল রাজ্যের উচ্চকক্ষ। ঠিক রাজ্যসভার মতো এটি একটি স্থায়ী কক্ষ। নিম্ন কক্ষের প্রতিটি দলের শক্তি এবং রাজ্য আধিপত্যের মনোনয়নের ভিত্তিতে রাজ্যের উচ্চকক্ষের সদস্যরা নির্বাচিত হন। মেয়াদ ছয় বছর এবং কক্ষের সদস্যদের এক তৃতীয়াংশ প্রতি দুই বছর পর অবসর গ্রহণ করেন। কোনও রাজ্য বিধানসভার উচ্চকক্ষ, সংসদের উচ্চকক্ষের সদৃশ নয় পৃথকভাবে, নিম্নকক্ষ কর্তৃক বিলুপ্ত হতে পারে, যদি তারা একটি নির্দিষ্ট আইনের বিল পাস করে, যা উচ্চকক্ষ বিলুপ্ত করার নির্দেশ দেয় এবং সংসদের উভয়কক্ষে পাশ হয় এবং তারপরে রাষ্ট্রপতির দ্বারা আইনি স্বাক্ষরিত হয়। কেবল অন্ধ্রপ্রদেশ, বিহার, কর্ণাটক, মহারাষ্ট্র, তেলেঙ্গানা এবং উত্তর প্রদেশের ছয় বছর মেয়াদী উচ্চকক্ষ রয়েছে, জম্মু ও কাশ্মীরেও ছয় বছরের মেয়াদী নিম্নকক্ষ রয়েছে। অন্য সকল রাজ্যে উপরের বর্ণিত পদ্ধতিতে উচ্চকক্ষ বিলুপ্ত করা হয়েছে, এই কারণ দেখিয়ে যে, উচ্চকক্ষ অপ্রয়োজনীয় সমস্যার সৃষ্টি করে। [৩]

শক্তি[সম্পাদনা]

আইনসভার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজ আইন প্রণয়ন করা। রাজ্য আইনসভায় এমন সব আইন তৈরি করার ক্ষমতা রয়েছে যেগুলো সংসদ করতে পারে না। যেগুলির মধ্যে কয়েকটি হ'ল পুলিশ, কারাগার, সেচ, কৃষি, স্থানীয় সরকার, জনস্বাস্থ্য, তীর্থস্থান এবং সমাধিস্থল। কিছু বিষয় রয়েছে যেগুলো নিয়ে সংসদ এবং রাজ্য উভয়ই আইন তৈরি করতে পারে, তা হ'ল শিক্ষা, বিবাহ এবং বিবাহ বিচ্ছেদ, বন এবং বন্য প্রাণী এবং পাখির সুরক্ষা।

অর্থ বিল হিসাবে, অবস্থান একই। বিলগুলি কেবলমাত্র বিধানসভায় উৎপন্ন হতে পারে। আইন পরিষদ বিল প্রাপ্ত হওয়ার তারিখ থেকে ১৪ দিনের মধ্যে বিল পাস করতে পারে বা ১৪ দিনের মধ্যে এতে পরিবর্তনের প্রস্তাব করতে পারে। এই পরিবর্তনগুলি বিধানসভা কর্তৃক গৃহীত হতে পারে বা নাও হতে পারে।

আইন প্রণয়নের পাশাপাশি রাজ্য আইনসভায় ভারতের রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের ক্ষেত্রে একটি নির্বাচনী ক্ষমতা রয়েছে। এই প্রক্রিয়াটিতে নির্বাচিত সংসদ সদস্যগণ সহ বিধানসভার নির্বাচিত সদস্যরা জড়িত।

সংবিধানের কিছু অংশ, রাজ্য আইনসভার অনুমোদনের মাধ্যমে অর্ধেক সংসদে সংশোধন করা যেতে পারে। সুতরাং রাজ্য আইনসভা সংবিধান সংশোধন প্রক্রিয়ায় অংশ নেয়।

দলীয় সদস্যপদ দ্বারা বিধায়ক[সম্পাদনা]

রাজনৈতিক দল অনুযায়ী বিধানসভার সদস্যগণ (০৮ জানুয়ারী ২০২১ অনুসারে)

রাজ্য মোট শূন্য
বিজেপি এনডিএ আইএনসি ইউপিএ অন্যান্য
অন্ধ্রপ্রদেশ ১৭৫ জেএসপি (১) কিছুই না ওয়াইএসআরসিপি (১৫১)
টিডিপি (23)
অরুণাচল প্রদেশ ৬০ ৪৮ জেডিই্‌উ (১)
এনপিপি (৪)
আইএনডি (৩)
আসাম ১২৬ ৬১ এজিপি (১৩) ২০ এআইইউডিএফ (১৪) বিপিএফ (১১)
আইএনডি (১)
বিহার ২৪৩ ৭৪ জেডিই্‌উ (৪৩) ১৯ আরজেডি (৭৫) এআইএমআ্‌ইএম (৫)
ভিআইপি (৪) সিপিআই(এমএল) (১২)
এইচএএম (৪) সিপিআই(এম) (২) এলজেপি (১)
আইএনডি (1) সিপিআই (২) বিএসপি (১)
ছত্তিশগঢ় ৯০ ১৪ কিছুই না ৭০ কিছুই না জেসিসি (৪)
বিএসপি (২)
গোয়া ৪০ ২৭ আইএনডি (২) 5 এনসিপি (১) জিএফপি (৩)
এমজিপি (১)
আইএনডি (২)
গুজরাট ১৮২ ১১১ কিছুই না ৬৫ বিটিপি (২) কিছুই না
এনসিপি (১)
আইএনডি (১)
হরিয়ানা ৯০ ৪০ জেজেপি (১০) ৩১ কিছুই না আইএনএলডি (১)
এইচএলপি (১)
আইএনডি (২)
হিমাচল প্রদেশ ৬৮ ৪৪ কিছুই না ২১ সিপিআই(এম) (২)
আইএনডি (২)
ঝাড়খণ্ড ৮১ ২৬ এজেএসইউ (২) ১৮ জেএমএম (২৯) কিছুই না
আরজেডি (১)
এনসিপি (১)
আইএনডি (২) সিপিআই(এমএল) (১)
কর্ণাটক ২২৪ ১১৯ আইএনডি (২) ৬৭ কিছুই না জেডি(এস) (৩৩)
কেরালা ১৪০ কিছুই না ২১ আইইউএমএল (১৮) সিপিআই(এম) (৫৯)
সিপিআই (১৯)
জেডি(এস) (৩)
এনসিপি (২)
কেসি(এম)-জে (২) কেসি(এম) (২)
কেসি(বি) (১)
আরএসপি(এল) (১)
সি(এস) (১)
কেসি(জে) (১) আইএনএল (১)
কেজে(এস) (১)
আইএনডি (২)
মধ্যপ্রদেশ ২৩০ ১২৬ আইএনডি (৪) ৯৬ কিছুই না বিএসপি (২)
বিএসপি (১)
মহারাষ্ট্র ২৮৮ ১০৫ আরএসপি (১) ৪৪ এসএইচএস (৫৭) এআইএমআইএম (২)
এনসিপি (৫৩)
বিভিএ (৩)
জেএসএস (১) পিজেপি (২) এমএনএস (১)
এসপি (২)
এসডাব্লিউপি (১)
আইএনডি (7) পিডাব্লিউপিআই (১) সিপিআই(এম) (১)
আইএনডি (৬)
মণিপুর ৬০ ২৩ এনপিপি (৪) ১৭ কিছুই না এআইটিসি (১)
এনপিএফ (৪)
এলজেপি (১)
আইএনডি (3)
মেঘালয় ৬০ এনপিপি (২১) ১৯ এনসিপি (১) কেএইচএনএএম (১)
ইউডিপি (৮)
পিডিএফ (৪)
এইচএসপিডিপি (২)
আইএনডি (২)
মিজোরাম ৪০ এমএনএফ (২৭) কিছুই না জেডপিএম (৬) 1
নাগাল্যান্ড ৬০ ১২ এনডিপিপি (২০) কিছুই না এনপিএফ (২৫)
আইএনডি (২)
ওড়িশা ১৪৭ ২২ আইএনডি (১) সিপিআই(এম) (১) বিজেডি (১১৩) 1
পাঞ্জাব ১১৭ কিছুই না ৮০ কিছুই না এএপি (১৯)
এসএডি (১৪)
এলআইপি (২)
রাজস্থান ২০০ ১০৬ আরএলপি (৩) ১০৫ বিটিপি (২) সিপিএম (২)
আরএলডি (১)
আইএনডি (১) আইএনডি (১২)
সিকিম ৩২ ১২ এসকেএম (১৯) কিছুই না এসডিএফ (১)
তামিলনাড়ু ২৩৪ এআইএডিএমকে (১২৪) ডিএমকে (৯৭) এএমএমকে (১)
আইইউএমএল (১)
তেলেঙ্গানা ১১৯ কিছুই না টিআরএস (১০২)
এআইএমআইএম (৭)
টিডিপি (১)
ত্রিপুরা ৬০ ৩৬ আইপিএফটি (৮) কিছুই না সিপিআই(এম) (১৬)
উত্তর প্রদেশ ৪০৩ ৩১২ এডি(এস) (৯) কিছুই না এসপি (৪৯)
বিএসপি (১৮)
আইএনডি (৩) এসবিএসপি (৪)
উত্তরাখণ্ড ৭০ ৫৬ কিছুই না ১১ কিছুই না আইএনডি (২)
পশ্চিমবঙ্গ ২৯৪ ১৬ কিছুই না ২৩ সিপিআই(এম) (১৯) এআইটিসি (২২১)
এআইএফবি (২)
আরএসপি (২)
সিপিআই (১) জিজেএম (২)
দিল্লি ৭০ কিছুই না কিছুই না এএপি (৬২)
জম্মু ও কাশ্মীর প্রযোজ্য নয়
পুদুচেরি ৩৩ এআইএনআরসি (৭) ১৪ ডিএমকে (৩) কিছুই না
এআইএডিএমকে (৪) আইএনডি (১)
মোট ৪০৩৬ ১৩৭৪ ৭৬৬

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Indian Government Structure at State Level"। KKHSOU। 
  2. "Archived copy"। ২০১০-১০-০৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০২-১৮ 
  3. "MLA Post Tenure"। ১২ আগস্ট ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জানুয়ারি ২০২১