আম আদমি পার্টি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
আম আদমি পার্টি
নেতাঅরবিন্দ কেজরিওয়াল
প্রতিষ্ঠা২৬ নভেম্বর, ২০১২
সদর দপ্তরএক তলা, এ-১১৯, কৌশাম্বি (জাতীয় রাজধানী অঞ্চল), গাজিয়াবাদ, উত্তরপ্রদেশ - ২০১০১০
সংবাদপত্রআপ কি ক্রান্তি[১]
ছাত্র শাখাছাত্র যুব সংঘর্ষ সমিতি[২]
যুব শাখাআম আদমি পার্টি ইউথ উইং[৩]
মহিলা শাখাআপ কি মহিলা শক্তি[৪]
মতাদর্শস্বরাজ
দুর্নীতি-বিরোধিতা
বাম মনোভাবাপন্ন[৫]
স্বীকৃতিরাজ্য দল
লোকসভায় আসন
৪ / ৫৪৫
রাজ্যসভায় আসন
০ / ২৪৫
-এ আসন
৬৭ / ৭০
(দিল্লি বিধানসভা)
ওয়েবসাইট
www.aamaadmiparty.org

আম আদমি পার্টি (হিন্দি: आम आदमी पार्टी; অর্থাৎ, "সাধারণ মানুষের পার্টি"; সংক্ষেপে "আপ") হল একটি ভারতীয় রাজনৈতিক দল। ২০১২ সালের ২৬ নভেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে এই দল প্রতিষ্ঠিত হয়। ২০১১ সালে জন লোকপাল বিল পাস করানো নিয়ে দুই বিশিষ্ট দুর্নীতি-বিরোধী আন্দোলনকর্মী অরবিন্দ কেজরিওয়ালঅন্না হজারের মধ্যে জনপ্রিয় "ইন্ডিয়া এগেইনস্ট করাপশন" আন্দোলনের রাজনৈতিকীকরণ নিয়ে মতপার্থক্য দেখা দেয়। তারই পরিপ্রেক্ষিতে এই দলের জন্ম হয়। আন্না হাজারে উক্ত আন্দোলনটিকে রাজনৈতিক পথে পরিচালিত করার বিরোধী ছিলেন। অন্যদিকে কেজরিওয়াল গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে দুর্নীতিবিরোধী আন্দোলন চালানোর পক্ষপাতী ছিলেন।

আপের প্রতিষ্ঠার পর থেকে এই দল বিভিন্ন প্রতিবাদ আন্দোলন কর্মসূচিতে অংশ নেয়। দিল্লিতে বিদ্যুৎ ও জলের দাম বৃদ্ধি নিয়ে সরকার ও বেসরকারি সংস্থাগুলির মধ্যে বেআইনি আঁতাতের অভিযোগ এনে আপ আন্দোলন চালায়। এছাড়া যৌন হেনস্থা ও ধর্ষণের শিকার মহিলাদের সুবিচার দেওয়া ও শক্তিশালী ধর্ষণ-বিরোধী আইন প্রণয়ন ছিল এই দলের অন্যতম এজেন্ডা।[৬][৭][৮] ২০১৩ সালে এই দল দিল্লির বিধানসভা নির্বাচনে দ্বিতীয় বৃহত্তম দল হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। দিল্লি বিধানসভার ৭০টি আসনের মধ্যে আপ পায় ২৮টি আসন। একক সংখ্যাগরিষ্ঠ না হলেও ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের সমর্থনে এই দল দিল্লিতে সরকার গঠন করেছে।

প্রেক্ষাপট[সম্পাদনা]

অন্না হজারে ও অরবিন্দ কেজরিওয়ালের মতবিরোধের মধ্যে দিয়েই আম আদমি পার্টির উত্থান হয়। উভয়েই ২০১১-১২ সালে জন লোকপাল বিল পাস করানোর দাবিতে দুর্নীতি-বিরোধী আন্দোলনে যুক্ত ছিলেন।[৯] হজারে এই আন্দোলনকে রাজনীতির সংস্রব থেকে দূরে রাখতে চাইলেও, কেজরিওয়াল মনে করতেন, সংসদীয় রাজনীতিতে অংশ নিলে আইনসভায় উক্ত বিল পাস করানো সহজ হবে। বিভিন্ন সোশ্যাল নেটওয়ার্ক সার্ভিসে ইন্ডিয়া এগেইনস্ট করাপশন আন্দোলনের কর্মকর্তারা জনমত যাচাই করেন। ওই সব সাইটের ব্যবহারকারীরা রাজনীতিতে যোগদানের পক্ষেই মত দিয়েছিল।[১০][১১]

২০১২ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর হজারে ও কেজরিওয়াল এই সিদ্ধান্তে উপনীত হন যে রাজনীতিতে যোগদানের ব্যাপারে দুজনের মতৈক্যে আসা অসম্ভব। কেজরিওয়াল প্রশান্ত ভূষণশান্তি ভূষণ প্রমুখ দুর্নীতি-বিরোধী আন্দোলনকর্মীর সাহায্য পান। কিন্তু কিরণ বেদিসন্তোষ হেগড়ে প্রমুখ তাঁর বিরোধিতা করেন। ২ অক্টোবর[১২] কেজরিওয়াল নতুন রাজনৈতিক দল প্রতিষ্ঠার কথা ঘোষণা করেন। এই দল আনুষ্ঠানিকভাবে প্রতিষ্ঠিত হয় ২৬ নভেম্বর। উল্লেখ্য, ১৯৪৯ সালের ২৬ নভেম্বর ভারতীয় সংবিধান গণপরিষদে গৃহীত হয়েছিল। তাই দল প্রতিষ্ঠার জন্য এই দিনটি বেছে নেওয়া হয়।.[১০][১১]

পার্টির নাম "আম আদমি" রাখার কারণ হল, এই শব্দটির অর্থ "সাধারণ মানুষ" আর কেজরিওয়াল নিজেকে সাধারণ মানুষের প্রতিনিধি বলে দাবি করেন। ২০১২ সালের ২৪ নভেম্বর পার্টির সংবিধান গৃহীত হয়। এই দিনই ৩২অ সদস্যবিশিষ্ট পার্টির জাতীয় পরিষদ ও ২৩ সদস্যবিশিষ্ট জাতীয় কার্যনির্বাহী পরিষদ গঠিত হয়।[১১] এর সঙ্গে সঙ্গে পার্টি পরিচালনার খসড়া প্রস্তুত করার জন্য একাধিক কমিটি গঠনেরও প্রস্তাব রাখা হয়।[১৩] ২৬ নভেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে দিল্লিতে পার্টি প্রতিষ্ঠিত হয়।[১৪] ২০১৩ সালের মার্চ মাসে ভারতের নির্বাচন কমিশন এই দলকে একটি রাজনৈতিক দল হিসেবে নথিভুক্ত করে।[১৫] ৯ এপ্রিল নির্বাচন কমিশনকে "নথিভুক্ত অশনাক্ত দল" হিসেবে গেজেটভুক্ত করে।[১৬]

দিল্লি বিধানসভা নির্বাচন, ২০১৩[সম্পাদনা]

২০১৩ সালের দিল্লি বিধানসভা নির্বাচন ছিল আম আদমি পার্টির প্রথম নির্বাচন। নির্বাচন কমিশন এই দলের প্রতীক হিসেবে "ঝাঁটা" চিহ্নটি অণুমোদিত করেন।[১৭] আপের দাবি অণুসারে, এই দলের প্রার্থীরা সৎ এবং তাঁদের নামে কোনো অপরাধমূলক অভিযোগ নেই।[১৮] ২০১৩ সালের ২০ নভেম্বর আপ একটি কেন্দ্রীয় ইস্তাহার প্রকাশ করে। এই ইস্তাহারে তারা ক্ষমতায় আসার ১৫ দিনের মধ্যে জনলোকপাল বিল পাস করানোর প্রতিশ্রুতি দেন।[১৯]

২০১৩ সালের নভেম্বরে আপ প্রার্থী শাজিয়া ইলমির বিরুদ্ধে রাজনৈতিক সুবিধা পাইয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতির বিনিময়ে অণুদান গ্রহণের অভিযোগ ওঠে। এই সংক্রান্ত একটি ভিডিও-রেকর্ডেড স্টিং অপারেশনের ফুটেজ প্রকাশিত হওয়ার পর তিনি তাঁর প্রার্থীপদ প্রত্যাহার করতে চান। কিন্তু আপ তাঁকে প্রার্থীপদ প্রত্যাহার করতে বাধা দেয়। কেজরিওয়াল বলেন, ফুটেজটি সাজানো ও আদর্শ নির্বাচনী আচরণবিধির বিরোধী।[২০][২১] নির্বাচন কমিশন উক্ত ফুটেজের সত্যতা যাচাইয়ে তদন্তের নির্দেশ দেয়।[২২]

নির্বাচনে ৭০টি আসনের মধ্যে ২৮টি আসন জিতে আপ দ্বিতীয় বৃহত্তম দল হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করে। ভারতীয় জনতা পার্টি এই নির্বাচনে ৩১টি ও ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস ৮টি আসন জয় করে। ৩টি আসন জয় করে অন্যান্য দল।[২৩][২৪] ২০১৩ সালের ২৮ ডিসেম্বর আপ দিল্লি বিধানসভায় সংখ্যালঘু সরকার গঠন করে। সরকার গঠনে কংগ্রেস আপকে সমর্থন করে। তবে কংগ্রেস নেত্রী শীলা দীক্ষিত এই সমর্থনকে "নিঃশর্ত সমর্থন নয়" বলেই জানান।[২৫] অরবিন্দ কেজরিওয়াল দিল্লির দ্বিতীয় কনিষ্ঠতম মুখ্যমন্ত্রী হন।[২৬]

পদটীকা[সম্পাদনা]

  1. "Aap ki Kranti ePaper" 
  2. Volunter, Aam। "CYSS" 
  3. Our Bureau। "AAP to launch youth wing on Sept 27"The Hindu Business Line 
  4. "AAP Ki Mahila Shakti completes first target of Vidhan Sabha level committees"Aam Aadmi Party। ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  5. "India's Left-Leaning, Anti-Graft Party Made A Stunning Debut"। The Economist। ১৪ ডিসেম্বর ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ডিসেম্বর ২০১৩ 
  6. PTI (১৯ মে ২০১৩)। "AAP workers protest at residences of Delhi CM, MLAs"Times of India। New Delhi। 
  7. "Delhi police arrests driver on rape charge after AAP activists protest"India Tv News channel। New Delhi। ২৪ মে ২০১৩। 
  8. "Promise to Keep"। Frontline Magzine। 15–28 Dec. 2012। পৃষ্ঠা Volume 29। সংগ্রহের তারিখ 3 August 2012  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  9. Radheshyam Jadhav & Sarang Dastane, TNN (১৯ সেপ্টেম্বর ২০১২)। "Anna Hazare confirms rift with Arvind Kejriwal, says his apolitical mass movement will continue"Times of India। সংগ্রহের তারিখ ৩ আগস্ট ২০১৩ 
  10. "Anna Hazare tells Arvind Kejriwal not to use his name, photo for votes as they part ways"। New Delhi: India Today। PTI। ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১২ জুন ২০১৩ 
  11. "So what is the Aam Aadmi Party all about"। New Delhi: India Today। ২৪ নভেম্বর ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১২ জুন ২০১৩ 
  12. "India activist Arvind Kejriwal's Aam Aadmi Party vows change"। BBC। ২৬ নভেম্বর ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১৬ জুন ২০১৩ 
  13. "Arvind Kejriwal's answer to Congress's 'mango people', names his political front as Aam Aadmi Party"। New Delhi: India Today। PTI। ২৪ নভেম্বর ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১২ জুন ২০১৩ 
  14. "Arvind Kejriwal formally launches Aam Aadmi Party"। India Today। সংগ্রহের তারিখ ২৬ নভেম্বর ২০১২ 
  15. "Aam Aadmi Party now a registered political party"। The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ১২ জুন ২০১৩ 
  16. "Election Commission of India Notification" (PDF)। Election Commission of India। পৃষ্ঠা 2। সংগ্রহের তারিখ ১৬ জুন ২০১৩ 
  17. "Aam Aadmi Party gets broom as election symbol"। IBN Live। ৩১ জুলাই ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২ আগস্ট ২০১৩ 
  18. Raza, Danish (২১ মে ২০১৩)। "AAP picks candidates: Filmmaker, homemaker and loyalists"। First Post। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জুলাই ২০১৩ 
  19. "Delhi: AAP promises 700 litres of free water, cheap power, Jan Lokpal"। IBN। ২০ নভেম্বর ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ৩০ নভেম্বর ২০১৩ 
  20. "AAP sting operation: Arvind Kejriwal cries conspiracy, Shazia Ilmi offers to resign"। Zee News। ২২ নভেম্বর ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ৩০ নভেম্বর ২০১৩ 
  21. "AAP defends Shazia Ilmi, threatens to sue Media Sarkar and TV channels"। Indian Express। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-১১-২৪ 
  22. "EC begins inquiry into sting operation against AAP leaders"। India Today। ২২ নভেম্বর ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ৩০ নভেম্বর ২০১৩ 
  23. Delhi polls | BJP ahead, AAP inches to second
  24. "Assembly Elections December 2013 Results"। Election Commission of India। সংগ্রহের তারিখ ১২ ডিসেম্বর ২০১৩ 
  25. "Fulfill promises, Sheila Dikshit tells Aam Aadmi Party"। NDTV। IANS। 23 December। সংগ্রহের তারিখ 23 December 2013  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  26. "Arvind Kejriwal becomes Delhi's youngest Chief Minister"। IBN। ২৮ ডিসেম্বর ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২৮ ডিসেম্বর ২০১৩ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

প্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট