প্রাচীন মিশরীয় দেবতা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান

প্রাচীন মিশরীয় দেবতা বলতে বোঝানো হয় সেই সমস্ত দেবতা এবং দেবীদের, যাদের প্রাচীন মিশরে পূজা করা হত, এবং যাদের উদ্দেশ্যে ফারাও সম্রাটগণ মন্দির নির্মাণ করতেন।

প্রাচীন মিশরীয়রা মূলতঃ প্রাকৃতিক শক্তির উপাসক ছিলেন; তাই দেবতাদের উদ্দেশ্যে নৈবেদ্য নিবেদন এবং অন্যান্য বিচিত্র কিছু ব্রত পালন-ই ছিল প্রাচীন মিশরীয় ধর্মের মূল কথা। আনুমানিক ৩১০০ খৃষ্ট-পূর্ব তে, মিশর প্রতিষ্ঠার পরে, সমস্ত ব্রত পালনের নিয়মাবলী এবং নৈবেদ্য অর্পণের ক্ষমতা মিশরের উচ্চ ও নিম্ন ভূমির শাসক এবং দেবতাদের প্রতিনিধি ফারাও-দের মাধ্যমেই নিয়ন্ত্রিত হত। যদিও প্রতিটি মন্দিরেই একজন করে প্রধান পুরোহিত এবং একাধিক সহ-পুরোহিত থাকতেন এই সমস্ত নিয়মাবলী পালন করে দেবতাদের তুষ্ট করার জন্যে।

বিভিন্ন যুগে, যেসব দেবতারা সবচেয়ে সম্মানীত দেবতা হিসেবে গণ্য হয়েছেন তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিলেন সূর্যদেবতাগণ, সূর্য ও বাতাসের দেবতা রহস্যময় আমন, এবং যাদুর দেবী আইসিস। যদিও মিশরীয়রা মূলত একাধিক দেবতাদের উপাসনা করতেন,কিন্তু খ্রিষ্টপূর্ব ১৪ শতাব্দীতে ফারাও সম্রাট আতেন এর রাজত্বকালে, মিশরীয়রা একেশ্বরবাদী হয়ে ওঠেন রাজধর্ম অনুযায়ী।

প্রাচীন মিশরীয়রা বিশ্বাস করতেন ভালো-মন্দ সমস্ত কিছুর মধ্যেই ঈশ্বরের অবস্থান রয়েছে, যেমন ঝড়, বৃষ্টি, নীল নদের বন্যা সমস্ত কিছুই দেবতাদের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হত। ফারাও এবং অন্যান্য রাজবংশীয় লোকজন ছাড়াও সাধারণ মানুষ জীবনের যে কোন গুরুত্বপূর্ণ ঘটনায় তারা দেবতাদের দ্বারস্থ হতেন। এজন্য বিভিন্ন মন্দিরে পূজা, প্রার্থনা এবং অর্ঘ্য নিবেদন করতেন দেবতাদের উদ্দেশ্যে। ফারাওরাও শিকার-যাত্রা, যুদ্ধযাত্রা, ইত্যাদি গুরুত্বপূর্ণ সময়ে দেবতাদের আশীর্বাদ লাভ করার জন্যে, মন্দিরে যেতেন, এমনকি কয়েকদিন অপেক্ষাও করতেন মন্দিরে অবস্থান করে দেবতাদের নির্দেশ পাওয়ার জন্যে। মিশরীয় জনজীবনের এক গুরুত্বপূর্ণ অংশ দেবতাদের সাথে এইভাবে ওতপ্রোত ভাবে জড়িয়ে আছে।

সংজ্ঞা[সম্পাদনা]

প্রাচীন মিশরীয় ঐতিহ্যের মাঝে যে সমস্ত সত্ত্বাকে ঈশ্বর হিসাবে গণ্য করা হতো, তাদের সংখ্যা গণনা করা সত্যই কঠিন । বিভিন্ন মিশরীয় প্রাচীন গ্রন্থ এবং পুরাণে এমন অনেক দেবদেবীর নাম পাওয়া যায়, যাঁদের ভূমিকা, প্রকৃতি এমনকি পৌত্তলিক রূপও অজানা এবং অস্পষ্ট এবং এমন অনেক দেবতাদের এমন পরোক্ষ উল্লেখ পাওয়া যায়, যাঁদের নামও সঠিকভাবে পাওয়া যায় না [১]মিশরতত্ত্ববিদ জেমস পি অ্যালেন অনুমান করেন যে মিশরীয় গ্রন্থে প্রায় ১৪০০ টিরও বেশি দেবতাদের উল্লেখ করা হয়েছে, [২]; যদিও তার সহকর্মী ক্রিশ্চিয়ান লেইৎস বলেছেন যে "হাজার হাজার" দেবতা রয়েছে মিশরীয় পুরাণ এবং প্রাচীন গ্রন্থাবলী তে [৩]মিশরীয় ভাষায় দেবতাদের নামে 'nṯr' (দেব) এবং দেবীদের নামে 'nṯrt' (দেবী) যোগ করা হয় নামকরণের সাধারণ পরিভাষা অনুযায়ী। পণ্ডিতরা এই শব্দগুলির বৈয়াকরণিক ব্যবচ্ছেদ দ্বারা দেবতাদের মূল প্রকৃতি উপলব্ধি করার চেষ্টা করেছেন, কিন্তু কোন প্রস্তাবিত ব্যাখ্যাই সর্বজনগ্রাহ্য না হওয়াতে এই পরিভাষাগুলির মৌলিক উতপত্তি এখনো অজানা। যে সমস্ত হায়ারোগ্লাইফস চিত্রলিপি এবং নির্ণায়ক হিসাবে ব্যবহার করা হয়েছে এই পরিভাষা গুলি লিপিবদ্ধ করার জন্যে, তাদের বৈশিষ্ট্য থেকে বোঝা যায় যে মিশরীয়গণ দেবতাদের সাথে সংযোগ স্থাপন করতে চেষ্টা করেছেন [৪]। এই চিহ্নগুলির মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি খুঁটি থেকে উড়ন্ত পতাকা। অনুরূপ চিহ্ন বিশিষ্ট বস্তু প্রাচীন মিশরীয় ইতিহাস জুড়ে সমস্ত মন্দির প্রবেশদ্বার এ স্থাপন করা হত ভিতরে দেবতার উপস্থিতির প্রতিনিধিত্ব স্বরূপ। অন্যান্য অনুরূপ হায়ারোগ্লিফগুলির মধ্যে রয়েছে একটি বাজ, কিছু মৌলিক প্রথম দেবতাদের স্মরণিকা স্বরূপ, যাদেরকে বাজপাখি হিসাবে চিত্রিত করা হত এবং একজন উপবিষ্ট দেবতা বা দেবী [৫]। দেবীদের অনেক সময় ডিমের হায়ারোগ্লিফ দ্বারা সংজ্ঞায়িত, লিপিবদ্ধ করা হত যা আসলে সৃষ্টি এবং জন্মের প্রতীক অথবা কেউটে সাপের প্রতীক দিয়ে বোঝানো হত [৪]। প্রাচীন মিশরীয় বিশ্বাস অনুযায়ী মৃতদেরকে 'nṯr' বলা হতো কারণ তারা দেবতাদের মত গণ্য হত [৬] যদিও এই শব্দটি খুব কমই মিশরের কম সংখ্যক অতিপ্রাকৃত প্রাণীর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হত, যা আধুনিক পণ্ডিতরা প্রায়ই "দৈত্য" (অসুর) বলে গণ্য করেন [৩]। মিশরের ধর্মীয় চিত্রশিল্পে স্থান, বস্তু এমনকি কোন ধারণাকেও মানুষের আকারে গড়ে তোলা হত। দেবতা এবং অন্যান্য মানুষের মধ্যে এই সূক্ষ্ম পার্থক্য বোঝানোর জন্য, পণ্ডিতরা "দেবতা" র বিভিন্ন সংজ্ঞা প্রস্তাব করেছেন । একটি ব্যাপকভাবে গ্রহণযোগ্য সংজ্ঞা[৩] হল জ্যান অ্যাস্ম্যান (Jan Assmann) দ্বারা প্রস্তাবিত; তিনি বলেছেন যে একটি দেবতার একটি নির্দিষ্ট পূজাপদ্ধতি (cult) থাকবে, তিনি মহাবিশ্বের কোন না কোন দিকের সাথে সংশ্লিষ্ট থাকবেন এবং পুরাণ বা অন্য কোন প্রাচীন গ্রন্থে তাঁর উল্লেখ থাকবে [৭]। দিমিত্রি মিক্স(Dimitri Meeks) দ্বারা প্রস্তাবিত একটি ভিন্ন সংজ্ঞা অনুসারে, 'ntr' যে কোনও কারোর জন্য প্রযোজ্য হতে পারে, যদি তাঁকে কেন্দ্র করে কোন ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান পালন করা হয়ে থাকে। এই সংজ্ঞা অনুযায়ী, রাজ্যাভিষেক এর পরে রাজারাও দেবতা তে পরিণত হতেন। এমনকি সাধারণ মানুষও মৃত্যু এবং পারলৌকিক সংস্কার সম্পন্ন হওয়ার পরে দেবতাতে রূপান্তরিত হতেন।

উৎস[সম্পাদনা]

বৈশিষ্ট্য[সম্পাদনা]

প্রধান প্রধান দেব দেবীদের তালিকা[সম্পাদনা]

প্রধান দেবতা সমূহ[সম্পাদনা]

দেবতার নাম ভূমিকা
আকের পৃথিবী এবং দিগন্তের দেবতা [৮]
আমন সৃষ্টির দেবতা, থিবসের মন্দিরের প্রধান উপাস্য, নতুন রাজত্বের প্রধান দেবতা [৯]
আন-হার যুদ্ধ এবং শিকারের দেবতা [১০]
আনুবিস মৃতের জগতের অধিকর্তা [১১]
আতেন আখেন-আতনের রাজত্বকালের প্রধান দেবতা; আতেনীয় ধর্মবিশ্বাসের উপাস্য [১২]
আতাম সৃষ্টি এবং সূর্যের দেবতা ; এনিয়াদের একজন দেবতা। [১৩]
বেন্নু সূর্যের দেবতা [১৪]
গেব পৃথিবীর দেবতা। এনিয়াদের সদস্য [১৫]
হাপি নীলনদের বন্যার দৈবিক রূপ [১৬]
হোরাস আকাশ, সূর্য, রাজত্ব, প্রতিরক্ষা এবং সুস্থতার দেবতা। মূলতঃ ফারাও এবং মিশরের দুই ভূমির ভালো-মন্দের অধিকর্তা। ওসিরিস এবং আইসিস এর সন্তান। [১৭]
খেপ্রি উদীয়মান সূর্য দেবতা, রা-এর প্রাথমিক রূপ [১৮]
খেমু প্রাণের দেবতা, নীলনদের বন্যাতেও প্রাণ সঞ্চার করেন ইনি [১৯]
খোনসু চন্দ্র দেবতা, আমন এবং মূটের সন্তান [২০]
মাহেস সিংহ দেবতা, বাস্তেত এর পুত্র [২১]
মোন্টু যুদ্ধ দেবতা এবং থিবসের উপাস্য [২২]
নেফেরতাম পদ্মের দেবতা, সূর্য দেবতার প্রথম আবির্ভাব এনার মাধ্যমে [২৩]
নেমটি মধ্য মিশরে উপাস্য, মিশরীয় কাহিনী অনুযায়ী ইনি একজন মাঝি, অন্যান্য দেবতাদের পারাপার করানোর জন্যে [২৪]
নেপার শস্য দেবতা [২৫]
ওসিরিস পরকালের বিচারক, শস্য ও পুনর্জন্মের দেবতা [২৬]
তাহ মেমফিসের তিন প্রধান দেবতার একজন; সৃষ্টির দেবতা যিনি চিন্তাশক্তি এবং নির্মাণ ক্ষমতা দ্বারা সৃষ্টি করেন [২৭]
সেথ মরুভূমি, ঝড় ঝঞ্ঝা ও ধ্বংসের দেবতা। দেবতা ওসিরিসের ভাই [২৮]
শ্যু বাতাসের দেবতা [২৯]
সপদু মিশরের পূর্ব ভূমি এবং সূর্যের দেবতা [৩০]
থোট চন্দ্রদেবতা, লেখা এবং লিপিকার দের উপাস্যল হারমোপলিস এর প্রধান উপাস্য [৩১]
ওয়াদজ-ওয়ের ভূমধ্যসাগর এবং নীলনদের বদ্বীপভূমির অন্যান্য জলাশয়ের অধিকর্তা [৩২]

প্রধান দেবী সমূহ[সম্পাদনা]

দেবীর নাম ভূমিকা
আমুনেত আমনের স্ত্রী, ফারাওএর রক্ষাকারী। থীবসের পূজিতা দেবী [৮]
আনুকেত নীলনদের ব্যক্তিরূপ এবং নীলনদের দেবী [৩৩]
বাস্ত/বাস্তেত মার্জার রূপিণী, ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষাকারী [৩৪]
বাত গো-দেবী, মধ্যযুগে হাথোরের সাথে একীভূত হয়ে যান [৩৫]
হাথোর অন্যতম প্রধান উপাস্য দেবী। প্রধানতঃ সঙ্গীত, প্রেম এবং মদিরার দেবী। একই সাথে তিনি মাতৃত্ব এবং সৃষ্টির দেবী। ডেনডেরা ইয় দেবী হাথোরের উপাসনালয়। তিনি কুমারী মেয়েদের রক্ষাকারী এবং ফারাও এর অন্নদাতা। দেবতা হোরাসের পত্নী। সিনাই-এর খনি অঞ্চলের দেবী [৩৬]
হেকেত ব্যাঙ-দেবী। সন্তানজন্মের সময় মা এবং শিশুকে রক্ষা করেন ইনি। [৩৭]
হেসাট গো-দেবী, মিশরকে দুগ্ধ-মধুর দেশে পরিণত করেন তিনি। [৩৮]
ইমেন্তেত পরকালের দেবী, আইসিস এবং হাথোরের সাথে সম্পর্কিত [৩৯]
আইসিস শ্রেষ্ঠ জনপ্রিয় দেবী, ওসিরিসের পত্নী এবং হোরাসের মা। পতিভক্তির জন্যে সুপ্রসিদ্ধ।মাতৃত্ব, সুরক্ষা এবং যাদুর দেবী। এছাড়া, মমি দের রক্ষা করেন বোন নেফথিস এর সাথে। [৪০]
মাত সত্য, ভারসাম্য, আদেশ, আইন, নৈতিকতা ও সুবিচার এর দেবতা। তিনি সৃষ্টির আদি মুহূর্তে সমস্ত বিশৃঙ্খলা থেকে একটি শৃঙ্খলাবদ্ধ অবস্থায় নিয়ে আসেন পৃথিবীকে। মাত একজন দেবী নন, বলা যায় একটি বিধান, যাকে সমস্ত ফারাও রা মেনে চলতে বাধ্য ছিলেন। আনির প্যাপিরাসে প্রাপ্ত ৪২টি স্বীকারোক্তি মাতর বিধানের লিখিত রূপ। [৪১]
মেনহিট সিংহ দেবী [৪২]
মুট আমনের অন্য স্ত্রী। থিবসে অন্যতম উপাস্য দেবী। [৪৩]
নেইথ নিম্নভূমির পূজিতা দেবী। সৃষ্টি এবং শিকারের দেবী [৪৪]
নেখবেট উচ্চভূমির দেবী [৪৫]
নেফথিস আইসিসের ভগিনী, দেবতা সেথের পত্নী। [৪৬]
নেপিত শস্যের দেবী, দেবতা নেপারের পত্নী [৪৭]
নুট আকাশের দেবী; দেবতা গেব এর স্ত্রী। তাঁর পাঁচ সন্তানঃ ওসিরিস, সেট, আইসিস, নেফথিস এবং হোরাস। [৪৮]
পাখেত সিংহ দেবী, বেনি হাসান এলাকায় পূজিতা। [৪৯]
রেনেনুতেত চাষবাসের দেবী। [৫০]
সাতেত মিশরের দক্ষিণ ভাগের উপাস্য। [৫১]
সেখমেট যুদ্ধের দেবী. দেবতা তাহ-এর স্ত্রী [৫২]
টেফনাট বৃষ্টি, শিশির এবং আর্দ্রতার দেবী। গেব এবং নুটের মা। [৫৩]
ওয়াদজেত নিম্নভূমির সর্প দেবী [৫৪]
ওয়ারসেত থিবসের দেবী [৫৫]

দেবতা এবং দেবীঃ উভরূপী ঐশ্বরিক সত্ত্বা সমূহ[সম্পাদনা]

ঈশ্বরের নাম ভূমিকা
ন্যু / ননেট অগদোয়াদের একজন সদস্য। তিনি হলেন হারমোপোলিয়ান অগদোয়াদ মহাজাগতিকতার প্রাচীন অগভীর জলীয় রূপের দৈবিক প্রতিরূপ। [৫৬]
রা /রে মধ্যদিনের সূর্য দেবতা। তিনি হোরাস নামেও পরিচিত। পঞ্চম রাজবংশ দ্বারা তিনি প্রাচীন মিশরীয় ধর্মের এক প্রধান দেবতাতে পরিণত হন [৫৭]
হেহ অসীম-অনন্তের দৈবিক প্রতিরূপ। অগদোয়াদের একজন সদস্য। [৫৮]
কেক আদিম বিশৃঙ্খলা এবং অন্ধকারের প্রতিরূপ।
তাতেনেন বিশৃঙ্খলা থেকে উদ্ভূত পৃথিবীর প্রথম স্থলভূমির প্রতীক [৫৯]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Wilkinson 2003, পৃ. 72
  2. Allen
  3. Leitz, Christian, "Deities and Demons: Egypt" in Johnston 2004, পৃ. 393–394
  4. Dunand ও Zivie-Coche 2004, পৃ. 8–11
  5. Wilkinson 2003, পৃ. 26–28
  6. Hornung 1982, পৃ. 62
  7. Assmann 2001, পৃ. 7–8, 83
  8. Hart 2005, পৃ. 11
  9. Hart 2005, পৃ. 13–22
  10. Hart 2005, পৃ. 113–114
  11. Hart 2005, পৃ. 25–28
  12. Hart 2005, পৃ. 34–40
  13. Hart 2005, পৃ. 40–42
  14. Hart 2005, পৃ. 48
  15. Hart 2005, পৃ. 58–60
  16. Hart 2005, পৃ. 61
  17. Hart 2005, পৃ. 70–76
  18. Hart 2005, পৃ. 84–85
  19. Hart 2005, পৃ. 85–86
  20. Hart 2005, পৃ. 86–88
  21. Hart 2005, পৃ. 92
  22. Hart 2005, পৃ. 96–97
  23. Wilkinson 2003, পৃ. 99
  24. Wilkinson 2003, পৃ. 204
  25. Hart 2005, পৃ. 102
  26. Hart 2005, পৃ. 114–124
  27. Hart 2005, পৃ. 128–131
  28. Hart 2005, পৃ. 143–145
  29. Hart 2005, পৃ. 147
  30. Hart 2005, পৃ. 151
  31. Hart 2005, পৃ. 156–159
  32. Hart 2005, পৃ. 162
  33. Hart 2005, পৃ. 28–29
  34. Hart 2005, পৃ. 45–47
  35. Hart 2005, পৃ. 47–48
  36. Hart 2005, পৃ. 61–65
  37. Hart 2005, পৃ. 67–68
  38. Wilkinson 2003, পৃ. 173–174
  39. Wilkinson 2003, পৃ. 145–146
  40. Hart 2005, পৃ. 79–83
  41. Hart 2005, পৃ. 89–90
  42. Wilkinson 2003, পৃ. 179
  43. Hart 2005, পৃ. 97–99
  44. Hart 2005, পৃ. 100–101
  45. Hart 2005, পৃ. 101–102
  46. Hart 2005, পৃ. 102–103
  47. Porter ও Moss 1991, পৃ. 76
  48. Hart 2005, পৃ. 110–112
  49. Hart 2005, পৃ. 125
  50. Hart 2005, পৃ. 135–137
  51. Hart 2005, পৃ. 140–141
  52. Hart 2005, পৃ. 138–139
  53. Hart 2005, পৃ. 156
  54. Hart 2005, পৃ. 161
  55. Hart 2005, পৃ. 164
  56. Hart 2005, পৃ. 66
  57. Hart 2005, পৃ. 133–135
  58. Hart 2005, পৃ. 66
  59. Hart 2005, পৃ. 154