তিলনা ইউনিয়ন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
তিলনা ইউনিয়ন
ইউনিয়ন
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সীল.svg তিলনা ইউনিয়ন পরিষদ
তিলনা ইউনিয়ন বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
তিলনা ইউনিয়ন
তিলনা ইউনিয়ন
বাংলাদেশে তিলনা ইউনিয়নের অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৫°০৭′৩০″ উত্তর ৮৮°৩৪′৫৫″ পূর্ব / ২৫.১২৫০° উত্তর ৮৮.৫৮১৯° পূর্ব / 25.1250; 88.5819স্থানাঙ্ক: ২৫°০৭′৩০″ উত্তর ৮৮°৩৪′৫৫″ পূর্ব / ২৫.১২৫০° উত্তর ৮৮.৫৮১৯° পূর্ব / 25.1250; 88.5819
দেশ বাংলাদেশ
বিভাগরাজশাহী বিভাগ
জেলানওগাঁ জেলা
উপজেলাসাপাহার উপজেলা
আয়তন
 • মোট৫৮ বর্গকিমি (২২ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা
 • মোট২২,৯৫৮
 • জনঘনত্ব৪০০/বর্গকিমি (১,০০০/বর্গমাইল)
সাক্ষরতার হার
 • মোট৬২%
সময় অঞ্চলবিএসটি (ইউটিসি+৬)
ওয়েবসাইটদাপ্তরিক ওয়েবসাইট

তিলনা ইউনিয়ন বাংলাদেশের রাজশাহী বিভাগের নওগাঁ জেলার সাপাহার উপজেলার অন্তর্গত একটি ইউনিয়ন[১][২]

অবস্থান[সম্পাদনা]

তিলনা, বাংলাদেশের নওগাঁ জেলার সাপাহার উপজেলার অন্তর্গত একটি ইউনিয়ন । তিলনা ইউনিয়ন এর অবস্থান ২৫.১২৫০° উত্তর ৮৮.৫৮১৯° পূর্ব। মোট আয়তন ৫৮ বর্গ কিলোমিটার। তিলনা ইউনিয়নের উত্তরে সাপাহার ইউনিয়ন, পূর্বে পত্নীতলা উপজেলার দিবর ইউনিয়ন , আকবরপুর ইউনিয়নমাটিন্দর ইউনিয়ন ,দক্ষিণে পোরশা উপজেলা এর ঘাটনগর ইউনিয়ন , মশিদপুর ইউনিয়নতেঁতুলিয়া ইউনিয়ন এবং পশ্চিমে পোরশা উপজেলা এর গাঙ্গুরিয়া ইউনিয়ন অবস্থিত । তিলনা ইউনিয়নের পূর্বপ্রান্তের কোল ঘেঁষে শিব নদী প্রবাহিত হয়ে গেছে। শিব নদকে স্থানীয়ভাবে বড়খাড়ী বলা হয়ে থাকে। উক্ত এলাকাটি বরেন্দ্র ভূমি এর বৈচিত্রময় বন্ধুর ভূমি ও নৈর্গীক সৌন্দর্যে পরিপূর্ণ।

যোগাযোগ ব্যবস্থা ও সময়সীমা[সম্পাদনা]

তিলনা ইউনিয়ন হচ্ছে একটি মানসম্মত ইউনিয়ন । এ ইউনিয়নে যোগাযোগের ব্যবস্থা অত্যন্ত সুদুর প্রসারী। সাপাহার হতে ১০ কিঃমিঃ দক্ষিণে জেলা সদর হতে প্রায় ৫০ কিঃমিঃ পশ্চিমে এ ইউনিয়ন অবস্থিত । পাকা রাস্তা সংলগ্ন ইউনিয়ন পরিষদ ক্যাম্পাস।

প্রশাসনিক এলাকা[সম্পাদনা]

তিলনা ইউনিয়ন ৯টি ওয়ার্ড, ৩৪ টি মৌজা ও ৩৪ টি গ্রাম নিয়ে গঠিত।

আয়তন ও জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

তিলনা ইউনিয়নের আয়তন ৫৮ বর্গ কিঃমিঃ। আয়তনের দিক দিয়ে তিলনা সাপাহার উপজেলার দ্বিতীয় বৃহত্তম ইউনিয়ন।

বাংলাদেশ সরকারের ২০১১ সালের আদমশুমারী অনুসারে তিলনা ইউনিয়নের মোট জনসংখ্যা ২২৯৫৮ জন।

শিক্ষার হার ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান[সম্পাদনা]

ব্রিটিশ আমল থেকেই তিলনা জনপদ শিক্ষাদীক্ষায় যথেষ্ট অগ্রসর ছিলো। এই অঞ্চলের জনগণ ছিলো বিশেষভাবে শিক্ষানুরাগী। তাদেরই উদ্যোগে ১৮৭০ খ্রিস্টাব্দে 'তিলনা প্রাথমিক বিদ্যালয়' প্রতিষ্ঠিত হয়। এটিই ছিল উক্ত এলাকার প্রথম শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। পরবর্তীতে তিলনা ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান স্থাপিত হতে থাকে এই এলাকার জনসাধারণের স্বতঃস্ফুর্ত সহযোগীতায়। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৪২ খ্রিস্টাব্দে প্রতিষ্ঠিত হয় 'তিলনা উচ্চ বিদ্যালয়' এবং ১৯৬১ খ্রিস্টাব্দে প্রতিষ্ঠিত হয় 'চাঁচাহার ফাযিল (স্নাতক) মাদ্রাসা । এরপর ১৯৯২ খ্রিস্টাব্দে প্রতিষ্ঠিত হয় 'তিলনা ডিগ্রী কলেজ'। বর্তমানে ইউনিয়নে ২২টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পাঁচটি উচ্চবিদ্যালয় , চারটি আলিয়া মাদ্রাসা, বেশ কিছু ক্বওমী মাদ্রাসা ও একটি ডিগ্রী কলেজ রয়েছে। বর্তমানে ইউনিয়নের সাক্ষরতার হার ৬২%।

উল্লেখযোগ্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো হচ্ছে:

প্রাথমিক বিদ্যালয়:

  • তিলনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • দোয়াশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • বাদ-দোয়াশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • চকগোপাল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • চাঁচাহার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • তিলনা চক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • শিহলী-বিদিরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • চন্দুরা-বাবুপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • ওড়নপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • দেওপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • বাদ-দমদমা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • অনাথপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

উচ্চবিদ্যালয়:

  • তিলনা বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়
  • তিলনা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়
  • ওড়নপুর উচ্চ বিদ্যালয়
  • চকগোপাল উচ্চ বিদ্যালয়
  • ডাঙ্গাপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়

মাদ্রাসা:

  • চাঁচাহার ফাযিল (স্নাতক) মাদ্রাসা
  • বেহেতইড় দাখিল মাদ্রাসা
  • জামালপুর দাখিল মাদ্রাসা
  • বাদ-দোয়াশ দাখিল মাদ্রাসা

কলেজ :

  • তিলনা ডিগ্রি কলেজ

দর্শনীয় স্থান[সম্পাদনা]

কৃতী ব্যক্তিত্ব[সম্পাদনা]

জনপ্রতিনিধি[সম্পাদনা]

বর্তমান চেয়ারম্যান-

মোঃ মোসলেম উদ্দীন
প্রাক্তন চেয়ারম্যানগণের তালিকা
ক্রমিক নাম মেয়াদ
০১ আব্দুর রহমান
০২ মোঃ মোসলেম উদ্দীন (ভারপ্রাপ্ত)
০৩ আলহাজ্ব শাহজাহান মন্ডন
০৪
০৫
০৬
০৭

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "তিলনা ইউনিয়ন"বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন। সংগ্রহের তারিখ ২৯ এপ্রিল ২০২০ 
  2. "সাপাহার উপজেলা"বাংলাপিডিয়া। ২৯ জানুয়ারি ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২৯ এপ্রিল ২০২০