চুখা জেলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
চুখা জেলা
জেলা
চুখা জেলার স্কাইলাইন
দেশভুটান
সদর দপ্তরফুন্টসলিং
আয়তন
 • মোট১,৯৯১ বর্গকিমি (৭৬৯ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০০৫)৭৪,২৭৮

চুখা জেলা ভুটান এর পশ্চিমাঞ্চলের একটি জেলা। এই জেলাটির গুরুত্ব ভুটানের জন্য অপরিসীম। এই শহরটি দেশের জিডিপিতে সবচেয়ে বেশি অবদান রাখে। এই জেলার সদর দপ্তর ও প্রধান এবং বৃহত্তম শহর হল ফুন্টসলিং[১] এই ফুন্টসলিং শহরটি হল বাণিজ্যিক রাজধানী। এই জেলেতেই দেশের সবচেয়ে বেশি শিল্প কলকারখানা রয়েছে। চুখা জেলা ভুটানের বড় জেলাগুলির মধ্যে অন্যতম। জেলাটির সীমান্তের অপর পাশে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের আলিপুরদুয়ার জেলা অবস্থিত। এই জেলাতেই দেশের বিদ্যুৎকেন্দ্র দুটি অবস্থিত। বিদ্যুৎ কেন্দ্র দুটি হল চুখা জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রটালা জলবিদ্যুৎ কেন্দ্ররায়ডাক এই জেলার প্রধান নদী।

অবস্থান[সম্পাদনা]

চুখা জেলা ভুটানের দক্ষিণ পশ্চিমে অবস্থিত একটি জেলা। এই জেলাটি সমুদ্র সমতল থেকে ৯৬১ মিটার থেকে ৩০০০ মিটার এর বেশি উঁচু। জেলাটি ভারতের সীমান্তের সঙ্গে যুক্ত রয়েছে।

ভূপ্রকৃতি[সম্পাদনা]

চুখা জেলাটি হিমালয় এর পাদদেশে অবস্থিতি।এই জেলার কিছু অংশ আবার উচ্চ হিমালয় এর অংশ।জেলাটির বেশির ভাগ অংশই উচু পাহাড় বা পর্বত্য এলাকা যুক্ত।কিছু কিছু পর্বত্য শৃঙ্গের উচ্চতা ৩০০০ মিটারের বেশি উচু। এই পাহাড়ের ঢালে ঘন অরণ্য অবস্থান করছে। পাহাড় গুলি থেকে প্রচুর নদী ও ঝর্নার সৃষ্টি হয়েছে। রায়ঢাক এখানকার প্রধান নদী। এই নদীতেই চুখা জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র[২] গড়ে উঠেছে। জেলার উত্তর দিকের অংশের উচ্চতা বেশি এবং দক্ষিণ দিকের উচ্চতা কিছুটা কম। এই জেলার নদী গুলির বেশির ভাগ উত্তর থেকে দক্ষিণ দিকে প্রবাহিত হয়েছে।

জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

চুখা জেলার জনসংখ্যা হল ২০০৫ সালের জন গণনা অনুযায়ী ৭৪,২৩৮ জন। এই জনসংখ্যার মধ্যে বেশির ভাগ মানুষ বৌদ্ধ ধর্ম অবলম্বি। এছাড়াও ওই জেলায় হিন্দু ধর্ম অবলম্বি এক বিরাট জনগোষ্টির বাস রয়েছে। জেলাটির বেশির ভাগ মানুষ ভুটানি ।ভুটানি ছাড়াও এখানে ভারতীয় ও নেপালি জাতীর মানুষের বসবাস রয়েছে।

যোগাযোগ ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

জেলাটিতে যোগাযোগ মধ্যম প্রধানত সড়ক পথের উপর নির্ভরশীল। এই জেলার প্রধান শহর ফুন্টসলিং থেকে বাস এর দ্বারা দেশের বিভিন্ন শহরের যোগাযোগ রক্ষা হয়। শহরটি ভারতের সঙ্গে সড়ক পথের দ্বারা যুক্ত রয়েছে। চুখা জেলার ফুন্টসলিং থেকে কলকাতা পর্যন্ত আন্তর্জাতিক বাস পরিসেবা চালু রয়েছে। জেলাটিতে কোনো রেল ব্যবস্থা নেই। এখানকার কাছের রেল স্টেশন বলতে ভারত এর নিউ জলপাইগুড়ি রেলওয়ে স্টেশন। বর্তমানে ভারতের আলিপুরদুয়ার থেকে ২০ কিলোমিটার রেলপথ নির্মাণের মাধ্যে ফুন্টসলিং পর্যন্ত রেল পরিসেবা গঠনের প্রস্তাব রাখা হয়েছে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "বজ্র ড্রাগনের দেশ"bdnews.com। সংগ্রহের তারিখ ২১-১১২০১৬  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  2. "ঘাটতি মেটাতে ভুটানে জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র গড়তে চায় রাজ্য"আনন্দবাজার প্রত্রিকা। সংগ্রহের তারিখ ২২-১১-২০১৬  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]