পেমাগাতশেল জেলা

স্থানাঙ্ক: ২৭°০′ উত্তর ৯১°১৫′ পূর্ব / ২৭.০০০° উত্তর ৯১.২৫০° পূর্ব / 27.000; 91.250
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পেমাগাতশেল জেলা
པད་མ་དགའ་ཚལ་རྫོང་ཁག
জেলা
ভুটানের পেমাগাতশেল জেলার মানচিত্র
ভুটানের পেমাগাতশেল জেলার মানচিত্র
দেশভুটান
সদরদপ্তরপেমাগাতশেল
আয়তন
 • মোট১,০৩০ বর্গকিমি (৪০০ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১৭)
 • মোট২৩,৬৩২
 • জনঘনত্ব২৩/বর্গকিমি (৫৯/বর্গমাইল)
সময় অঞ্চলবিটিটি (ইউটিসি+৬)
এইচডিআই (২০১৯)০.৬০৮[১]
মধ্যম · ১২তম
ওয়েবসাইটwww.pemagatshel.gov.bt

পেমাগাতশেল জেলা (জংখা: པད་མ་དགའ་ཚལ་རྫོང་ཁག་) হল ভুটানের ২০টি জংখাগ (জেলা) এর মধ্যে একটি।

ভাষা[সম্পাদনা]

এর বাসিন্দারা বেশিরভাগই শানগ্লা (শারচোপখা) ভাষায় কথা বলে, এটি একটি পূর্ব বোডিশ ভাষা যা পূর্ব ভুটানের মাতৃভাষা।[২]

জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

২০০৫ সালের হিসাবে পেমাগাতশেল জেলার জনসংখ্যা ছিল ১৩,৮৬৪ জন।[৩] ২০১১ সালের ফেব্রুয়ারীতে, প্রাকৃতিক এবং সরকারী উভয় সম্পদে আরও ভাল প্রবেশাধিকার প্রদানের জন্য পেমাগাতশেলের প্রত্যন্ত অঞ্চলে প্রায় ৪২ টি পরিবারকে জনসংখ্যা কেন্দ্রের কাছাকাছি স্থানান্তর করার জন্য নির্ধারিত হয়েছিল। এই পদক্ষেপের সমর্থকরা স্থান পরিবর্তনের মাধ্যমে জীবনযাত্রার মান উন্নত করার একটি কারণ হিসাবে স্থূল জাতীয় সুখকে উল্লেখ করেছেন। এই মডেল, সফল হলে, হাআ এবং হুয়েন্তসে জেলায় বাস্তবায়ন করা হবে।[৪]

অন্যান্য তথ্য[সম্পাদনা]

পেমাগাতশেল ভুটানের দক্ষিণ-পূর্বে ৫১৭.৮ বর্গ কিলোমিটার এলাকা নিয়ে গঠিত এবং মোট ২,৫৪৭টি পরিবার রয়েছে। জেলাটি অত্যন্ত বিচ্ছিন্ন পর্বতশ্রেণী, খাড়া ঢাল এবং সামান্য সমতল ভূমি সহ সরু উপত্যকা দ্বারা চিহ্নিত। জংখাগের উচ্চতা সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ১,০০০ মিটার থেকে ৩,৫০০ মিটার পর্যন্ত। জংখাগ বার্ষিক গড় বৃষ্টিপাত ১৫০০ মিমি থেকে ৩০০০ মিমি।

জংখাগ প্রশাসনিকভাবে এগারোটি গেওগে বিভক্ত। এবড়োখেবড়ো ভূখণ্ড এবং বিক্ষিপ্ত জনবসতি জংখাগে পরিষেবা সরবরাহ করা কঠিন এবং ব্যয়বহুল উভয়ই করে তোলে।

মোট এলাকার প্রায় ৫৩% বনভূমির আওতাভুক্ত, প্রধানত শঙ্কুযুক্ত এবং বিস্তৃত পাতার প্রজাতি। মোট জমির প্রায় ৪৫% চাষের অধীনে রয়েছে, জংখাগে আবাদযোগ্য জমির একটি ভাল শতাংশ রয়েছে। তবে, জমির মালিকানা কেবলমাত্র নগণ্য জলাভূমি চাষের কার্যকলাপের সাথে সেরি চাষের দ্বারা প্রভাবিত। শুকনো জমির চাষও একটি প্রভাবশালী কৃষি পদ্ধতি যার মধ্যে প্রধান খাদ্যশস্য হিসাবে ভুট্টা জন্মে।

এলাচ, আদা এবং কমলালেবুর মতো উদ্যানজাত ফসলের বিকাশের সম্ভাবনা খার, দুংমে এবং চোংশিং বোরাং-এর মতো কিছু গেওগে বিদ্যমান কিন্তু রাস্তা ও বাজারে প্রবেশাধিকারের অভাবের কারণে তা সীমাবদ্ধ। অধিকাংশ কৃষকদের অন্যান্য সমস্যার মধ্যে রয়েছে সেচের জন্য পানির উৎসের অভাব এবং ব্যাপক বন্যপ্রাণী ফসলের অবক্ষয়।

২০০১ সালে, প্রাথমিক থেকে মধ্য মাধ্যমিক পর্যন্ত মোট ১৬টি স্কুলের দ্বারা ৩৭৪০ জন শিক্ষার্থীকে শিক্ষা প্রদান করা হয়েছিল যখন স্বাস্থ্য পরিষেবা একটি জংখাগ জেনারেল হাসপাতাল, চারটি মৌলিক স্বাস্থ্য ইউনিট এবং ২২টি আউটরিচ ক্লিনিক দ্বারা সরবরাহ করা হয়েছিল। মোট 88টি গ্রামীণ জল সরবরাহ প্রকল্প পাইপযুক্ত পানীয় জলের সুবিধা প্রদান করে৷ ছয়টি আরএনআর সম্প্রসারণ কেন্দ্র, দুটি কৃষি সম্প্রসারণ কেন্দ্র, দুটি প্রাণিসম্পদ সম্প্রসারণ কেন্দ্র এবং একটি পশুখাদ্য বীজ উৎপাদন কেন্দ্র দ্বারা কৃষি ও প্রাণিসম্পদ সম্প্রসারণ পরিষেবা প্রদান করা হয়।

অপর্যাপ্ত বিদ্যুৎ সরবরাহ, সীমিত রাস্তার অ্যাক্সেসিবিলিটি এবং বাজারের আউটলেটগুলি জংখাগের উন্নয়নের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। জিপসাম খনিতে খামারের বাইরে কর্মসংস্থান; রাস্তাঘাট এবং অন্যান্য নির্মাণ কাজ মানুষের আয়ের একটি গুরুত্বপূর্ণ উৎস। সাংস্কৃতিক ও ধর্মীয় আইটেম যেমন জালিং, ধুঙ্গ, থনফুপো, নাগাঝিং জুরমো চা পাতা এবং ইউরুং বুরা (টেক্সটাইল) এর উৎপাদনও নগদ আয় করে। কুরিচু বিদ্যুৎ প্রকল্প চালু করা এবং পর্যাপ্ত বিদ্যুৎ সরবরাহের ব্যবস্থা জংখাগে অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়ন কর্মকাণ্ড ত্বরান্বিত করতে অনেক দূর এগিয়ে যেতে পারে।

প্রশাসনিক বিভাগ[সম্পাদনা]

পেমাগাতশেল জেলা এগারোটি গ্রাম ব্লকে বিভক্ত (বা গেওগ):[৫]

ভূগোল[সম্পাদনা]

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় পেমাগাতশেল (নরবুগাংয়ে গেওগে) রাজকীয় মানস জাতীয় উদ্যানের অংশ রয়েছে।[৬]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Sub-national HDI - Area Database - Global Data Lab"hdi.globaldatalab.org (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৯-১৩ 
  2. van Driem, George L. (১৯৯৩)। "Language Policy in Bhutan"London: SOAS। ২০১০-১১-০১ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০১-১৮ 
  3. "The Kingdom of Bhutan - Pemagatshel"। GeoHive online। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৭-১৪ 
  4. Namgay, Gyembo (২০১১-০২-১১)। "Far-Flung Pemagatshel Villages to be Resettled"Bhutan Observer online। ২০১২-০৪-০৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৭-১৪ 
  5. "Chiwogs in Pema Gatshel" (PDF)। Election Commission, Government of Bhutan। ২০১১। ২০১১-১০-০২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৭-২৮ 
  6. "Parks of Bhutan"Bhutan Trust Fund for Environmental Conservation online। Bhutan Trust Fund। ২০১১-০৭-০২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৩-২৬