গ্রীনফিল্ড আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
দ্যা স্পোর্টস হাব, ত্রিভান্দ্রাম
গ্রীনফিল্ড স্টেডিয়াম
240px
অবস্থানতিরুবনন্তপুরম, কেরল, ভারত
স্থানাঙ্ক৮°৩৪′১৭.৪″ উত্তর ৭৬°৫৩′০৩.৫″ পূর্ব / ৮.৫৭১৫০০° উত্তর ৭৬.৮৮৪৩০৬° পূর্ব / 8.571500; 76.884306
মালিককেরালা বিশ্ববিদ্যালয়
পরিচালককারিয়াবত্তম স্পোর্টস ফ্যাসিলিটিস লিঃ
ধারণক্ষমতা৫০,০০০[১]
উপরিভাগঘাস (মাঠ)
নির্মাণ
কপর্দকহীন ভূমি২০১২; ৭ বছর আগে (2012)
নির্মিত২০১৫; ৪ বছর আগে (2015)
উন্মোচন২৬ জানুয়ারি ২০১৫; ৪ বছর আগে (2015-01-26)
নির্মাণ খরচ৩৯০ কোটি (US$৫৪.২৭ মিলিয়ন)
স্থপতিকলেজ ডিজাইন, মুম্বাই[২]
মূল ঠিকাদারআইএলএফএস লিমিটেড।
ওয়েবসাইট
thesportshub.in
স্টেডিয়ামের তথ্যাবলী

আন্তর্জাতিক তথ্যাবলী
একমাত্র ওডিআই১ নভেম্বর ২০১৮: ভারত বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
একমাত্র টি২০ আন্তর্জাতিক৭ নভেম্বর ২০১৭: ভারত বনাম নিউজিল্যান্ড
১ নভেম্বর ২০১৮ অনুযায়ী
উৎস: ক্রিকইনফো

দ্যা স্পোর্টস হাব, ত্রিভান্দ্রাম, সাধারণত গ্রীনফিল্ড আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম, হিসাবে পরিচিত[৩] এবং পূর্বে ত্রিভান্দ্রাম আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম, নামে পরিচিত কেরালার একটি বহুমুখী স্টেডিয়াম, প্রধানত ব্যবহৃত হয় ফুটবলক্রিকেটের জন্য। স্টেডিয়ামটি ভারতের কেরালার তিরুবনন্তপুরম শহরের কারিয়াভাত্তম এলাকায় অবস্থিত। স্টেডিয়ামটি বাৎসরিক ৯৪ লাখ রুপি ইজারায় ১৫ বছরের জন্য অধিগ্রহণকৃত কেরালা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩৬ একর জমির উপর নির্মিত।[৪] এটাই হল ভারতের প্রথম ডিজাইন, নির্মাণ, পরিচালনা ও প্রত্যাবর্তন মডেলর আউটডোর স্টেডিয়াম। ২০১৭ সালের ৭ নভেম্বর ভারত ও নিউজিল্যান্ডের মধ্যকার একটি টি২০আই আয়োজনের মধ্য দিয়ে গ্রীনফিল্ড আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামটি ভারতের ৫০তম আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম হিসাবে আত্মপ্রকাশ করে। [৫] ২০১৮ এর ১ নভেম্বর ভারত ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের মধ্যকার একটি একদিনের আন্তর্জাতিক খেলা আয়োজন করে, যা ছিল উক্ত মাঠের প্রথম ওডিআই।[৬]

সুবিধাদি[সম্পাদনা]

মাঠটিকে এমনভাবে তৈরী করা হয়েছে যাতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট এবং ফুটবল উভয় খেলাই খেলা যায়। মাঠের খেলার জায়গাগুলো তৈরী করা হয়েছে ফিফাআন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)র আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম আইন ও নিয়ম মেনে। মাঠটিতে রয়েছে ৫০,০০০ আসন ধারণ ক্ষমতা।[১]

স্টেডিয়ামটিকে বিন্যস্ত করা হয়েছে চারটি জোনে, যেখানে উত্তরদিকে জোনটি পুরোপুরিভাবে ক্রিকেটের জন্য বরাদ্ধ, পূর্ব জোনটি ফুটবলের জন্য এবং প্রতিটি জোনে রয়েছে প্লেয়ার লাউঞ্জ, জিমন্যাসিয়াম, মিডিয়া সেন্টার এবং স্টক রুম। শপিং মল এবং ফুড কোর্ট দক্ষিণের জোনে রাখা হয়েছে। সংযুক্ত প্যাভিলিয়ন প্রান্তে রয়েছে সর্বাধুনিক সুযোগ সুবিধা সম্বলিত ব্যাডমিন্টন, ভলিবল, বাস্কেটবল, টেবিল টেনিস এবং অলিম্পিক সাইজ সুইমিং পুল।

ভারতের সর্বপ্রথম পরিবেশ বান্ধব স্টেডিয়াম, চারদিকে সবুজ গাছপালা বেষ্টিত এবং বৃষ্টির পানি সংগ্রহের সুবিধা সম্বলিত।. রাজ্যের পরিবেশ প্রভাব মূল্যায়ণ কর্তৃপক্ষ এবং দুষণ নিয়ন্ত্রণ বোর্ড গৃহিত সবুজ উদ্যোগের জন্য নির্মাতাদের প্রশংসা করেছে।[৭] স্টেডিয়ামটি ত্রিভান্দ্রাম আন্তর্জাতিক এয়ারপোর্ট থেকে ১৩.৩ কিলোমিটার এবং ত্রিভান্দ্রাম কেন্দ্রীয় রেলওয়ে স্টেশন ও কেন্দ্রীয় বাস স্টেশন থেকে ১৪.৪ কিলোমিটার দুরে অবস্থিত।

নির্মাণের বিবরণ[সম্পাদনা]

এটি ভারতের প্রথম স্টেডিয়াম ছিল যা ডিবিওটি (নকশা, নির্মাণ, পরিচালনা ও স্থানান্তর) ভিত্তিতে নির্মিত। এটি দেশের প্রথম স্টেডিয়াম যা বাৎসরিক ভিত্তিতে উন্নয়ন করা হবে।[৮] [৯] গ্রীনফিল্ড স্টেডিয়ামটি ১৫ বছর পর্যন্ত পরিচালনা করবে এর নির্মাতা কোম্পানী। এরপর এটিকে কেরালা বিশ্ববিদ্যালয়কে হস্তান্তর করা হবে, যারা এর জন্য ৩৬ একর জমি ইজারা নিয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রতি বছর ইজারা পাবে ৯৪ লাখ রুপি।

ক্রিকেট[সম্পাদনা]

৭ নভেম্বর ২০১৭, ভারত ও নিউজিল্যান্ডের মধ্যকার প্রথম টি২০ আন্তর্জাতিক খেলা শুরু হওয়ার পূর্বমুহুর্তে স্টেডিয়ামের চিত্র

২৭ মে ২০১৬, কেরালা ক্রিকেট এসোসিয়েশন(কেসিএ) এবং কারিয়াভাত্তম স্পোর্টস ফ্যাসিলিটিস লিঃ (কেএসএফএল) এর মধ্যে ২০২৭ সালের ১৮ নভেম্বর পর্যন্ত স্টেডিয়ামটি ইজারার চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। চুক্তিপত্র মোতাবেক কেসিএ বছরে ১৮০ দিন (১ অক্টোবর থেকে ৩১ জানুয়ারী এবং ১ এপ্রিল থেকে ৩০ মে) স্টেডিয়ামটি ব্যবহার করবে। এরপরেও কেসিএ অন্যান্য ক্রিকেট ম্যাচও আয়োজন করতে পারবে যদি স্টেডিয়ামটি ম্যাচের নির্ধারতি দিনে খালি পাওয়া যায়। স্টেডিয়ামের আভ্যন্তরীন খেলার জায়গার যাবতীয় মেরামত কাজের দায়ভার নেবে কেসিএ। একটি নির্ধারতি অঙ্কের ফি প্রদান করবে। আন্তর্জাতিক খেলা চলাকালীন সময়ের অর্জিত লভ্যাংশ কেসিএ ও কেএসএফএল ভাগাভাগি করে নেবে। ছয় সদস্যের একটি যৌথ কমিটি (কেসিএ থেকে ৩ জন এবং কেএসএফএল থেকে ৩ জন) ইজারা চলাকালীন সময়ে উক্ত স্টেডিয়ামের ব্যবস্থাপনা ওও দেখাশুনার দায়িত্বে থাকবে। উক্ত কমিটির সভাপতি ও সেক্রেটারী হবেন কেসিএ এর সদস্যরা।[১০]

প্রথম আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলার আয়োজন[সম্পাদনা]

টি২০আই[সম্পাদনা]

২০১৭ সালের ৭ নভেম্বর, ভারত একটি টি২০আই ম্যাচ খেলে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে এই মাঠে। খেলাটি বৃষ্টির কারণে উভয় দলের জন্য ৮ ওভারে সীমিত করে আনা হয়, যেখানে ভারত ৬ রানে জয় লাভ করে।[১১]

0২০১৭-১১-০৭৭ নভেম্বর ২০১৭
১৯:০০ (দিন/রাত)
Scorecard
ভারত 
৬৭/৫ (৮ ওভার)
 নিউজিল্যান্ড
৬১/৬ (৮ ওভার)
মনীষ পান্ডে ১৭ (১১)
টিম সাউদি ২/১৩ (২ ওভার)
ভারত ৬ রানে বিজয়ী
গ্রীনফিলন্ড আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম, তিরুবনন্তপুরম
আম্পায়ার: অনীল চৌধুরী (ভারত) এবং নিথীন মেনন (ভারত)
সেরা খেলোয়াড়: জসপ্রীত বুমরাহ (ভারত)
  • নিউজিল্যান্ড টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • বৃষ্টির কারণে খেলাটিকে ৮ ওভারে সীমিত করা হয়।
১ নভেম্বর ২০১৮, ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাথে ওডিআই ম্যাচের সময় গ্রীনফিল্ড স্টেডিয়ামে ভারতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক বিরাট কোহলি

ওডিআই[সম্পাদনা]

১ নভেম্বর ২০১৮, ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাথে ভারতের একটি ওডিআই ম্যাচ ও উক্ত মাঠের দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক খেলা অনুষ্ঠিত হয়, স্বাগতিক দল ভারত ৯ উইকেটে জয় লাভ করে[১২]

0২০১৮-১১-০১১ নভেম্বর ২০১৮
১৩:৩০ (দিন/রাত)
Scorecard
ওয়েস্ট ইন্ডিজ 
১০৪ (৩১.৫ ওভার)
 ভারত
১০৫/১ (১৪.৫ ওভার)
রোহিত শর্মা ৬৩* (৫৬)
ওশেন টমাস ১/৩৩ (৪ ওভার)
ভারত ৯ উইকেটে বিজয়ী
গ্রীনফিল্ড আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম, তিরুবনন্তপুরম
আম্পায়ার: অনীল চৌধুরী (ভারত) এবং পল উইলসন (অস্ট্রেলিয়া)
সেরা খেলোয়াড়: রবীন্দ্র জাদেজা (ভারত)
  • ওয়েস্ট ইন্ডিজ টসে জিতে ব্যাটিং এর সিদ্ধান্ত নেয়।
  • এটা ছিল এই মাঠের প্রথম একদিনের আন্তর্জাতিক। [৬]
  • এটা ছিল ভারতে বিপক্ষে ওয়েস্ট ইন্ডিজের করা সর্বনিম্ন স্কোর[১৩]

ফুটবল[সম্পাদনা]

স্টেডিয়ামে আয়োজন করা প্রথম আন্তর্জাতিক ফুটবল প্রতিযোগিতাটি ছিল ২০১৫ সাফ চ্যাম্পিয়নশীপ আফগানিস্তানকে ২-১ গোলে পরাজিত করে ভারত শিরোপা জিতে নেয়। ফাইনাল খেলায় ৪০,০০০ দর্শকের উপস্থিতি রেকর্ড তৈরী হয়। [১৪]

সেমি-ফাইনাল[সম্পাদনা]


ফাইনাল[সম্পাদনা]

ভারত ২-১ (অ.স.প.) আফগানিস্তান
জেজে লালপেখলুয়া গোল ৭২'
সুনীল ছেত্ৰী গোল ১০১'
Report যোবায়ের আমিরি গোল ৭০'
দর্শক সংখ্যা: ৪০,৫০০
রেফারি: হিরয়োকি কিমুরা (জাপান)

পুরস্কার[সম্পাদনা]

স্পোর্টস হাব, ত্রিভান্দ্রাম ২০১৬ এর ১ জুন স্পেনের সান্তিয়াগু বারনাবু স্টেডিয়াম, মাদ্রিদে অনুষ্ঠিত "স্টেডিয়াম বিজনেস" সভায় ডেভিড ভিকার পুরস্কার এর জন্য নতুন প্রতিষ্ঠিত মাঠ তালিকায় মনোনীত হয়ে পুরস্কার জিতে নেয়। [১৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Greenfield Stadium Touching New Heights"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৬-২৬ 
  2. "TRIVANDRUM INTERNATIONAL STADIUM"Collage Design। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুন ২০১৯ 
  3. "Greenfield International Stadium"। ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৩ নভেম্বর ২০১৭ 
  4. THE IL&FS KERALA STADIUM
  5. "Capital to host India-NZ T20 in November" 
  6. "West Indies eye top-order stability in bid to square series"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১ নভেম্বর ২০১৮ 
  7. "Trivandrum International Stadium Opened, Ready For Opening Ceremony"। The Sports Hub। ২৫ মার্চ ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুন ২০১৯ 
  8. A. Vinod (২০১২-০৪-০৫)। "NGS, KSFL sign path-breaking pact"The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৫-২৭ 
  9. Sangeetha Unnithan (২০১২-০৫-২৬)। "State capital earning its sporting stripes"। The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৫-২৭ 
  10. "KCA inks deal with KSFL to take Greenfield stadium on lease"। The Hindu। ২০১৬-১১-০১। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৬-২৬ 
  11. "Chahal, Bumrah help India edge eight-over shootout"। ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুন ২০১৯ 
  12. "5th ODI (D/N), West Indies tour of India at Thiruvananthapuram, Nov 1 2018 | Match Report | ESPNCricinfo"ESPNcricinfo (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১১-০১ 
  13. "Windies hit new low in final India ODI"SuperSport। সংগ্রহের তারিখ ১ নভেম্বর ২০১৮ 
  14. "SAFF Suzuki Cup on Twitter" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১১-০৫ 
  15. "Sports Hub wins coveted award"। The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ১৯ মার্চ ২০১৮ 

বহিঃ সংযোগ[সম্পাদনা]